অনুষ্ঠান শেষে পাকিস্তানি রাষ্ট্রদূত স্ত্রী’র জন্য চেয়ে নিলেন ফখরুদ্দিনের বিখ্যাত ঢাকাইয়া কাচ্চি বিরিয়ানী

প্রকাশিতঃ এপ্রিল ১, ২০১৯ । ২০:১২
আপডেটঃ এপ্রিল ১, ২০১৯ । ২০:১৭

মোঃ জাবেদ আল-মামুন, সিনিয়র সাংবাদিকঃ বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে দিল্লীর চাণক্যপুরীতে পালিত হয় ২৬ শে মার্চ। প্রতিবারের মত আমন্ত্রিত ছিলেন বিভিন্ন দেশের কূটনীতিকবিদ ও সামরিক অ্যাটাশেরা।

সেই ভিভিআইপিদের মাঝে নজর এড়ায়নি পাকিস্তানি রাষ্ট্রদূত সোহেল মাহামুদ, তিনি ভারতে নিযুক্ত পাকিস্তানি হাইকমিশনার। গত ১ বছরেরও বেশি সময় ধরে তিনি এই পদে রয়েছেন। খুব শিগগরই তিনি পাকিস্তানের পররাষ্ট্র সচিব বা শীর্ষ কূটনীতিবিদের দ্বায়িত্ব পাচ্ছেন। গত ২৬ মার্চ সোহেল মাহামুদ তার বিশাল প্রতিনিধি দল নিয়ে স্বাধীনতা দিবসে শুভেচ্ছা জানাতে এসেছিলেন, তাতে অনেকে অবাক হয়েছেন।

এমনেতি দিল্লীতে পাকিস্তানি কূটনীতিবিদরা বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবসের আমন্ত্রণ এড়িয়ে চলেন। যদিও পাকিস্তান ভেঙ্গে বাংলাদেশের স্বাধীনতার লাভের বিষয়টি পাকিস্তানের আজও একটি অত্যন্ত স্পর্শকাতর ইস্যু, তারপরেও কোন না কোন প্রতিনিধি বাংলাদেশের আমন্ত্রণ রক্ষা করতে এসে থাকেন। কিন্তু পুরো বিষয়টা এবার একটা অন্য মাত্রায় নিয়ে গেছেন বর্তমান হাইকমিশনার সোহেল মাহামুদ।

দূতাবাসে তার ডেপুটি, পলিটিক্যাল মিনিস্টার, কাউন্সিলর, ফার্স্ট সেক্রেটারিসহ প্রায় ১০/১২ জনের দল নিয়ে তিনি যখন আমন্ত্রণ রক্ষা করতে আসেন, উপস্থিত সকল অতিথিসহ ভারতীয়রাও চমকে গেছেন।

প্রায় ৩০ মিনিট ধরে উক্ত অনুস্থানে আকর্ষণ ছিলেন তিনি। পাকিস্তানি রাষ্ট্রদূতকে পেয়ে ছেঁকে ধরেছে উপস্থিত ভারতীয় সাংবাদিকরাও। অনুস্থানে এসে বাংলাদেশি রাষ্ট্রদূত সৈয়দ মোজ্জামেল আলীর সাথে স্বাধীনতার শুভেচ্ছা করেন সোহেল মাহামুদ। পাকিস্তানি রাষ্ট্রদূত যে অনুরোধটি করেন তার জন্য প্রস্তুত ছিলেন না বাংলাদেশি রাষ্ট্রদূত ।

দিল্লীতে বাংলাদেশের দূতাবাসেও গত ৪/৫ বছরে ধরেও ফখরুদ্দিন বিরিয়ানীর বর্ত্মান প্রজন্মের কর্ণধারদের উড়িয়ে এনে ভারতীয়দের রসনাতৃপ্তি করাচ্ছেন, দিল্লীর সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিলেন ঢাকার এই বিখ্যাত কাচ্চি বিরিয়ানী।

পাকিস্তানি হাইকমিশনার লজ্জা গলায় বললেন, আমি শুছেনি আপনারা আজ অতিথিদের আপ্যায়ন করছেন, ঢাকার বিখ্যাত ফখরুদ্দিনের কাচ্চি বিরিয়ানি দিয়ে, এই অনুস্থানে আমার স্ত্রী আসার কথা ছিল, কিন্তু সে বিশেষ কাজে ব্যস্ত থাকার কারনে আসতে পারেনি, তার জন্য কি একটু বিরিয়ানী দেওয়া যাবে?

বাংলাদেশি রাষ্ট্রদূত পাকিস্তানি হাইকমিশনারের স্ত্রী জন্য পার্সেল করে দেন। কিন্তু কেউ কি কোন দিন ভাবতে পেরেছিলেন, যে পাকিস্তানি রাষ্ট্রদূত ফখরুদ্দিনের কাচ্চি বিরিয়ানি দিয়ে বাংলাদেশের সাথে তাদের সম্পর্ক উন্নয়ন করার চেষ্টা করবে।

আপনার মতামত জানানঃ