জাবিতে সেফুদাকে অবাঞ্ছিত ঘোষণার দাবি

প্রকাশিতঃ এপ্রিল ২০, ২০১৯ । ১৫:৪৭
আপডেটঃ এপ্রিল ২০, ২০১৯ । ১৫:৪৭

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদকঃ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে লাইভে এসে পবিত্র কোরআন শরীফ অবমাননা ও অশালীন ভিডিও প্রকাশ করায় সেফাতুল্লাহ ওরফে সেফুদাকে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে অবাঞ্ছিত ঘোষণার দাবি জানিয়ে মানববন্ধন করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

শুক্রবার বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মিনারের পাদদেশে এই মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষার্থীরা তাদের দাবি ও বক্তব্য তুলে ধরেন।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ৪২তম আবতর্নের প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের শিক্ষার্থী মনিরুল ইসলাম মুহিন বলেন, সেফুদা পবিত্র কোরআন শরীফ অবমাননা করে জঘন্য অপরাধ করেছে, ইসলামকে জঘন্য ভাষায় গালিগালাজ করেছে, সে এদেশের ধর্মপ্রাণ মুসলিমদের অনুভূতিতে আঘাত করেছে, তাই আমি সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি তাকে যেন আইনের আওতায় নিয়ে আসা হয়। তাকে আমরা আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে অবাঞ্ছিত ঘোষণার দাবি জানাচ্ছি।

৪৬তম আবতর্নের ইয়াহিয়া জিসান বলেন, সবারই মত প্রকাশের অধিকার আছে কিন্তু কারও ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দেয়ার অধিকার তাকে কেউ দেয়নি, তার কারণে আমাদের দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট হচ্ছে। তাই আমরা সকলে তাকে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে অবাঞ্ছিত ঘোষণার দাবি জানাচ্ছি।


অপরদিকে মানববন্ধনে শিক্ষার্থীরা সেফাতুল্লাহর বিরুদ্ধে রাষ্ট্রীয়ভাবে তদন্ত করা, সে যদি মানসিক রোগী হয় তাহলে যথাযথ চিকিৎসা করানো আর যদি মানসিক রোগী না হয় তাহলে দেশে এনে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া ও সোশ্যাল মিডিয়া থেকে তার সকল ভিডিও সরানোর ব্যবস্থা করাসহ চার দফা দাবি উত্থাপন করেন।

প্রসঙ্গত, সম্প্রতি সোশাল মিডিয়ায় বেশ আলোচনায় আছেন সেফাতউল্লাহ নামে এক প্রবাসী বাংলাদেশি। ফেসবুকে নানান ধরনের অশ্লীল, অসঙ্গতিপূর্ণ ও বিদ্বেষমূলক ভিডিওবার্তা ছড়িয়ে আলোচনায় আসেন তিনি। ১৯৯০ সাল থেকে অস্ট্রিয়ার রাজধানীর ভিয়েনায় অবস্থান করছেন সেফাতউল্লাহ ওরফে সেফুদা। তার গ্রামের বাড়ি চাঁদপুর। লেখাপড়া করেছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে, তিনি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের ছাত্র ছিলেন বলে দাবি করেন।

আপনার মতামত জানানঃ