ফকিরহাটের টাউন নওয়াপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়টি জরাজীর্ণ স্থায়ী জলাবদ্ধতা চরমে

প্রকাশিতঃ ৬:৩৮ অপরাহ্ণ, বৃহঃ, ২২ আগস্ট ১৯

এম এম সি মেহেদী: বাগেরহাটের ফকিরহাট উপজেলার টাউন নওয়াপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বৃষ্টির পানিতে তলিয়ে স্থায়ী জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। যে করনে ৩শতাধিক শিক্ষার্থীর লেখাপড়া মারাত্বক ভাবে বিঘিœত হওয়ার পাশাপাশি ডেঙ্গু মশা সৃষ্টির আশাংকা করা হচ্ছে।

এবিষয়টি নিয়ে শিক্ষক অভিভাবকরা উর্দ্ধতন কর্মকর্তা ও বিভিন্ন জনপ্রতিনিধি এবং সমাজের উচু স্থরের ব্যাক্তির কাছে একাধিক আবেদন নিবেদন করলেও ফলাফল কিছুই হয়নী। ফলে এবিদ্যালয়ের শিক্ষা কার্যক্রম নানা ভাবে ব্যাহত হওয়ার আশাংকা করছেন সচেতন মহল।

জানা গেছে, খুলনা মাওয়া ও বাগেরহাট মহাসড়কের পাশের্^ টাউন নওয়াপাড়া জমিদার শৈলেন্দ্রনাথ ঘোষের বাড়ীর পাশের্^ টাউন নওয়াপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়টি অবস্থিত। এই বিদ্যালয়ে টাউন নওয়াপাড়া পিলজংগ ও শ্যামবাগাত এই তিনটি গ্রামের ৩শতাধিক শিক্ষার্থী লেখাপড়া করে। বছরের কোন সময় একটু বৃষ্টি হলেই হাটু সমান পানি জমে স্কুল ও একমাত্র মাঠটি একাকার হয়ে পড়ে। তখন শিশুরা হাটুসমান পচা কাদা ও বিষাক্ত পানি ডিঙ্গিয়ে স্কুলে যাওয়া আশা করে থাকে। কোন কোন সময় শিক্ষার্থীরা বৃষ্টির পানির মধ্যে পড়ে অনেকের বই খাতা ও জামা কাপড় ভিজে যায়। তার পরেও শিক্ষার্থীরা নিয়মিত স্কুলে যাওয়া আশা করছে। শুধু তাই নয়, মূল ভবনের এমন জরাজীর্ণ অবস্থা যে নিজে চোখে না দেখলে বুঝা যাবে না।

ভবনটির উপরে টিনের ছাউনী দিয়ে বৃষ্টির পানি পড়ে বই খাতা ও শিক্ষাথীদের জামা কাপড় ভিজে একার হয়ে যায়। তাছাড়া ভবনের ইট বালু খসে পড়ে অনেকে জখমপ্রাপ্ত হচ্ছে। স্থানীয়রা বলেছেন, বৃষ্টির পানি জমে থাকার মূল কারণ তিন গ্রামের পানি নিষকাশনের একমাত্র পথ বন্ধ থাকায় এঅবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন গত ২০১৫-২০১৬অর্থ বছরে প্রায় ৯লক্ষ ৯৪হাজার ৬৫০টাকা ব্যায়ে ১.৫ কিলোমিটার প্যানার খাল পুনঃ সংস্কার করেন।

এই প্যানার খালের উপরের অংশ পুনঃ খনন না করায় উপরের জমে থাকা পানি নিচেই সরবরাহ হতে পারে না। যে করনে একটু বৃষ্টি হলেও উপরোক্ত অ লে স্থায়ী জলাবদ্ধতা চরম আকার ধারন করেছে। এব্যাপারে টাউন নওয়াপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা ফারহানা হোসেন এর সাথে আলাপ করা হলে তিনি বলেন, গত ৫/৬বছর ধরে স্কুলটির এমন অবস্থা হয়েছে, যা বলে শেষ করা যাবেনা। বিষয়টি নিয়ে তিনি নিজেই জনপ্রতিনিধি থেকে শুরু করে উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের লিখিত ও মৌখিক ভাবে অবগত করালেও কোন সুফল আসছে না। একারনে আমরা পড়েছি মহাবিপাকে। এব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা গ্রহনের জন্য শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের সুদৃষ্টি কামনা করেছেন সচেতন মহল।

আপনার মতামত জানানঃ