ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে চাঁদাবাজি ও যাত্রীদের হয়রানির অভিযোগে ১৯ জনকে আটক

নারায়ণগঞ্জঃ ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের বিভিন্ন স্পটে পরিবহনে চাঁদাবাজি ও যাত্রীদের হয়রানির অভিযোগে ১৯ জনকে আটক করেছে র‌্যাব।

সোমবার দুপুরে নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের চিটাগাংরোড, কাঁচপুর ও মদনপুর এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করে র‌্যাব-১১ এর সদস্যরা। এসময় তাদের কাছ থেকে ১ লাখ ৬ হাজার টাকা ও ১৮টি মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়েছে।

আটকরা দীর্ঘদিন ধরে মহাসড়কে চাঁদাবাজি ও যাত্রী হয়রানি করে আসছিল বলে জানিয়েছে র‌্যাব।

র‌্যাব-১১ এর কোম্পানি কমান্ডার মো. আলেপ উদ্দিন স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়, আটকরা ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে যাত্রীদের বা রাস্তায় চলাচলরত সাধারণ মানুষকে হয়রানি এবং বাস, অটোরিকশা ইত্যাদি যাত্রাবাহী পরিবহনে চাঁদাবাজি করে আসছে- এমন সুনিদিষ্ট অভিযোগ ও গোয়েন্দা নজরদারির পরিপ্রেক্ষিতে অভিযান পরিচালনা করে মহাসড়কে চাঁদাবাজির সময় তাদের হাতেনাতে আটক করা হয়।

আটকরা হলেন- মো. মোশারফ (৩১), শামীম (৩৫), মো. রাব্বাী ওরফে বাবর (৩১), মো. খোরশেদ আলম ইমন (৩৫), মো. কাজী এরশাদুজ্জামান ওরফে এরশাদ (৩৪), আবদুল কাদের ওরফে সুমন (৩৪), মো. জাহাঙ্গীর আলম (৪০), মো. আলমগীর হোসেন (৩২), আবদুস সালাম (৫০), মো. জিয়াউর রহমান (২৫), মো. মাহফুজুর রহমান (২৫), মো. মহসিন মিয়া ৩০), মো. মুনসুর আলী (৩৮), মো. আরশাদ মোল্লা (৪৭), জহুর আকন্দ (৫২), ওমর ফারুক (৩৩), মো. হুমায়ুন কবির (৩৭), হাসান কাউসার (২৮) এবং মো. মনিরুল ইসলাম (৩০)। তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

র‌্যাব-১১ এর কোম্পানি কমান্ডার মো. আলেপ উদ্দিন সাংবাদিকদের বলেন, মহাসড়কের বিভিন্ন এলাকায় যাত্রীদের হয়রানি ও পরিবহন থেকে চাঁদাবাজি করে আসছিল একটি চক্র। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মহাসড়কের কয়েকটি স্পটে অভিযান চালিয়ে ১৯ জন চাঁদাবাজকে আটক করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

পরিবহন চাঁদাবাজদের বিরুদ্ধে র‌্যাবের অভিযান অব্যাহত থাকবে বলেও জানান তিনি।

এর আগে গত ৩১ মে এ মহাসড়কে অভিযান চালিয়ে চাঁদাবাজির অভিযোগে ১৩ জনকে আটক করেছিল র‌্যাব-১১ সদস্যরা।

আপনার মতামত জানানঃ