কে এই শিল্পী : যুব মহিলালীগ নেত্রী পরিচয়ে দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন তাড়াশে

সংবাদদাতা (তাড়াশ) ফয়সাল আহম্মেদ: মনোয়ারা খাতুন শিল্পী। তার বাড়ি সিরাজগঞ্জের তাড়াশ উপজেলার সদর ইউনিয়নের পাচান গ্রামে। তাকে কখনও কেউ কোন দিন রাজনীতির সাথে চোখে দেখেনি। গত ২০১৪ সালের উপ-নির্বাচনে সিরাজগঞ্জ-৩ আসনে এমপি মনোনীত হন তাড়াশ থেকে একজন প্রবীন নেতা। হঠাৎ করে তার পাশে ঘুরঘুর শুরু করে এই মনোয়ারা খাতুন শিল্পী। শুধু তাই নয়, তখন থেকে আওয়ামী লীগের নেতাদের বাসা-বাড়ীতে যাওয়া আসা বাড়িয়ে দেন।

বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, মনোয়ারা খাতুন শিল্পীর পরিবারের সবাই বিএনপির রাজনীতির সাথে যুক্ত। তার বাবা সোরহাব আলী সিরাজগঞ্জ জেলার তারাশ উপজেলার সদর ইউনিয়নের পাচান গ্রামের ওয়ার্ড বিএনপি নেতা। তার এক চাচা সদর ইউনিয়নের পাচান গ্রামের ওয়ার্ড বিএনপি সভাপতি। আপন বড়ভাই শফিকুল ইসলাম শফি তাড়াশ উপজেলা যুবদলের নেতা। ছোটভাই সবুজ আহমেদ উপজেলা ছাত্রদলের নেতা। তাছাড়া তার বাবার চাচাতো ভাই তাড়াশ ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ ও সাবেক উপজেলা বিএনপি সভাপতি মৃত. ইব্রাহিম হোসেন। আরেক আতœীয় বাবুল আহমেদ তাড়াশ ডিগ্রী কলেজ ছাত্র সংসদের ক্রীড়া সম্পাদক ছিলেন। বর্তমানে যুবদলের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত। আরেক আতœীয় ফরহাদ হোসেন তাড়াশ উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ম আহŸায়ক।

শিল্পী খাতুনের উত্থান: শিল্পী খাতুনের স্বামী একজন স্কুল শিক্ষক। স্বামীর বাড়ি রায়গঞ্জ উপজেলায় চাকুরী করেন তাড়াশ উপজেলায়। আর একারনেই তিনি স্ত্রী,সন্তান নিয়ে তাড়াশে থাকেন। এদিকে তাড়াশ থাকার সুবির্ধাথে শিল্পী খাতুন স্থানীয় সাবেক এমপি কন্যা হোসেনেআরা পারভীন লাভলীর সাথে সখত্যা গড়ে তুলেন। পরে বিএনপি পরিবারে এ নেত্রী বাগিয়ে নেন উপজেলা যুব মহিলা লীগের যুগ্ম-আহবায়ক। সেই থেকে বেপরোয়া হয়ে উঠেন। দলের নাম ভাঙ্গিয়ে অফিস পাড়ায় তুলেন বিভিন্ন অজুহাতে বকশিশ। কিন্তু বিধিবাম তার কপাল খারাপ হয়ে যায় গত ৩০ ডিসেম্বর জাতীয় নির্বাচনের পর। কারণ বর্তমান সাংসদ নির্বাচিত হয়েছেন দেশের সুনামধন্য চিকিৎসক, চলনবিলের কান্ডারী ডা. অধ্যাপক আব্দুল আজিজ। তার কাছে কোন পাত্তা না পেয়ে কোনঠাসা হয়ে পড়ে। বর্তমানে দলের নিচু সারির কয়েকজন কর্মীর সাথে জরিত হয়ে সে আবারো বেপরোয়া হয়ে উঠছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে আওয়ামীলীগ কয়েকজন নেতা জানান, এই শিল্পী খাতুন একজন বিএনপি-জামাত পরিবারের সন্তান ও রাজনীতির সাথে জরিত। কিন্তু গত সাবেক এমপির সাথে মিশে সে হয়ে গিয়েছে হাইব্রীড যুব মহিলালীগ নেত্রী।

তাড়াশ উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আফসার আলী জানান, শিল্পী খাতুনের ভাই ও বাপ চাচারা তো বিএনপির রাজনীতি করেন। কিন্ত কি কারনে সে অন্য দল করছে তা জানা নেই।

এ বিষয়ে মনোয়ারা খাতুন শিল্পীর সাথে ( ০১৭৬১-৭১৪৮২২) যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেনি।

আপনার মতামত জানানঃ