সফল ফ্রিল্যান্সার হওয়ার কার্যকরী ৮ টি উপায়!

প্রযুক্তি ডেস্কঃ নিজের সত্যিকার সম্ভাবনাকে খুঁজে বের করে স্বাধীনভাবে ফ্রিল্যান্সিং কে ক্যারিয়ার হিসেবে বেছে নেয়া কিন্তু খুব কঠিন একটি সিদ্ধান্ত। যদিও অনলাইনে অর্থ উপার্জনের সবচেয়ে নিরাপদ মাধ্যম হচ্ছে ফ্রিল্যান্সিং। পরিসংখ্যান বলে প্রতি ৩ জনের মধ্যে অন্তত ১ জন ফ্রিল্যান্সার ভবিষ্যতে স্বনির্ভর হয়ে উঠতে পারেন। ইতিমধ্যেই ফ্রিল্যান্সিং পেশায় প্রতিযোগিতা অনেক বেড়ে গেছে, সফলভাবে টিকে থাকা বেশ মুশকিল। তাই এতো প্রতিযোগির মধ্যেও নিজের যোগ্যতা ও দক্ষতা দিয়ে একটি শক্ত অবস্থান তৈরি করে নিতে হয় আমাদের। সফল ফ্রিল্যান্সিং এর জন্য নিচের এই ৮ টি বিষয়ে মনোযোগ দেয়া এবং সে অনুযায়ী চেষ্টা করতে পারেন। আশা করি আপনাদের কাজে লাগবে।
১. শেখা এবং পরিপূর্ণ দক্ষ হয়ে ওঠার বিষয়ে মনোযোগ দিতে হবে-
টিকে থাকার জন্য শেখা সবার আগে প্রয়োজন। কারণ গড়পড়তা বা মাঝামাঝি মানের দক্ষতা দিয়ে যে কোন ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেসে দীর্ঘ সময়ের জন্য টিকে থাকা মুশকিল। সেক্ষেত্রে নিজের দক্ষতা বৃদ্ধি করতে থাকুন, বিষয়টির খুটি-নাটি সবকিছু জানুন তাহলেই সফলতা আসবে আপনার দোরগোড়ায়।
২. লক্ষ্য রাখুন নিজের প্রোফাইলে-
ফ্রিল্যান্সার হিসেবে আপনার একটি ভালো প্রোফাইল তৈরি করার পরই ক্লায়েন্টের সাথে কথা বলা উচিত। একটি ভালো প্রোফাইলের জন্য নিচের বিষয়গুলো খেয়াল রাখতে পারেন।
– ভালো প্রোফাইল ছবি
– নিজের শিক্ষাগত যোগ্যতা সহ কাজের সার্বিক বর্ণনা যেখানে আপনার দক্ষতাকে তুলে ধরবে
– আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল পোর্টফোলিও। এটি অনেকটা দোকানে পণ্য সাজিয়ে রাখার মত। ভালো পণ্য না থাকলে কাস্টমারও আসবে না।
৩. পরিমানের চেয়ে কাজের মানের উপর বেশি নজর দিন-
একজন ভালো ফ্রিল্যান্সার সবসময়ে চেষ্টা করেন তার কাজ ও দক্ষতার সাথে যায় এমন প্রজেক্ট বেছে নিতে। তাই যে কোন প্রজেক্টের কাজে হাত না দিয়ে বেছে বেছে নিজের এবং ক্লায়েন্টদের পছন্দের ওপর ভিত্তি করে ভালো কাজ করাটাই মূল লক্ষ্য হওয়া উচিত।
৪. ক্লায়েন্টের মূল সমস্যা সমাধানের দিকে লক্ষ্য রাখা-
যখন আপনি একটি প্রজেক্টের কাজে হাত দেবেন তখন ক্লায়েন্ট কি চান তা বিস্তারিত জানার চেষ্টা করুন। এক্ষেত্রে কিছু বিষয়ে খেয়াল রাখতে পারেন।
– তার উল্লেখিত সমস্যা সমাধানে আপনি কিভাবে সাহায্য করতে পারেন তা জানতে চান
– চেষ্টা করুন তার দেয়া প্রজেক্ট সম্পর্কিত পোর্টফোলিও দিতে। আপনার সম্পূর্ণ পোর্টফোলিও এক্ষেত্রে না দেয়াই ভালো।
৫. কাজের ভ্যালুর দিকে ফোকাস করুন-
এশিয়ার দেশগুলোতে ফ্রিল্যান্সারদের সবচেয়ে বড় ভুল হচ্ছে তারা বিড করার সময় নানানভাবে অনুরোধ বা অন্য কোনভাবে ক্লায়েন্টকে নোটিশ করানোর চেষ্টা করেন। আসলে এ ধরণের কাজ কোন কাজে আসে না। তাই কাজের জন্য অনুরোধ না করে নিজের কাজের মান ও ভ্যালুর দিকে ফোকাস করুন। ক্লায়েন্ট এর সামনে আত্মবিশ্বাসের সাথে আপনার দক্ষতা তুলে ধরুন। দেখবেন এমনিতেই ক্লায়েন্টরা আপনার দিকে এগিয়ে আসছেন।
৬. প্রজেক্ট পরবর্তি চুক্তিপত্রে নজর দিন-
অনেক ফ্রিল্যান্সাররাই কাজ পাওয়ার পর কোন রকম ডকুমেন্টেশন না করেই কাজে ঝাপিয়ে পরেন। কিন্তু ক্লায়েন্টের সাথে চিন্তামুক্ত সুষ্ঠু সম্পর্ক বজায় রাখতে চুক্তিপত্র খুব গুরত্বপূর্ণ একটি বিষয়। চুক্তিপত্রে সবকিছু স্পষ্টভাবে উল্লেখ থাকা উচিত যার মাধ্যমে দু পক্ষই জানবে তাদের কী করতে হবে এবং কী করতে হবে না।
৭. ESCROW এর মাধ্যমে পেমেন্ট নিশ্চিত করা-
আপনি নিশ্চই ফ্রিল্যান্সার হিসেবে এতো পরিশ্রম শুধু শুধু করছেন না? তাই পেমেন্ট সংক্রান্ত যে কোন সমস্যা এড়াতে প্রজেক্ট পাওয়ার পর ক্লায়েন্টকে ESCROW মাধ্যমে মানি ডিপোজিট এর ব্যবস্থা করতে বলা উচিত। একজন ফ্রিল্যান্সার হিসেবে এটা শুধু আপনার আগ্রহেই নয়, ESCROW এর মাধ্যমে পেমেন্ট করা দু পক্ষের জন্যই নিরাপদ ও সুবিধাজনক।
৮. ক্লায়েন্ট রিটেনশন এর বিষয়ে খেয়াল রাখা-
নতুন ক্লায়েন্ট পাওয়া কঠিন হলেও আগের ক্লায়েন্ট ধরে রাখা কিন্তু সহজ। আপনার বর্তমান ক্লায়েন্ট এর মাধ্যমে আপনি দীর্ঘদিন সুবিধা পেতে পারেন কারণ তিনি ইতিমধ্যেই আপনাকে একবার যাচাই করে দেখেছেন। তাই পরবর্তিতে সেই ক্লায়েন্ট এর ফিরে আসার সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশি।
মোট কথা আপনার দক্ষতা এবং আত্মবিশ্বাস ই পারে আপনাকে একজন সফল ফ্রিল্যান্সার হিসেবে তৈরি করতে…

আপনার মতামত জানানঃ