রেজিস্ট্রারকে লাঞ্ছিত করা হাবিপ্রবির সেই দুই শিক্ষক বরখাস্ত

প্রকাশিতঃ ডিসেম্বর ৩, ২০১৮ । ১৭:২০
আপডেটঃ ডিসেম্বর ৩, ২০১৮ । ১৭:২০

জেলা প্রতিনিধিঃ দিনাজপুরের হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (হাবিপ্রবি) রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ড. শফিউল আলমকে মারধর ও লাঞ্ছিত করার অপরাধে দুই সহকারী অধ্যাপককে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। রোববার বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. আবুল কাসেম তাদেরকে সাময়িক বরখাস্ত করেন।

বরখাস্ত হওয়া দুই সহকারী অধ্যাপক হলেন- রসায়ন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মহসিন আলী ও ইলেকট্রনিক্স অ্যান্ড কমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সহকারী অধ্যাপক আবু বক্কর সিদ্দিক।

কিন্তু দুই অধ্যাপকের সাময়িক বরখাস্ত প্রত্যাহারের দাবিতে ছাত্রলীগের একাংশ নেতাকর্মী উপাচার্যকে তার কক্ষে অবরুদ্ধ করে রাখে। পরে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

এর আগে সর্বস্তরের শিক্ষক, কর্মকর্তা, শিক্ষার্থী, কর্মচারী ও শ্রমিকরা রেজিস্ট্রারকে ফুলের মালা দিয়ে বরণ করে ক্যাম্পাস পদক্ষিণ করে প্রশাসনিক ভবনে ঢুকিয়ে দেন এবং রেজিস্ট্রারকে লাঞ্ছিতকারী দুই সহকারী অধ্যাপকের বহিষ্কার দাবিতে মানববন্ধন করেন। এ সময় উপাচার্য অধ্যাপক ড. আবুল কাসেম রেজিস্ট্রারকে ফুলের মালা দিয়ে বরণ করে তার চেয়ারে বসিয়ে দেন।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ড. শফিউল আলম বলেন, আমি উপাচার্যের নির্দেশে দুজন সহকারী অধ্যাপকের সাময়িক বরখাস্তের আদেশে স্বাক্ষর করেছি। এখন তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত কমিটির রিপোর্ট ও পরামর্শে পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

তবে বরখাস্ত হওয়া দুই সহকারী অধ্যাপক মহসিন আলী ও আবু বক্কর সিদ্দিক এখনও বরখাস্তের চিঠি পাননি বলে জানিয়েছেন।

জানা যায়, গত ১৪ নভেম্বর সন্ধ্যা ৬টার সময় পদোন্নতি প্রাপ্ত ৫৭ জন শিক্ষক কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. বিধান চন্দ্র হালদারের কক্ষে গেলে ইনক্রিমেন্ট পাওয়া নিয়ে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় গত ২২ নভেম্বর দুই শিক্ষক ও চার ছাত্রসহ ৬০ জনের বিরুদ্ধে নারী শিক্ষককে লাঞ্ছিত, ছিনতাই ও অন্যান্য শিক্ষকদের মারধর করার অভিযোগে থানায় একটি মামলা হয়। মামলাটি দায়ের করেন সমাজ বিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক হাসান জামিল।

পরে ওই ঘটনায় প্রশাসনের পক্ষ থেকে রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ড. শফিউল আলম কোতয়ালি থানায় একটি পাল্টা এজাহার জমা দেন। যা রোববার (২ ডিসেম্বর )পর্যন্ত রেকর্ড হয়নি। সেখানে আন্দোলনকারী কয়েকজন শিক্ষকের নাম রয়েছে। এ নিয়ে কথা বলতে পদোন্নতি প্রাপ্ত আন্দোলনকারী শিক্ষকরা গত বৃহস্পতিবার (২৯ নভেম্বর) কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. বিধান চন্দ্র হালদারের কক্ষে যান। এ সময় ট্রেজারার শিক্ষকদেরকে রেজিস্ট্রারের সঙ্গে কথা বলতে বলেন।

পদোন্নতি প্রাপ্ত সহকারী শিক্ষকরা রেজিস্ট্রারের কক্ষে যান। সেখানে কথা বলে রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ড. শফিউল আলম লাঞ্চে যাওয়ার জন্য রুম থেকে বেরিয়ে যান। এ সময় পেছন থেকে পদোন্নতি প্রাপ্ত দুই সহকারী শিক্ষক রেজিস্ট্রারকে কিলঘুষি মারেন এবং হাত ধরে টেনে নিচে নামিয়ে আনেন। আর এ ভিডিও ছড়িয়ে পড়লে ক্যাম্পাসে সমালোচনার ঝড় ওঠে। সবাই ওই দুই সহকারী অধ্যাপকের বহিষ্কার দাবি করেন।

আপনার মতামত জানানঃ