চামড়ার জুতার যত্ন

পলিশ করা: জুতা নিয়মিত পলিশ করা আবশ্যক। তবে কাজটি করার সময় মনে রাখতে হবে, সবসময় ক্রিম পলিশ ব্যবহার করতে হবে এবং জুতার রংয়ের সঙ্গে মিলিয়ে পলিশ ব্যবহার করতে হবে।

তলা টেকসই রাখতে: এজন্য জুতার তলায় রাবারের একটি বাড়তি পরত লাগিয়ে নিতে হবে। রাবারের তলা জুতার মূল চামড়ার তলা রক্ষা করবে।

জুতার বিশ্রাম: প্রতিদিন একই জুতা পরে বাইরে যাওয়া উচিত নয়। প্রিয় জুতা জোড়াকে একদিন ব্যবহারের পর কমপক্ষে একদিন বিশ্রাম দিতে হবে। এতে চামড়ার আর্দ্রতা শুকিয়ে যাওয়ার সুযোগ পায় এবং বেশিদিন টেকসই হয়।

জুতা শুকানো: সাধারণ তাপমাত্রায় জুতা শুকাতে হবে। রোদে কিংবা হিটারে শুকালে চামড়া কুঁচকে যেতে পারে, নষ্ট হতে পারে রং।

সংরক্ষণের ভুল ধারণা: অনেকেই মনে করেন জুতা বাক্সে রাখলে অনেকেদিন ভালো থাকবে, বিষয়টা উল্টা। দীর্ঘদিন বাক্সে ভরে রাখলে চামড়ার জুতা বা স্যান্ডেল নষ্ট হয়, বিশেষ করে আবহাওয়া যদি হয় স্যাঁতস্যাঁতে। নষ্ট হয় চামড়ার স্বাভাবিক উজ্জ্বলতা।

ধরন ভেদে যত্ন: চামড়ার ধরন ভেদে যত্নের পদ্ধতি ভিন্ন হয়। যেমন, ‘আনফিনিশড লেদার’ বা পলিশ না করা চামড়া থেকে ধুলাবালি পরিষ্কার করতে প্রথমে শুকনা কাপড় দিয়ে মুছতে হবে। পরে কুসুম গরম পানিতে ভেজানো কাপড় দিয়ে আবার মুছতে হবে।

স্প্রে ব্যবহার: পুরানো ‘ক্লাসিক’ জুতা ভালো রাখতে পানি, লবণ ও কাদা-রোধি স্প্রে ব্যবহার করতে পারেন। তবে নতুন জুতায় ব্যবহারে আগে পুরানো নষ্ট জুতায় স্প্রে করে দেখতে হবে জুতার রং নষ্ট হয় কি না।

ব্রাশ: জুতা টেকসই রাখতে এবং চকচকে-ভাব ধরে রাখতে জুতা থেকে ধুলাবালি পরিষ্কার করতে ব্রাশ ব্যবহার করতে পারেন।

আপনার মতামত জানানঃ