বাংলাদেশে অর্থনৈতিক অন্তর্ভুক্তির উন্নতি দেখে অভিভূত ডাচ রানি

প্রকাশিতঃ ২:২২ অপরাহ্ণ, বৃহঃ, ১১ জুলাই ১৯

কূটনৈতিক প্রতিবেদক: আড়াই বছর পর বাংলাদেশে এসে অর্থনৈতিক অন্তর্ভুক্তির উন্নতি দেখে অভিভূত হয়েছেন জাতিসংঘ মহাসচিবের ‘ইনক্লুসিভ ফিন্যান্স ফর ডেভেলপমেন্ট’ বা উন্নয়নের জন্য অন্তর্ভুক্তিমূলক অর্থায়নের (ইউএনএসজিএসএ) বিশেষ দূত এবং নেদারল্যান্ডসের রানি ম্যাক্সিমা জরিগুয়েতা সেরুতি।

তিনি বলেন, ২০১৪ সালে বাংলাদেশের অর্থনীতিতে সবার অংশগ্রহণ ৩১ শতাংশ থাকলেও ২০১৭ সালে তা ৫০ শতাংশে যায়। এটি খুবই আশাব্যাঞ্চক। আর এটি প্রাথমিকভাবে সম্ভব হয়েছে মোবাইলের মাধ্যমে আর্থিকসেবার মতো খুবই মৌলিক একটি সেবার মাধ্যমে। যা খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে।

২০১৪ সালে এর ব্যবহার ২ দশমিক ৭ শতাংশ থেকে ২০১৭ সালে ২১ শতাংশে পৌঁছেছে বলেও মন্তব্য করেন রানি ম্যাক্সিমা।

ঢাকায় জাতিসংঘ উন্নয়ন কর্মসূচির (ইউএনডিপি) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব জানানো হয়েছে। বুধবার ঢাকায় জাতিসংঘ কার্যালয়ে উন্নয়ন অংশীদার এবং ফিন্যান্সিয়াল টেকনোলজি (ফিনটেক) খাতের সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন রানি ম্যাক্সিমা। মতবিনিময় সভাটির আয়োজন করে ইউএনডিপি।

এতে জানানো হয়, রানি ম্যাক্সিমা, অর্থনীতির অন্তর্ভুক্তিকরণ নারীর ক্ষমতায়ন করতে পারবে, যা বাংলাদেশের উন্নতিকে অগ্রগামী করবে। বৈঠকে রানি ম্যাক্সিমা লিঙ্গবৈষম্য ও বাংলাদেশে পূর্ণ অর্থনৈতিক অন্তর্ভুক্তি হতে যে বিষয়গুলো বাধা হয়ে দাঁড়াচ্ছে তা চিহ্নিত করেন।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে ৬৫ শতাংশ পুরুষের ব্যাংক হিসাব রয়েছে। আর নারীর ব্যাংক হিসাব মাত্র ৩৬ শতাংশ। ২০১৭ সালে ২০১৪ সালের তুলনায় অর্থনীতিতে লিঙ্গবৈষম্য ২০ শতাংশ বেড়েছে।

শুরুতে ইউএনডিপির আবাসিক প্রতিনিধি সুদীপ্ত মুখার্জি রানি ম্যাক্সিমাকে বাংলাদেশে দ্বিতীয়বার সফরের জন্য ধন্যবাদ ও স্বাগত জানান। তিনি বলেন, রানি ম্যাক্সিমার দ্বিতীয় সফর বাংলাদেশে অর্থনৈতিক সেবায় নারীর প্রবেশাধিকার এবং নারী উদ্যোক্তাদের সহায়তার প্রতি প্রতিশ্রতিস্বরূপ।

এর আগে রানি ইউএনএসজিএসএর পদাধিকার বলে ২০১৫ সালের নভেম্বরে বাংলাদেশ সফর করেন। রানি ম্যাক্সিমা ইউএনএসজিএসএ হিসেবে নিযুক্ত হন ২০০৯ সালে। পদাধিকারবলে তিনি জাতিসংঘের মহাসচিবকে পরামর্শ দিয়ে থাকেন এবং বিশ্বব্যাপী আর্থিক প্রতিষ্ঠান থেকে সবার জন্য নিরাপদে ও সুলভে সেবাপ্রাপ্তি নিশ্চিতে কাজ করে থাকেন। বিশেষ করে নিম্নআয়ভুক্ত গোষ্ঠী, ছোট ও মাঝারি উদ্যোক্তারা তার কাজে অগ্রাধিকার পেয়ে থাকে।

আপনার মতামত জানানঃ