নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও রক্তাক্ততা

প্রকাশিতঃ ৪:০৫ অপরাহ্ণ, মঙ্গল, ১০ সেপ্টেম্বর ১৯

Advertisements

নিউজ ডেস্কঃ শোকের মাতম আর বৃষ্টিতে ভিজে দেশ, জাতি ও বিশ্বশান্তি কামনায় শেষ হয়েছে রাজধানীর বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ছুটে আসা মানুষের তাজিয়া মিছিলের আনুষ্ঠানিকতা। তবে নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও কয়েকজনকে নিজেদের রক্তাক্ত করতে দেখা গেছে এবারের মিছিলে।
অনেকের মতে বিগত বছরগুলোর তুলনায় এবার মিছিল কিছুটা জৌলুস হারালেও শোকের মাতম আগের তুলনায় বেড়েছে বলেই জানালেন অংশগ্রহণকারীরা। তাদের মতে, কারবালার মর্মান্তিক শোকের স্মরণে এ তাজিয়া মিছিল, যা সাজানো হয়েছে কারবালার শোকের নানা প্রতিকৃতি দিয়ে।

মঙ্গলবার (১০ সেপ্টেম্বর) মিছিল ঘুরে দেখা যায়, সবাই হায় হাসান, হায় হোসেন বলে বুক চাপড়াতে থাকে। কালো পতাকায় আরবি হরফে বিভিন্ন শোকবার্তা লিখে তারা সেগুলো বহন করে। আবার কয়েকজনকে দেখা যায় প্রশাসনের নিরাপত্তা সত্ত্বেও নিজেদের বুকের কাছে শরীর কেটে রক্তাক্ত অবস্থায় মিছিলে যোগ দিতে।
এ প্রসঙ্গে কথা হয় তানজির আহমেদ নামে এক যুবকের সঙ্গে। নিজের বুকের কাছে ব্লেড দিয়ে বেশ খানিকটা কেটে রক্তাক্ত হয়েছেন তিনি! কথা হলে তানজির জানান, এটি একটি ধর্মীয় ঐতিহ্য। আর এর মধ্য দিয়েই আজকের দিনের শোক পালন করা হয়।
তবে প্রশাসনিকভাবে বিষয়টি নিষিদ্ধ হওয়ায় কয়েকজন নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা পুলিশ কর্মকর্তার সঙ্গে কথা হলে তারা জানান, এটি ধর্মীয় ভাবমূর্তি। আমরা যথেষ্ট নিরাপত্তা রেখেছি এবং এ ঘটনাটি তেমন বড় কিছু নয়। ওরা মিছিলের মধ্যে এমন করেনি। আগে থেকেই মাজার থেকে ওরা রক্তাক্ত অবস্থায় এসেছে। আমাদের নিরাপত্তা জোরদার আছে এবং প্রয়োজনে আরো জোরদার করা হবে।

তাজিয়া মিছিলে রক্তাক্ত দুই অনুসারী/বাদলএদিকে সকালে রাজধানীর পুরান ঢাকার হোসেনি দালান থেকে বের হয় প্রধান তাজিয়া মিছিল। একইসঙ্গে রাজধানীর মোহাম্মদপুর, মিরপুর, বকশীবাজার, লালবাগ, পল্টন, মগবাজার থেকেও আশুরার মিছিল বের হয়ে তা ধানমন্ডির জিগাতলায় প্রতীকী কারবালার প্রান্তরে এসে থামে। সেখানে জোহরের নামাজ ও নামাজ শেষে শান্তি কামনায় মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হয় আনুষ্ঠানিকতা।
আরবি বা হিজরি সাল অনুসারে ১০ মহরম তথা আশুরা সমগ্র মুসলিম বিশ্বে ত্যাগ ও শোকের দিন। ঘটনাবহুল এ দিনে বর্তমান ইরাকের অন্তর্গত কারবালা প্রান্তরে মুয়াবিয়ার হাতে নিহত হন ইমাম হোসেন। কারবালার এই মর্মান্তিক শোকের স্মরণে তাজিয়া মিছিল।

আপনার মতামত জানানঃ