রাসায়নিক দুর্ঘটনা কবলিতদের সহায়তা বিষয়ক কর্মশালার উদ্বোধন

বিশেষ সংবাদদাতাঃ ‘রাসায়নিক দুর্ঘটনা কবলিতদের সহায়তায় হাসপাতালগুলোর প্রস্তুতি’ বিষয়ক তিন দিনব্যাপী এক কর্মশালার উদ্বোধন করা হয়েছে। ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) অডিটোরিয়ামে এ কর্মশালার উদ্বোধন করা হয়।

আজ সোমবার (২২ জুলাই) প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এ কর্মশালার উদ্বোধন করেন স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব আসাদুল ইসলাম।

ঢাকা মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর খান আবুল কালাম আজাদ, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল নাসির উদ্দিন ও বিএনএডব্লিউসির সদস্য সচিব কমডোর বশির উদ্দিন এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

বাংলাদেশ ন্যাশনাল অথরিটি ফর ক্যামিক্যাল উইপন্স কনভেনশন (বিএনএসিডব্লিউসি), সম্মিলিত সামরিক হাসপাতাল (সিএমএইচ) ও ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতাল এ কর্মশালার আয়োজন করে।

এতে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ৪৫ জন সদস্য অংশগ্রহণ করেন। কর্মশালার সমাপনী অনুষ্ঠান আগামী বুধবার (২৪ জুলাই) সিএমএইচে অনুষ্ঠিত হবে।

কাউকে সন্দেহ হলে আইনের হাতে তুলে দিন

জেলা প্রতিনিধিঃ গুজবে কান না দিয়ে কাউকে সন্দেহ হলে তাকে আইনের হাতে তুলে দেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। সোমবার দুপুরে নেত্রকোণা জেলা আইনজীবী সমিতির ৫তলা ভবন উদ্বোধনকালে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে একথা বলেন তিনি।

পরে জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতিত্বে আইনজীবীদের সঙ্গে এক মতবিনিময় সভায় যোগ দেন আইনমন্ত্রী।

এ সময় নেত্রকোণা-৩ আসনের সংসদ সদস্য অসীম কুমার উকিল, সংরক্ষিত মহিলা আসনের সংসদ সদস্য হাবীবা রহমান খান শেফালী, জেলা ও দায়রা জজ আবু মো. আমিমুল এহসান, আইন-বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব বিকাশ কুমার সাহা, প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের সচিব সাজ্জাদুল হাসান, জেলা প্রশাসক মঈন-উল-ইসলাম ও পুলিশ সুপার জয়দেব চৌধুরীসহ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক আমিনুল হক খান মুকুলসহ স্থানীয় প্রশাসনের কর্মকর্তা ও আইনজীবী সমিতির সদস্যরা সভা পরিচালনা করেন।

সরকারি অর্থায়নে প্রায় ছয় কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করা হয়েছে জেলা আইনজীবী সমিতির ৫তলা ভবন।

দুই কারখানাকে ৮ লাখ টাকা জরিমানা

বিশেষ সংবাদদাতাঃ পরিবেশ দূষণের দায়ে গাজীপুর জেলার দুটি কারখানাকে ৮ লাখ ১২ হাজার ৯০০ টাকা ক্ষতিপূরণ ধার্য করেছে পরিবেশ অধিদফতর। এ ছাড়া একই এলাকার দুটি কারখানাকে সতর্ক করা হয়েছে।

গতকাল (২১ জুলাই) পরিবেশ অধিদফতরের পরিচালক, মনিটরিং অ্যান্ড এনফোর্সমেন্ট উইংয়ের পরিচালক রুবিনা ফেরদৌসী এ ক্ষতিপূরণ ধার্য করেন।

সোমবার পরিবেশ অধিদফতর, গাজীপুরের উপ-পরিচালক মো. আ. সালাম সরকার স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়, পরিবেশ অধিদফতর, গাজীপুর জেলা কার্যালয়ের সহযোগিতায় চলছে পরিবেশ দূষণবিরোধী অভিযান ও পরিবেশ সংরক্ষণ কার্যক্রম।

শব্দ দূষণের সৃষ্টি করছিল ওই দুই কারখানা, যার ফলে পরিবেশ ও প্রতিবেশের ক্ষতিসাধন হচ্ছে।

কারখানার একটি হলো ক্রিসেন্ট কেমিক্যাল লিমিটেড। এই কারখানাকে ৭ লাখ ৭২ হাজার ৫০০ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

এ ছাড়া তরল বর্জ্য পরিশোধনাগার (ইটিপি) হতে তরল বর্জ্যরে মানমাত্রার নির্ধারিত মানমাত্রার বাইরে থাকায় এবং একই অপরাধে এসকেএফ ফার্মা লিমিটেডকে ৪০ হাজার ৪০০ টাকা ক্ষতিপূরণ আরোপ করা হয়।

তাছাড়া ডালাস ফ্যাশন্স লি., আরগন ডেনিমস লিমিটেডকে পরিবেশগত ছাড়পত্রের সব শর্ত প্রতিপালন করে কারখানা পরিচালনার জন্য সর্তক করা হয়েছে।

‘প্রতিরক্ষা ইস্যুতে কারো সঙ্গে মজা করে না ইরান’

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ ইরানের স্ট্র্যাটেজিক কাউন্সিল অন ফরেন রিলেশনের প্রধান ও সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী কামাল খাররাজি বলেছেন, ইরান গত ২৫০ বছরে কখনোই অন্য দেশে আগ্রাসন চালায়নি। তবে আত্মসম্মান ও আত্মরক্ষার ক্ষেত্রে তেহরান কাউকে ছাড় দেয় না। ইরান এ বিষয়ে কারো সঙ্গে মজা করছে না।

সোমবার ইরানি বার্তা সংস্থা ইরনাকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে এসব কথা বলেন তিনি। কামাল খাররাজি হরমুজ প্রণালীতে ব্রিটিশ তেল ট্যাংকার আটকের প্রতি ইঙ্গিত করে বলেন, ইরান সব সময় আগ্রাসীদের মোকাবেলায় দৃঢ় অবস্থান নিয়েছে এবং যে পথ নির্বাচন করেছে সেটাকে মনেপ্রাণে বিশ্বাস করে। ইরানি জাতি আত্মত্যাগের মাধ্যমে হলেও তাদের লক্ষ্য-আদর্শ রক্ষা করবে বলে তিনি জানান।

ইরানের বিরুদ্ধে আরও নিষেধাজ্ঞার ব্রিটিশ হুমকি ব্যাপারে তিনি বলেন, এ পর্যন্ত ইরানের বিরুদ্ধে নানা ধরনের নিষেধাজ্ঞা ও চাপ প্রয়োগ করা হয়েছে। কিন্তু ইরানি জনগণ চাপ সত্ত্বেও তাদের জীবনযাত্রা অব্যাহত রেখেছে।

গত শুক্রবার ইরানের ইসলামী বিপ্লবী গার্ড বাহিনী (আইআরজিসি) হরমুজ প্রণালীতে আন্তর্জাতিক আইন লংঘনের দায়ে ব্রিটেনের একটি তেল ট্যাংকার আটক করে। এরপর ব্রিটেন তেহরানের বিরুদ্ধে আরও বেশি নিষেধাজ্ঞা আরোপের হুমকি দিয়েছে।

গত ৪ জুলাই ব্রিটেন জিব্রাল্টার প্রণালীতে ইরানের একটি তেল ট্যাংকার আটক করে। এরপরই ইরানের হাতে আটক হয় ব্রিটিশ ওই তেল ট্যাংকার। পার্সট্যুডে।

সাত কলেজ সংকটে রাষ্ট্রপতির শরণাপন্ন ডাকসু

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদকঃ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত রাজধানীর সরকারি সাত কলেজকে বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্তি থেকে বাতিলের দাবিতে লাগাতার আন্দোলন করছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। দাবি আদায়ে গত দুইদিন ধরে ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করে সকল একাডেমিক ও প্রশাসনিক ভবনে তালা লাগিয়ে দিয়েছেন তারা।

এমন অবস্থায় উদ্ভুত সমস্যার সমাধানে রাষ্ট্রপতির শরণাপন্ন হচ্ছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু)। তারা বিষয়টি সমাধানের জন্য রাষ্ট্রপতির সঙ্গে আলোচনায় বসার জন্য ইতোমধ্যে বঙ্গভবনকে জানিয়েছে।

সোমবার শিক্ষার্থীদের আন্দোলন চলাকালে সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের সামনে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে সংহতি জানিয়ে এ কথা জানান ডাকসুর সদস্য রকিকুল ইসলাম ঐতিহ্য।

তিনি বলেন, ‘আজ-কালের মধ্যেই শিডিউল পেলে এ সাক্ষাৎ হতে পারে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ড. আখতারুজ্জামান দেশের বাইরে রয়েছেন। শিক্ষামন্ত্রীও অসুস্থ। ফলে সাত কলেজ নিয়ে সিদ্ধান্ত নেয়ার কেউ নেই।’

ঐতিহ্য বলেন, ‘এ ব্যাপারে ডাকসুতে বৈঠক হয়েছে। সেখানে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের সঙ্গে সাক্ষাতের কথা উঠেছে। ডাকসুর জিএস গোলাম রাব্বানী শিডিউল নেয়ার চেষ্টা করেছেন। তবে মেলেনি। আজ-কালের মধ্যেই সাক্ষাৎ হতে পারে।’

এদিকে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে আজও অচল হয়ে পড়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও প্রশাসনিক কার্যক্রম। সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল একাডেমিক ও প্রশাসনিক ভবনে তালা দেয় আন্দোলনকারীরা। এরপর ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করে তারা।

শিক্ষার্থীরা জানান, দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত তাদের আন্দোলন চলবে। আন্দোলনকারীদের মুখপাত্র শাকিল মিয়া বলেন, এ দাবি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিটি শিক্ষার্থীর। দাবি আদায়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল শিক্ষার্থী স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশ নিচ্ছে। আমরা অবিলম্বে সাত কলেজের অধিভুক্তি বাতিল চাই।

গুজব গণপিটুনি বন্ধে সারাদেশের পুলিশকে বার্তা

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ শনিবার ঢাকার বাড্ডার এই বিদ্যালয়ে ছেলেধরা সন্দেহে গণপিটুনিতে তসলিমা বেগম রেনু (৪২) নামে এক নারী মারা যান
পদ্মা সেতুর নির্মাণকাজে মানুষের মাথা লাগবে- এমন গুজব ডালপালা মেলে শেষে গিয়ে ঠেকেছে ছেলেধরার হাতে। ফলাফল হিসেবে উদ্ভূত হয়েছে অদ্ভুত এক পরিস্থিতি, দেখা দিয়েছে ছেলেধরা আতঙ্ক। আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে স্রেফ সন্দেহের বশে ঘটছে গণপিটুনির ঘটনা। সম্প্রতি কয়েকজন নিরীহ ব্যক্তি গণপিটুনিতে নিহত হওয়ায় দেশের আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে অনেকেই উদ্বেগ প্রকাশ করেন।

বিষয়টা নিয়ে দৃশ্যত উদ্বিগ্ন পুলিশও। ছেলেধরার গুজব বন্ধে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক, টুইটার, ইউটিউব এবং ব্লগগুলো নজরদারির নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এছাড়া ছেলেধরা-সংক্রান্ত বিভ্রান্তিকর পোস্ট দিলে বা শেয়ার করলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

সোমবার পুলিশ সদর দপ্তরের সহকারী মহাপরিদর্শক (এআইজি-অপারেশন্স) সাঈদ তারিকুল হাসান সারাদেশের পুলিশের ইউনিটকে এই বার্তা পাঠান।

বার্তায় উল্লেখ করা হয়, ফেসবুক, টুইটার, ইউটিউব, ব্লগ এবং মোবাইল ফোনের মাধ্যমে ছেলেধরা-সংক্রান্ত বিভ্রান্তিমূলক পোস্টে মন্তব্য বা গুজব ছড়ানোর পোস্টে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নিতে হবে।

বার্তায় মোট চারটি উপায়ে ছেলেধরার গুজব ও গণপিটুনি প্রতিরোধে পুলিশের ইউনিটগুলোকে কাজ করার নির্দেশনা দেয়া হয়।

এতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে গোয়েন্দা নজরদারি বৃদ্ধি, স্কুলে অভিভাবক ও গভর্নিং বডির সদস্যদের সঙ্গে মতবিনিময়, ছুটির পর অভিভাবকরা যাতে শিক্ষার্থীকে নিয়ে যায় সে বিষয়ে নিশ্চিত করার জন্য স্কুল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা, প্রতিটি স্কুলের ক্যাম্পাসের সামনে ও বাইরে সিসিটিভি ক্যামেরা স্থাপন, মেট্রোপলিটন ও জেলা শহরের বস্তিতে নজরদারি বৃদ্ধির নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

এছাড়া বার্তায় গুজব বন্ধে জনসম্পৃক্ততামূলক কাজ করার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। সেগুলো হচ্ছে- উঠান বৈঠকের মাধ্যমে গুজববিরোধী সচেতনতা সৃষ্টি, এলাকায় মাইকিং-লিফলেট বিতরণ, মসজিদের ইমামদের ছেলেধরা গুজববিরোধী আলোচনার নির্দেশনা।

এই চিঠির পরিপ্রেক্ষিতে পুলিশের কোন ইউনিট কী ব্যবস্থা নিয়েছে তা আগামী তিন কার্যদিবসের মধ্যে পুলিশ সদর দপ্তরে ফ্যাক্সের মাধ্যমে জানাতে বলা হয়েছে।

পুলিশ সদর দফতরের সহকারী মহাপরিদর্শক (এআইজি) সোহেল রানা জাগো নিউজকে বলেন, চিঠিতে গুজব বন্ধে পুলিশের ইউনিটগুলোকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে সারাদেশের পুলিশ সদস্যরা গুজব ও গণপিটুনি বন্ধে কাজ শুরু করেছেন।

পদ্মা সেতু নির্মাণকাজে ‘মানুষের মাথা লাগবে’ বলে সম্প্রতি ফেসবুকে গুজব ছড়ানো হয়, যাতে বিভ্রান্ত না হতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছিল সরকার। গুজব ছড়ানোর অভিযোগে বেশ কয়েকজনকে গ্রেপ্তারও করা হয়।

এর মধ্যে বৃহস্পতিবার নেত্রকোনা শহরে এক যুবকের ব্যাগ তল্লাশি করে ‘শিশুর মাথা’ পাওয়ার পর তাকে পিটিয়ে হত্যা করে এলাকাবাসী। এ ঘটনার পর দেশের বিভিন্ন স্থানে ছেলেধরা সন্দেহে আক্রমণের ঘটনা ঘটছে।

ক্ষুধামুক্ত দেশ গড়ার প্রত্যয়ে কাজ করছে সরকার : স্পিকার

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদকঃ স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেছেন, বিগত দুই মেয়াদে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ মৎস্য চাষে সফলতা লাভ করেছে। এরই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশ বর্তমানে মৎস্য উৎপাদনে বিশ্বে চতুর্থ স্থানে রয়েছে। এ ধারা অব্যাহত থাকলে মৎস্য উৎপাদনে বাংলাদেশ ভবিষ্যতে আরও এগিয়ে যাবে। তিনি বলেন, সরকারের বাস্তবমুখী পদক্ষেপের কারণে বাংলাদেশ আজ খাদ্য উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণ। ক্ষুধামুক্ত বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয়ে বর্তমান সরকার কাজ করছে।

আজ সোমবার দুপুরে ‘জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ ২০১৯’ উপলক্ষে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের অধীন মৎস্য অধিদফরের উদ্যোগে সংসদ ভবন লেকে পোনা অবমুক্তকরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন স্পিকার।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চিফ হুইপ নূর-ই- আলম চৌধুরী। অনুষ্ঠানে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী আশরাফ আলী খান খসরুর সভাপতিত্বে স্বাগত বক্তব্য রাখেন মৎস্য অধিদফতরের মহাপরিচালক আবু সাইদ মো. রাশেদুল হক।

সংসদ ভবন লেকে ৩ প্রজাতির ১০ হাজার পোনা মাছ অবমুক্ত করা হয়। এর মধ্যে কাতলা ২ হাজার ৫০ টি, রুই ৪ হাজার ২০০টি এবং মৃগেল ৩ হাজার ৭৫০টি। মৎস্য অধিদফতর হতে পর্যায়ক্রমে সংসদ ভবন লেকে আরও ২০ হাজার পোনা অবমুক্ত করা হবে।

শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেন, ‘পুষ্টি চাহিদা পূরণে মৎস্য উৎপাদন বৃদ্ধি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সেজন্য বর্তমান সরকার নিরলস কাজ করে যাচ্ছে। সরকার মৎস্যজীবীদের কল্যাণে ব্যাপক কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। মৎস্য চাষ সম্পর্কে সকলকে সচেতন করার পাশাপাশি মৎস্য সম্পদের সংরক্ষণ ও উৎপাদন বৃদ্ধিতে মৎস্য সপ্তাহ অবদান রাখছে।’

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি এ বি তাজুল ইসলাম, রেলপথ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি এ বি এম ফজলে করিম চৌধুরী, সাবেক চিফ হুইপ আ স ম ফিরোজ, সাংসদ কাজী ফিরোজ রশীদ, উম্মে ফাতেমা নাজমা বেগম, অপরাজিতা হক প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। এ ছাড়া জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের সিনিয়র সচিব ড. জাফর আহমেদ খান এবং মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. রাইসুল আলম মণ্ডলসহ জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

বিশ্বের শীর্ষ আয়ের রেকর্ড গড়লো এভেঞ্জার্স

বিনোদন ডেস্কঃ চলতি বছরের এপ্রিলে বিশ্বব্যপি মুক্তি দেয়া হয় মার্ভেল কমিকসের সাড়া জাগানো ছবি এভেঞ্জার্স এন্ডগেম। মুক্তির পর থেকেই একের পর এক রেকর্ড করে যাচ্ছিলো সুপারহিরোদের নিয়ে নির্মিত এই ছবিটি।

তবে সব রেকর্ড ভাঙ্গলেও বিশ্বের সবচেয়ে আয়করা ছবির তালিকায় থাকা জেমস ক্যামেরুনের বিখ্যাত ছবি ‘এভাটার’ কে ছুঁতে পারেনি এভেঞ্জার্স এন্ডগেম। অবশেষে ছবিটি মুক্তির ১৩ সপ্তাহে গিয়ে সেটিও ছুঁয়ে ফেললো মার্ভেল কমিকস ও ওয়াল্ট ডিজনি প্রযোজিত এই ছবিটি।

রবার্ট ডাউনি জুনিয়র ও ক্রিস ইভান অভিনীত এন্ডগেম ছবিটির ১৩ তম সপ্তাহের আয়ের পরিমান দাঁড়িয়েছে ২.৭৮৯ বিলিয়ন ডলারে যা কিনা এ যাবত কালের কোন ছবির সবচেয়ে বেশি আয়ের রেকর্ড৷ এর আগে এই রেকর্ডটি ছিলো এভাটার ছবির, যার আয় ছিলো ২.৭৮৮ বিলিয়ন ডলার।

নিজেদের এমন সাফল্যে ডিজনি স্টুডিওজ এর চিফ ক্রিয়েটিভ ডিরেক্টর এলান হর্ন এক টুইট বার্তায় বিশ্বজুড়ে মার্ভেল কমিকসের সকল ফ্যান ও শুভাকাঙ্খীদের শুভেচ্ছা জানান। তিনি বলেন ‘বক্সঅফিসের এই সাফল্যের সবটুকু কৃতিত্বই মার্ভেল কমিকসের ফ্যানদের,তাদের ভালোবাসার ফলে এমন অর্জন সম্ভব হয়েছে।’

তবে এ রেকর্ড আবারও নিজেদের করে নিতে প্রস্তুত হয়ে এভাটার ফ্রেঞ্চাইজি। শোনা যাচ্ছে, ২০২১ থেকে ২০২৭ পর্যন্ত এভাটারের ৪টি সিক্যুয়াল ছবি মুক্তির প্রস্তুতি নিচ্ছে।

১৪ দিন পর বান্দরবান-রোয়াংছড়ি সড়ক যোগাযোগ চালু

জেলা প্রতিনিধিঃ ১৪ দিন পর বান্দরবানের সঙ্গে রোয়াংছড়ির সড়ক যোগাযোগ সোমবার (২২ জুলাই) স্বাভাবিক হয়েছে।

জেলা সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী সজিব আহমেদ এই তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি জানান, উপজেলার ৪, ৯, ও ১০ মাইলসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে পাহাড়ের মাটি ধসে পড়ে দুই উপজেলার মধ্যে সড়ক যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়। ওই সড়ক থেকে মাটি সরানোর পর গতকাল (২১ জুলাই) পর্যন্ত হালকা যানবাহন চলাচল করার জন্য উপযোগী করা হয়। তবে আজ (সোমবার) সকালে সব ধরনের যানবাহন চলাচলের জন্য ওই সড়ক খুলে দেয়া হয়েছে ।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, গত ৮ জুলাই থেকে টানা বর্ষণে বান্দরবান-রোয়াংছড়ি সড়কের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে পাহাড়ের মাটি ধসে পড়ে সড়ক যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়। এতে চরম ভোগান্তিতে পড়তে হয় তাদের। বন্ধ হয়ে যায় দুই উপজেলার মধ্যে সরাসরি পণ্য পরিবহন।

রাষ্ট্রীয় খরচে হজে যাচ্ছেন ৪০০ জনের বিশাল বহর!

বিশেষ সংবাদদাতাঃ ধর্ম মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে চলতি বছর রাষ্ট্রীয় খরচে বিভিন্ন শ্রেণি ও পেশার হজ পালনকারীর তালিকা ক্রমেই দীর্ঘ হচ্ছে। গত ১ জুলাই থেকে গতকাল রোববার (২১ জুলাই) পর্যন্ত ২০ দিনে মোট সাত দফায় রাষ্ট্রীয় খরচে মনোনয়নপ্রাপ্ত ৩৮৯ জন হজযাত্রীর তালিকা প্রকাশ করেছে মন্ত্রণালয়। এ সংখ্যা চারশ’ ছাড়িয়ে যেতে পারে বলে জানা গেছে।

আগামী ২৯ ও ৩০ জুলাই ফ্লাইট প্রাপ্তি সাপেক্ষে তারা পবিত্র হজ পালন করতে সৌদি যাবেন। ১০ সেপ্টেম্বর দেশে ফিরে আসবেন। তারা ধর্ম মন্ত্রণালয় ঘোষিত ৩ লাখ ৪৪ হাজার টাকার প্যাকেজ-২-এর সুবিধায় হজ পালন করবেন।

এ তালিকার বাইরে হজ ব্যবস্থাপনার সার্বিক তত্ত্বাবধান ও দিক-নির্দেশনার জন্য ধর্ম প্রতিমন্ত্রীর নেতৃত্বে ‘ভিআইপি’ হজ প্রতিনিধি দল-২০১৯ গঠিত হয়। এ তালিকায় প্রধান নির্বাচন কমিশনার, একাধিক প্রতিমন্ত্রী, সচিব ও সংসদ সদস্য রয়েছেন। এ প্রতিনিধি দলের সদস্যরা আবার প্রত্যেকে ভ্রমণসঙ্গী হিসেবে স্ত্রী ও সন্তানসহ তিনজনকে সঙ্গে হজে নিয়ে যেতে পারবেন। তারা ও তাদের স্ত্রী সন্তানরা ৪ লাখ ১৮ হাজার ৫০০ টাকার প্যাকেজ-১-এর সুবিধায় হজ করবেন।

রাষ্ট্রীয় খরচে হজে মনোনয়ন প্রক্রিয়া নিয়ে প্রতি বছরের মতো এবারো নানা মহলে আলোচনা-সমালোচনা চলছে। অনেকেই প্রশ্ন তুলে বলেছেন, রাষ্ট্রীয় খরচে মনোনয়নের কোনো নীতিমালা রয়েছে কিনা? যাদেরকে মনোনয়ন দেয়া হয় তাদেরকে কোন ভিত্তিতে মনোনয়ন দেয়া হয়?

দেখা গেছে, এ তালিকায় থাকা অনেকে অর্থবিত্তের মালিক। তাদের নিজ খরচে হজে যাওয়ার সামর্থ্য রয়েছে কিন্তু তারা সরকারি খরচে হজে যান। শুধু হজেই যান না, তাদের অনেকে বিশেষ করে সরকারি উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা হজ পালনের পাশাপাশি লাখ লাখ টাকা খরচও পান।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ধর্ম মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা জানান, সাধারণত সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী, সচিবসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি সংসদ সদস্য ও রাজনীতিবিদসহ বিভিন্ন মহল থেকে সরকারি খরচে হজে পাঠানোর নাম প্রস্তাব করে ধর্ম মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়। ধর্ম মন্ত্রণালয় সেখান থেকে যাচাই-বাছাই করে একটি খসড়া তালিকা প্রণয়ন করে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পাঠায়। প্রধানমন্ত্রীর চূড়ান্ত অনুমোদনে রাষ্ট্রীয় খরচে হজে মনোনয়নপ্রাপ্তদের তালিকা প্রকাশ করে ধর্ম মন্ত্রণালয়।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ধর্ম মন্ত্রণালয় ১ জুলাই সরকারি খরচে হজে যাওয়ার জন্য ১৭৪ জন মনোনয়নপ্রাপ্তের তালিকা প্রকাশ করে। ৯ জুলাই প্রথমবারের মতো সরকারি খরচে হজ পালনের জন্য ৫৭ সদস্যের দেশ সেরা আলেম-ওলামাদের নাম প্রকাশ করা হয়। তারা হজযাত্রীদের হজ পালনের ব্যাপারে পরামর্শ দেবেন।

১০ জুলাই আরও ১৩৪ সদস্যের একটি তালিকা প্রকাশ করা হয়। একইভাবে পরবর্তীতে ১১ জুলাই ৪ জন, ১৪ জুলাই ৪ জন ও সর্বশেষ গতকাল আরও ১৩ জনের নাম প্রকাশ করা হয়।

ব্যারিস্টার সুমনের বিরুদ্ধে মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের কটূক্তি করার অভিযোগে ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমনের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করা হয়েছে।

সোমবার বাংলাদেশ সাইবার ট্রাইব্যুনালের বিচারক আস-শামস জগলুল হোসেনের আদালতে এ মামলা করেন গৌতম কুমার এডবর নামে রাজধানীর ভাষানটেকের এক সমাজসেবক। আদালত বাদীর জবানবন্দি গ্রহণ শেষে আদেশ পরে দেবেন বলে জানান।

তাকে আইনগত সহায়তা করেন অ্যাডভোকেট সুমন কুমার রায়। তার সঙ্গে ছিলেন আইনজীবী সঞ্চয় কুমার দে দুর্জয়।

সুমন কুমার রায় বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানার জন্য ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমনের বিরুদ্ধে এ মামলা করা হয়েছে।

মামলার অভিযোগে বলা হয়, গত ১৯ জুলাই ব্যারিস্টার সাইদুল হক সুমন ফেসবুকে বলেন, পৃথিবীর মধ্যে নিকৃষ্ট এবং বর্বর জাতি হচ্ছে হিন্দু ধর্মাবলম্বী, যাদের ধর্মের কোনো ভিত্তি নেই। মনগড়া বানানো ধর্ম। হয়তো দু-একটি খবর নিউজে প্রকাশিত হয়। এ ছাড়া আরও অনেক ঘটনা ধামাচাপা পড়ে যায়, তাদের নৃশংসতার আড়ালে।

অভিযোগে আরও বলা হয়, গত ১৯ জুলাই সনাতন ধর্ম ও হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের নিয়ে মিথ্যা, অশ্লীল চরম আপত্তিকর মন্তব্য করেন। ফলে হিন্দু সমাজ তথা গোটা জাতির মধ্যে এ বিষয় নিয়ে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে। আসামির এরকম আচরণ এবং সোশ্যাল মিডিয়ার অশ্লীল অবমাননাকর ও অরুচিপূর্ণ বক্তব্যের ফলে রাষ্ট্র ও হিন্দু সমাজের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয় এবং ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানে। আসামির এ ধরনের উসকানিমূলক বক্তব্যের ফলে সাধারণ জনগণ নীতিভ্রষ্ট, অসৎ হইতে উদ্ধত হওয়ায়র ফলে আইনশৃঙ্খলা বিঘ্ন হওয়ার সম্ভাবনা আছে।

কিন্তু এ ব্যাপারে ব্যারিস্টার সুমন আগে থেকেই বলে আসছেন তার এ ফেসবুক আইডিটি ফেক। তিনি গত ২০ জুলাই তার ভেরিফায়েড ফেসবুকে লিখেন, ‘আমার নাম ব্যবহার করে একটি ফেক পেজ হিন্দু সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে বিষোদগার করছে। আমি এ বিষয়টি পুলিশকে জানিয়েছি। আপনারা সচেতন থাকবেন। এটাই আমার একমাত্র পেজ, যার ফলোয়ার ২০ লাখের অধিক।

ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমনের বিরুদ্ধে পৃথক আইনে মামলার প্রস্তুতির কথা গতকালই জানান হিন্দু আইনজীবী পরিষদের সভাপতি সুমন কুমার রায়। ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে নিজেই বিষয়টি জানান। পরে মামলার প্রস্তুতির বিষয়টি তিনি নিশ্চিত করেন বলেন, পৃথক দুটি ধারায় এ মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

সুমন কুমার রায় গতকাল বলেন, ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের অভিযোগে একটি এবং মানহানির অভিযোগে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দুটি মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছি। ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমনের বিরুদ্ধে দুই ধরনের অভিযোগ আনার সুযোগ আছে। একটি ২৯৫ (ক) ধারায়। অপরটি ফেসবুক লাইভে মানহানি করায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের সংশোধিত ধারায় অভিযোগ আনা হবে।

এ বিষয়ে ব্যারিস্টার সায়েদুল হক সুমন গতকাল বলেন, ‘মামলা করা একটি সাংবিধানিক অধিকার। যে কেউ কারো বিরুদ্ধে মামলা করতে পারে। এটাই বাংলাদেশের নিয়ম হওয়া উচিত।’

এর আগে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করে দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করায় বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহিতার অভিযোগে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ও আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমনের করা মামলা খারিজ করে দেন আদালত।

রোববার ঢাকা মহানগর হাকিম জিয়াউর রহমানের আদালতে রাষ্ট্রদ্রোহের মামলা করেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ও আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন।

পেনাল কোডের ১২৩ (এ), ১২৪ (এ) ও ৫০০ ধারায় মামলাটি আমলে নেয়ার জন্য ব্যারিস্টার সুমন আদালতে আবেদন করেন। আদালত বাদীর জবানবন্দি গ্রহণ করে পরে খারিজের আদেশ দেন।

এর আগে গত শুক্রবার (১৯ জুলাই) রাতে ফেসবুক লাইভে এসে মামলা করার ঘোষণা দিয়েছিলেন ব্যারিস্টার সুমন। সেদিন তিনি বলেন, ‘আমি তার বিরুদ্ধে অবশ্যই মামলা করব, আপনারা আমার পাশে থাকবেন।’

নদীতে পড়া ট্যাক্সিক্যাব উদ্ধার কার্যক্রম নিয়ে ক্ষোভ স্থানীয়দের

উপজেলা প্রতিনিধি সাভার (ঢাকা)ঃ সাভারের আমিন বাজার সালেহপুর ব্রিজে তুরাগ নদীতে পড়ে যাওয়ার ১৬ ঘণ্টা পরও নিখোঁজ প্রাইভেট কারটি উদ্ধার সম্ভব হয়নি। তীব্র স্রোতের কারণে অভিযান ব্যাহত হচ্ছে বলে দাবি করেছেন ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা।

সোমবার সকাল থেকে পুনরায় শুরু হওয়া এ অভিযান দেখতে ভিড় করেছেন পার্শ্ববর্তী এলাকায় হাজারো মানুষ। তাদের মধ্যে কয়েক জন দাবি করেন, প্রশাসন ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা অনুমতি দিলে তারা উদ্ধার কাজে সহায়তা করতে পারেন।

এর মধ্যেই স্থানীয় দুই জন উদ্ধার কাজের অগ্রগতির জন্য নদীতে নেমে যান। তাদের মধ্যে একজন বলেন, ‘আমরা এহানে ডুব পাড়তে গেছি। আমাদের আইডিয়া গাড়িটি এইটুকু জায়গার মধ্যে থাকতে পারে। ওরা তো (ফায়ার সার্ভিস) ফেরি এইখান থেকে নিয়ে গেছে। ওরা তো বলতেছে এই তোরা উঠে যা। তোদের মারব। তোদের সমস্যা হবে। তোদের ভালোর জন্যই বলতেছি। তোরা এইখান থেকে চইল্লা যা। পরে আমরা চইল্লা আইছি।’

এর মধ্যেই স্থানীয় কিছু লোক দাবি করেন তাদের পানিতে নামতে দেয়া হলে তারা গাড়ি উদ্ধার করতে পারবেন।

ওদিকে নিখোঁজ গাড়িতে থাকা ড্রাইভারের আত্নীয় নাসিম বলেন, ‘এখানে জনগণ যারা আছে সকাল থেকে না, সেই রাত থেকেই বলছে উদ্ধার কাজে ব্যর্থতা আছে। এটা আমরা কীভাবে মেনে নেব? আমাদের তো লাশটা দরকার। গাড়িটা তো সরকারি, গাড়িটা না হোক আমাদের লাশটা চাই।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা গোপনে জানতে পেরেছি, এখানে যারা পুলিশ আছেন, তারাও উদ্ধার কাজে সন্তুষ্ট না৷ এদের (ফায়ার সার্ভিস) কাজে অবহেলা আছে। আমরা চাই আপনারা মিডিয়ার মাধ্যমে জানান তারা যেন দ্রুতই উদ্ধার করে। তার দুইটা ছোট বাচ্চা মেয়ে আছে তারা শুধু লাশটা চায়।’

ফায়ার সার্ভিসের উপ-সহকারী পরিচালক মো. মিজানুর রহমান জানান, তারা সাধ্যমতো চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। তারা পূর্ব অভিজ্ঞতা থেকে কাজ করে যাচ্ছেন।

বিআরটিএ ও নৌবাহিনীর সহায়তা নেবেন কি না- এমন প্রশ্নে তিনি জানান, আমরা এখনও প্রয়োজন মনে করছি না। তবে তারা চাইলে যৌথভাবে কাজ করা যেতে পারে।

এদিকে প্রাথমিকভাবে চালক ও গাড়িটির মালিকানার পরিচয় পাওয়া গেছে। আর্মি ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট পরিচালিত গাড়িটি এক্সিও ২০১২ মডেলের। চালকের নাম জিয়াউর রহমান, বাড়ি ফরিদপুরের বোয়ালমারিতে।

প্রসঙ্গত রোববার (২১ জুলাই) রাত ৮টার দিকে ঢাকাগামী হলুদ রঙের একটি ট্যাক্সিক্যাব ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের আমিন বাজার সালেহপুর ব্রিজে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে তুরাগ নদীতে পড়ে যায়। ঘটনার পর তীব্র স্রোতের কারণে রাত ১টায় উদ্ধার অভিযান শুরু করে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল।

কোনো সন্ধান না মেলায় রাত ৩টায় উদ্ধার অভিযান স্থগিত করা হয়। পরে আজ (সোমবার) সকাল থেকে ফের উদ্ধার অভিযান শুরু করেন ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা।

থানায় ঘুমিয়েও শেষ রক্ষা হলো না আ.লীগ নেতা নজরুলের

জেলা প্রতিনিধিঃ সাতক্ষীরা সদর উপজেলার আগড়দাড়ি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি নজরুল ইসলামকে গুলি করে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। সোমবার দুপুর ১২টার দিকে সদর উপজেলার আগরদাড়ি ইউনিয়নের ছোট জামতলা এলাকায় দুর্বৃত্তের গুলিতে নিহত হন তিনি।

নিহত নজরুল ইসলাম আগরদাড়ি ইউনিয়নের কুঁচপুকুর গ্রামের মৃত নেছার উদ্দিনের ছেলে ও আগরদাড়ি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি।

নিহতের ছেলে পলাশ হোসেন জানান, স্থানীয় সাবেক ইউপি সদস্য তৌহিদুল ইসলামের সঙ্গে বিরোধ ছিল তার বাবার। এই বিরোধের জের ধরেই মেম্বর তৌহিদুল ইসলাম ও তার সহযোগীরা তার বাবাকে হত্যা করতে পারে বলে ধারণা করছেন।

তিনি বলেন, ‘২০১৩ সালের পর থেকে আজকের হত্যাকাণ্ডের আগ পর্যন্ত আমাদের পরিবারের ওপর ৯ বার সন্ত্রাসী হামলা হয়েছে। ২০১৩ সালে হামলায় আমার চাচা সিরাজুল ইসলাম ও ভাই যুবলীগ নেতা রাসেল নিহত হন। আমার বাবা নিরাপত্তাহীনতায় সেসময় সদর থানায় রাত্রীযাপন করতেন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত শেষ রক্ষা হলো না তার।’

হত্যাকাণ্ডের পর আগরদাড়ি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি হাবিবুর রহমান হবি জানান, নজরুল ইসলাম শহরের কদমতলা বাজার থেকে মোটরসাইকেলে বাড়ি ফিরছিলেন। বাড়ি থেকে আধা কিলোমিটার দূরে ছোট জামতলা এলাকায় পৌঁছালে দুর্বৃত্তরা মোটরসাইকেলে এসে পেছন থেকে গুলি করে পালিয়ে যায়। একটি গুলি মাথায় ও আরেকটি গুলি বুকে বিদ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলেই মারা যান আওয়ামী লীগের এই নেতা।

সাতক্ষীরা সদর থানা পুলিশের ওসি মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, নজরুল ইসলাম আগরদাড়ি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ছিলেন। তার মরদেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

তিনি বলেন, ইতোমধ্যে হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের গ্রেফতার ও শনাক্তে মাঠে নেমেছে পুলিশ। কী কারণে বা কারা এ হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে সে বিষয়ে এখনও কিছু নিশ্চিতভাবে জানা যায়নি। তবে পুলিশের টিম মাঠে রয়েছে।

পাঁচটি ভুলে ভেঙ্গে যাবে সম্পর্ক

লাইফস্টাইল ডেস্কঃ সম্পর্ক সব সময় একই গতিতে চলে না। সে তার পর্যাপ্ত রসদ না পেলে একটা সময় চলার ছন্দ হারাতে শুরু করে। যেকোনো সম্পর্ক টিকিয়ে রাখার ক্ষেত্রে দুই পক্ষকেই সমান আগ্রহী, সমান যত্নবান হতে হয়। আপোস, পরস্পরের পছন্দ-অপছন্দের সঙ্গে মানিয়ে নেয়া, সব সময় পাশে থাকা, সমর্থন যোগানো- এসবকিছুই একটি সম্পর্কের চালিকাশক্তি। তবুও অনেক শক্ত বাঁধনও ধীরে ধীরে আলগা হয়ে যায়, ভেঙে যায় সম্পর্ক। এক্ষেত্রে দায়ী হতে পারে দুজনই। তবে মেয়েদের কিছু ভুলের কারণেও ভেঙে যেতে পারে সম্পর্ক-

সঙ্গীর কাছে লুকানো: সঙ্গী মানেই মন খুলে গল্প করতে পারা, সবকিছু বলে দেয়া। হতে পারে তা টাকাপয়সা সংক্রান্ত, পরিবারের কোনো সমস্যা কিংবা পুরনো সম্পর্ককে ঘিরে। সঙ্গীর কাছে কিছুই লুকাবেন না। আপনি যদি ইচ্ছে করে কোনো কথা লুকিয়ে যান বা বিভ্রান্তিমূলক তথ্য দেন, তাহলে পরস্পরের মধ্যে অবিশ্বাস জন্মাতে পারে। আর পরবর্তীতে তাই আপনাদের সম্পর্কের ভিতটাকেই নড়বড়ে করে দেওয়ার জন্য যথেষ্ট!

কথা বন্ধ করা: যেকোনো সমস্যা সমাধানের ক্ষেত্রে আলোচনা ছাড়া অন্য কোনো উপায় নেই। তাই সম্পর্কে কোনো সমস্যা দেখা দিলে চুপ না থেকে কথা বলুন। কথা বন্ধ করে থাকলে সমস্যার সমাধান তো হবেই না, উলআটে আরও জটিল হতে পারে পরিস্থিতি। যত বড় ঝামেলাই হোক না কেন, খোলাখুলি কথা বলার রাস্তাটা কখনও বন্ধ করবেন না।


জীবনকে সিনেমা ভাবা: প্রিয় মানুষের কাছে নানকিছু প্রত্যাশা থাকে আমাদের। তাই বলে জীবনটাকে সিনেমা ভেবে স্বামীর কাছে অবাস্তব সব প্রত্যাশা করে বসবেন না যেন! স্বামী সিনেমার নায়কের মতো আপনাকে ভালোবাসবেন, প্রতি পদে আপনার জন্য হাজির থাকবেন, এ সব ভাবলে আপনার ধাক্কা খাওয়া কেউ আটকাতে পারবে না! আকাশকুসুম না ভেবে বাস্তবের মাটিতে পা রেখে প্রত্যাশা করুন।


স্বামী সম্পর্কে খারাপ কথা বলা: কয়েকজন মেয়ে একত্রিত হলেই যার যার স্বামীর সম্পর্কে নিন্দা করার স্বভাব আছে কিছু মেয়ের। এটি সম্পর্কের সবচেয়ে খারাপ দিক। স্বামীর কোনো কাজ পছন্দ না হলে সরাসরি তার সঙ্গেই কথা বলুন। সেটা না পারলে মেনে নিন। নিজের বান্ধবী বা আত্মীয়দের কাছে স্বামীর নামে নিন্দা করবেন না। স্বামী জানতে পারলে আপনাদের সম্পর্ক দারুণভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে, পাশাপাশি যেসব আত্মীয় বা বন্ধুর কাছে আপনি স্বামীর সম্পর্কে খারাপ কথা বলেছেন তারাও আপনাকে করুণার চোখে দেখবেন।


পুরোনো রাগ পুষে রাখা: রাগ যত দ্রুত ভুলে যাওয়া যায়, ততই ভালো। সেখানে পুরনো রাগ পুষে রাখলে ক্ষতিগ্রস্ত হবেন আপনিই। একটা বিষয় নিয়ে ঝগড়া চলছিল, হঠাৎ করে আপনি পাঁচ বছরের পুরোনো একটা তিক্ততার প্রসঙ্গ তুললেন, এমন করলে কিন্তু খুব মুশকিল! তাহলে উনিও পুরোনো কথা তুলবেন এবং সেটা আপনার পক্ষে বা আপনাদের সম্পর্কের পক্ষে মোটেই স্বাস্থ্যকর নয়!

মশা মারতে কামান দাগাতে চাই না : প্রিয়া প্রসঙ্গে কাদের

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে নালিশ করা বাংলাদেশের নারী প্রিয়া সাহার বিষয়ে সরকার ধীর গতিতে এগোচ্ছে জানিয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, আমরা মশা মারতে কামান দাগাতে চাই না।

আজ (সোমবার) সচিবালয়ে সমসাময়িক বিষয় নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এ কথা বলেন।

শেখ হাসিনা যখন বিরোধী দলে ছিলেন প্রিয়া সাহা তার তখনকার বক্তব্যে অনুপ্রাণিত হয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্টের কাছে অভিযোগ করেছেন বলে জানিয়েছেন। এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে ওবায়দুল কাদের বলেন, শেখ হাসিনার বক্তব্যে তিন কোটি ৭০ লাখ লোক মিসিং- এ কথা তো নেই। শেখ হাসিনা তো এরকম কোনো কথা বলতে পারেন না। এ ধরনের বক্তব্য মার্কিন প্রেসিডেন্টের কাছে বলা, এটা আমাদের দেশকে ছোট করা। এটা একটা কাল্পনিক বক্তব্য, উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বক্তব্য। আমরা রয়ে-সয়ে অগ্রসর হচ্ছি, মশা মারতে আমরা কামান দাগাতে চাই না।

তিনি বলেন, ‘বিষয়টা আমরা আরও খোঁজ-খবর নিয়েছি, এসব বক্তব্য দেয়ার পেছনে অন্য কারো হাত আছে কি না এবং তিনি যখন দেশে ফিরবেন, তিনি বলেছেন দেশে ফিরবেন… তখন তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে যে, তিনি কী উদ্দেশ্যে বলেছেন, কেন বলেছেন, কী ইনফরমেশনের ভিত্তিতে বলেছেন- সেটা তাকে অবশ্যই ব্যাখ্যা করতে হবে। কারণ, দেশে গোটা জাতির মধ্যে কনফিউশন সৃষ্টি হয়েছে। শেখ হাসিনা মাইনরিটি নিয়ে যে বক্তব্য দিয়েছেন সে বক্তব্যের সাথে সংখ্যা তত্ত্বের এই বিষয়টাতে কোনো মিল নেই।’

প্রিয়া সাহার স্বামী দুর্নীতি দমন কমিশনে (দুদক) চাকরি করেন- এ বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘উনার স্বামী সরকারি চাকরি করেন। এক পরিবারে স্বামী-স্ত্রী-ছেলে-মেয়ে সবাই এক মতালম্বী হবেন- এমন তো কোনো কথা নয়। উনার স্ত্রী অন্যায় করলে, সেটার জন্য স্বামীকে কেন অভিযুক্ত করতে হবে- এটা তো কোনো আইনে নেই। আমরা অহেতুক এ ধরনের বিষয়কে কেন ইনভাইট করতে যাব।’

প্রিয়া দেশে না এলে কী ব্যবস্থা নেবেন- এ বিষয়ে ওবায়দুল কারদর বলেন, উনি নিজেই বলেছেন দেশে ফিরে আসবেন। আর এটা এমন একটা বিষয় নয় যে জোর করে দেশে ফিরিয়ে নিয়ে আসতে হবে, এরকম কিছু আমরা পাইনি। আমরা খতিয়ে দেখছি, সেরকম কিছু হলে পরে দেখা যাবে।

প্রিয়া সাহার বিষয়ে সরকার ব্যাকফুটে গেল কি না- জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘এটা ব্যাকফুটের কোনো বিষয় না। উনি এনজিও সংগঠনের নেতৃত্ব দেন, আবার হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের অ্যাপেক্স বডির অর্গানাইজিং সেক্রেটারি। কাজেই এটাকে তো তুচ্ছ জ্ঞান আমরা করতে পারি না। বিষয়টার গভীরে আমরা যাচ্ছি, সবকিছু জেনেশুনে আমরা সিদ্ধান্ত নিতে চাই।’

এটা তার নিজের নাকি শেখানো কথা, কী মনে করছেন- এ বিষয়ে সড়ক পরিবহনমন্ত্রী বলেন, সেটা আমাদের জানা নেই। কারো প্ররোচনা কাজ করেছে কি-না, পেছনে কোনো রাজনৈতিক মতলব আছে কি-না, উসকানি আছে কি-না, বিষয়টা আমাদের জানতে হবে এবং আমরা বিষয়টা খতিয়ে দেখছি।

সারাদেশে ছেলেধরা সন্দেহে পিটিয়ে মানুষ মারা হচ্ছে-এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে ওবায়দুল কাদের বলেন, এ বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে আমি কথা বলেছি, তারা বিষয়টির পুনরাবৃত্তি রোধে কঠোর অবস্থান নিয়েছেন, এটাই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আমাকে জানিয়েছেন।

পিটিয়ে মানুষ মারার সঙ্গে দলীয় নেতাকর্মীরা জড়িত রয়েছে বলে অভিযোগ আসছে- এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘দলীয় নেতাকর্মী কেউ যদি জড়িত থাকে তাদের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিতে আমরা আপসহীন। সবার ক্ষেত্রে একই রকমের আইন প্রযোজ্য হবে, একই রকমের ব্যবস্থা প্রযোজ্য হবে। দলীয় লোকের জন্য আলাদা কোনো ব্যবস্থা শেখ হাসিনার সরকার কখনও করেনি, এখনও করবেন না, ভবিষ্যতেও না।’

হাওরে ধরা পড়ছে শত শত ইলিশ

জেলা প্রতিনিধিঃ হাকালুকি হাওরে ধরা পড়ছে শত শত ইলিশ। অন্যান্য বছর মাঝে মধ্যে ইলিশের দেখা মিললেও এই বছর তা কয়েকগুণ বেড়েছে বলে জানিয়েছে মৎস্য বিভাগ।

হাকালুকি হাওরের আশপাশের বাজারগুলোতে ঘুরে দেখা যায়, মাঝারি এবং ছোট সাইজের বেশ কিছু ইলিশ বিক্রি করছেন স্থানীয় জেলারা।

কুলাউড়া উপজেলার আছরিঘাট এলাকায় এক জেলের কাছে শতাধিক ইলিশের দেখা মেলে। ওই জেলে জানান, সবগুলা ইলিশ তিনি হাকালুকি হাওর থেকে পেয়েছেন। অন্যান্য জেলেরাও এমন ইলিশ পেয়েছেন।

এ বিষয়ে কুলাউড়া উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা সুলতান মাহমুদ জানান, ইলিশগুলা সাগর থেকে এসেছে। যেহেতু বন্যায় পানি বেড়েছে তাই সাগর থেকে মেঘনা হয়ে সিলেটের কুশিয়ারা এবং সুরমা নদী দিয়ে মাছগুলো হাকালুকি হাওরে ঢুকেছে।

হাওরে ইলিশ পাওয়া গেলেও এর স্বাদ একটু ভিন্ন বলে জানান এই মৎস্য কর্মকর্তা।

নয়াপল্টনে ছাত্রদলের আবারো বিক্ষোভ

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদকঃ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের ধারাবাহিক কমিটি গঠন এবং বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে করা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করেছে ছাত্রদলের বিলুপ্ত কমিটির বিক্ষুব্ধ নেতারা।

সোমবার বেলা সোয়া ১২টার দিকে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এসে বিক্ষুব্ধ ছাত্রনেতারা জড়ো হন। পরে কার্যালয়ের নিচ থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে স্কাউট ভবন পর্যন্ত যান তারা।

এ সময় বিক্ষুব্ধ নেতারা তাদের বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহারের দাবি জানান এবং তারেক রহমানের নামে মামলা প্রত্যাহারসহ বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবি জানান। এ ছাড়া ছাত্রদল নিয়ে সিন্ডিকেট হয়েছে অভিযোগ করে সেই সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে স্লোগান দেন।

বিক্ষোভ মিছিলে আসাদুজ্জামান আসাদ, কবিরসহ শতাধিক নেতা অংশ নেন।

জুন মাসের প্রথম সপ্তাহ থেকে ছাত্রদলের ধারাবাহিক কমিটি গঠনের দাবিতে বিক্ষোভ করে আসছে এসব ছাত্রনেতারা। ছাত্রদলের যে কাউন্সিল হওয়ার কথা ছিল এ আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে সেটা বন্ধ হয়ে যায়। বিক্ষুব্ধ নেতাদের সঙ্গে বিএনপির সিনিয়র নেতাদের বেশ কয়েক দফা বৈঠকের পরেও এ নিয়ে কোনো সমাধান হয়নি। প্রায় তিন সপ্তাহ পর আবারও বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা নয়াপল্টনে তাদের অবস্থান জানান দিচ্ছেন।

ইরমান খান যুক্তরাষ্ট্রে ভাষণ দিতে গিয়ে বিপাকে

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ তিনদিনের সফরে যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থান করছেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। শনিবার মার্কিন মুলুকে পা রাখেন ইমরান।

এদিকে, ওয়াশিংটনে স্থানীয় সময় রোববার পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের এক সভায় স্বাধীন বেলুচিস্তানের দাবিতে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে স্লোগান উঠেছে।

রোববার পাকিস্তানি-আমেরিকানদের এক বিরাট সমাবেশে বক্তৃতা দিচ্ছিলেন ইমরান। তখন বেলুচ তরুণরা সিট থেকে হঠাৎ উঠে দাঁড়িয়ে স্লোগান দেয়া শুরু করেন।

বেলুচিস্তানের নাগরিকদের ওপর পাক সেনাবাহিনীর অত্যাচার, গুম করে দেওয়ার অভিযোগ নিয়ে দীর্ঘদিন ধরেই যুক্তরাষ্ট্রে সরব হয়েছেন বেলুচ নাগরিকরা। গত দু’দিন ধরে তারা এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের কাছে ফোনে বার্তা পাঠাচ্ছেন।

এদিকে, মার্কিন ভূখণ্ডে পা রেখে ট্রাম্প প্রশাসনের ন্যূনতম সম্মানটুকুও পাননি ইমরান। বিমানবন্দরে তাকে অভ্যর্থনা জানাতে যাননি যুক্তরাষ্ট্র সরকারের কোনো কর্মকর্তা। এর আগে আর কোনো রাষ্ট্রনেতার সঙ্গে এমন আচরণ করা হয়নি বলে দাবি কূটনীতিকদের।

‘সাংসদ নির্বাচিত হইনি নর্দমা টয়লেট পরিষ্কার করার জন্য’

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ ভারতের মধ্যপ্রদেশের বিজেপি দলীয় সংসদ সদস্য প্রজ্ঞা ঠাকুর বিতর্কিত মন্তব্য করে আবারও সমালোচনার মুখে পড়েছেন। কিছুদিন আগে অনুষ্ঠিত দেশটির লোকসভা নির্বাচনের প্রচারণায় গিয়ে ভারতের জাতির জনক মহাত্মা গান্ধীর হত্যাকারী নাথুরাম গডসেকে ‘দেশপ্রেমিক’ আখ্যা দিয়ে ব্যাপক বিতর্কের জন্ম দিয়েছিলেন তিনি।

প্রথমবারের মতো নির্বাচনে অংশ নিয়ে বিজেপির সাংসদ বনে যাওয়া প্রজ্ঞা ঠাকুর এবার দলটির নেতাকর্মীদের উদ্দেশে বললেন, ‘তিনি নর্দমা এবং টয়লেট পরিষ্কার করার জন্য নির্বাচিত হননি।’ দলটির অনেক নেতা-কর্মী প্রজ্ঞা ঠাকুরের এই মন্তব্যকে দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির স্বচ্ছ ভারত অভিযান মিশনের উল্টো হিসেবে দেখছেন।

মধ্যপ্রদেশের ভোপালের সেহোরে বিজেপির এক কর্মী সমাবেশে প্রজ্ঞা ঠাকুর বলেন, আমরা আপনাদের নর্দমা পরিষ্কার করে দেয়ার জন্য নির্বাচিত হইনি, ঠিক আছে? আপনাদের টয়লেটও পরিষ্কার করে দেয়ার জন্য নির্বাচিত হইনি। দয়া করে বোঝার চেষ্টা করুন। যে কাজের জন্য আমি নির্বাচিত হয়েছি, আমি সেটি সততার সঙ্গে পালন করবো। আর এটা আমি আগেও বলেছি, এখনো বলবো।

তিনি বলেন, একজন সাংসদের কর্তব্য স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সঙ্গে সমন্বয়ের মাধ্যমে লোকসভা কেন্দ্রের সামগ্রিক উন্নয়নের জন্য কাজ করা; যার মধ্যে স্থানীয় বিধায়ক এবং পৌরসভার কাউন্সিলররাও রয়েছেন। আমাকে যখন-তখন ফোন না করে আপনাদের স্থানীয় ইস্যু ও কাজের সমাধান স্থানীয় প্রতিনিধিকে দিয়ে করিয়ে নিন।

বিজেপির একজন কর্মী তার এলাকার স্বাস্থ্য ও পরিচ্ছন্নতার বিষয়ে প্রজ্ঞা ঠাকুরের কাছে জানতে চাইলে এমন প্রতিক্রিয়া দেখান তিনি।

২০০৮ সালে মালেগাঁও বিস্ফোরণ কাণ্ডে অভিযুক্ত প্রজ্ঞা ঠাকুর নির্বাচনের আগে প্রচারের সময় নানা বিতর্কিত মন্তব্য করেছিলেন। যার মধ্যে অন্যতম মহাত্মা গান্ধীর হত্যাকারী নাথুরাম গডসেকে ‘দেশপ্রেমিক আখ্যা দেয়া।

তিনি বলেছিলেন, নাথুরাম গডসে একজন দেশপ্রেমিক ছিলেন, আছেন এবং একজন দেশপ্রেমিকই থাকবেন। যারা তাকে সন্ত্রাসী বলছে, তাদের উচিত নিজের দিকে তাকানো। এ সব মানুষকে নির্বাচনে উপযুক্ত জবাব দেয়া হবে। প্রথমে ক্ষমা চাইতে অস্বীকার করলেও পরে প্রজ্ঞা দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বার্তার পর ক্ষমা স্বীকার করতে বাধ্য হন। মোদি বলেন, মহাত্মা গান্ধীকে অপমান করার জন্য আমি আমার মন থেকে প্রজ্ঞাকে ক্ষমা করব না।

সূত্র : এনডিটিভি।

ঘরে তিন বউ রেখে নায়িকার সঙ্গে প্রেম!

বিনোদন প্রতিবেদকঃ মফিজের তিন বউ। তারা বাসায় বাসায় কাজ করে টাকা আয় করে। আর মফিজ তাদের টাকায় আয়েশি জীবন যাপন করে। তিন বউয়ের চরিত্র তিন রকম। তিন বউয়ের মধ্যে মাঝে মাঝে বিভিন্ন ধরনের ঝগড়া খুনসুটি হয়। এসব বিষয় নিয়ে বিড়ম্বনায় পরে মফিজ।

এদিকে পাশের বাড়ির দারোয়ান শরীফ, সে প্রতিদিন মফিজের তিন বউকে পটাতে ব্যস্ত, প্রতিদিন নানান উপহার দিয়ে সে বিবাহ করার চেষ্টা করতে থাকে।

অন্যদিকে মফিজ চতুর্থ বিয়ে করার জন্য এক ফিল্মের উঠতি নায়িকার পিছনে ছুটছে। ঘটতে থাকে নানান ঘটনা। এমন হাস্যরসাত্মক গল্প নিয়ে সম্প্রতি ঈদের জন্য নির্মিত হয়েছে ৭ পর্বের ধারাবাহিক নাটক ‘মফিজের লাইফস্টাইল’।

জাকির হোসেন উজ্জ্বল এর রচনায় ধারাবাহিক নাটকটি পরিচালনা করেছেন এস এম শাহীন। নাটকটিতে মফিজের চরিত্রে অভিনয় করেছেন ফজলুর রহমান বাবু এবং দারোয়ানের চরিত্রে অভিনয় করেছেন তানভীর মাসুদ। তিন বউ ও নায়িকার চরিত্রে দেখা যাবে নাদিয়া আহমেদ, ফারজানা ছবি, সানজিদা তন্ময় ও সুস্মি আহসানকে।

নির্মাতা জানান, মফিজের লাইফস্টাইল ধারাবাহিকটিতে আরও অভিনয় করেছেন মিলন ভট্ট, দিলু মজুমদার, মীর শহীদ, দাউদ নুর প্রমুখ।নেট মাল্টিমিডিয়া প্রযোজিত ধারাবাহিকটি ঈদের দিন থেকে সাত দিন প্রচার হবে বৈশাখী টেলিভিশনে।