চট্টগ্রাম বিএনপির হেভিওয়েটরা বাদ পড়ায় এবারও আসনটি মহাজোটেরর ঘরে যেতে পারে আশংকা বিএনপির

প্রকাশিতঃ ডিসেম্বর ৬, ২০১৮ । ২০:৫১
আপডেটঃ ডিসেম্বর ৬, ২০১৮ । ২০:৫১

রাজিব শর্মা, চট্টগ্রাম ব্যুরোঃ মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাইয়ে চট্টগ্রামের বেশ কয়েকটি আসনে বাদ পড়েছেন বিএনপির হেভিওয়েট প্রার্থীরা। এর ফলে এসব আসনে সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছেন আওয়ামী লীগ ও মহাজোটের প্রার্থীরা। দলের বিকল্প প্রার্থীদের জেতাতে না পারলে জেলার অন্তত সাতটি আসন ঐক্যফ্রন্টের হাতছাড়া হতে পারে বলে আশংকা বিএনপি নেতাকর্মীদের।

ভোটের মাঠে সবচেয়ে অনুকূল পরিস্থিতিতে রয়েছেন চট্টগ্রাম-৬ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী। রাউজান উপজেলা নিয়ে গঠিত এ আসন দীর্ঘদিন ধরে ফজলুল কাদের চৌধুরীর পরিবারের করায়ত্ত ছিল। তাদের এ জয়ের ধারায় ছেদ টানেন ফজলে করিম চৌধুরী। ২০০১ সাল থেকে টানা তিনবার এ আসনের সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন তিনি। এবার রাউজানে বিএনপির মূল প্রার্থী ছিলেন গিয়াস উদ্দিন কাদের চৌধুরীর ছেলে সামীর কাদের চৌধুরী। কিন্তু ঋণখেলাপি হওয়ায় তার মনোনয়নপত্র বাতিল হওয়ায় ভোটের আগেই এক ধাপ এগিয়ে গেছেন ফজলে করিম।

রাউজানে বিএনপির ভরসা এখন বিকল্প প্রার্থী জসীম উদ্দিন সিকদার। তবে উপজেলা বিএনপির এ সদস্য ভোটের মাঠে একেবারেই অপরিচিত মুখ। বিএনপির একাধিক জ্যেষ্ঠ নেতা বলেন, জসীম উদ্দিনকে দলের বিকল্প প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন দেয়া হয়েছিল। সামীর কাদেরের মনোনয়নপত্র বাতিল হওয়ায় এখন তিনিই বিএনপির ভরসা। কিন্তু ভোটের মাঠে দক্ষ ও পুরনো প্রার্থী ফজলে করিমের সঙ্গে বিএনপির এ প্রার্থী কতক্ষণ টিকতে পারবেন তা নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে।

চট্টগ্রাম-৭ (রাঙ্গুনিয়া) আসনেও আওয়ামী লীগের প্রার্থী মোহাম্মদ হাছান মাহমুদ অনেকটা নিশ্চিন্ত অবস্থায় রয়েছেন। এ আসনে বিএনপির মূল প্রার্থী ছিলেন গিয়াস উদ্দিন কাদের চৌধুরী। কিন্তু ঋণখেলাপি হওয়ায় তার মনোনয়নপত্র বাতিল হয়ে যায়। বিএনপির অপর দুই প্রার্থী আবু আহমেদ হাসনাত ও মো. আব্দুল আলিমের প্রার্থিতাও বাতিল হয়েছে।
বাছাইয়ের পর রাঙ্গুনিয়ায় মোট নয় প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন। এর মধ্যে সাবেক মন্ত্রী হাছান মাহমুদ ছাড়া এলাকায় পরিচিতি রয়েছে কেবল এলডিপির প্রার্থী নুরুল আলমের। তাই জোটগত নির্বাচনে নুরুল আলমকে ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী ঘোষণা করলে কিছুটা বেকায়দায় পড়তে পারেন হাছান মাহমুদ। অন্যথায় প্রার্থীর যোগ্যতা বিবেচনায় রাঙ্গুনিয়ায় আবারো এগিয়ে থাকবেন ২০০৮ সাল থেকে টানা দুবার নির্বাচিত আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক হাছান মাহমুদ।

চট্টগ্রাম-৭ আসনে মনোনয়নপত্র বৈধ হওয়া অন্য প্রার্থীরা হলেন মো. কুতুব উদ্দিন বাহার (বিএনপি), মোহাম্মদ নিয়ামতুল্লাহ (ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ), মোহাম্মদ আবু নওশাদ (বাংলাদেশ ইসলামিক ফ্রন্ট), মাহাবুবুর রহমান (জেএসডি), মোহাম্মদ জিয়াউর রহমান (এনপিপি), আহমদ রেজা (বাংলাদেশ ইসলামিক ফ্রন্ট) ও মো. শওকত আলী নূর (বিএনপি)।

চট্টগ্রাম-৫ (হাটহাজারী) আসনেও নির্বাচনী দৌড়ে পিছিয়ে পড়েছে বিএনপি। এ আসনে বিএনপির হেভিওয়েট প্রার্থী সাবেক মন্ত্রী মীর মো. নাসির উদ্দিন ও তার ছেলে মীর মো. হেলাল উদ্দিনের মনোনয়নপত্র বাতিল হওয়ায় বিএনপির একমাত্র আশা সাবেক এমপি ওয়াহিদুল আলমের মেয়ে ব্যারিস্টার সাকিলা ফারজানাকে ঘিরে। কিন্তু এ আসনে আবারো প্রার্থী হয়েছেন জাতীয় পার্টি নেতা আনিসুল ইসলাম মাহমুদ। ফলে মহাজোটের হেভিওয়েট প্রার্থীর সঙ্গে তুলনামূলক নতুন সাকিলা ফারজানা কতটুকু সুবিধা করতে পারবেন তা নিয়ে শঙ্কিত বিএনপি নেতাকর্মীরা।
হাটহাজারীতে মনোনয়নপত্র বাছাইয়ে টিকে যাওয়া স্বতন্ত্র ও অন্যান্য দলের আরো সাত প্রার্থী থাকলেও তাদের নিয়ে জল্পনা-কল্পনা নেই ভোটারদের মাঝে।

চট্টগ্রাম-৪ (সীতাকুণ্ড) আসনে নির্বাচনী মাঠে এগিয়ে রয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী দিদারুল আলম। এ আসনে বিএনপির হেভিওয়েট প্রার্থী মোহাম্মদ আসলাম চৌধুরীর মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে। বাতিল হয়েছে বিএনপির অপর প্রার্থী একেএম আবু তাহেরের মনোনয়নপত্রও। এর মধ্যে বিভিন্ন ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে ঋণখেলাপি হওয়ায় আসলাম চৌধুরী এবং দলীয় মনোনয়নের চিঠি জমা না দেয়ায় আবু তাহেরের মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে। বিএনপির অপর প্রার্থী এওয়াইবিআই সিদ্দিকীই (সাবেক আইজিপি) এখন ঐক্যফ্রন্টের একমাত্র ভরসা।
চট্টগ্রাম-২ (ফটিকছড়ি) আসনে বিএনপির মূল প্রার্থী গিয়াস উদ্দিন কাদের চৌধুরীর মনোনয়নপত্র বাতিল করেছেন নির্বাচন কমিশন। তার বিদায়ের পর দলের চারজন প্রার্থী অবশিষ্ট থাকলেও নির্বাচনী দৌড়ে পিছিয়ে রয়েছে বিএনপি। কারণ নতুন মুখ নিয়ে মহাজোটের প্রার্থী নজিবুল বশর মাইজভাণ্ডারীকে (তরীকত ফেডারেশন) হারানোর বিষয়ে সন্দিহান খোদ বিএনপি নেতাকর্মীরাই।

চট্টগ্রাম-৩ (সন্দ্বীপ) আসনেও ভোটের মাঠে এগিয়ে রয়েছেন আওয়ামী লীগ প্রার্থী মাহফুজুর রহমান মিতা। এ আসনে বিএনপির প্রার্থী সাবেক এমপি মোস্তফা কামাল পাশার মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে। এর ফলে নতুন মুখ সামনে রেখে ভোটারদের কতটা কাছে টানা যাবে, সে বিষয়ে প্রশ্ন রয়েছে বিএনপি নেতাকর্মীদের মধ্যে। সব মিলিয়ে সন্দ্বীপে বেশ জোরালো দেখাচ্ছে সাবেক এমপি মুস্তাফিজুর রহমানের ছেলে ও বর্তমান সংসদ সদস্য মিতার সম্ভাবনা।

চট্টগ্রাম-৮ (বোয়ালখালী) আসনেও নির্বাচনী খেলায় পিছিয়ে পড়েছে বিএনপি। দলের দুই হেভিওয়েট প্রার্থী এম মোরশেদ খান ও এরশাদ উল্লাহর মনোনয়নপত্র বাতিল হওয়ায় এ আসনে বিএনপির হয়ে টিকে আছেন আবু সুফিয়ান। চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সহসভাপতি আবু সুফিয়ানের ক্লিন ইমেজ হিসেবে পরিচিতি থাকলেও নতুন প্রার্থী হিসেবে তিনি ভোটের মাঠে কেমন পারফর্ম করবেন, সে ব্যাপারে শঙ্কা রয়েছে নেতাকর্মীদের মাঝে। হেভিওয়েট প্রার্থী না থাকায় এবারো আসনটি মহাজোটের ঘরে যেতে পারে বলে ভাবছেন বিএনপির অনেকে।

আপনার মতামত জানানঃ