জবি প্রতিষ্ঠার পর এবারই প্রথম দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হচ্ছে

প্রকাশিতঃ ৩:১২ অপরাহ্ণ, সোম, ৭ অক্টোবর ১৯

জবিঃ জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি) প্রতিষ্ঠার পর এবারই প্রথম দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। আর জবি ক্যাম্পাসে দেবী দুর্গার আগমনের প্রথমদিন থেকেই এক ধরনের সাজসাজ রব বয়ে যাচ্ছে। দিন কি রাত সবসময় মণ্ডপ এলাকায় ভক্তের ভিড় লেগেই আছে।

আয়োজকদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, প্রথমবারের মতো জবি ক্যাম্পাসে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজার আয়োজন করা হচ্ছে। আয়োজনের প্রথম দিকে বিজ্ঞান অনুষদের মাঠকে প্রাধান্য দেওয়া হলেও বিভিন্ন দিক বিবেচনায় পরে মণ্ডপ তৈরির জন্য কলা অনুষদের মাঠকেই নির্ধারণ করা হয়। জবির চারুকলা বিভাগের ৯ শিক্ষার্থী দিন-রাত কাজ করে প্রতিমা নির্মাণের কাজ সম্পন্ন করেন। পূজা শুরুর পর থেকেই শুধু বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী নন, আশেপাশের অনেকেই দেখতে আসছেন জবির মণ্ডপ। পাশেই শাঁখারি বাজারের মণ্ডপ থাকায় বাইরের মানুষের আনাগোনা বেশি বলেই মনে করছেন তারা।
সরেজমিনে দেখা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা অনুষদের মাঠে স্থাপিত দুর্গাপূজার মণ্ডপ ঘিরে দিনরাত মানুষের ভিড় লেগেই থাকছে। ক্যম্পাসের মূল ফটক থেকে শুরু করে পূজা মণ্ডপ পর্যন্ত নানা বয়সের মানুষ ভিড় করছেন। তবে মণ্ডপটি বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের ঠিক বিপরীত পাশে কিছুটা দূরে স্থাপিত হওয়ায় আজান ও নামাজের সময়ে মণ্ডপের সব সাউন্ড সিস্টেম বন্ধ রাখা হয় বলে জানা গেছে।

মণ্ডপ দেখতে আসা পূণ্যার্থী ও বিশ্ববিদ্যালয়ের হিন্দু ধর্মাবলম্বী শিক্ষার্থীরা জানান, একটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে সবসময় আমাদের চাওয়া সব ধর্মের মানুষের একটি করে উপাসনালয় থাকবে। কিন্তু এ ক্যাম্পাসে জায়গার অপ্রতুলতার জন্য সেটি হয়ে উঠেনি। কিন্তু এবার বিশ্ববিদ্যালয়ে অস্থায়ী ভিত্তিতে হলেও দূর্গা প্রতিমা তৈরি ও আরাধনার সুযোগ মিলেছে। দেবী আসছে আমাদের ক্যাম্পাসে যা আমাদের আনন্দকে দিগুণ করে তুলেছে। ভিসি স্যার আমাদের আশ্বাস দিয়েছেন নতুন ক্যাম্পাসে স্থায়ী মন্দির প্রতিষ্ঠা করা হবে। কিন্তু যতদিন এ ক্যাম্পাস রয়েছে ততদিন যাতে এ রীতিটা চালু থাকে সেটিই আমাদের চাওয়া অস্থায়ী ভিত্তিতে হলেও যাতে পুজা মণ্ডপ তৈরি হয় এখানে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী পরিমল আচার্য বলেন, আমাদের ধর্মে সবচেয়ে বড় উৎসব এ দুর্গাপূজা। প্রথমবারের মতো এটি আমাদের ক্যাম্পাসে। আমার দিনের অর্ধেক সময় কাটে এ মণ্ডপ ও ক্যাম্পাসে আর বাকি সময় বাড়ির মণ্ডপে। মায়ের কাছে চাওয়া, আমাদের সবার মনের অশুভ শক্তিকে যেন তিনি বিনাশ করে দেন।
জবির ইতিহাসে প্রথমবারের মতো দুর্গাপূজা আয়োজনের ব্যাপারে জানতে চাইলে পূজা কমিটির সভাপতি অধ্যাপক ড. প্রিয়ব্রত পাল বলেন, উপাচার্য স্যারের ঐকান্তিক আগ্রহের কারণেই আমরা আমাদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসবকে এ বিশ্ববিদ্যালয়ের সার্বজনীন এক উৎসব হিসেবে আয়োজন করতে পেরেছি। আমরা মনে করি, এ আয়োজন শুধু সনাতন ধর্মাবলম্বীদের জন্য নয় বরং এটি গোটা জগন্নাথ পরিবারের অংশগ্রহণমূলক এক উৎসব।

এদিকে, জবিতে প্রথমবারের মতো আয়োজিত এ উৎসবকে ধর্ম নয় বরং উৎসব হিসেবে আখ্যা দিয়ে উপাচার্য ড. মীজানুর রহমান বলেন, ধর্মীয় কারণ নয় বরং উৎসব হিসেবেই পালিত হচ্ছে দুর্গাপূজা। সনাতন ধর্মাবলম্বী শিক্ষার্থী ছাড়াও পুরান ঢাকার মানুষ এ পূজা দেখতে ক্যাম্পাসে ভিড় জমাচ্ছে এটাই আমার প্রাপ্তি।
আয়োজক সংশ্লিষ্টদের বরাতে জানা যায়, যেহেতু বিশ্ববিদ্যালয়ে স্থায়ী কোনো মণ্ডপ নেই, তাই বিজয়া দশমীর দিনে এই এলাকার অন্যান্য প্রতীমাগুলোর মতো এ প্রতীমাও বুড়িগঙ্গায় বিসর্জন দেওয়া হবে। এবং এরই মধ্য দিয়ে শেষ হবে হিন্দু ধর্মের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব, শেষ হবে জবিতে প্রথমবারের মতো অনুষ্ঠেয় দুর্গোসবেরও।

আপনার মতামত জানানঃ