চামড়ার দাম কমানের পেছনে সিন্ডিকেটের হাত থাকলে ব্যবস্থা নেওয়া হবেঃ ওবায়দুল কাদের

প্রকাশিতঃ ৮:২৬ অপরাহ্ণ, বুধ, ১৪ আগস্ট ১৯

বিশেষ প্রতিবেদকঃ ঈদের ছুটি শেষে বুধবার সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, কোরবানির পশুর কাঁচা চামড়ার দাম কমার পেছনে ‘সিন্ডিকেটের কারসাজি’ রয়েছে কিনা তা খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন তিনি।
চামড়া নিয়ে ‘সিন্ডিকেটের কারসাজির’ অভিযোগের বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে কাদের বলেন, “চামড়ার ব্যাপারে বাস্তব চিত্রটা কী- তা ভালভাবে জানা নেই। নিরপেক্ষভাবে জানা দরকার সিন্ডিকেটের বিষয়টি। এরকম চক্র আমাদের দেশে আছে, ফায়দা লোটার জন্য সিন্ডিকেট করে। এ বিষয়টি (চামড়ার ক্ষেত্রে) হয়েছে কি না, তা খোঁজখবর নেওয়া হবে।”
এবার ঈদের দিন থেকেই সরকারের বেঁধে দেওয়া দামে চামড়া কেনা হচ্ছে না বলে অভিযোগ আসতে থাকে। ট্যানারি মালিকরা বকেয়া থাকা টাকা দেননি- এই যুক্তি দেখিয়ে আড়তদাররা চামড়া কেনা বন্ধ রাখলে কাঁচা চামড়া নিয়ে ফড়িয়ারা বিপাকে পড়েন।
দিনাজপুরে কাঁচা চামড়া বিক্রি করতে না পেরে বাজারে ফেলে চলে যান মৌসুমী ব্যবসায়ীরা। চট্টগ্রামেও লাখখানেক পশুর চামড়া সড়কে ফেলে দেওয়া হয়, পরে সেগুলো সরিয়ে মাটিচাপা দেয় সিটি করপোরেশন।
এরইমধ্যে বিএনপি নেতা রুহুল কবির রিজভী মঙ্গলবার অভিযোগ তোলেন- ক্ষমতাসীন দলের ‘সিন্ডিকেটের কারসাজিতে’ কোরবানির পশুর কাঁচা চামড়ার দাম কমিয়ে ‘পাশের দেশে পাচার’ করা হচ্ছে।
 বিএনপির অভিযোগের বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে ওবায়দুল কাদের বলেন, “ঈদের পর মাত্র একদিন সময় গেল, এ সময়ে পুরো বিষয় মূল্যায়ন করা সম্ভব নয়। সব কিছু মিলিয়ে সামগ্রিকভাবে বিষয়টি মূল্যায়ন করতে হবে।”
ঢালাও অভিযোগ করা বিএনপির ‘পুরনো অভ্যাস’ মন্তব্য করে ওবায়দুল কাদের বলেন, “যদি কোনো সিন্ডিকেটের কারসাজি হয়ে থাকে, যিনি অভিযোগ করেছেন তিনি বলুন, তথ্য প্রমাণসহ বলতে হবে।
“তারা সব সময় নেতিবাচক বিষয়টাকে আকড়ে ধরে, সরকারের সামান্য কিছু পেলেই সেটাকে নিয়ে তারা ঢালাও বিষোদ্গার করে। এটি বিরোধী দলের ঢালাও বিষোদ্গার কিনা তা খতিয়ে দেখা দরকার।”
মৌসুমি ব্যবসায়ীদের সংগ্রহ করা চামড়া যখন নষ্ট হচ্ছে, সরকার এ বিষয়ে কি করছে তা জানতে চান একজন সাংবাদিক।
উত্তরে কাদের বলেন, “সামগ্রিকভাবে অভিযোগগুলো পুরোপুরি খতিয়ে না দেখে কোনো রিমার্কস করা এখনো ঠিক হবে না, আরও দুই চারদিন যাক, এর মাধ্যমে সঠিক চিত্রটি খুঁজে বের করতে পারব।”
এর পেছনে ‘অপরাধমূলক’ কোনো কাজ হলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, “অফেন্স অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতে হবে। অন্যায় যেই করুক, অপরাধ যেই করুক, এখানে জাতীয় অর্থনীতির স্বার্থ বিঘ্নিত হলে, জাতীয় স্বার্থ বিঘ্নিত হলে তা দেখা সরকারের দায়িত্ব।
এদিকে উদ্ভূত পরিস্থিতিতে সরকার ইতোমধ্যে কাঁচা চামড়া রপ্তানির অনুমতি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়ার কথা জানিয়েছে।
বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেছেন, কোরবানির পশুর চামড়া বিক্রি করে মানুষ যে দাম পাচ্ছে, সেটা ‘যৌক্তিক না’। মানুষ যেন ন্যায্য দাম পায় তা নিশ্চিত করতেই সরকারের এ পদক্ষেপ।
চামড়ার পাইকারি ব্যবসায়ী ও আড়তদাররা সরকারের এ সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানালেও ট্যানারি মালিক ও চামড়াজাত পণ্য উৎপাদকরা ক্ষতির আশঙ্কায় সরকারের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছেন।

আপনার মতামত জানানঃ