ডিজিটাল হাজিরা মেশিন সরকারের বেঁধে দেওয়া সময়ের মধ্যে সকল বিদ্যালয়ে বসানো হয়নি

প্রকাশিতঃ ১১:৫৪ পূর্বাহ্ণ, সোম, ২৬ আগস্ট ১৯

মোঃ নাজমুল ইসলাম তাজ যশোর সদর প্রতিনিধি: যশোরের বেশিরভাগ প্রাথমিক স্কুলে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের বেঁধে দেওয়া সময়ের মধ্যে বায়োমেট্রিক হাজিরা মেশিন বসানো হয়নি। স্কুলে শিক্ষার্থী ও শিক্ষার্থীদের নিয়মিত উপস্থিতি নিশ্চিত করার জন্য চলতি বছরের জুন মাসের মধ্যে এই বায়োমেট্রিক মেশিন বসানোর নির্দেশনা ছিল। তবে বরাদ্দকৃত অর্থ সময় মতো না পাওয়ায় সব প্রতিষ্ঠানে হাজিরা মেশিন বসানো যায়নি-বলছেন স্কুলের প্রধান শিক্ষকরা। যশোরের প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের কর্মকর্তারাও সময়মতন অর্থ বরাদ্দ দিতে না পারার বিষয়ে সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।


জানা যায়, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে প্রাপ্ত স্লিপ ফান্ডের অর্থ দিয়ে চলতি বছরের ৩০ জুনের মধ্যে বায়োমেট্রিক হাজিরা মেশিন ক্রয় ও স্থাপন করার কথা ছিল। কিন্তু মন্ত্রণালয় থেকে বরাদ্দের সম্পূর্ণ টাকা সময় মতো আসেনি। এজন্য অনেক স্কুল দেরিতে বরাদ্দের অর্থ পেয়েছে। ফলে দেরিতে অর্থ পাওয়া স্কুলে এখনো বায়োমেট্রিক হাজিরা মেশিন বসেনি। জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সূত্র জানায়, ২০১৮-১৯ অর্থবছরে জেলার ১ হাজার ২০০টি বিদ্যালয়ে হাজিরা মেশিন কেনার জন্য প্রতিটি বিদ্যালয়ে (শিক্ষার্থীর সংখ্যা বিবেচনা করে) ৫০ হাজার থেকে ১ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়। এ বরাদ্দ থেকে নিদিষ্ট সময়ের মধ্যে বায়োমেট্রিক হাজিরা মেশিন কেনার নির্দেশনা দেয়া হয়।


যশোর শহরের কারবালা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কাজল বসু জানান, উপজেলা শিক্ষা অফিস এখনো স্লিপ ফান্ডের টাকা পাওয়া যায়নি। এজন্য দেরি। তবে তাড়াতাড়িই বসানো হবে।
সদরের দেয়াড়ার দত্তপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল জব্বার বলেন, সময়মতো স্লিপ ফান্ডের টাকা না আসায় বিদ্যালয়ে হাজিরা মেশিন বসানো হয়নি। তাছাড়া যে পরিমাণ টাকা স্লিপ ফান্ডে এসেছে তা দিয়ে ভালো মনের হাজিরা মেশিন কেনা সম্ভব হবে না।


নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সদর উপজেলার একাধিক প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জানিয়েছেন, উপজেলা শিক্ষা অফিসের মাধ্যমে তাদের কাছ থেকে হাজিরা মেশিন কেনার অর্থ বরাদ্দের জন্য ভাউচার নেয়া হয়েছে। তবে এখনও পর্যন্ত হাজিরা মেশিনের টাকা বিদ্যালয়গুলোতে আসেনি। কবে আসবে তাও তারা সঠিক জানেন না।


জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সেখ অহিদুল আলম জানান, বায়োমেট্রিক হাজিরা মেশিন বসানোর জন্য বরাদ্দের অর্থ দেরিতে আসলেও ইতিমধ্যে প্রতিটি উপজেলা শিক্ষা অফিসে বরাদ্দকৃত টাকা দেওয়া সম্পন্ন হয়েছে। বিভিন্ন কোম্পানির বায়োমেট্রিক মেশিন যাচাই-বাছাই করে তার মধ্যে থেকে ভালো মানের মেশিন বসানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তবে কি কারণে অনেক স্কুলে এখনো হাজিরা মেশিন বসানো হয়নি সেটি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আপনার মতামত জানানঃ