বাফুফে ভবনে যখন বিশ্বকাপ খেলা নারী ফুটবলার

প্রকাশিতঃ এপ্রিল ১১, ২০১৯ । ২১:০৭
আপডেটঃ এপ্রিল ১১, ২০১৯ । ২১:০৭

বিশেষ সংবাদদাতা: বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) যে কোনো অনুষ্ঠান নির্ধারিত সময়ের এক দেড় ঘণ্টা পরে শুরু হওয়াটা রীতিমতো নিয়মে পরিণত হয়েছে। গণমাধ্যমকর্মীরাও বাফুফের এই বিলম্বিত কার্যক্রমে হয়ে পড়েছেন অভ্যস্ত। বাফুফের প্রোগ্রাম? ঘণ্টাখানেক পরে গেলেও হবে-এমন মনোভাব এখন অনেকের।

তবে বৃহস্পতিবার বিকেলে কলম্বিয়ান দুই নারী ফুটবলারের সংবাদ সম্মেলন উপলক্ষে নির্দিষ্ট সময়ের অনেক আগেই কানায় কানায় পূর্ণ বাফুফের সভাকক্ষ। বিশ্বকাপ খেলা ফুটবলার বলে কথা! একটু সামনের দিকে বসতে পারলে মন্দ কী?

গণমাধ্যমকর্মীরা নির্দিষ্ট সময়ের আগে এলেও বাফুফে কিন্তু নির্ধারিত সময়ে অনুষ্ঠান শুরু করতে পারেনি। নিয়ম বানিয়ে ফেলা অনিয়ম মতো প্রায় এক ঘণ্টা পর দুই বিদেশিকে নিয়ে সংবাদ সম্মেলন কক্ষে উপস্থিত হন বাফুফে কর্মকর্তারা। সভাপক্ষে ঢুকেই কার্লোস ভালদেরামার দেশের দুই নারী ফুটবলারের মুখে চওড়া হাসি। তাদের হাসি ক্যামেরাবন্দি করতে হুড়োহুড়ি।

জেসিকা হুরতাদোর গায়ে উঠেছিল বিশ্বকাপের জার্সি। ২০১১ সালে জার্মান বিশ্বকাপে খেলেছেন তিনি। ক্যাথেরিন ফ্যাবিওলা ক্যাস্ট্রো এখনো সাবেক হননি। ফুটবল খেলছেন। বিশ্বকাপ খেলাও হয়নি তার। খেলেছেন কলম্বিয়ার অলিম্পিক দলে।


২২ এপ্রিল শুরু হতে যাওয়া বঙ্গমাতা অনূর্ধ্ব-১৯ মহিলা আন্তর্জাতিক গোল্ডকাপ ফুটবলের প্রচার-প্রচারণার অংশ হিসেবেই টুর্নামেন্টের স্বত্বাধিকারী কে-স্পোর্টস উড়িয়ে এনেছে এই দুই ফুটবলারকে। বুধবার সকালে ঢাকায় আসা জেসিকা আর ক্যাথেরিন তিনদিনের সফরে বেশ কয়েকটি কর্মসূচিতে অংশ নেবেন। শুক্রবার প্রায় পুরো দিনটাই তারা কাটাবেন রাজধানীর বাড্ডার বেরাইদে।

এত জায়গা থাকতে বাড্ডার বেরাইদে কেন? প্রশ্ন জাগতেই পারে। সেখানে ফর্টিজ গ্রুপের জায়গায় সপ্তাহখানেক আগে একাডেমি চালু করেছে বাফুফে। সেখানেই ‘উইমেন্স ডে’ আয়োজন করেছে বাফুফে। ৬টি স্কুলের শতাধিক মেয়ে এবং বাফুফের ক্যাম্পে থাকা নারী ফুটবলারদের নিয়ে একাডেমি মাঠে সময় কাটাবেন কলম্বিয়ান দুই ফুটবলার। তাদের ফুটবলার হওয়া, প্রতিষ্ঠা পাওয়া এবং ক্যারিয়ারের নানা গল্প শোনাবেন কৃষ্ণা-মারিয়াদের। ফুটবল খেলবেন, ছবি তুলবেন-পুরো কর্মসূচিটাই আনন্দে ঠাসা থাকবে।

রাজধানী ঢাকার যানজট যতই থাক, ধুলোবালি যতই উড়ুক, বিদেশিরা এসে সৌজন্যের খাতিরে বলেন, ‘ভেরি নাইস টাউন’। জেসিকা আর ক্যাথেরিন অসৌজন্যতা দেখাবেন কেন? বাংলাদেশ কেমন লাগছে? প্রশ্নটি উড়ে যেতেই জেসিকার উত্তর- ‘ভেরি নাইস।’ তিনি নাকি কলম্বিয়ার পরিবেশের সঙ্গে বাংলাদেশের মিলও খুঁজে পেয়েছেন!

জেসিকা বড় হয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের নিউ জার্সিতে। তার মুখে তো ইংরেজিতে খই ফুটবেই। কিন্তু তার সঙ্গী ক্যাথেরিনকে মিডিয়ার সঙ্গে কথা বলতে হলো জেসিকার মাধ্যমে। ক্যাথেরিন স্প্যানিশ ভাষায় ভাব প্রকাশ করলেন, দোভাষীর ভূমিকায় জেসিকা। বাংলাদেশের নারী ফুটবল দলের দুটি জার্সি উপহার দেয়া হয় জেসিকা ও ক্যাথেরিনকে। তাদের বাফুফে ভবনে ফুল দিয়ে বরণ করে নেন টেকনিক্যাল অ্যান্ড স্ট্র্যাটেজিক ডাইরেক্টর পল স্মলি এবং কে-স্পোর্টসের সিইও ফাহাদ করীম।

ল্যাটিন আমেরিকা থেকে এসেছেন। আগে কখনো বাংলাদেশ সম্পর্কে ধারণা ছিল? না, সেটা জানিয়ে দিলেন জেসিকা। কে-স্পোর্টসের আমন্ত্রণ পাওয়ার পর বাংলাদেশকে তারা খুঁজে বের করেছেন গুগলম্যাপ দেখে। শনিবারও ব্যস্ত সময় থাকবে তাদের। বাফুফে ভবন সংলগ্ন টার্ফে ইউনিসেফের তত্ত্বাবধানে শ’খানেক নারী ফুটবলার এবং জাতীয় দলের ফুটবলারদের নিয়ে সময় কাটাবেন দুই অতিথি।

আপনার মতামত জানানঃ