দেশজুড়ে কিশোর গ্যাংদের আতঙ্কঃ চট্টগ্রামে সাম্প্রতিক ১০ ঘটনার একটির ও বিচার হয়নি

রাজিব শর্মা, চট্টগ্রাম ব্যুরো: দেশে স্কুলের গন্ডি পেরোনোর আগেই অনেক ভয়ঙ্কর সব অপরাধে জড়িয়ে পড়ছে কিশোররা।

শুধুমাত্র ইভ টিজিং কিংবা মহল্লাভিত্তিক বখাটেপনা নয়, কিশোররা গ্রুপ করে পরিকল্পিত হত্যায়ও অংশ নিচ্ছে। সহপাঠীকে অপহরণ করে দাবি করছে মুক্তিপণ। ধর্ষণ ঘটনায় জড়াচ্ছে।
সমাজবিজ্ঞানীদের মতে, এমন পরিস্থিতিতে শুধু আইনের প্রয়োগ ও কঠোরতায় তেমন ফল আসবে না। বরং কিশোর অপরাধ নিয়ন্ত্রণ করতে প্রয়োজন সামাজিক, পারিবারিক শাসন ও সচেতনতা। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়।

বন্দরনগরী চট্টগ্রাম দাপিয়ে বেড়াচ্ছে ১৫টির বেশি কিশোর গ্যাং। তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে এই গ্রুপগুলো জড়িয়ে পড়ছে নানা ধরনের বিরোধে। এমনকি গত এক বছরে এসব কিশোর গ্যাংয়ের বিরোধে প্রাণ হারিয়েছে বেশ ক’জন। কিশোর গ্যাংয়ের বিরোধের জেরে চট্টগ্রামে ক্রসফায়ারের ঘটনাও ঘটেছে। তবে রাজনৈতিক আশ্রয়-প্রশ্রয়ের কারণে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীও তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নিতে পারছে না।

সাম্প্রতিক বেশ কটি হত্যা এবং সংঘাতের ঘটনা তদন্তে বের হয়ে আসে কিশোর গ্যাংয়ের চাঞ্চল্যকর তথ্য। প্রেম থেকে শুরু করে তুচ্ছ যে কোনো ঘটনায় জড়িয়ে পড়ছে প্রাণঘাতী সংঘাতে। এসব ক্ষেত্রে তারা ব্যবহার করছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমকে। ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করে হত্যা, মাদক চোরাচালানের মতো বড় ধরণের অপরাধের পরিকল্পনা করছে এসব গ্যাংয়ের সদস্যরা।

সিএমপি’র কোতোয়ালি থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ মহসিন দি ক্রাইমকে বলেন, গ্যাং কালচারের সদস্যরা ফেসবুক-টুইটারসহ বিভিন্ন অ্যাপে গ্রুপ খুলে নিয়েছে। অনেক সময় দেখা যায় স্কুলে বন্ধুদের সঙ্গে ঝামেলা হলে এরা ওই গ্রুপের মাধ্যমে অন্য সদস্যদের জানিয়ে দেয়। এরপর স্কুল ছুটি হলে এরা একত্রিত হয়ে একজন আরেকজনের ওপর হামলা চালায়।
সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, প্রতিবছর সারা দেশে কিশোর অপরাধসংক্রান্ত ৫ শতাধিক মামলা হচ্ছে। তবে সম্প্রতি মামলার সংখ্যা কিছুটা কমলেও কিশোরদের অপরাধের ধরন বেড়েছে। প্রতিবছর হত্যা ও ধর্ষণসংক্রান্ত ২ শতাধিক ঘটনায় কিশোররা জড়িত থাকছে।

গ্রামপর্যায়েও কিশোর অপরাধের বিস্তার ঘটেছে। তারা ইন্টারনেট থেকে নানা অপরাধের খোরাক পাচ্ছে। টেলিভিশন সিরিজ থেকে জেনে নিচ্ছে কৌশল। ওসব কিশোরদের বেশির ভাগই পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন। তারা মাদকসেবনের টাকা জোগাতে গিয়েও বড় ধরনের অপরাধ করছে। এমনকি মা-বাবাকেও হত্যার অভিযোগে আটক রয়েছে অনেক কিশোর-কিশোরী।

সূত্র জানায়, কয়েক মাস আগে রাজধানীর আগারগাঁও তালতলা এলাকায় ষষ্ঠ শ্রেণির এক ছাত্রকে হত্যার চেষ্টা করা হয়। ওই ঘটনায় যাদের আটক করা হয় তারা স্থানীয় স্কুলের অষ্টম শ্রেণির ছাত্র। একই ভবনে তাদের বসবাস। মোবাইল নিয়ে বিরোধে দুই কিশোর হত্যার পরিকল্পনা করে। তারা ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রটিকে ডেকে নেয় ১০ তলা ভবনের ছাদে নিয়ে মারধর করে একটি বস্তায় ভরে পানির ট্যাংকে ফেলে দেয়ার চেষ্টা চালায়। পাশে একটি নির্মাণাধীন ভবন থেকে ঘটনা দেখে বাড়ির মালিকসহ পুলিশকে খবর দেয়া হলে পুলিশ পৌঁছে শিশুটিকে উদ্ধার এবং দুই কিশোরকে গ্রেপ্তার করে। তাছাড়া সম্প্রতি পিরোজপুরে ৫ লাখ টাকা মুক্তিপণ না পেয়ে সালাউদ্দিন (১৩) নামে এক স্কুলছাত্রকে হত্যা করে একদল কিশোর। তারা টেলিভিশনে ভারতের সিরিয়াল ক্রাইম প্যাট্রোল দেখে অপরাধের কৌশল শিখেছে বলে পুলিশ দাবি করেছে। গত মাসে কিশোরগঞ্জের ভৈরবে ৩ কিশোর অর্থ লোভে এক সহপাঠীকে খুন করে। গত জানুয়ারিতে একটি অপহরণ ঘটনায় যশোরে মুক্তিপণের ৫ লাখ টাকা নিতে গিয়ে আটক হয় বিলাল নামের এক কিশোর। পরে বন্দুকযুদ্ধে তার মৃত্যু হয়। গ্রেপ্তারের পর বিলালের দেয়া তথ্যে উদ্ধার হয়েছিল চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রের লাশ।

সূত্র আরো জানায়, গত মার্চে পুরান ঢাকায় হত্যার শিকার হয় ১৫ বছরের সিজান। তাকে হত্যার দায় স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছে ইমন ও মুন্না মিয়া নামের দুই কিশোর। স্থানীয় গ্যাং কালচারের অংশ হিসেবে তাদের মধ্যে বিরোধ তৈরি হয়েছিল বলে পুলিশ জানায়। তখন বংশাল ও চকবাজার থানা এলাকার সুরিটোলা, চানখাঁরপুল ও মালিটোলা এলাকায় অনেক কিশোর অপরাধী গ্রুপ শনাক্ত হয়। এর আগে রাজধানীর উত্তরায় আদনান কবীর নামে এক স্কুলছাত্রকে হত্যার পর সেখানে একাধিক কিশোর গ্রুপ ধরা পড়ে। ওসব কিশোরের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গ্রুপ খোলা ছিল। তাছাড়া গত বছর মার্চে চট্টগ্রামের পশ্চিম মাদারবাড়ীর সেন্ট্রাল পাবলিক স্কুলের সপ্তম শ্রেণির ছাত্র মেহেদী হাসানকে অপহরণ ঘটনায় মুক্তিপণ নিতে গিয়ে গ্রেপ্তার হয় কিশোর গ্যাংয়ের ৪ সদস্য। তারা ছাত্রটিকে অপহরণের পর ১০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করেছিল।
রাজনৈতিক প্রভাবের কারণে যেমন আইন শৃঙ্খলা বাহিনী এসব কিশোর গ্যাংয়ের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে পারছে না, অপরদিকে এর ব্যাপক নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে পরিবার থেকে সমাজে। গত দু’মাস আগে এধরনের কিশোর গ্যাংয়ের বিরোধে নগরীর বাকলিয়া এলাকায় ২৪ ঘণ্টার ব্যবধানে দুজনের মৃত্যু হয়।

সনাকের চট্টগ্রাম সভাপতি অ্যাডভোকেট আকতার কবীর চৌধুরী দি ক্রাইমকে  বলেন, সংঘবদ্ধ চক্র হয়ে গেলে অনেক সময় সবাই মনে করে তাদের পেছনে কোনো গডফাদার রয়েছে। অনেক সময় সরকারি দলের প্রভাবশালী লোকজনকেও মানুষ সন্দেহ করে।
তবে পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা দাবি করছেন, কিশোর গ্যাংদের তৎপরতা দমনে চিহ্নিত স্থানগুলো তদারকির আওতায় আনা হচ্ছে।
সিএমপি’র উপ-পুলিশ কমিশনার (দক্ষিণ) এসএম মেহেদী হাসান দি ক্রাইমকে বলেন, ছোট ছোট গ্রুপ করে এসব গ্যাংয়ের সদস্যরা আগে কোনো একজন বড় ভাইয়ের অধীনে থাকত। গেল কয়েক মাস ধরে আমরা এ ধরণের কিছুই প্রশ্রয় দিচ্ছি না।
চট্টগ্রামে গত দু’ বছরে কিশোর গ্যাংদের বিরোধকে কেন্দ্র করে ১০ টির বেশি মামলা হলেও এখন পর্যন্ত কোনোটিরই বিচার হয়নি।
এদিকে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী সংশ্লিষ্টদের মতে, মা-বাবা সন্তানদের সঠিকভাবে পরিচর্যা ও পর্যবেক্ষণ না করায় শিশুরা বখাটেপনায় জড়িয়ে যাচ্ছে। সঙ্গে রয়েছে ইন্টারনেট ও মোবাইল ফোনের কুপ্রভাব। এর আগে শাঁখারীবাজার এলাকায় একটি হত্যার ঘটনায় কিশোরদের একটি গ্রুপ শনাক্ত হয়। সেখানে দেখা গেছে ফেসবুকের মাধ্যমে গ্রুপ তৈরি করে নানা অপরাধ করছে কিশোররা।
অন্যদিকে সমাজবিজ্ঞানীদের মতে, পারিপার্শ্বিক নানা কারণে অনেক আগে থেকেই অপরাধী তালিকায় অল্পবয়সীদের নাম এসেছে। তবে নব্বইয়ের পর খুন, ধর্ষণের মতো ঘটনাতেও জড়াচ্ছে স্কুলপড়ুয়া কিশোররা। সমাজ তাদের যথাযথ পরিবেশ দিতে পারছে না। পরিবার, বিদ্যালয় কোথাও প্রয়োজনীয় শিক্ষা ও পরিবেশ নিশ্চিত করা যাচ্ছে না। সার্বিকভাবে আগ্রাসী মানসিকতা নিয়ে শিশুরা বেড়ে উঠছে। পাশাপাশি সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক প্রভাবও রয়েছে। কঠোর আইনি পদক্ষেপ দিয়ে সাময়িক দমন হলেও কিশোর অপরাধের প্রতিকার হয় না। তবে পরিবার ও সমাজে যদি নিয়মিত পর্যবেক্ষণ থাকে তাহলে কিশোররা অপরাধমূলক ঘটনায় কম জড়াবে।

আপনার মতামত জানানঃ