ডেঙ্গু মশার সংখ্যা চার মাসে কয়েকগুণ বেড়েছে

প্রকাশিতঃ ১২:৩২ অপরাহ্ণ, শনি, ১০ আগস্ট ১৯

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদকঃ বর্ষা শুরুর পর রাজধানীর দুই সিটি করপোরেশন এলাকায় পূর্ণ বয়স্ক এইডিস মশা এবং লার্ভার ঘনত্ব দুটোই বেড়ে যাওয়ার চিত্র এসেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার জরিপে। এ বছরের মার্চে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার জাতীয় ম্যালেরিয়া নির্মূল ও এইডিস বাহিত রোগ নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচির আওতায় প্রথম জরিপটি করা হয়েছিল। দ্বিতীয় জরিপটি চালানো হয় গত ১৭ থেকে ২৭ জুলাই পর্যন্ত।

বিজি সেন্টিনাল ট্র্যাপ-২ পদ্ধতিতে চালানো এই জরিপে দেখা যায়, পূর্ণবয়স্ক মশার সংখ্যা গত মার্চের তুলনায় বেড়েছে সাড়ে ১৩ গুণ। আর মশার লার্ভার ঘনত্ব ঝুঁকিপূর্ণ মাত্রার চেয়েও সাড়ে ১২ গুণ বেশি বেড়েছে।

এই বছর বর্ষার শুরুতেই এইডিস মশাবাহিত ডেঙ্গু জ্বরের প্রকোপ দেখা দেয়, পরে তা ছড়িয়ে পড়ে সারাদেশে। এবছর বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত সারাদেশে ৩৪ হাজার ৬৬ জন ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত হয়েছে। প্রায় ২৬ হাজার চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরলেও ৮ হাজার ৭৬৫ জন এখনও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এ রোগে ২৯ জনের মৃত্যু নিশ্চিত করলেও বিভিন্ন হাসপাতাল থেকে পাওয়া তথ্যে মৃতের সংখ্যা ৯০ ছাড়িয়েছে।

এবার মার্চের জরিপের প ডেঙ্গুর প্রকোপের শঙ্কার কথা জানিয়েছিল স্বাস্থ্য অধিদপ্তর; কিন্তু তাতে গুরুত্ব দিয়ে এইডিস মশা দমনে কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি বলে রোগটি এখন মহামারির পর্যায়ে পৌঁছে গেছে।

বিজি সেন্টিনাল ট্র্যাপ-২

পূর্ণবয়স্ক মশার উপস্থিতি জরিপে দুই সিটি করপোরেশন এলাকায় ১৪১টি ‘বিজি সেন্টিনাল ট্র্যাপ-২’ বসানো হয়। বিজি সেন্টিনাল ট্র্যাপ-২ পূর্ণবয়স্ক মশা ধরার আধুনিক পদ্ধতি বলে জানান স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা। পরের জরিপে এসব ফাঁদে ৪৮৭টি পূর্ণ বয়স্ক এইডিস মশা ধরা পড়ে। এর আগে গত ৩ থেকে ১২ মার্চ পর্যন্ত চালানো প্রাক বর্ষা মৌসুম জরিপে এইডিস মশা পাওয়া গিয়েছিল ৩৬টি। সে হিসেবে এইডিস মশা বেড়েছে ১৩ দশমিক ৫২ গুণ।

হাউজ ইনডেক্স

রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার কর্মকর্তারা জানান, জরিপে প্রতি একশ’ বাড়ির মধ্যে পাঁচ বা পাঁচের বেশি বাড়িতে এইডিস মশার লার্ভা বা পিউপা পাওয়া গেলে হাউজ ইনডেক্সে তা ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ বিবেচনা করা হয়। এবারের জরিপে উত্তর সিটি করপোরেশন ওয়ার্ডগুলোর মধ্যে ৭৫ ভাগ এবং দক্ষিণের ওয়ার্ডগুলোর মধ্যে ৮৩ ভাগ বাড়ির হাউজ ইনডেক্স ৫ এর বেশি পাওয়া গেছে।

ব্রুটো ইনডেক্স

রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, মশার প্রজনন উৎস হিসাব করে এ জরিপ চালানো হয়। প্রতি একশ প্রজনন উৎসের মধ্যে ২০টি বা তার বেশিতে যদি এইডিস মশার লার্ভা বা পিউপা পাওয়া যায়, তাহলে সেটাকে ‘ঝুঁকিপূর্ণ উপস্থিতি’ বলা যায়। এবারের জরিপে দেখা গেছে, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের ৪০টি ওয়ার্ড মধ্যে ২৪টিতে, অর্থাৎ ৫৭ শতাংশ ওয়ার্ডের ব্রুটো ইনডেক্স ২০ এর বেশি। আর দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ৫৮টি ওয়ার্ডের মধ্যে ৩৮টিতে বা ৬৪ শতাংশ ওয়ার্ডে ব্রুটো ইনডেক্স ২০ এর বেশি। মার্চের জরিপে উত্তর সিটি করপোরেশনের ১৭ দশমিক ৫ ভাগ ওয়ার্ডে এবং দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ২৫ দশমিক ৮৬ ভাগ ওয়ার্ডে লার্ভার ঘনত্ব ঝুঁকিপূর্ণ মাত্রা ২০ এর বেশি পাওয়া গিয়েছিল।

ঢাকা উত্তরের ১৯ নম্বর ওয়ার্ডে লার্ভার ঘনত্ব ঝুঁকিপূর্ণ মাত্রার চেয়ে সাড়ে ১২ গুণ বেশি (২৫০) পাওয়া গেছে। ১৮ নম্বর ওয়ার্ডে লার্ভার ঘনত্ব ১৭০, যা ঝুঁকিপূর্ণ মাত্রার চেয়ে সাড়ে আট গুণ বেশি। ২ নম্বর ওয়ার্ডের লার্ভার ঘনত্ব ১১০, যেটি ঝুঁকিপূর্ণ মাত্রার চেয়ে সাড়ে পাঁচ গুণ বেশি। ১ ও ২৩ নম্বর ওয়ার্ডে লার্ভার ঘনত্ব ৯০, ৫ নম্বর ওয়ার্ডে ৬০ পাওয়া গেছে। জরিপে ২৪ ও ৪১ নম্বর ওয়ার্ডে লার্ভার ঘনত্ব ৬০ এবং ১০, ১১ ১৪ ও ১৬ নম্বর ওয়ার্ডে লার্ভার ঘনত্ব ৫০ পাওয়া গেছে। ২৬, ২৭ ও ৩৬ নম্বর ওয়ার্ডে লার্ভার ঘনত্ব ৩০ এবং ৩৫, ৩১, ২৬ ও ২৭ নম্বর ওয়ার্ডে মশার লার্ভার ঘনত্ব ২০ পাওয়া গেছে।

ঢাকা দক্ষিণের ৪০ নম্বর ওয়ার্ডে এইডিস মশার লার্ভার ঘনত্ব ঝুঁকিপূর্ণ মাত্রার চেয়ে সাড়ে চার গুণ অর্থাৎ ৯০ পাওয়া গেছে। ৮০ পাওয়া গেছে ৫ নম্বর ওয়ার্ডে। ২০ নম্বর ওয়ার্ডে পাওয়া গেছে ৭০। ৩ ও ৪৬ নম্বর ওয়ার্ডে লার্ভার ঘনত্ব ৬০। ডিএসসিসির ১ও ৪৮ নম্বর ওয়ার্ডের লার্ভার ঘনত্বের সূচক ৫০ বলে জরিপে বলা হয়েছে। লার্ভার ঘনত্ব সূচক ৪০ মিলেছে ২১, ৩১, ৩২, ৩৩ ও ৫১ নম্বর ওয়ার্ডে। আর ২৫ ও ৩৪ নম্বর ওয়ার্ডের লার্ভার ঘনত্বের সূচক ৩০।

আগের জরিপে মার্চের ৩ থেকে ১২ তারিখ পর্যন্ত এই জায়গাগুলো থেকে মশা এবং লার্ভার নমুনা নেওয়া হয়। তখনও লার্ভা ও মশার ঘনত্ব ঝুঁকিপূর্ণ মাত্রার চেয়ে বেশি পাওয়া গিয়েছিল। মার্চের জরিপে ডিএসসিসিতে এডিস মশার লার্ভার ঘনত্বের সূচক বা বিআই (ব্রুটো ইনডেক্স) সবচেয়ে বেশি ৮০ পাওয়া গিয়েছিল ৪১ নম্বর ওয়ার্ডে।

এছাড়া মালিবাগ বাজার রোড, মালিবাগ, বকশীবাগ, গুলবাগ, শান্তিবাগ নিয়ে গড়া ডিএসসিসির ১২ নম্বর ওয়ার্ডে লার্ভার ঘনত্ব পাওয়া গিয়েছিল ৭০। বিআই ৪০ পাওয়া গিয়েছিল ১৭ নম্বর ওয়ার্ডে, ৩০ পাওয়া গিয়েছিল ৪ ও ৩৯ নম্বর ওয়ার্ডে। বিআই ২০ পাওয়া গিয়েছিল ৬, ৭, ১৪, ১৯, ২০, ২১, ২২, ৪৩, ৪৭ ও ৪৮ নম্বর ওয়ার্ডে।মার্চের জরিপে ডিএনসিসির ৭টি ওয়ার্ডে এডিস মশার লার্ভার ঘনত্ব ঝুঁকিপূর্ণ মাত্রার চেয়ে বেশি পাওয়া গিয়েছিল।

সর্বোচ্চ ৪০ বিআই পাওয়া যায় ৩৫ নম্বর ওয়ার্ডে। বড় মগবাজার, দিলু রোড, নিউ ইস্কাটন রোড, পশ্চিম মালিবাগ, মধ্য পেয়ারাবাগ ও গ্রিনওয়ে, উত্তর নয়াটোলার কিছু অংশ এই ওয়ার্ডে পড়েছে। বিআই ৩০ পাওয়া গেছে ডিএনসিসির ১, ৪ এবং ১৯ নম্বর ওয়ার্ডে। বিআই ২০ পাওয়া যায় ১৬, ২২ ও ২৩ নম্বর ওয়ার্ডে।মশার লার্ভার ঘনত্ব বুঝতে দুই সিটি করপোরেশনের ৯৮টি ওয়ার্ডের ১০০টি স্থান থেকে নমুনা সংগ্রহ করা হয়। শুকনো মৌসুমে আগের জরিপে মশার উপস্থিতি কম পাওয়া গেলেও বর্ষার পর তা অনেক বাড়তে দেখা গেল।

প্রজননস্থল নির্মূলের ‘বিকল্প নেই’

জাতীয় ম্যালেরিয়া নির্মূল ও এইডিসবাহিত রোগ নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচির ডেপুটি প্রোগ্রাম ম্যানেজার ডা. এম এম আক্তারুজ্জামান জানান, জরিপে পরিত্যক্ত টায়ার, মেঝেতে জমে থাকা পানি, প্লাস্টিক বালতি, মাটির পাত্র, ফুলের টব ও ট্রে এবং পরিত্যক্ত রঙের কৌটায় জমানো পানিতে এইডিস মশার লার্ভার ঘনত্ব স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি পাওয়া গেছে।

তিনি বলেন, ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে মশার প্রজননস্থল নির্মূলের কোনো বিকল্প নেই। যেসব এলাকায় এইডিস মশার উপস্থিতি কম পাওয়া গেছে, সেগুলোকেও নিরাপদ ভাবার কারণ নেই বলে মন্তব্য করেন ডা. আক্তারুজ্জামান। তিনি বলেন, “যেসব এলাকায় ব্রুটো ইনডেক্স কম পাওয়া গেছে, তার মানে কিন্তু সেই এলাকার মানুষ যে নিরাপদ ব্যাপারটা এমন না। সেখানে রোগাক্রান্ত হওয়ার সুযোগ কম এমনও না।

“যেমন কারও বাসা বনানীতে, কিন্তু কাজ করে ডিওএইচএসএতে, সেখানে মশার কামড় খেলে তো আর নিরাপদ না। এ কারণে কোনো এলাকায় মশার ঘনত্ব কম হলেও সারাদিন চলাচল করার কারণে কেউ আসলে নিরাপদ নয়।

আপনার মতামত জানানঃ