মানবতাবিরোধী অপরাধ : নেত্রকোনার সোহরাবসহ দুইজনের রায় আজ

প্রকাশিতঃ ৩:২৭ অপরাহ্ণ, বুধ, ২৪ এপ্রিল ১৯

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের সময় সংঘটিত মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় নেত্রকোনার আটপাড়া থানার সোহরাব ফকিরসহ দুই রাজাকারের মামলার রায় ঘোষণা করা হবে আজ। আসামি সোহরাব ফকির ওরফে সোহরাব আলী ওরফে ছোরাপ আলী (৮৮) ছাড়া অপর আসামি হলেন শান্তি কমিটির সদস্য ও রাজাকার হেদায়েত উল্লাহ ওরফে মো. হেদায়েতুল্লাহ ওরফে আঞ্জু বিএসসি (৮০)।

ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান বিচারপতি মো. শাহিনুর ইসলামের নেতৃত্বে তিন সদস্যের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে এই মামলার রায় ঘোষণা করা হবে। ট্রাইব্যুনালের অপর দুই সদস্য হলেন- বিচারপতি মো. আমীর হোসেন ও মো. আবু আহমেদ জমাদার।

এর আগে মঙ্গলবার রায় ঘোষণার জন্য বুধবার দিন ঠিক করে আদেশ দেন আদালত। রাষ্ট্রপক্ষে এদিন মামলা শুনানি করেন প্রসিকিউটর মো. মোখলেছুর রহমান বাদল, সাবিনা ইয়াসমিন খান মুন্নী ও তাপস কান্তি বল। আসামিদের পক্ষে ছিলেন রাষ্ট্রনিযুক্ত আব্দুস শকুর খান।

যুক্তিতর্ক শুনানি শেষে তাপস কান্তি বল জানান, ট্রাইব্যুনালে যুক্তিতর্ক পেশ করার সময় প্রসিকিউশনের পক্ষ থেকে আমরা দুই আসামির সর্বোচ্চ শাস্তি চেয়েছি।

অন্যদিকে আসামিপক্ষের আইনজীবী আব্দুস শকুর খান বলেন, অভিযোগের পক্ষে প্রসিকিউশন যেসব সাক্ষ্য-প্রমাণ দিয়েছে তাতে আসামিদের অপরাধ প্রমাণে তারা ব্যর্থ হয়েছে বলে আমি মনে করি। চূড়ান্ত যুক্তিতর্কে আমি আসামিদের খালাস চেয়েছি।

এর আগে, গত ৭ মার্চ এ মামলার শুনানি শেষ করে যেকোনো দিন রায় দেয়া হবে মর্মে সিএভি (রায়ের জন্য অপেক্ষমাণ) রাখেন আদালত। আসামি আঞ্জুর ভাই এনায়েত উল্লাহ ওরফে মঞ্জুও এ মামলার আসামি ছিলেন। ২০১৭ সালে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যাওয়াই তার নাম আসামির তালিকা থেকে বাদ দেয়া হয়। পরে ওই বছরই কারাগারে থাকা সোহরাব ও পলাতক আঞ্জুর বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে বিচার শুরু করেন আদালত।

মামলার তদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়, আঞ্জু, মঞ্জু ও ছোরাপ একাত্তরে শান্তি কমিটির সদস্য ও রাজাকার বাহিনীর সদস্য ছিলেন। ২০১৫ সালের ৫ মে থেকে তদন্ত শুরু করে মানবতাবিরোধী অভিযোগের বিষয়ে ৪০ জনের জবানবন্দিসহ ২০১৬ সালের ৮ সেপ্টেম্বর তিনজনের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন দাখিল করে তদন্ত সংস্থা।

ছোরাপকে ২০১৫ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি গাজীপুর থেকে গ্রেফতার করে পুলিশ। ২০১৬ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি তাকে ট্রাইব্যুনালের এ মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়। আর এনায়েত উল্লাহ ওরফে মঞ্জুকে গ্রেফতার করা হয় ওই বছরের ৩০ মার্চ। তার ভাই আঞ্জুকে পুলিশ গ্রেফতার করতে পারেনি।

প্রসিকিউটর মুন্নী বলেন, ‘আসামিদের বিরুদ্ধে আটক, অপহরণ, নির্যাতন, লুণ্ঠন, অগ্নিসংযোগ, হত্যা, গণহত্যা ও দেশত্যাগে বাধ্যকরণের মতো অপরাধের ৬টি অভিযোগ আনা হয়েছে।’

তিন আসামির গ্রামের বাড়ি নেত্রকোনার আটপাড়া থানার কুলশ্রীতে। তবে আঞ্জু থাকতেন রাজশাহীর বোয়ালিয়া থানার হেতেম খাঁ মেথরপাড়ায়। অন্যদিকে সোহরাব একই জেলার মদন থানার জাহাঙ্গীরপুরে থাকেন।

দুইজনের বিরুদ্ধে ৬ অভিযোগ

প্রথম অভিযোগ- একাত্তরের ২৯ মে নেত্রকোনা জেলার আটপাড়া থানার মধুয়াখালী গ্রামে ২০-৩০টি ঘরে অগ্নিসংযোগ, লুটপাট, হিন্দুদের দেশত্যাগে বাধ্য করা এবং গণহত্যার সমতুল্য অপরাধ।

দ্বিতীয় অভিযোগ- একাত্তরের ২৩ অগাস্ট আটপাড়া থানার মোবারকপুর গ্রামের শহীদ মালেক তালকুদার ও কালা চান মুন্সীকে অপহরণ, হত্যা এবং লুণ্ঠন ও অগ্নিসংযোগ।

তৃতীয় অভিযোগ- একাত্তরের ৩০ অগাস্ট জেলার মদন থানার মদন গ্রামের শহীদ হেলিম তালুকদারকে অপহরণ ও হত্যা এবং লুণ্ঠন ও অগ্নিসংযোগ।

চতুর্থ অভিযোগ- একাত্তরের ৩ সেপ্টেম্বর জেলার আটপাড়া থানার সুখারী গ্রামের দীনেশ চন্দ্র, শৈলেশ চন্দ্র, প্রফুল্ল বালা, মনোরঞ্জণ বিশ্বাস, দুর্গা শংকর ভট্টাচার্য, পলু দে, তারেশ চন্দ্র সরকারকে অপহরণ, হত্যা, গণহত্যা, লুণ্ঠন ও অগ্নিসংযোগ এবং বেশ কিছু হিন্দু পরিবারকে দেশত্যাগে বাধ্য করা।

পঞ্চম অভিযোগ- একাত্তরের ২ সেপ্টেম্বর জেলার মদন থানার মাঝপাড়া গ্রামের হামিদ হোসেনকে অপরাহরণ ও নির্যাতন।

ষষ্ঠ অভিযোগ- একাত্তরের ৬ সেপ্টেম্বর জেলার মদন থানার মদন গ্রামের ১৫০-২০০টি ঘরে লুটপাট ও অগ্নিসংযোগ এবং হিন্দুদের দেশত্যাগে বাধ্য করা।

আপনার মতামত জানানঃ