ছাত্রলীগ কর্মীরা জবিতে ছাত্রদল কর্মীদের ওপর হামলা করেন

প্রকাশিতঃ ২:৪৭ অপরাহ্ণ, বৃহঃ, ৩ অক্টোবর ১৯

জবিঃ বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবিতে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি) শাখা ছাত্রদলের মিছিলে হামলা ও নেতাকর্মীদের পিটিয়েছেন ছাত্রলীগ কর্মীরা। এতে অন্তত দু’জন আহত হয়েছেন।
বৃহস্পতিবার (৩ অক্টোবর) সকাল সাড়ে ৯টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল ফটকের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা অনুষদের সামনে থেকে খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবিতে ঝটিকা মিছিল বের করেন শাখা ছাত্রদলের কয়েকজন নেতাকর্মী। মিছিলটি কলা ভবন পার হয়ে শান্ত চত্বরের দিকে আসার পথে তাদের ধাওয়া করেন শাখা ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতাকর্মী। এসময় অন্যরা পালিয়ে গেলেও ছাত্রদলের দুই-তিন কর্মীকে ধরে ফেলে ছাত্রলীগ। এরপর তাদের টেনে-হিঁচড়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল ফটকের বাইরে নিয়ে যান তারা। এসময় তাদের এলোপাতাড়ি পেটানো হয় বলে জানা গেছে। পরে, মারধর করে ছাত্রদল কর্মীদের বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে ফেলে চলে যান ছাত্রলীগ কর্মীরা।

এ ঘটনায় আব্দুর রশিদ, এম এ ফয়েজ, হিমেল, টিটু, জাহিদ, জায়েদ আহত হন। এর মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩য় ব্যাচের আব্দুর রশিদের আঘাত গুরুতর। প্রক্টরিয়াল বডি তাকে উদ্ধার করে প্রথমে প্রক্টর অফিসে, পরে ন্যাশনাল মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে পাঠনো হয়। চিকিৎসা শেষে তাকে পুলিশে হস্তান্তর করা হয়েছে।
এছাড়া, বাকি পাঁচ ছাত্রদল কর্মী পার্শ্ববর্তী ন্যাশনাল হাসপাতাল ও সুমনা হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন।

এ বিষয়ে শাখা ছাত্রদলের সভাপতি রফিকুল ইসলাম রফিক বলেন, আমরা ক্যাম্পাসে শান্তিপূর্ণ মিছিল করছিলাম। কিন্তু, ছাত্রলীগের হামলায় আমাদের ছয় নেতাকর্মী আহত হয়েছেন, একজনকে পুলিশে দিয়েছে প্রশাসন। আমরা ইতোমধ্যে উপাচার্যের সঙ্গে যোগাযোগ করেছি। তাদের বলেছি, শিগগিরই আব্দুর রশিদকে ছেড়ে দিতে হবে ও শুক্রবারের মধ্যে খালেদা জিয়ার নাম ফলক পুনঃস্থাপন করতে হবে। নাহলে আমরা পরবর্তী কর্মসূচি ঘোষণা করবো।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর মোস্তফা কামাল বলেন, ছাত্রলীগ-ছাত্রদলের মধ্যে একটি ঘটনা ঘটেছে। ছাত্রদলের এক কর্মীকে আমরা উদ্ধার করে চিকিৎসা শেষে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেছি।
এ বিষয়ে কথা বলতে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয়ের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।
চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে দুই গ্রুপের সংঘর্ষের ঘটনায় শাখা ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয়।

আপনার মতামত জানানঃ