চট বিছিয়ে চলছে পাঠদান,নেই কোন চেয়ার-টেবিল

প্রকাশিতঃ ৩:১২ অপরাহ্ণ, মঙ্গল, ১ অক্টোবর ১৯

জেলা প্রতিনিধিঃ শিক্ষার্থীদের বসার জন্য যেমন বেঞ্চ নেই, তেমনি শিক্ষকদের জন্যও নেই চেয়ার-টেবিল। মেঝেতে চট পেতে ক্লাস করেন শিক্ষার্থীরা। শীত, গ্রীষ্ম, বর্ষা সব ঋতুতে এভাবেই দীর্ঘদিন ধরে ‘জ্ঞান অন্বেষণে’ ক্লাস করে আসছেন তারা।
এমন চিত্র খুলনার রূপসা উপজেলার আঠারোবেকী মডেল বিদ্যাপীঠের। ৫৫ জন সুবিধাবঞ্চিত শিশু শিক্ষার্থী নিয়ে স্কুলটির যাত্রা শুরু ২০১৫ সালের ১৭ ডিসেম্বর। বিভিন্ন সামাজিক প্রতিষ্ঠান এবং কিছু মানবিক ব্যক্তির সহযোগিতায় চলে স্কুলের কার্যক্রম।
স্কুলের কয়েকজন শিক্ষার্থী বলেন, কনকনে শীতের সময়েও ফ্লোরে বসে ক্লাস করতে হয়। এতে ঠাণ্ডা লাগে। গরমের সময়ও ফ্যান না থাকায় কষ্ট হয়। সব স্কুলে বসার বেঞ্চ আছে, আমাদের নেই।

স্কুলটির প্রধান শিক্ষক শাখওয়াত হোসেন বিপ্লব বলেন, আমরা চেষ্টা করি গ্রামের এই সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের মধ্যে শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দিয়ে ওদের জীবনকে সুন্দর করতে। এসব বাচ্চাদের স্কুল ড্রেস এবং শিক্ষা উপকরণের ব্যবস্থা আমরাই করে থাকি। স্কুলে তাদের পড়াশোনা দেখভালের জন্য চার জন শিক্ষক আছেন। যারা সম্পূর্ণ বিনা বেতনে পড়াচ্ছেন। সপ্তাহে এক দিন আবৃত্তি, গল্পের এবং চিত্রাঙ্কন শিক্ষক আসেন। শিশুদের নিয়ে স্বাধীনতা দিবস, বিজয় দিবস, ভাষা দিবস, শোক দিবস এবং বাংলা নববর্ষে শিক্ষামূলক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে থাকি। মাঝে মাঝে বাচ্চাদের দুপুরের খাবারের ব্যবস্থা করা হয়।

তিনি আরও বলেন, এক নতুন স্বপ্ন নিয়ে স্কুলটি শুরু করি। এটি আমার দ্বিতীয় পরিবার। আমাদের সীমাবদ্ধতা অনেক কিন্তু আমরা তা জয় করে যেতে চাই আরো অনেক দূর। স্কুল পরিচালনার জন্য সমাজের সচেতন মানুষের সহযোগিতা ও পরামর্শ আশা করছি।

বিপ্লব জানান, স্কুলে চারটি শ্রেণিকক্ষ রয়েছে। তবে বেঞ্চ বা চেয়ার-টেবিল পর্যাপ্ত না থাকায় শিক্ষার্থী এমনকি শিক্ষকদেরও ফ্লোরে বসতে হয়। একটা রুমে কয়েকটা বেঞ্চ আছে। বাচ্চাদের খাওয়ার বিশুদ্ধ পানি এবং বাথরুমের খুব প্রয়োজন। স্কুলে টিনের ছাউনির কারণে এবং ফ্যান না থাকায় বাচ্চাদের গরমের মধ্যে ক্লাস করতে খুব অসুবিধা হয়। স্কুলের টিনের ছাউনির বদলে পাকা ছাদ, একটা টিউবয়েল, একটা বাথরুম, ফ্যান জরুরি হয়ে পড়েছে। এসব অবস্থা বিবেচনা করে সমাজের মানবিক ব্যক্তিদের সহযোগিতা কামনা করছি।
লিটন মীর নামের এক অভিভাবক বলেন, আমি ইটভাটায় কাজ করি। বছরে চার মাস কাজ থাকে বাকি সময় কোনো কাজ থাকে না। কিন্তু আমার ছেলেটা এই স্কুলে পড়ে। ওর বই-খাতা, পোশাক স্কুল থেকে দেয় বলেই আমি ওকে পড়াতে পারছি।
ছাবিনা বেগম নামের অপর অভিভাবক বলেন, আমার মেয়ে ফাতেমা এই স্কুলে পড়ে। ওর বাবা তেমন খরচ দেয় না। কিন্তু এখান থেকে জামা, জুতা, খাতা ও খাবার দেওয়া হয়। যে কারণে আমার মেয়ে প্রতিদিনই স্কুলে আসে। আমার খুব ভালোলাগে।

সমাজ সেবিকা ও স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি রুনা লায়লা বলেন, স্কুলটি প্রতিষ্ঠার শুরু থেকেই এখানে আছি। এখানে বাচ্চারা এক নতুন পরিবেশে শিক্ষার সুযোগ পাচ্ছে। কোনো সরকারি-বেসরকারি সহযোগিতা ছাড়াই স্কুল থেকেই শিক্ষা উপকরণ সরবরাহ করা হয়। শিক্ষকেরাও আন্তরিক। সত্যিই ভালোলাগে এ বাচ্চাদের সঙ্গে মিশতে।
২ নং শ্রীফলতলা ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য জাহিদ হাসান বাদশা বলেন, মৈশাঘূনী গ্রামের এই স্কুলটি নতুন ধারার এক স্কুল হওয়ায় অনেক বাচ্চাই শিক্ষার সুযোগ পাচ্ছে। যারা কখনও স্কুলে যেত না তারা স্কুলে যাওয়ার সুযোগ পায়। বেঞ্চ নেই চট বিছিয়ে চলছে স্কুলের পাঠদান। সবাইকে এদের সাহায্য করার আহ্বান জানাচ্ছি।
নারী ইউপি সদস্য আয়শা আক্তার রিপা বলেন, এলাকার তরুণদের ভালো একটি উদ্যোগ নেওয়ার জন্য অভিনন্দন জানাই। এদের পাশে থাকতে চেষ্টা করি।

আপনার মতামত জানানঃ