দায়িত্বে অবহেলা ও গাফলতির কারণে বিমানের দুই উধ্বর্তন কর্মকর্তা বরখাস্ত

প্রকাশিতঃ ২:৪৬ অপরাহ্ণ, বুধ, ৪ সেপ্টেম্বর ১৯

Advertisements

এস,এম,মনির হোসেন জীবন: চুক্তিতে নিয়োগ পাওয়া বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের দুই কর্মকর্তাকে দায়িত্বপালনে অবহেলা ও গাফলতির কারণে চাকরিচ্যুতসহ সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

জানা যায়, বিমানের পরিচালনা পর্ষদের সভায় প্রকৌশল বিভাগের পরিচালক গ্রুপ ক্যাপ্টেন (অব.) খন্দকার সাজ্জাদুর রহিমের নিয়োগ বাতিল করা হয়েছে। অপর দিকে প্রধান প্রকৗশলী (ইঞ্জিনিয়ারিং সার্ভিস) গাজী মাহমুদ ইকবালকে একই সাথে সাময়িক বরখাস্তকরা হয়েছে।

মঙ্গলবার রাতে রাজধানীর কুর্মিটোলায় বিমানের প্রধান কার্যালয় (বলাকায়) অনুষ্ঠিত এক সভায় এ সিদ্ধান্ত গ্রহন করা হয়েছে।
বিমান পরিচালনা পর্ষদ সদস্য ও বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মহিবুল হক আজ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

নাম প্রকাশে অনিচছুক বিমানের এক কর্মকর্তা আজ জানান, মঙ্গলবার রাতে বিমানের প্রধান কার্যালয় (বলাকা) বিমান পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান এয়ার মার্শাল (অব.) মুহম্মাদ এনামুল বারীর সভাপতিত্বে এক সভা অনুষ্টিত হয়। সভায় সংস্থাটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) নিয়োগসহ বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা হয়। তবে, এমডি নিয়োগ বিষয়ে এখনও পর্যন্ত চূড়ান্ত কোনো সিদ্ধান্ত গ্রহন করা হয়নি।

জানা গেছে, মিশরের ইজিপ্ট এয়ারের কাছ থেকে লিজ নেওয়া দু’টি উড়োজাহাজ ফেরত সংক্রান্ত বিষয়ে গাফিলতির কারণে বিমানের পরিচালনা পর্ষদ এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র বাসসকে এতথ্য জানিয়েছে।

এদিকে,আজ বুধবার সকালে বিমানের জেনারেল ম্যানেজার পিআর (জনসংযোগ) তাহেরা খন্দকারের সাথে এবিষয়ে জানতে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি। এছাড়া বিমানের জনসংযোগ শাখার (পিআর) তাসমিন আক্তার ও দেব দুলালের সাথে ও মেঠোফোনে ছেস্টা করলে তারা উভয়েই ফোন রিসিভ করেননি। সে কারণে তাদের বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

সুত্রে জানা যায়, ২০১৪ সালে মিশরের ইজিপ্ট এয়ার থেকে ৫ বছরের চুক্তিতে ড্রাই লিজে দুটি বোয়িং ৭৭৭-২০০ ইআর উড়োজাহাজ সংগ্রহ করে বিমান। ২০১৪ সালের মার্চে একটি উড়োজাহাজ (রেজিস্ট্রেশন নম্বর এস ২-এএইসএল, কনস্ট্রাকশন নম্বর ৩২৬৩০) বিমান বহরে য্ক্তু হয়। অপর উড়োজাহাজটি (রেজিস্ট্রেশন নম্বরএস২-এএইসকে, কনস্ট্রাকশন নম্বর ৩২৬২৯) যুক্ত হয় ২০১৪ মে মাসে।

লিজের চুক্তি অনুসারে প্রতিমাসে উড়োজাহাজ প্রতি ৫ লাখ ৮৫ হাজার ডলার (৪ কোটি ৭০ লাখ ১৬ হাজার টাকা) ভাড়া দিতে হবে। সব ধরনের রক্ষণাবেক্ষণ ব্যয় বিমানকে বহন করতে হবে। ৫ বছরের আগে চুক্তি বাতিল করতে পারবে না বিমান। লিজের মেয়াদ শেষে উড়োজাহাজ দুটি আগের অবস্থায় (ভাড়া নেওয়ার সময় যে অবস্থায় ছিল) ফেরত দিতে হবে। তবে ত্রুটিপূর্ণ উড়োজাহাজ দুটি দীর্ঘ সময় বিকল হয়ে পড়ে।

জানা যায়, গত ২০ জানুয়ারি বেসামরিক বিমান পরিবহন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী দায়িত্ব নেওয়ার পর বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের কার্যালয়ে যান। এ সময় বিমান প্রতিমন্ত্রী ও সচিব লিজে আনা উড়োজাহাজের জন্য লোকসান হওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছিলেন। লিজে আনা দুটি উড়োজাহাজ আনার ক্ষেত্রে বিমান কর্তৃপক্ষের গাফিলতি আছে কি না, খতিয়ে দেখা শুরু করে মন্ত্রণালয়। বিমান দুটি ফেরত দিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেওয়া হয় মন্ত্রণালয় থেকে। এ বছর ১৬ জুলাই একটি উড়োজাহাজ ইজিপ্ট এয়ারকে ফেরত দেয় বিমান। ফেরত পাঠাতে পাওনা পরিশোধসহ ৪.১ মিলিয়ন ডলার খরচ হয় বিমানের। অপর একটি উড়োজাহাজ এখনও ফেরত দিতে পারেনি বিমান।

উল্লেখ্য যে, ২০১৮ সালের ৩০ এপ্রিল বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের পরিচালক (প্রকৌশল) পদে চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ পান গ্রুপ ক্যাপ্টেন (অব.) খন্দকার সাজ্জাদুর রহিম। এছাড়া বিমানের স্থায়ী নিয়োগপ্রাপ্ত গাজী মাহমুদ ইকবাল প্রধান প্রকৌশলী (ইঞ্জিনিয়ারিং সার্ভিস) পদে দায়িত্ব পালন করছেন।

আপনার মতামত জানানঃ