মসজিদের সীমানায় টিউবওয়েল বসাতে বাধা দেওয়া জমিদাতাকে খুন

সুমন হোসেন শাওনঃ  মুন্সীগঞ্জ সিরাজদিখানে শেখরনগর মসজিদের সীমানায় জোড় পূর্বক টিউবওয়েল বসাতে বাধা দেওয়ায় এক বৃদ্ধাকে মুগুর দিয়ে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। গত ২৫ মে ২০১৯ তারিখ  দুপুর আড়াইটার দিকে উপজেলার ঘনশ্যামপুর গ্রামের মসজিদের জমিদাতা হারুন অর রশিদ(৫৫) কে মুগুর দিয়ে পিটিয়ে গুরুত্বর আহত করে। পরে তিনি চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত ৩০ মে ২০১৯ তারিখ মারা যায়।

মামলার সূত্রে এবং সরজমিনে গিয়ে জানা যায়-উপজেলার ঘনশ্যামপুর গ্রামের জানèাতুল বাকী মসজিদের সম্পত্তি নিয়ে মসজিদের জমিদাতা হারুন অর রশিদ(৫৫)র সাথে একই গ্রামের কুদ্দুস(৫৫)গংদের দীর্ঘদিন যাবৎ বিরোধ চলে আসছিল এবং বিরোধ চলাকালীন সময়েই আঃ কুদ্দুসগং মসজিদের সীমানায় জোর পূর্বক টিউবওয়েল বসায়। গত ২৫ মে ২০১৯ তারিখ দুপুর আড়াইটার দিকে আঃ কুদ্দুসগং তাদের বসানো টিউবওয়েলের চর্তুর পার্শ্বে পাঁকা ও পাশেই পাকা বাথরুম নির্মাণে করতে গেলে জমিদাতা হারুন অর রশিদ বাধা নিষেধ করে। তখন আঃ কুদ্দুস গং ক্ষিপ্ত হয়ে কাঠের মুগুর দিয়ে হারুন অর রশিদ এর মাথায় আঘাত করলে সে সাথে সাথে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। ঐ সময় আঃ কুদ্দুসের সাথে থাকা মোছাঃ মর্জিনা বেগম(৫০), মোঃ আকাশ (১৯), মোঃ রনি (১৮), মোসাঃ ডলি বেগম (৩৭) ও মোসাঃ আরজু বেগম (৩৬)সহ অজ্ঞাত ৩/৪জন মিলে কিল, ঘুষি, লাথি ও পিটিয়ে শরীরের বিভিনè স্থানে রক্তাক্ত জখম করে। প্রাণ বাচাতে হারুন অর রশিদ ডাক-চিৎকার করলে তার মেয়ে সীমা আক্তারসহ স্থানীয় আশা পাশের লোকজন এগিয়ে আসলে হামলাকারীরা খুন করে লাশ গুম করার হুমকি দিয়ে চলে জান।

মামলার বাদীনি আরোও জানান-গুরুত্বর আহত অবস্থায় তার বাবা হারুন অর রশিদকে পার্শ্ববর্তী শ্রীনগর উপজেলার আলমপুর হেনা আহম্মেদ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে ভর্তি করলে হাসপাতালের কর্তব্যরত ডাক্তার হারুন অর রশিদের অবস্থা আশংখা জনক দেখে উনèত চিকিৎসার জন্য দ্রুত স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ (মিটফোর্ড হাসপাতাল) ঢাকায় প্রেরণ করেন। মিটফোর্ড হাতপাতালে কয়েকদিন চিকিৎসার পর হাসপাতালরে চিকিৎসক হারুন অর রশিদের অবস্থা অবনতি দেখে উনèত চিকিৎসার জন্য ৩০ মে সকাল ১০টায় ঢাকাস্থ ন্যাশনাল ইনষ্টিটিউট অব নিউরোসাইন্স এন্ড হাসপাতাল  আগারগাওয়ে প্রেরণ করলে এ্যাম্বুলেন্স যোগে হাসপাতালে যাওয়ার পথে বেলা সাড়ে ১১টায় পথি মধ্যেই হারুন অর রশিদ মৃত্যূবরণ করে। এ বিষয়ে মৃত হারুন অর রশিদের মেয়ে সীমা বাদী হয়ে আঃ কুদ্দুসসহ ৬জনকে আসামী করে অভিযোগ দায়ের করেন। পরে সিরাজদিখান থানার মামলার নং-৩৬ তাং-৩০/০৫/২০১৯ রুজু হয়।

এ বিষয়ে সিরাজদিখান থানার উক্ত মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই হাছান আকতার আহমেদের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন- আসামীরা সবাই পলাতক আছে, তবে  আসামীদের গ্রেপ্তারে জোড় চেষ্টা চলছে।

আপনার মতামত জানানঃ