প্রথমে প্রেম, এবার বিয়ে

বিনোদন ডেস্কঃ এই মুহূর্তে বলিউডের সবচেয়ে বেশি আলোচিত প্রেমযুগল আলিয়া ভাট ও রণবীর কাপুর। তাদের সম্পর্ক নিয়ে কোনো লুকোচুরি নেই। ভক্তরাও বেশ উপভোগ করছেন তাদের রোমান্স। তবে সবাই অধীর আগ্রহে ছিলেন এটা জানতে কবে ঘর বাঁধবেন এই দুই তারকা।

এবার সেই তারিখ জানা গেল। শোনা যাচ্ছে, আগামী সেপ্টেম্বরেই বিয়ের পিঁড়িতে বসবেন এই জুটি। সে মাসে হবে এনগেজমেন্ট।

আলিয়ার এক ঘনিষ্ঠ সূত্র জানিয়েছে, আলিয়া এবং রণবীর সেপ্টেম্বর নাগাদ এনগেজমেন্টের প্ল্যান করছে। ‘ব্রহ্মাস্ত্র’-র নতুন শিডিউলের শুটিং শেষ করে নিউইয়র্ক গেছেন তারা ঋষি কাপুরের সঙ্গে দেখা করতে।

গত বছর ক্যান্সার ধরা পড়ার পর থেকে ঋষি এবং নিতু সেখানেই রয়েছেন। ঋষি নিজের জন্মদিনের (৪ সেপ্টেম্বর) সময়ে দেশে ফিরে আসার প্ল্যান করছেন। আলিয়া এবং রণবীরকে একসঙ্গে দেখলে তিনি খুব খুশি হন এবং পরামর্শ দিয়েছেন তাড়াতাড়ি বিয়েটা সেরে ফেলার।

ঋষি এবং নিতু কাপুরও অবশ্য ক্যারিয়ারের তুঙ্গে থাকার সময়ই বিয়ে করেন। যাই হোক, এনগেজমেন্ট হলেও বিয়েটা কিন্তু এ বছর হওয়ার খুব একটা সম্ভাবনা নেই। তবে বাগদান হবে খুব আড়ম্বর করেই। ঋষি চান, তিনি মুম্বাইয়ে ফিরলে আংটি বদলের অনুষ্ঠানটা হয়ে যাক।

আলিয়া এবং রণবীর তো বটেই, দুই পরিবারও এই সম্পর্কে খুব খুশি। এমনিতে শুটিংয়ের জন্য যেটুকু সময় পরস্পরকে ছেড়ে থাকতে হয়, তা বাদ দিয়ে বাকি সময়টা তারা একসঙ্গে থাকতেই চেষ্টা করেন।

এলএ/এমএস

সালমানের বাবার সেলিম খানের ভিডিও ভাইরাল

বিনোদন ডেস্ক: বলিউড সুপারস্টার সালমানের বাবা সেলিম খান অভিনেতা ও চিত্রনাট্যকার হিসেবে পরিচিত হলেও একটা সময়ে তিনি পুলিশ কর্মকর্তা ছিলেন। ১৯৬৪ সালে সুশীলাকে বিয়ে করেন সেলিম। পরের বছর সালমানের জন্ম হয়। সেলিম-সুশীলা দম্পতির চার সন্তান সালমান, আরবাজ, সোহেল ও আলভিরা।

১৯৮১ সালে দ্বিতীয় বিয়ে করেন সেলিম খান। তার দ্বিতীয় স্ত্রী এক সময়ের পর্দা কাঁপানো বলিউডের অভিনেত্রী হেলেন। বিয়ের পর মেয়ে অর্পিতা খানকে দত্তক নেন সেলিম-হেলেন দম্পতি। ছেলেমেয়ে আর নাতি-নাতনি নিয়ে বেশ সুখেই কাটে বৃদ্ধ সেলিম খানের জীবন।

তবে তাকে নিয়ে তেমন আলোচনা খুব একটা হয় না। কিন্তু সম্প্রতি একটি ভিডিও দিয়ে সবার নজরে এলেন সালমানের বাবা।

সম্প্রতি সালমান খান ইনস্টাগ্রামে একটি ভিডিও পোস্ট করেছেন। সেখানে তাকে দেখা যাচ্ছে বাবা সেলিম খানের সঙ্গে পুরনো হিন্দি গানে গলা মেলাতে। সুহানি রাত ঢল চুকি গানটি মন দিয়ে গাইতে দেখা যায় সেলিম খানকে।

ভিডিওর নিচে ক্যাপশনে সালমান খান লিখেছেন, ‘আমাদের পরিবারের সুলতান, টাইগার, ভারত…’

১৯৪৯ সালে মুক্তি পাওয়া হিন্দি ছবি দুলারিতে এই গানটি গেয়েছিলেন মহম্মদ রফি। গানের কথা লিখেছিলেন শাকিল বাদাউনি এবং সুর দিয়েছিলেন প্রখ্যাত শিল্পী নৌশাদ। সেই গান বেশ মজা নিয়েই গেয়েছেন সেলিম খান।

প্রিয় নায়কের বাবার গানের ভিডিওটি পেয়ে বেশ উচ্ছ্বসিত সালমান খানের ভক্তরা।

অভিনয় কাজ নয়, আমার জীবন: মুমতাজ

বিনোদন ডেস্কঃ নিজের প্রতিভা দিয়ে এরেই মধ্যে প্রসংশা কুড়ুয়েছেন মুমতাজ। পরিবারে বাবা-ঠাকুরদাসহ অনেকে ছিলেন বড় অভিনেতা।

কেরিয়ারের শুরু বাংলাদেশের ছবিতে। ক্রমে তিনি হয়ে উঠেছেন টলিউডের প্রতিষ্ঠিত অভিনেত্রী। কাজ করেছেন হিন্দি, তেলুগু, তামিল ছবিতেও। এবার তিনি কাজ শুরু করলেন একটি ইংরেজি-হিন্দি দ্বিভাষিক ছবিতে। সেই উপলক্ষে এবেলা.ইন-এর মুখোমুখি হলেন অভিনেত্রী মুমতাজ সরকার।

দোল খেললেন?

বাবা, মা, দিদি শো করতে গিয়েছেন। মেজদি মৌবনী ব্যস্ত শ্যুটিংয়ে। বন্ধুদের সঙ্গে অবশ্য খেলা যেত। কিন্তু আমাদের পরিবারের নিয়ম, বাবা-মা ও অন্য গুরুজনদের পায়ে আবির দিয়ে প্রণাম করে তবেই খেলা শুরু হয়। তাই এবার দোলটা বাদই দিলাম।

বাংলা ছাড়া অন্য ভাষাতেও কাজ করেছেন মুমতাজ। নিজস্ব ছবি।

কেরিয়ারের শুরু থেকেই একটা বস্তাপচা প্রশ্ন নিশ্চয়ই শুনতে হয়েছে। রক্তে ম্যাজিক অথচ আপনি অভিনয়ে। কেন?

একদম। বহুবার শুনেছি। আমার দিদি মানেকা ম্যাজিক করে। ও আমাদের বংশের নবম প্রজন্ম। তবে আমি বা আমার মেজদিও কিন্তু ম্যাজিক জানি। আসলে আমাদের বাড়ির কুকুরটাও ম্যাজিশিয়ান। (হাসি) ফ্যামিলি শো-তে আমরা পাঁচজনই ম্যাজিক দেখাই। আর একটা কথা। আজকের দিনে ম্যাজিককে কেউ অলৌকিক বলে ভাবে না। সবাই জানে, ব্যাপারটা আসলে কারসাজি। বিজ্ঞান আর শিল্পের মিশ্রণ। বিজ্ঞান হল ম্যাজিকের ট্রিকটা। বাকিটা শিল্প। অর্থাৎ অভিনয়। সেই হিসেবে বাবা, মা, দিদি স্টেজে যে কাজটা করেন আমিও সেটাই করি। অভিনয়। তাছাড়া একটা নকল চরিত্রকে সত্যি করে তোলার অভিনয়টাও ম্যাজিকই। দর্শক যদি বড় পর্দায় আমাকে দেখে বলে ‘মুমতাজ এটা করল, ওটা বলল’ তার মানে আমি সেটা করতে পারিনি। যদি আমাকে দেখে মনে হয় ওই মেয়েটা করল বা বলল, তার মানে আমি চরিত্রটা হয়ে উঠেছি। সেটাই ম্যাজিক।

দেখতে দেখতে বেশ কয়েক বছর হয়ে গেল আপনি অভিনয় করছেন। কীভাবে দেখছেন জার্নিটাকে?

এটা একটা রোলার কোস্টার রাইড। প্রচুর ওঠানামা থাকে। মোটেই কেকওয়াক নয়। কাজটা অত্যন্ত কঠিন। ইট ডিমান্ডস ইওর লাইফ। এটাকে আমার কাজ হিসেবে দেখি না। এটাই আমার জীবন। জার্নিটা আমাকে অনেক কিছু শিখিয়েছে। আমি কোনও অ্যাকটিং স্কুল থেকে শিখে আসিনি। প্রতিটা ছবির সঙ্গে সঙ্গে শিখেছি। সহ অভিনেতা, পরিচালক বা সিনেমাটোগ্রাফারদের থেকে শিখেছি। এমনকী, নিজের পুরনো কাজ দেখেও শিখি।

অভিনয়ই তাঁর জীবন। নিজস্ব ছবি।

নিজের পুরনো ছবি দেখেন?

দেখি আর হাসি। ‘০৩৩’ আমার প্রথম ছবি। ওই সব পুরনো কাজ দেখলে মনে হয়, ইস! ওই জায়গাটায় কী করলাম! কী বোকা বোকা! তবে আমি নিজেকে বেশিক্ষণ স্ক্রিনে দেখতে পারি না। আফশোস হয়। আমি নিজের খুব কড়া সমালোচক। হয়তো পাশের আসনের দর্শকই ওই শটটা দেখে হাততালি দিল। কিন্তু আমি সন্তুষ্ট হতে পারি না। আসলে আমার খালি মনে হয়, কিস্যু হয়নি। মাইলস টু গো।

বাংলার পাশাপাশি হিন্দি, তামিল, তেলুগু ছবিতেও কাজ করেছেন। কলকাতার সঙ্গে কতটা ফারাক বোঝেন?

সেই অর্থে ফারাক তেমন নেই। কেবল একটাই ফারাক। প্রফেশনালিজম। আমার মনে হয় ওই জায়গাটায় আমরা ওদের থেকে পিছিয়ে রয়েছি। এখানে ট্যালেন্টের অভাব নেই। কিন্তু প্রফেশনালিজমটা একটু কম মনে হয়।

‘স্টার কি়ড’ হওয়ার চাপ কতটা বুঝেছেন?

মারাত্মক চাপ। পরীক্ষায় কম পেলে লোকে বলবে, দূর, এদের আবার পড়াশোনা হয় নাকি। যা হোক করে পাশ করবে, তার পর কী করবে বাবা-মা’ই প্ল্যান করে রেখেছে। আবার রেজাল্ট ভালো হলে বলা হবে, বাবা নিশ্চয়ই ফোন করে দিয়েছে। কোশ্চেন পেয়ে গিয়েছে। (হাসি) আসলে লোকে ভাবে ‘স্টার কিড’ হলে হয়তো সুবিধা পাওয়া যায়। কিন্তু কথাটা একেবারেই ভুল। লোকে কেবল বাবার সঙ্গে তুলনা করে সেটাই নয়। আমাদের তিন বোনকে নিয়েও তুলনা চলে। তবে একটা কথা বলতে পারি, বাবা-মা এমন ভাবে আমাদের তৈরি করেছেন, আমরা নিজেদের কখনও তারকা-কন্যা ভাবিইনি। সেই শিক্ষাটা কাজে লাগিয়েই চাপটা সামলে নিতে পারি। সত্যি বলতে কী, কখনও তেমন আচরণ করলে বাবা-মা বলবে, লিভ দ্য হাউস।

নতুন কোন কোন ছবির কাজ করছেন?

‘মায়া দ্য লস্ট মাদার’, ‘ইমরান’ বলে দু’টো ছবির পোস্ট প্রো়ডাকশন চলছে। ‘ইমরান’ই আমার প্রথম বাংলাদেশের ছবিতে কাজ। আর একটা ছবির শ্যুট শুরু হবে। আরও একটা ছবি, নাম এখনও ঠিক হয়নি। আর এই মুহূর্তে কাজ করছি একটা শর্ট ফিলমের। নাম ‘ভিভির জুন্তোস’। ইংরেজি-হিন্দি দ্বিভাষিক ছবি। গল্পটা একটা কাপলকে নিয়ে যারা লিভ টুগেদার করে।

নিজের কেরিয়ারের আগামি দিন নিয়ে কী ভাবছেন?

স্বপ্ন দেখি, যেন আমি একজন আন্তর্জাতিক মানের শিল্পী হয়ে উঠতে পারি দাদু বা বাবার মতো। সরকার পরিবারের সুনাম যেন রাখতে পারি। জানি এখনও অনেক শেখা বাকি। অনেক দূর যেতে হবে। এই স্বপ্ন সঙ্গে নিয়েই এগিয়ে যেতে চাই।

এত বাজে ফল মাত্র একবারই করেছিল দক্ষিণ আফ্রিকা

স্পোর্টস ডেস্কঃ বর্ণবাদ বিষয়ক সকল বিতর্ক ছাপিয়ে ১৯৯২ সালে পুনরায় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নাম লিখিয়েছিল দক্ষিণ আফ্রিকা। এরপর থেকে বিশ্ব ক্রিকেটে বেশ সমীহ জাগানিয়া দলই তারা। ক্রিকেটের বিশ্বমঞ্চ তথা বিশ্বকাপ ক্রিকেটের শিরোপা জিততে না পারলেও, প্রায় সব আসরেই তারা খেলে ফেবারিট হিসেবে।

ব্যতিক্রম ছিলো না এবারও। ফাফ ডু প্লেসিসের নেতৃত্বে কুইন্টন ডি কক, হাশিম আমলা, কাগিসো রাবাদা, ইমরান তাহিরদের নিয়ে গড়া দলটি বিশ্বকাপ খেলতে এসেছিল বড় স্বপ্ন নিয়েই। কিন্তু হোঁচট খেয়েছে বিশ্বকাপের উদ্বোধনী ম্যাচেই।

যা আর কাটিয়ে উঠতে পারেনি প্রোটিয়ারা। ফলে আফগানিস্তানের পর দ্বিতীয় দল হিসেবে লিগপর্বেই বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে গিয়েছে তারা। রোববার লর্ডসে পাকিস্তানের কাছে ৪৯ রানের পরাজয়ে নিশ্চিত হয় তাদের বিদায়। পাকিস্তানের করা ৩০৮ রানের জবাবে তাদের ইনিংস থেমে যায় মাত্র ২৫৯ রানে।

বিশ্বকাপের শুরুর ম্যাচেই তারা ইংল্যান্ডের কাছে হেরে গিয়েছিল ১০৪ রানের ব্যবধানে। পরে বাংলাদেশের কাছে ২১ রানে, ভারতের কাছে ৬ উইকেটে পরাজিত হয় তারা। বৃষ্টিতে পরিত্যক্ত হয় ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ম্যাচটি, ৯ উইকেটের জয় পায় আফগানিস্তানের সঙ্গে।

কিন্তু এরপর নিউজিল্যান্ডের কাছে ৪ উইকেটে ও আজ (রোববার) পাকিস্তানের কাছে ৪৯ রানের পরাজয়ে বেজেছে তাদের বিদায়ঘণ্টা। এখনও পর্যন্ত ৭ ম্যাচ শেষে তাদের ঝুলিতে রয়েছে মাত্র ৩টি পয়েন্ট। পরবর্তী দুই ম্যাচে তারা জয় পেলেও সর্বোচ্চ হবে ৭ পয়েন্ট। ফলে তারা টপকাতে পারবে না ৮ পয়েন্ট নিয়ে এখন চার নম্বরে থাকা ইংল্যান্ডকে।

যে কারণে ইতিহাসে মাত্র দ্বিতীয়বারের মতো বিশ্বকাপের প্রথম পর্ব থেকেই বাদ পড়ে গেল প্রোটিয়ারা। বিশ্বকাপে নিজেদের ইতিহাসে এর আগে লিগপর্ব থেকে মাত্র একবারই বাদ গিয়েছিল দক্ষিণ আফ্রিকা। সেটি ২০০৩ সালে ঘরের মাঠের বিশ্বকাপে।

১৪ দলের অংশগ্রহণে হওয়া বিশ্বকাপে সেবার বি গ্রুপে ছিলো দক্ষিণ আফ্রিকা। নিজেদের ৬ ম্যাচে তারা জয় পেয়েছিল তিন দুর্বল দেশ কেনিয়া, কানাডা ও বাংলাদেশের বিপক্ষে। কিন্তু ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও নিউজিল্যান্ডের কাছে পরাজয় এবং শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচ টাই হয়ে যাওয়ায় সুপার সিক্সে খেলতে পারেনি তারা।

সে বিশ্বকাপের ১৬ বছর পর আবারও লিগপর্ব থেকেই বিদায় নিল প্রতিবারের ফেবারিট দল দক্ষিণ আফ্রিকা। ফলে আরও একবার বিশ্বকাপ থেকে খালি হাতেই ফিরতে হচ্ছে তাদের।

প্রতি বিশ্বকাপে দক্ষিণ আফ্রিকার অবস্থা

১৯৯২ – সেমিফাইনাল
১৯৯৬ – কোয়ার্টার ফাইনাল
১৯৯৯ – সেমিফাইনাল
২০০৩ – লিগপর্বে বিদায়
২০০৭ – সেমিফাইনাল
২০১১ – কোয়ার্টার ফাইনাল
২০১৫ – সেমিফাইনাল
২০১৯ – লিগপর্বে বিদায়

সিঁদুর মাথায় স্বামীকে নিয়ে দেশে ফিরলেন নুসরাত

বিনোদন ডেস্ক: ভারতের সদ্য শেষ হওয়া নির্বাচনে পশ্চিমবঙ্গের হয়ে তৃণমূল কংগ্রেস থেকে এমপি নির্বাচিত হয়েছেন কলকাতার নায়িকা নুসরাত জাহান। এমপি হয়েই তিনি বিয়ের ঘোষণা দেন। এরপর আর সময় নষ্ট করেননি। বেশ ঘটা করেই তুরস্কে গিয়ে বিয়ের কাজ শেষ করেছেন তিনি।

বিয়ে শেষে হাতে মেহেদি, মাথায় সিঁদুর নিয়ে স্বামী নিখিল জৈনকে সঙ্গে নিয়ে কলকাতায় ফিরলেন নুসরাত। এরই মধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ হয়েছে স্বামীর সঙ্গে তার দেশে ফেরার ছবি। সেগুলো নিয়ে চলছে ভক্তদের মাতামাতি।

ভারতীয় গণমাধ্যম বলছে, শনিবার (২২ জুন) গভীর রাতে কলকাতার নেতাজি সুভাষচন্দ্র বোস আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে তাদের স্বাগত জানান আত্মীয়স্বজন আর বন্ধুরা। এ সময় তাদের গলায় ফুলের মালা পরিয়ে দেয়া হয়। করানো হয় মিষ্টিমুখ।

এর আগে ১৯ জুন সন্ধ্যায় তুরস্কের বোদরুম শহরের সিক্স সেন্সেস কাপলাঙ্কায়া রিসোর্টে অগ্নিসাক্ষী করে বিয়ে করেছেন নুসরাত জাহান ও নিখিল জৈন। পরদিন একই স্থানে খ্রিষ্টান রীতিতেও বিয়ে হয়েছে তাদের। এবার কলকাতায় তাদের বিয়ে রেজিস্ট্রি করা হবে।

বিয়েতে নুসরাত জাহানের পরনে ছিল লাল লেহেঙ্গা চোলি, গলায় বরমালা, ভারী গয়না আর হাতে লাল-সাদা ও সোনালি রঙের চূড় ও কালিরাস এবং মাথায় টিকলি। নিখিল জৈন পরেছিলেন হালকা গোলাপি রঙের শেরওয়ানি। মাথায় সেহরা আর গলায় রত্নখচিত মালা। বিয়ের আসরে নুসরাত জাহান আসেন রাজকন্যার বেশে আর রাজপুত বরের বেশে নিখিল জৈন।

গত সোমবার হয়েছে ইয়ট পার্টি। মঙ্গলবার হলো মেহেদি ও সংগীতের অনুষ্ঠান। বুধবার বিয়ের আগে সকালে গায়ে হলুদের অনুষ্ঠান হয়। আর বৃহস্পতিবার খ্রিষ্টান রীতিতে বিয়ের পর সেদিন রাতে হয়েছে ‘হোয়াইট ওয়েডিং’ পার্টি।

নুসরাত জাহান ও নিখিল জৈনের বিবাহোত্তর সংবর্ধনা অনুষ্ঠান হবে আগামী ৪ জুলাই, সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায়, কলকাতায় আইটিসি রয়্যাল বেঙ্গলে।

এদিকে বিয়ের উদ্দেশ্যে ১৬ জুন রাতে স্বামী নিখিল জৈন আর পরিবারের সদস্যদের নিয়ে তুরস্কের ইস্তাম্বুলে উড়াল দেন নুসরাত জাহান। যখন তার নির্বাচনী এলাকায় রাজনৈতিক বিরোধে তিনজন নিহত হয়েছেন, এলাকায় ব্যাপক উত্তেজনা বিরাজ করছে, যেকোনো সময় বড় কোনো দুর্ঘটনার আশঙ্কা রয়েছে, ঠিক সেই সময় নিজের বিয়ের জন্য তুরস্কে যান নুসরাত। এ নিয়ে অনেক সমালোচনার মুখে পড়তে হয়েছে তাকে।

তবে বিয়ে শেষে ফিরে বিমানবন্দরেই সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে বিষয়টি নিয়ে কথা বলেন তিনি। নুসরাত বলেন, ‘সবকিছু দলের লোকজন নিয়ন্ত্রণে রেখেছে। প্রশাসনের সঙ্গে যোগাযোগ রেখেছি। তুরস্কে বসেই প্রশাসনের মাধ্যমে সবকিছু নিয়ন্ত্রণ করেছি।’

পাশাপাশি মুসলিম মেয়ে হয়েও হিন্দু রীতিতে বিয়ে করার জন্যও বেশ সমালোচিত হচ্ছেন নুসরাত জাহান

দুবাইয়ে স্কাই ডাইভিং এ মেহজাবিন

বিনোদন প্রতিবেদক: ছোটপর্দায় এই সময়ের জনপ্রিয় অভিনেত্রী মেহজাবিন সম্প্রতি ছুটি কাটাতে গিয়েছেন দুবাই। বেড়াতে গিয়ে নানা অভিজ্ঞতা হয়েছে তার। বিমান থেকে লাফ দিয়েছেন এই অভিনেত্রী। প্রকাশ হয়েছে মেজজাবিনের স্কাই ডাইভিং এর ভিডিও।

প্রথমে কিছুটা ভয় করলেও অ্যাডভেঞ্জারে মেতে উঠেছেন অবশেষে। বিমান থেকে ঝাঁপিয়ে পড়ে খোলা আকাশ প্রাণ খুলে উড়েছেন তিনি।

জানা গেলো, দুবাই শহরের সবচেয়ে আকর্ষণীয় ভিউ প্লাম আইসল্যান্ডের আকাশে এই ডাইভটি দিয়েছিলেন মেহজাবিন। ঈদের পর দুবাইয়ে গিয়ে গিয়ে এমন মজার অভিজ্ঞতা হয় তার।

মেহজাবীন বলেন, ‘অবশেষে মজার এক অভিজ্ঞা হলো। এটা আমি করতে পেরেছি। সত্যিই অসাধারণ অনুভূতি হয়েছে। স্কাই ডাইভিংয়ের জন্য দুবাই-ই সেরা।’

এদিকে স্কাই ডাইভিংয়ের পুরো একটি ভিডিও তৈরি করেছেন এর সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান। সেখানে মেহজাবীনের প্রস্তুতি, শুরু থেকে মাটিতে নামা পর্যন্ত পুরো ঘটনা দেখানো হয়।

ফুুুুটবল খেলোয়াড় হতে না পেরেই হলেন নাট্যকার

নজরুল ইসলাম তোফা: পরিশ্রম সৌভাগ্যের প্রসূতি, পরিশ্রম করলে অবশ্যই সবার সফলতা আসে। তবে সফলতার সীমা পরিসীমা নেই। যে যার মতো সফল হয়ে তুষ্ট থাকে আবার কেউ সফলতা পাওয়ার জন্য সফলতার সীমানা নির্ধারণ করতে পারে না। সুতরাং অসন্তুষ্টি নিয়ে তারা সারা জীবন পার করে। আসলে পরিশ্রম কোন বিষয় নিয়ে করতে হয় তাকে নির্ধারণ করাটা একজন মানুষের খুবই গুরুত্ব পূর্ণ বিষয়। সে বিষয়টিকে নির্ধারণ করে পরিশ্রম করলে সুখ-শান্তি, আশা-ভরসা হাতের মুঠোয় চলে আসে। প্রকৃত এবং যথার্থ পরিশ্রম একটি মানুষের জীবনে- “সৌভাগ্যের লক্ষ্মী” ডেকে আনে। এই জগৎ সংসারের মানুষেরা তো কুসুমাস্তীর্ণ নয়, জীবনটাও যেন পুষ্প শয্যা নয়।তারা কঠোর সংগ্রাম করেই পায় জীবন, সংসার বা খ্যাতি। তাই বলতে চাই যে বর্তমান সময়ের সবচেয়ে আলোড়ন সৃষ্টিকারী একজন গুনী ব্যক্তির কথা।

তিনি মনে করেছিল খুব ভালো “ফুুুুটবল খেলোয়াড়” হবেন। জানা যায়, তিনি এক সময়ে নামী দামি কৃতী ফুটবল খেলোয়াড়ও ছিলেন। কিন্তু তিনি খেলোয়াড় হতে পারেনি। হয়তোবা সেই সফলতার জায়গা তাঁর নয়। তাঁর জায়গাটা হলো:- নাটক লেখা, নাটক করা আবার তাকে পরিচালনা করা। জানা দরকার, তিনি হলেন প্রখ্যাত নাট্যকার, অভিনেতা এবং পরিচালক পাবনা জেলার কৃতী সন্তান বৃন্দাবন দাস।

বৃন্দাবন দাস খেলা ধুলার জগতে ১৯৮৫ সাল থেকে ১৯৯৩ সাল পর্যন্ত নিবেদিত প্রাণেই ছিল। তবে ইচ্ছে ছিল দেশের একজন নামকরা “ফুটবল খেলোয়াড়” হবেন এবং জাতীয় দল তথা ‘আবাহনী’র হয়েই যেন আকাশী-নীল রঙের জার্সি গায়ে দিয়ে খেলবেন এই দেশ সহ সমগ্র বিশ্বে। ১৯৮১ সালে এই স্বপ্নকে বুকে ধারণ করে বাড়ি থেকে পালিয়েই বলা যায় “অচেনা শহর ঢাকায়” এলেন। তিনি ‘আবাহনী ক্লাবে’ হাজির হয়ে স্বপ্নের সেই কথা গুলো জানান। কিংবদন্তিতূল্য দেশের জনপ্রিয় ফুটবলার ‘অমলেশ সেনের’ কাছে। এমন মনোবাসনার কথা- জানানোর পরই বলা যায় যে, সেখান থেকে ব্যর্থ হয়ে ফিরে এসেছিল পাবনার চাটমোহরে। শ্রদ্ধাভাজন “অমলেশ সেন” তাঁকে বুঝে উঠতে না পারলেও তিনিতো সেই ১৯৮৪ হতে ১৯৯৩ সাল পর্যন্তই চাটমোহর সবুজ সংঘের এক অন্যতম সংগঠক এবং কৃতী ফুটবল খেলোয়াড় হয়ে ব্যাপক পরিচিতি লাভ করে ছিল। পাশা পাশি পাবনা জেলা যুব ফুটবল দল সহ ”পাবনা মোহামেডান ক্লাব” এবং “পাবনা ফুটবল ক্লাব” এর খেলোয়াড় হিসেবে প্রথম বিভাগ ফুটবললীগে অংশগ্রহণের সহিত তিনি ঢাকা ২য় বিভাগ ফুটবল লীগের ক্লাব- সিটি ক্লাব, আজাদ স্পোর্টিং ক্লাব ও আদমজি জুট মিলস এর অন্যতম খেলোয়াড় মনোনীত হয়েছিল। বলতেই হয় যে তিনি দুর্ভাগ্যবশত অনুশীলনের সময় আহত হয়ে অনেক দিন মাঠের বাইরে থাকেন। তিনি বিভিন্ন জেলায় বহু টুর্ণামেন্টে অংশ গ্রহণ করে বেশ অনেকটিতেও যেন শ্রেষ্ঠ খেলোয়াড় নির্বাচিত হয়েছিল। ১৯৮৪-৮৬ সাল পর্যন্ত পর পর তিন বছর চাটমোহর উপজেলার বর্ষ সেরা ফুটবল খেলোয়াড় হিসেবে সবুজ-পদকে যেন ভূষিত হয়ে ছিল। এতো কিছু অর্জনের পরও শ্রদ্ধেয় অমলেশ সেনের নেতিবাচক কথাতে খুব দুঃখ নিয়ে গ্রামে ফিরেছিল। যেখানে তাঁর ‘ফুটবল খেলার মাঠ’ সেখানে বসে ভাবতে ভাবতে স্হির করেছিল পাশেই তো চাটমোহর সাংস্কৃতিক পরিষদ। নাটক করা যায় কিনা। যথারীতি সেখানে তিনি উপস্থিতও হয়ে ছিল। নিয়মিত নাটক রিহার্সেল ও সংগীতচর্চা হচ্ছে। সেটি অবশ্য ১৯৮৫ সালের কথা। তিনি ভেবে চিন্তে হঠাৎ করেই সাংস্কৃতিক পরিষদ এর পরিচালক- “গোলাম মোহাম্মদ ফারুককে” ঠাট্টা করে বলে ছিল, নাটকে অভিনয়ে অংশ গ্রহণ করার সুযোগ দিতে হবে। কথা গুলো শুনে গোলাম মোহাম্মদ ফারুক তাঁকে ‘সালাম সাকলায়েন’ রচিত ‘’চোর’’ নাটকে ছোট্ট এক চরিত্রে অভিনয় এর সুযোগ করেও দিয়ে ছিলেন। আসলেই সেখান থেকেই তাঁর সৃষ্টিশীলতার কর্ম শুরু। এরপর সেখানেই বাংলাদেশ মুক্ত-নাটক আন্দোলনের সঙ্গে যুক্ত হোন এবং সেই সুবাদে ‘আরণ্যক নাট্যদল’-এর কর্ণধার- মামুনুর রশীদের সঙ্গে পরিচয় এবং ঢাকার আরণ্যক নাট্য দলের সদস্য পদ লাভ করেন। এরই ধারাবাহিকতায় নাট্যকার মামুনুর রশীদের সহকারী হিসেবে কর্মজীবনেও প্রবেশ করেন। তারপর ১৯৯৪ সালে তিনি বেশ কিছু দিন অবশ্য কাজ করেছিলেন একটি ডেল্টা লাইফ ইনস্যুরেন্স কোম্পানি’র প্রধান কার্যালয়ে জুনিয়র অফিসার পদে। আবারও ১৯৯৭ সালে আরণ্যক ছেড়ে তিনি ‘প্রাচ্যনাট’ গঠন করেন। তার পাশাপাশি আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থা ‘কেয়ার বাংলাদেশে’ কাজ করেন ২০০৬ সাল পর্যন্ত।

বৃন্দাবন দাসের কথা শৈশব ও কৈশোরের দিনগুলো থেকেই তুলে ধরা প্রয়োজন। তাঁর তো শৈশব কিংবা কৈশোর অতিবাহিত হয় “চাটমোহরে”। তিনি জীবনে কখনো বা কোন সময়েই চিন্তাও করেননি যে, লেখা লেখি এবং নাটকের সঙ্গে জড়িত হবেন। শুরুতে যা হতে চাননি তাকে পরিশ্রম দ্বারাই যেন অর্জন করতে লাগলেন। শখের খেলাধুলা বাদ পড়ে গেল। ফুটবল খেলোয়াড় হওয়ার চিন্তা এখনো তিনি নাটকেই যেন ব্যবহার করেন। বলে রাখি যে এমন চিন্তার বৃন্দাবন দাস পড়াশোনাতেও খুব মনোযোগী, প্রাথমিক লেখা পড়া শুরু করেছিল ”মির্জা ওয়াহেদ হোসেন” নামের প্রতিষ্ঠিত শালিখা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। সে প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকেই শিক্ষা সম্পন্ন করার পরে চাটমোহর রাজা চন্দ্রনাথ এবং বাবু সম্ভুনাথ পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় হতে এসএসসি আর চাটমোহর ডিগ্রি কলেজ অর্থাৎ বর্তমানে- “চাটমোহর সরকারি ডিগ্রি কলেজ হয়েছে সেখান থেকে তিনি এইচএসসি পাস করেন। পরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে জগন্নাথ কলেজও পড়াশোনা করেন। ঢাকা থেকে বিএসএস (সম্মান) এবং রাষ্ট্র বিজ্ঞানে এম এস এস ডিগ্রি লাভ করেন। বৃন্দাবন দাস জন্ম গ্রহণ করেন ১৯৬৩ সালে ৭ ডিসেম্বর- পাবনা জেলার চাট মোহর উপজেলার “সাঁরোড়া” গ্রামে। জনপ্রিয় এই বৃন্দাবন দাস ১৯৯৪ সালে চাটমোহরের মেয়ে শাহনাজ ফেরদৌস খুশির সঙ্গে বিবাহ-বন্ধনে আবদ্ধ হন। “শাহনাজ ফেরদৌস খুশি”ও একজন প্রখ্যাত অভিনেত্রী। তাদের ”যমজ পুত্র সন্তান” দিব্য জ্যোতি আর সৌম্য জ্যোতি এখন অধ্যয়নরত বা তারা উভয়ে এখন অভিনয়ে জড়িত রয়েছে। সুতরাং এখন পুরো পরিবার মিডিয়া জগৎ এর সঙ্গে যুক্ত। গুনী ব্যক্তি হলে নাকি সে পরিবারের অনেকেই কোনোনা কোনো বিষয়ে কমবেশিই হোক প্রতিভাবান হয়। বৃন্দাবন দাসের ছোট বেলা থেকেই ছিল অসাধারণ সৃজনশক্তি, ব্যতিক্রমধর্মী বুদ্ধিমত্তা বিশিষ্ট গুণাবলীর অধিকারী। তিনি যেন সদাসর্বদাই অন্তঃর্নিহিত ব্যতিক্রম ধর্মী বুদ্ধিবৃত্তি চর্চার সক্ষমতা, সৃজনশীলতা অথবা জন্মগত এবং প্রকৃতিগত ভাবে বাস্তবকে রূপান্তরিত করতে সক্ষম হয়েছে। তাঁর এই গুণাবলীর মুল উত্তরসূরি নিজের বাবা স্বর্গীয় দয়াল কৃষ্ণ দাস। তিনি ১৯২৫ সাল হতে ২০১৫ সাল পর্যন্ত একজন প্রখ্যাত কীর্তন শিল্পী; পদাবলী কীর্তন এবং সাহিত্যে যেন ‘অগাধ পাণ্ডিত্যের অধিকারী’ ছিলেন। দয়াল কৃষ্ণ দাস প্রায় ৫০ বছর কীর্তন গেয়ে ছিলেন এপার বাংলা ও ওপার বাংলার গ্রামে ও গঞ্জে। তাঁর মাতা ময়নারানী ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮ সালে সকাল ৮.০০ টায় হৃদরোগে আক্রান্ত হয়েই ৭৫ বছর বয়সে দেহ ত্যাগ করেন। তিনিও সংস্কৃতিমনা ছিলেন।

এই প্রতিভাবান ‘বৃন্দাবন দাস’ ১৯৯৭ সালে অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা হিসেবে ”প্রাচ্যনাট” গঠন করেন এবং সেই দলের প্রয়োজনে ছোটো একটি মঞ্চ নাটক ‘’কাঁদতে মানা’’ লিখেছিলেন। মূলত এমন নাটকটি মঞ্চায়নের মধ্য দিয়ে প্রাচ্যনাটের শুভ যাত্রা শুরু হয়। এরপরও কয়েক জন বন্ধুরা মিলেই একটি টেলিভিশন-নাটক প্রযোজনার পরিকল্পনা এবং তাঁর “লেখা পাণ্ডুলিপি” নিয়ে প্রখ্যাত নাট্য-পরিচালক ‘সাইদুল আনাম টুটুল’ এর সঙ্গে যোগাযোগ করেন। “সাইদুল আনাম টুটুল” এর পরিচালনায় নির্মিত হলো বৃন্দাবন দাসের লেখা প্রথম টেলিভিশন ধারাবাহিক-নাটক ‘বন্ধুবরেষু’। সে নাটকটি ১৯৯৯ সালে একুশে টেলিভিশনে প্রচারিত ও দর্শকনন্দিত হয়। সাধারণ মানুষ, তাদের আবেগ, হাসি-কান্না তাঁর লেখার উপজীব্য বলা চলে। বিশেষ করে পাবনার আঞ্চলিক ভাষাকে তিনি তাঁর নাটকে শক্তিশালী এক বৃহৎ স্থান করে দিতে পারাতে পাবনা সহ বাংলাদেশের সবশ্রেণীর মানুষের মণিকোঠাতেই অবস্থান করছেন। তাঁর লেখা উল্লেখ যোগ্য নাটক :-বন্ধুবরেষু, মানিক চোর, বিয়ের ফুল, ঘরকুটুম, পাত্রী চাই, হাড় কিপটে, গরু চোর, আলতা সুন্দরী, সার্ভিস হোল্ডার, ভালোবাসার তিন কাল, সাকিন সারি সুরি, লেখক শ্রীনারায়ণ চন্দ্রদাস, কতা দিল্যেমতো, মোহর শেখ, ওয়ারেন, টক শো, পত্র মিতালী, ফিরে পাওয়া ঠিকানা, সম্পত্তি, সম্পর্ক, উঁট, ডায়রী, কাসু দালাল এবং তিন গেদা সহ প্রায় দুই শতাধিক নাটক কিংবা ধারাবহিক নাটক রচনা করেছেন। তাঁর লেখা “মঞ্চ-নাটক” :- কাঁদতে মানা, দড়ির খেলা, অরণ্য সংবাদ, কন্যা ইত্যাদি। বৃন্দাবন দাস লেখা বইগুলো: কাঁদতে মানা (মঞ্চ-নাটক), দুটি নাটক (টিভি-নাটক), সুরের আলো (গল্পগ্রন্থ)।

লেখক, সঙ্গীতজ্ঞ, শিল্পী, চিত্রাঙ্কন ইত্যাদি সৃজনশীল সুকুমার বৃত্তিতেও তাঁর যথেষ্ট অবদান রাখার মতো প্রতিভা রয়েছে। এই প্রতিভাবান মানুষ মতবিনিময় এবং সংলাপ করতে পছন্দ করে। জন্ম থেকে বেশি দার্শনিক চিন্তা করতে সক্ষম বলেই ‘মানুষ ও মানুষ’ নিয়ে ভালো নাটক লিখতে পারেন। বেশি জীবন বা মহাবিশ্ব নিয়ে জানতে ইচ্ছুক বলেই চিন্তা ভবনা খুব দ্রুততার সহিত সংগ্রহ একেবারেই আলাদা আলাদা প্লাটফর্ম সৃৃষ্টি করে মানুষের মন জয় করতে পারেন।বৃন্দাবন দাসের নাটকে “বিশেষ অবদানের স্বীকৃতি”-স্বরূপ ‘বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সাংবাদিক সমিতি’ এবং ‘বাংলাদেশ কালচারাল রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন’- কর্তৃক সেরানাট্যকার পুরস্কার পেয়েছে। ‘কালচারাল রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ’- কর্তৃক সেরা নাট্যকার হিসেবে মনোনীত হন। তাছাড়া তিনি বিনোদন বিচিত্রা, টেনাশিনাস, ট্যাব, আরটিভি স্টার অ্যাওয়ার্ড, প্রতিবিম্ব (অস্ট্রেলিয়া) সহ বহু সম্মাননা ও পুরস্কার লাভ করে। ‘সাংস্কৃতি দলের সদস্য’ এবং দলনেতা হিসেবেই প্রতিভাবান বৃন্দাবন দাস- ভারত, ভুটান, নেপাল, থাইল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়াসহ বিশ্বের বহু দেশ ভ্রমণ করেছে। ভ্রমণ করাটা তাঁর অন্যতম শখ। তিনি ঢাকাস্থ পাবনা সমিতির প্রতিটি অনুষ্ঠানে শত ব্যস্ততার মধ্যে উপস্থিত হয়ে পাবনাবাসীদের আনন্দ দিয়ে থাকে। তাছাড়াও পাবনার একুশে বইমেলা সহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণও করে থাকে। তিনি তো বলছেন প্রতিভার বিজ্ঞানসম্মত কোন ব্যাখ্যা কিংবা বিশ্লেষণ এখনো আবিষ্কৃত হয় নি। প্রতিভা শব্দটিকে বিভিন্নভাবেই ব্যাখ্যা করা হয়। ব্যক্তিগতভাবেই তিনি সমাজ থেকে আজঅবধি যা অর্জন করেছে তাতেই সন্তুষ্ট। আর তাকেই বলছেন ‘প্রতিভা’। প্রতিভা এবং দক্ষতা প্রদর্শিত হয় শৈশব থেকেই, তাঁর অন্তঃদৃষ্টির আজও শৈশবকে টানে। জনগণ তাঁর নাটকে পৃথক চিন্তা-চেতনায় কোন ব্যক্তির চাতুর্য্যতা বা অহংকার উপস্থিতি কিংবা তীক্ষ্ণ বুদ্ধিকে ফুটিয়ে তোলার চেষ্টা করেন। সর্বশেষ বলতেই হয় দর্শকদের আকৃষ্ট করা, তাঁর মূল উদ্দেশ্য হলেও হাস্যরসের মাধ্যমে সত্যকে নিজ নাটকে তোলে ধরার চেষ্টা করেন।
লেখক:
নজরুল ইসলাম তোফা, টিভি ও মঞ্চ অভিনেতা, চিত্রশিল্পী, সাংবাদিক, কলামিষ্ট এবং প্রভাষক।

শুভ জন্মদিন সাদিয়া ইসলাম মৌ

বিনোদন প্রতিবেদক: নাচ, মডেলিং ও অভিনয়- তিন ভুবনেই সমান জনপ্রিয় তিনি। ছোটপর্দার দর্শকদের কাছে তার জনপ্রিয়তা আকাশচুম্বী। ক্যারিয়ারের অনেকটা সময় কেটে গেলেও তিনি এখনো মডেলিংয়ের অঘোষিত সম্রাজ্ঞী। নতুন প্রজন্মের মডেলরা তাকে আইডল মানেন। বলছি সাদিয়া ইসলাম মৌয়ের কথা।

আজ এই তারকার জন্মদিন। জন্মদিন উপলক্ষে ক্রাইম পেট্রোলের পক্ষ থেকে রইল শুভেচ্ছা। এবারের জন্মদিন উপলক্ষে তেমন কোনো জমকালো অনুষ্ঠানের আয়োজন করেননি মৌ, এমনটাই জানিয়েছেন তিনি।

সাদিয়া ইসলাম মৌ বলেন, ‘দুই বছর আগে আমি আমার বড় বোনকে হারিয়েছি। সত্যি বলতে কি, এর পর থেকে জন্মদিন কেন, কোনো উৎসবই আমার কাছে আর আনন্দময় হয়ে ওঠে না, কোনো রকম আনন্দ করতেই ভালো লাগে না। খুব সাধারণভাবেই আজকের দিনটি কাটবে।’

এদিকে গতকাল নতুন একটি বিজ্ঞাপনের মডেল হিসেবে কাজ করেছেন সাদিয়া ইসলাম মৌ। বিজ্ঞাপনটিতে মডেল হিসেবে কাজ করা নিয়ে বললেন, ‘বেশ বড় ও পরিপাটি আয়োজনের মধ্য দিয়েই বিজ্ঞাপনটি বানানো হয়েছে। দীর্ঘদিন পর জিঙ্গেল নির্ভর একটি বিজ্ঞাটনে মডেল হলাম। ভীষণ ভালো লেগেছে।’

মডেলিং, অভিনয়, নৃত্যের পরও তার আরেকটি পরিচয় আছে। তিনি বেশ কিছু নাটক পরিচালনাও করেছেন। শোবিজের বাইরে কর্মজীবনে সফল মৌ ব্যক্তিগত জীবনেও সফল একজন নারী। অভিনেতা জাহিদ হাসানের সহধর্মীণী তিনি। তাদের ঘরে রয়েছে মেয়ে পুষ্পিতা এবং ছেলে পূর্ণ। ভালোবাসা আর মমতা দিয়ে সেই সংসার আগলে রেখেছেন তিনি।

আজ বিশ্ব সংগীত দিবস

বিনোদন প্রতিবেদক: আনন্দের সময় হোক কিংবা মন খারাপের সময়ই হোক সংগীত মানুষের নিত্যদিনের সংগী। গুন গুন করে কে না গান গেয়ে ওঠেন চলতে চলতে। সংগীতের মাধ্যমে বিভিন্ন দেশে চিকিৎসাও করা হয় এখন। সারা বিশ্বেই নানা ভাষায় সমান তালেই চলছে সংগীতের চর্চা। আজ বিশ্বের সকল সংগীত প্রেমীদের জন্যই বিশেষ একটি দিন। আজ সংগীত দিবস।

যে ভাবে এলো বিশ্ব সংগীত দিবস ১৯৮২ সালে ফ্রান্সে ‘ফেত দ্য লা মিউজিক’ বা ‘মেক মিউজিক ডে’ নামে একটি দিনের উদ্যাপন শুরু করা হয়। ফ্রান্সের সংস্কৃতিমন্ত্রী জ্যাক ল্যাং ১৯৮১ সালে ভাবতে শুরু করেন বিষয়টি নিয়ে। ১৯৭৬ সালে ফ্রান্সে মার্কিন সংগীতশিল্পী জোয়েল কোহেন ‘সামার সোলস্টাইস’ বা গ্রীষ্মকে উদ্যাপন করতে রাতভর গান করার প্রস্তাব তোলেন। ২১ জুনের সংগীত দিবস সেই থেকে শুরু। বাংলাদেশসহ বিশ্বের ১০৮টি দেশে স্থানীয়ভাবে অথবা ফরাসি দূতাবাসের সহায়তায় এ দিনটি পালন করা হয়। বাংলাদেশেও এ দিবসটিকে গুরুত্বের সঙ্গে পালিত হয়ে আসছে।

সংগীত দিবসে কী করেন শিল্পীরা বিশ্বের বিভিন্ন দেশে সংগীত দিবস পালিত হয় কীভাবে পালিত হয় সংগীত দিবস। জানা গেছে, পার্ক, যানবাহন, বেস্টুরেন্টে সংগীত দিবসে বিনা মূল্যে গান পরিবেশন করেন শিল্পীরা। গানে মূলত সবার জীবনের শান্তি কামনা করা হয়।

বাংলাদেশের সংগীত দিবস ‘বিশ্ব সংগীত দিবস ২০১৯’ শিরোনামে বড় একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি। অনুষ্ঠানে ১০টি ভাষার গান গাইবেন ৪৫ জন শিল্পী। এছাড়া থাকছে শোভাযাত্রার আয়োজনও। শিল্পকলার জাতীয় চিত্রশালা মিলনায়তনে এই আয়োজন শুরু হবে বিকেল ৪টায়।

এই অনুষ্ঠানে বাংলাসহ ১০টি ভাষার গান গাইবেন ৪৫ জন শিল্পী। পরিবেশনার শুরু ও শেষ হবে বাংলা দেশাত্মবোধক গান দিয়ে। শুরুতে ‘আমারও দেশেরও মাটিরও গন্ধে’ গাইবেন রাজীব, ইউসুফ, প্রিয়াঙ্কা গোপ, অনুপমা মুক্তি ও রাশেদ। শেষ হবে ‘ধনধান্য পুষ্পভরা’ দিয়ে। গাইবেন বাদশা বুলবুল, ডলি সায়ন্তনী, মৌটুসী, প্রিয়াঙ্কা বিশ্বাস, সবুজ, শরীফ, সুস্মিতা ও সুমি মির্জা।

মাঝে চীনা ভাষায় গাইবেন দিনাত জাহান মুন্নী, প্রতীক হাসান ও পুতুল। ইংরেজি ভাষায় সাব্বির, আরমিন মূসা, জয় শাহরিয়ার ও আর্নিক। স্প্যানিশ ভাষায় আলিফ আলাউদ্দিন, সুজন আরিফ, মেহরাব ও ফারশিদ। উর্দুতে পুলক, পারভেজ, সিঁথি সাহা ও বেলি আফরোজ। আরবি ভাষায় কোনাল, রাফাত ও হৈমন্তী।

নেপালি ভাষায় লুইপা, সজীব ও পিংকি ছেত্রি। রুশ ভাষায় রন্টি দাস, ডি রক স্টার শুভ ও স্মরণ। হিন্দিতে কনা, মুহিন, ইমরান ও লিজা এবং জাপানি ভাষায় গাইবেন ইবরার টিপু, শান ও বিন্দু কণা।

গান পরিবেশনার আগে সংগীতশিল্পীদের অংশগ্রহণে হবে বিশেষ শোভাযাত্রা। সেখানে একাডেমির মহাপরিচালক ছাড়াও প্রধান অতিথি থাকবেন সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ এমপি। আয়োজনটি সবার জন্য উন্মুক্ত থাকবে।

আসছে স্টার সিনেপ্লেক্সে ম্যান ইন ব্ল্যাকসহ তিন ছবি

বিনোদন প্রতিবেদক: হলিউডের তিনটি ছবি একসঙ্গে মুক্তি পাচ্ছে স্টার সিনেপ্লেক্সে। তারমধ্যে অন্যতম ‘মেন ইন ব্ল্যাক’ : ইন্টারন্যাশনাল’ ছবিটি। বহুল প্রতিক্ষীত এই ছবিটি নিয়ে আগ্রহের শেষ নেই হলিউপ্রেমীদের।

প্রায় সাত বছরের লম্বা বিরতির পর পর্দায় এসেছে সিরিজের চতুর্থ ছবিটি। এর পরিচালক এফ. গ্যারি গ্রে।

এছাড়াও মুক্তি পাচ্ছে ‘দ্য সিক্রেট লাইফ অব পেটস ২’ এবং ‘টয় স্টোরি ৪’। ২০১৬ সালে মুক্তি পাওয়া অ্যানিমেশন ছবি ‘দ্য সিক্রেট লাইফ অব পেটস’ রাতারাতি ব্লকবাস্টারে পরিণত হয়। সব মিলিয়ে এ ছবির আয় ছিল ৮৭৫ দশমিক ৫ মিলিয়ন ডলার। এ রকম আর্থিক সাফল্যের পর এর সিক্যুয়াল হওয়াটাই স্বাভাবিক। দর্শকরাও অপেক্ষা করছিলেন পরবর্তী ছবির জন্য। অবশেষে মুক্তি পেয়েছে ‘দ্য সিক্রেট লাইফ অব পেটস ২’। আন্তর্জাতিক বাজার মাতিয়ে এবার আসছে বাংলাদেশেও।

অন্যদিকে ৯ বছর পর আবারও পর্দায় হাজির হচ্ছে পিক্সার অ্যানিমেশন স্টুডিওজ প্রযোজিত এবং ওয়াল্ট ডিজনি পিকচার্স পরিবেশিত ‘টয় স্টোরি’ সিরিজের চতুর্থ কিস্তি ‘টয় স্টোরি ৪’। এবারের কিস্তি নির্মাণ করেছেন জোশ কুলি।

‘মেন ইন ব্ল্যাক : ইন্টারন্যাশনাল’
কেতাদুরস্ত কালো পোশাকের সঙ্গে কালো জুতা এবং চশমা। একটি বিশেষ সংস্থার মানুষ এমন পোশাক পরে থাকেন যাদেরকে বলা হয় ‘মেন ইন ব্ল্যাক’। এরা রাষ্ট্রের গোপন কাজে নিয়োজিত থাকে বলেই ধারণা করা হয়। বিশেষ করে যারা ভিনগ্রহের মানুষ নিয়ে কাজ করে। পৃথিবীতে এলিয়েন সংক্রান্ত সকল নথিপত্রের তদারকি নাকি তারাই করে।

যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ কয়েকবার উঠলেও তারা বিষয়টা এড়িয়ে যায়। ফলে এ নিয়ে একটা ধোঁয়াশা তৈরি হয়। ১৯৯৭ সালে এই বিশেষ শ্রেনীর মানুষদের নিয়েই নির্মিত হয়েছিলো ‘মেন ইন ব্ল্যাক’। যেখানে অভিনয় করেছেন উইল স্মিথ ও টনি লি জোনসের মত তারকারা।

এ পর্যন্ত সিরিজের তিনটি ছবি মুক্তি পেয়েছে। প্রতিটি ছবিই পেয়েছে ব্যাপক জনপ্রিয়তা। প্রায় সাত বছর পর সেই বিরতি ভাঙছে। পর্দায় আসছে সিরিজের চতুর্থ ছবি ‘মেন ইন ব্ল্যাক: ইন্টারন্যাশনাল’।

এবারের ছবিতে থাকছে ব্যাপক পরিবর্তন। এ ছবির পরিচালক এফ. গ্যারি গ্রে। আগের ছবিগুলোতে ‘এজেন্ট জে’ ও ‘এজেন্ট কে’ চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন যথাক্রমে উইল স্মিথ ও হলিউডের প্রখ্যাত অভিনেতা টমি লি জোনস। ছবিগুলোতে তাদের শ্বাসরুদ্ধকর সব কর্মকান্ড দেখে মুগ্ধ হয়েছিলেন দর্শকেরা।

‘মেন ইন ব্ল্যাক ৪’ ছবিতেও এ দুটি চরিত্র থাকছে। তবে উইল স্মিথ এবং টনি লি জোনস থাকছেন না। তাদের পরিবর্তে থাকছেন ক্রিস হেমসওয়ার্থ এবং টেসা থম্পসন। তবে এখানে তাদের ভূমিকা বদলাচ্ছে। আগের ছবিতে উইল স্মিথদের মত এলিয়েনদের সাথে যুদ্ধ করে পৃথিবীকে রক্ষা করার দায়িত্বে দেখা যাবে না তাদেরকে।

আগের ছবির অভিনেত্রী এমা থম্পসন থাকছেন এ ছবিতেও। ‘টেকেন’খ্যাত অভিনেতা লিয়াম নেসনকেও দেখা যাবে এ ছবিতে। তিনি থাকছেন মেন ইন ব্ল্যাক লন্ডন শাখার প্রধান হিসেবে।

‘দ্য সিক্রেট লাইফ অব পেটস ২’
ইউনিভার্সেল পিকচার্স ও ইলুমিনেশন-এর প্রযোজনায় এ ছবির পরিচালক ক্রিস রেনাড। আগের ছবির সাফল্যের ধারাবাহিকতায় এবারও তার ওপর পরিচালনার ভার পড়বে এমনটি প্রত্যাশিতই ছিলো। তবে এবারের পর্বে কিছু পরিবর্তন আনা হয়েছে। লুই সিকে আর মূল চরিত্রে নেই।

এই কৌতুক অভিনেতা মূল দ্য সিক্রেট লাইফ অব পেটসে প্রধান চরিত্র ম্যাক্স নামের কুকুরের কণ্ঠ দিয়েছিলেন। লুই আর ফিরছেন না এই সিক্যুয়ালে। ম্যাক্স পশু ডাক্তারের কাছে গিয়ে এক অনাকাঙ্খিত পরিস্থিতির মুখে পড়ার ঘটনা দিয়ে ফাস্ট লুকের ট্রেইলার ছাড়া হয়েছে। ম্যাক্স দেখবে এখানে এসে অনেকেই মানসিক বৈকল্যের মুখে পড়ে গেছে।

লুই সিকে দ্বিতীয় পর্বের সঙ্গে না থাকলেও ‘দ্য সিক্রেট লাইফ অব পেটস ২’ ছবিতে ম্যাক্স থাকছে স্বমহিমায়, মূল চরিত্রেই। প্যাটন অসওয়াল্ট এখন ম্যাক্সের কণ্ঠ দেবেন। কণ্ঠাভিনয়ে অসওয়াল্ট নতুন নয়, ডিজনি/পিক্সারের রেমি ও রাটাটুলে ছবিতে কণ্ঠ দিয়ে সমালোচকদের বাহবা পেয়েছেন তিনি।

প্রথম পর্বের কেভিন হার্ট আর এরিক স্টোনস্ট্রিট অবশ্য দ্বিতীয় পর্বেও আছেন। তবে চমকপ্রদ খবর হলো, ‘দ্য সিক্রেট লাইফ অব পেটস’-এর সিক্যুয়ালে কণ্ঠ চরিত্রে অভিনয় করেছেন খ্যাতিমান অভিনেতা হ্যারিসন ফোর্ড। ৫০ বছরেরও বেশি সময়ের ক্যারিয়ারে প্রথমবারের মতো কোনো অ্যানিমেশন চলচ্চিত্রে নাম লেখান তিনি।

যে অ্যানিমেশন ছবির চরিত্রে হ্যারিসন ফোর্ড কণ্ঠ দিয়েছেন, সে ছবি নিশ্চয়ই আকর্ষণীয় কিছু হবে এতে কোনো সন্দেহ নেই। মাত্র ৭৫ মিলিয়ন ডলারে বানানো ‘দ্য সিক্রেট লাইফ অব পেটস’ ২০১৬ সালে বিশ্বব্যাপী আয় করেছিল ৮৭৫ মিলিয়ন ডলার।

মুক্তির প্রথম সপ্তাহেই এটি পকেটে তুলেছিল ১০৪ মিলিয়ন ডলার। ছবিটির দ্বিতীয় কিস্তিতেও যেন এ ব্যবসা রমরমা থাকে, হয়তো সে কারণেও এর প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান এতে যুক্ত করেছেন খ্যাতিমান অভিনেতা হ্যারিসন ফোর্ডকে।

‘টয় স্টোরি ৪’
টয় স্টোরি। যে গল্পের মূল চরিত্র মানুষ রোবট কিংবা পশু-পাখি নয়, খেলনা। এবারের কিস্তিতে দেখা যাবে বনি তার খেলনা নিয়ে বের হয় এক রোড ট্রিপে। যেখানে উডির সাথে দেখা হয় হারানো প্রেমিকা বো পিপের। এরপর কি হয়? উডি কি বনির সাথে ফিরে আসে? না-কি থেকে যায় তার প্রেমিকার সাথে। এমন প্রশ্নের উত্তর নিয়েই ‘টয় স্টোরি ৪’।

এর আগে ১৯৯৫ সালে মুক্তি পায় ‘টয় স্টোরি’। এরপর ১৯৯৯ সালে ‘টয় স্টোরি ২’ এবং ২০১০ এ মুক্তি পায় ‘টয় স্টোরি ৩’। সবশেষ ছবি ‘টয় স্টোরি ৩’ বক্স অফিসে দারুণ সাফল্য পায়। প্রথম সপ্তাহেই ১৪৫.৩ মিলিয়ন আয় করে বিশ্বব্যাপী বক্স অফিসে শীর্ষে অবস্থান করে।

উত্তর আমেরিকায় ৪১৫ মিলিয়ন ডলার এবং অন্যান্য দেশে ৬৫২ মিলিয়ন ডলার আয় করে। বিশ্বব্যাপী এর দাঁড়ায় মোট ১.০৬৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার, যা আগের দুই ছবির মোট আয়ের চেয়েও বেশি। ছবিতে দেখানো হয়েছে, অ্যান্ডি ডেভিস কলেজে পড়তে যাওয়ার সময় তার খেলনা শেরিফ উডি, বাজ লাইটইয়ারসহ অন্যান্যরা নিজেদের ভবিষ্যৎ নিয়ে শংকিত হয় এবং তারা নিরাপদ আশ্রয় খুঁজে পায়।

এই চলচ্চিত্রেও আগের কিস্তির মত প্রধান দুই চরিত্র শেরিফ উডি ও বাজ লাইটইয়ারের চরিত্রে কণ্ঠ দিয়েছেন টম হ্যাঙ্কস ও টিম অ্যালেন। পুরনো চরিত্র উডি ও বাজ এবারও থাকছে। তবে যুক্ত হয়েছে নতুন বেশ কয়েকটি চরিত্র।

‘টয় স্টোরি ৪’-এ ‘বো পিপ’র অনুসন্ধান করে ছবিটির গল্প সাজানো হয়েছে। ‘বো পিপ’ হচ্ছে বিখ্যাত চরিত্র ‘সেরিফ উডি’র প্রেমিকা। ‘বো পিপ’ টয় স্টোরিজ সিরিজের প্রথম দুটিতে সহ ভূমিকায় ছিলো। তবে, তৃতীয় সিরিজে তাকে ইয়ার্ড সেলে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছিলো। শোনা যাচ্ছে, ছবিটির কাহিনী আগের সিরিজকে অনুসরণ করেনি।

নির্মাতারা জানান, ‘এটি টয় স্টোরিজ সিরিজের মধ্যে স্বতন্ত্র এবং দুঃসাহসিক ভালোবাসার গল্প নিয়ে নির্মিত।’ বরাবরের মত এবারও সেরিফ উডির ভয়েজ দিয়েছেন বিখ্যাত মার্কিন অভিনেতা টম হ্যাঙ্কস। পাশাপাশি ড্যাফ্ট পাংকের ভয়েজ শিল্পীরা এতে ভয়েজ দিয়েছেন।

অসুস্থ হলেন আলিয়া শুটিং সেটে

বিনোদন ডেস্কঃ নতুন ছবির শুটিং নিয়ে বেশ ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছিলেন বলিউডের জনপ্রিয় নায়িকা আলিয়া ভাট। গত মাসের শেষ সপ্তাহ থেকেই বারাণসীতে ‘ব্রহ্মাস্ত্র’ ছবির শুটিং করছিলেন রণবীর কাপুরের সঙ্গে। টানা শুটিং করতে করতে পথেই অসুস্থ হয়ে পড়েন আলিয়া।

সম্প্রতি এমন ঘটনা ঘটেছে। শুটিং শেষ না করেই ফিরে আসতে হয়েছে তাকে। আলিয়াকে সঙ্গে নিয়ে মুম্বাইয়ে ফিরেছেন রণবীর৷ অয়ন মুখার্জির এই ছবিতে মৌনি রায় ও নাগার্জুনও অভিনয় করছিলেন সেখানে।

অসুস্থ হয়ে পড়ার পরও নাকি শুটিং শেষ করতে চেয়েছিলেন আলিয়া। কিন্তু, বাধ সাজেন তার বন্ধু রণবীর কাপুর। আলিয়াকে শুটিং থেকে ছুটি দিয়ে দেন পরিচালকও। এরপর বারণসী থেকে বিমানে চড়ে চলে আসেন রণবীর-আলিয়া। জানা গেছে আবারও আগামী নভেম্বরের শেষে বারাণসীতেই ‘ব্রহ্মাস্ত্র’র শুটিং করবেন তারা।

মুম্বাই ফিরে চিকিৎসা নিচ্ছেন আলিয়া। চিকিৎসক আপাতত অভিনয় করতে নিষেধ করেছেন তাকে। এখন বিশ্রামেই থাকতে হবে। ‘ব্রহ্মাস্ত্র’ মুক্তি পাবে আগামী বছর বৈশাখে।

নুসরাতের জমকালো বিয়ের পার্টিতে যা থাকছে

বিনোদন প্রতিবেদকঃ কলকাতার জনপ্রিয় চিত্রনায়িকা নুসরাতের বিয়ের বাদ্য বাজবে একদিন পরেই। ১৯ জুন তুরস্কের বোদরুম শহরে হবে বিয়ের অনুষ্ঠান। প্রেমিক নিখিল জৈনকে বিয়ে করতে যাচ্ছেন এই নায়িকা। আজ ১৭ জুন তাদের বিয়ের পার্টির আয়োজন হচ্ছে।

শনিবার রাতে হবু বর নিখিল জৈনকে সঙ্গে নিয়ে ইস্তাম্বুলে উড়ে গেছেন নুসরাত জাহান।

জানা গেছে, তাদের দুজনের পরিবার, বন্ধু, সহকর্মী আর মেকআপ টিমের মোট ৩০ জন গেছেন সেখানে। ১৮ জুন হবে মেহেদি ও সংগীতের অনুষ্ঠান। বিয়ের দিন সকালে হবে গায়েহলুদের অনুষ্ঠান। ২০ জুন রাতে থাকছে ‘হোয়াইট ওয়েডিং’ পার্টি। সেখানে চলবে নাচ ও গানের আসর।

এরপর কলকাতায় আইটিসি রয়্যাল বেঙ্গলে তাদের রিসেপশন অনুষ্ঠান হবে ৪ জুলাই সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায়। ওইদিন নিখিল-নুসরাত দু’জনেই সাজবেন ডিজাইনার সব্যসাচীর পোশাকে।

এখন সোশ্যাল মিডিয়ায় ভেসে বেড়াচ্ছে নুসরাতের বিয়ের কার্ডের ছবি। ভিন্ন রকম বিয়ের কার্ডের ছবি শেয়ার করে অনেকেই শুভেচ্ছা জানাচ্ছেন তাদের। রোববার বিয়ের কার্ডের একটি ছবি প্রকাশ্যে এসেছে। কার্ডে বর ও কনে দু’জনেকেই দেখা যাচ্ছে। পাশে ফুল লতা পাতার ডিজাইন করা।

কখন কোথায় বিয়ের অনুষ্ঠান সেইসব তথ্য দেওয়া কার্ডের উপরে। বেশ নান্দনিক এই কার্ডের ডিজাইন করেছেন মুম্বাইয়ের এক শিল্পী। কার্ডের উপরে আছে সুঁই সুতোর কাজ। নুসরাতের হবু বর নিখিল জৈন পেশায় বস্ত্র ব্যবসায়ী। আর সেই কথা মাথায় রেখেই নাকি ডিজাইন করা হয়েছে এই বিশেষ গোল আকৃতির কার্ড।

অনেকেই জানেন এটা নুসরাতের দ্বিতীয় বিয়ে। আগের বিয়ের কথা অবশ্য নুসরাত প্রকাশ্যে কোনো দিনই স্বীকার করেননি। জানা গেছে, বছর চারেক আগে রেজিস্ট্রি করে ভিক্টর ঘোষের সঙ্গে বিয়ে হয়েছিল তার। ভিক্টর পেশায় এভিয়েশন ইন্ডাস্ট্রির সঙ্গে যুক্ত।

তবে জনসমক্ষে পরস্পর লিভ-ইন সম্পর্কে আছেন এমনটাই বলতেন। সংবাদমাধ্যমের সামনে অবশ্য বিয়ের কথাও স্বীকার করেননি নুসরাত। কয়েক মাস আগে এক সাক্ষাৎকারে তিনি দাবি করে, ‘যারা বলছে আমি বিবাহিত, তারা প্রমাণ দিক। যার সঙ্গে অনেক দিন ধরে সম্পর্কে আছি, তাকেই বিয়ে করব।’

‘শত্রু’ সিনেমার মাধ্যমে টলিউডে পথচলা শুরু করেন নুসরাত জাহান। তার অভিনীত দ্বিতীয় ও তৃতীয় সিনেমা ‘খোকা ৪২০’ ও ‘খিলাড়ি’-এর মাধ্যমে দর্শক হৃদয়ে জায়গা করে নেন। অভিনয় ক্যারিয়ারের সাত বছর পার করছেন তিনি। ইতোমধ্যে তার অভিনীত ১৮টি সিনেমা মুক্তি পেয়েছে।

একটি ভাষার ভঙ্গিমা শিখছেন সানি লিওন

বিনোদন ডেস্ক: সানি লিওন। ইংরেজি ও হিন্দি ভাষায় বেশ স্বাচ্ছন্দ্য তিনি। পারেন পঞ্জাবি ভাষাও। এবার তিনি ভারতের উত্তরপ্রদেশের কিছু অংশে ব্যবহৃত নির্দিষ্ট একটি ভাষার ভঙ্গিমা শিখছেন।

কারণ, সানির আসন্ন ছবি ‘কোকোকোলা’। এই ছবিতে উত্তরপ্রদেশের ব্যাকগ্রাউন্ডে এগোবে ছবির গল্প। সে কারণেই উত্তরপ্রদেশের স্থানীয় ভাষার ভঙ্গিমা আলাদা করে শিখছেন তিনি। আগামী মাস থেকে শুরু হবে এই ছবির শুটিং। ছবিটি হবে হরর-কমেডি ঘরানার।

এ প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের সানি লিওন বলেন,s ‘সবসময় খুবই খোলা মনে কাজ করি। ভাষা হোক বা অন্য কিছু— নতুন করে শিখতে আমার কোনও অসুবিধা নেই। অভিনেতা হিসেবে নিজেকে আরও উন্নত করতে পারি। উচ্চারণ ঠিক করতেও আমি আলাদা করে পরিশ্রম করছি।’

সূত্র : আনন্দবাজার

প্রিয়াঙ্কার অর্ধনগ্ন ফটোশুটের পক্ষ নিলেন ডিজাইনার

বিনোদন ডেস্কঃ বলিউড অভিনেত্রী প্রিয়াঙ্কা চোপড়া সম্প্রতি আলোচনায় এসেছেন একটি ফটোশুটে। সেখানে ব্লাউজ ছাড়া শাড়ি পরতে দেখা গেছে তাকে। ফটোশুটের কিছু ছবি ও একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে নেট দুনিয়ায়।

তা নিয়ে তোলপাড় চলছেই। অনেকেই অদ্ভূত পোশাকে ফটোশুটের জন্য প্রিয়াঙ্কার কাণ্ডজ্ঞান ও রুচি নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। তবে নায়িকার পাশেই রয়েছেন ডিজাইনার তরুণ তাহিলিয়ানি।

দিন কয়েক আগে দেশি গার্ল একটি ম্যাগাজিনের প্রচ্ছদের শুটের জন্য শাড়ি পরেন। ফটোশুটের জন্য তাকে ব্লাউজ ছাড়াই শাড়ি পরতে হয়েছিল। নিজের ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্টে সেই ছবিই পোস্ট করেন প্রিয়াঙ্কা।

তার এভাবে শাড়ি পরা নিয়ে নেট দুনিয়ায় শুরু হয় বিতর্ক। প্রচলিত ভারতীয় প্রথায় ব্লাউজের সঙ্গে শাড়ি না পরায় নেটিজেনদের রোষের মুখে পড়তে হয় প্রিয়াঙ্কাকে।

দেশের সংস্কৃতিকে তিনি অপমান করেছেন বলেও অভিযোগ ওঠে। এ নিয়েই মুখ খোলেন ডিজাইনার তরুণ তাহিলিয়ানি। একটি সংবাদমাধ্যমকে তরুণ জানিয়েছেন, প্রিয়াঙ্কা যেভাবে শাড়ি পরেছেন, তা অশালীন নয়। ‘চোলি’ ব্যবহার না করা ‘গ্লোবাল স্টেটমেন্ট’। প্রিয়াঙ্কাকে আধুনিক ভারতের আইকন বলেছেন তরুণ।

প্রসঙ্গত, ব্লাউজ ছাড়া ওই সাহসী ফটোশুট করা হয়েছিল এক বিখ্যাত মার্কিন ফ্যাশন ম্যাগাজিনের প্রচ্ছদের জন্য। ফ্যাশন ম্যাগাজিন ‘ইনস্টাইল’র জুলাই সংখ্যার ‘প্রচ্ছদ কন্যা’ হিসেবে সাহসী অবতারে দেখা গেছে প্রিয়াঙ্কাকে।

রাস্তায় রাস্তায় কাপড় বিক্রি করছেন নোরা

বিনোদন ডেস্কঃ ‘দিলবার দিলবার’ গানটির সঙ্গে সিনেমাপ্রেমীরা কম বেশি সবাই পরিচিত। জন আব্রাহাম অভিনীত ‘সত্যমেভ জয়তে’ সিনেমার আইটেম গান ছিল এটি। গানটির সঙ্গে কোমর দুলিয়ে হইচই ফেলে দিয়েছিলেন নোরা ফাতেহি। সেই অভিনেত্রীকে দেখা গেল রাস্তায় রাস্তায় কাপড় বিক্রি করতে।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে একটি ভিডিও ছড়িয়ে পড়েছে। এই ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, রাস্তার পাশে কাপড় বিক্রি করছেন নোরা। চমকে যাওয়ার মতোই ব্যাপার। তবে জানা গেছে, একটি প্রকল্পের অংশ হিসেবেই কাপড় বিক্রি করছেন তিনি। ব্যাংককের রাস্তায় কাপড় বিক্রি করার শুটিংয়ের সেই ভিডিওই ছড়িয়েছে নেটিজেনরা।

সম্প্রতি লন্ডনে ‘স্ট্রিট ড্যান্সার থ্রিডি’ সিনেমার শুটিংয়ের সময় সহ-অভিনেতাদের ‘দিলবার’ গানের তালে নাচ শেখানোর ভিডিও ভাইরাল হয়েছিল তার। এদিকে ৫ জুন মুক্তি পেয়েছে সুপারস্টার সালমান খান-ক্যাটরিনা কাইফ অভিনীত ‘ভারত’। এ ছবিতে সুনীল গ্রোভারের স্ত্রীর ভূমিকায় অভিনয় করেছেন নোরা ফাতেহি।

দক্ষিণ কোরিয়ার চলচ্চিত্র ‘অ্যান ওডে টু মাই ফাদার’র অফিশিয়াল রিমেক ‘ভারত’। ষাটের দশকের সার্কাসের ওপর নির্মিত ছবিটি। এতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকায় অন্যদের মধ্যে রয়েছেন দিশা পাটানি, টাবু ও জ্যাকি শ্রফ। মুক্তির মাত্র পাঁচদিনে এ ছবি বক্স অফিসে ছুঁয়েছে ১৫০ কোটি রুপির মাইলফলক।

বিশ্বকাপ মাতাচ্ছেন যে সুন্দরীরা

বিনোদন প্রতিবেদকঃ চলছে বিশ্বকাপ ক্রিকেট। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে দারুণ এক জয় দিয়ে টুর্নামেন্টে উড়ন্ত সূচনা করেছিলো বাংলাদেশের টাইগাররা। বেশ কিছু অঘটন ঘটে গেলেও এখনো সেমিফাইনালে চোখ টাইগারদের। সেজন্য এবারের আসর নিয়ে বাংলাদেশের ক্রিকেটপ্রেমীদের আগ্রহ তুঙ্গে।

সবাই আশায় বুক বেঁধে আছেন মাশরাফিরা এবার নতুন কিছু, বিশ্বকে চমকে দেয়া কিছু করে দেখাবেন।

তাই পয়েন্ট টেবিলের হিসেব রাখতে শুধু বাংলাদেশের ম্যাচ নয়, প্রতিটি ম্যাচেই চোখ রাখছেন সবাই। আর তাতে করে প্রতিদিনই চোখে পড়ে বেশ ক’জন সুন্দরী তারকাদের। যারা উপস্থাপিকা ও ধারাভাষ্যকার হিসেবে বিশ্বকাপ মাতিয়ে চলেছেন। বিশ্বের বিভিন্ন দেশের গণমাধ্যমেও তাদের নিয়ে শোরগোল দেখা যাচ্ছে।

তাদের মধ্যে অন্যতম ২০০৭ সালের মিস বাংলাদেশখ্যাত পিয়া জান্নাতুল। আন্তর্জাতিকভাবে খ্যাত এই মডেল ক্রিকেট নিয়ে বেশ আগ্রহী। তাকে দেখা গেছে ক্রিকেট বিষয়ক নানা অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করতে।

এবার তিনি বাংলাদেশ টেলিভিশন ও জিটিভির হয়ে সরাসরি অংশ নিচ্ছেন বিশ্বকাপের মাঠে। তার উপস্থাপনা বেশ উপভোগ করছেন দর্শক।

বিভিন্ন দেশের ক্রিকেটপ্রেমীদের সঙ্গে তার খুনসুটি, তারকা ক্রিকেটারদের সঙ্গে কথোপকথন, সাবেক খেলোয়ারদের সঙ্গে ম্যাচ বিশ্লেষণ প্রশংসা পাচ্ছে।

পিয়ার পাশাপাশি ইংল্যান্ড এন্ড ওয়েলশে আরও দেখা মিলছে বেশ কয়েকজন সুন্দরীর। তাদের মধ্যে মায়ন্তী ল্যাঙ্গার, রিদিমা পাঠক, সানাজানা গ্যানেসান, ইলমা স্মিথ ও জয়নাব আব্বাস সবার নজর কেড়েছেন।

বর্তমানে ক্রিকেট এবং নারী ধারাভাষ্যকারের প্রসঙ্গে উঠলেই যার নামটি সবার প্রথমে সামনে আসে তিনি হলেন মায়ন্তী ল্যাঙ্গার। ভারতের ম্যাচ কিংবা বড় কোনো টুর্নামেন্ট মানেই টেলিভিশনের পর্দায় মায়ন্তীর উপস্থিতি। বিশ্বখ্যাত ক্রিকেটারদের সঙ্গে ম্যাচ নিয়ে আলোচনা ও বিশ্লেষণ করতে দেখা যায় এই সুন্দরীকে।

ম্যাচের আগে এবং পরে মাঠ থেকে সরাসরি খেলা নিয়ে আলোচনা করেন তিনি। সেখানে তার সঙ্গে যুক্ত থাকেন সাবেক ক্রিকেটার ও নামকরা ক্রিকেটবোদ্ধারা। দ্বাদশ বিশ্বকাপেও এসব দায়িত্ব পালন করে ভক্ত-দর্শকের মন ভরাচ্ছেন এই ভারতীয় সুন্দরী।

আরও একটা পরিচয় দেয়া যায় মায়ন্তীর। তিনি ভারতীয় ক্রিকেটার স্টুয়ার্ট বিনির স্ত্রী। ক্রিকেট নিয়ে তার আগ্রহ ও নেশা কৈশোর থেকেই। এক সময় ক্রীড়া সাংবাদিক হওয়ার স্বপ্ন দেখতেন।

মায়ন্তীর মতোই এবারের বিশ্বকাপে আলো ছড়াচ্ছেন অভিনেত্রী থেকে ক্রিকেট অনুষ্ঠান উপস্থাপিকা হয়ে উঠা রিদিমা পাঠকও। কয়েকদিন আগেও দর্শকদের কাছে তিনি কেবল একজন অভিনেত্রীই ছিলেন। চলতি বিশ্বকাপ এই লাস্যময়ী মডেল ও অভিনেত্রীকে উপস্থাপিকা হিসেবে পরিচিত করে তুললো।

তবে বিশ্বকাপে এবার সবচেয়ে আলোচিত নারী পাকিস্তানি সুন্দরী জয়নাব আব্বাস। রূপ ও সৌন্দর্যে এরই মধ্যে তিনি ঝলক দেখিয়েছেন ক্রিকেটের বিশ্বমঞ্চে।

বেশ কয়েকজন নারী এবারের বিশ্বকাপে বিভিন্ন অনুষ্ঠান উপস্থাপনার সঙ্গে যুক্ত আছেন। তবে এদের মধ্যে কেবল ৩ জন রমণীর সঙ্গেই আইসিসির সঙ্গে চুক্তি রয়েছে। এই ৩ নারীর মধ্যে জয়নাব আব্বাস একজন। জনপ্রিয় এই ক্রীড়াবিষয়ক অনুষ্ঠান উপস্থাপিকার জন্ম ১৯৮৮ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি পাকিস্তানের লাহোরে।

২০১৪ সালের মিস ইন্ডিয়া প্রতিযোগিতার ফাইনালিস্ট ছিলেন তিনি। এরপর ক্যারিয়ার শুরু করেন মডেল হিসেবে। তবে মিষ্টি মেয়ে সানাজানা গ্যানেসান আলোচনায় আসেন আইপিএলে উপস্থাপনার মধ্য দিয়ে।

এবারের ক্রিকেট বিশ্বকাপেও তিনি অংশ নিচ্ছেন স্টার নেটওয়ার্কের হয়ে। শিক্ষা জীবনে ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে গোল্ড মেডেল পাওয়া সানজানা বিশ্বকাপে বেশ ভালোই প্রশংসা পাচ্ছেন।

প্রাণবন্ত উপস্থাপনা দিয়ে আলোচনায় এসেছেন দক্ষিণ আফ্রিকার সুন্দরী ইলমা স্মিথও। ইলমার ক্যারিয়ারের শুরুটা একজন আরজে (রেডিও জকি) হিসেবে। এর আগে ২০১১ সালে নিউজিল্যান্ডে অনুষ্ঠিত রাগবি বিশ্বকাপেও সঞ্চালনার দায়িত্ব পালন করতে দেখা গেছে তাকে।

ভক্তদের সুখবর দিলেন সুস্মিতা সেন

বিনোদন ডেস্ক: ভক্তদের সুখবর দিলেন সুস্মিতা সেন। দর্শকদের সামনে আবারও কবে ফিরছেন? ভক্তকূলের সেই প্রশ্নের উত্তর দিয়েছেন তিনি। জানালেন, শিগগিরই ফিরছেন।

সুস্মিতা সেন ফিরছেন, তবে সিনেমার পর্দায় নয়। ভারতের অন্যতম দুটি সেরা প্লার্টফর্মে দুটি প্রজেক্ট নিয়ে তার সঙ্গে কথা চলছে। এমনকি খুব শিগগিরই দুটির একটির জন্য তিনি শ্যুটিংও শুরু করবেন। সম্প্রতি ফিল্ম সমালোচক রাজীব মসন্দের একটি শো-তে এমনটাই জানিয়েছেন তিনি।

বরাবরই জীবনে বোল্ড সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য অনেকের কাছেই তিনি ভীষণ পছন্দের একজন নায়িকা। বিশেষ করে অনেক মেয়ের কাছেও সুস্মিতা সেন ‘আইডল’। সেই সুস্মিতা সেন বহুদিন সিনেমার পর্দা থেকে দূরে রয়েছেন।

সম্প্রতি নিজের ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্টে একটি সেলফি পোস্ট করেছেন প্রাক্তন মিস ইউনিভার্স। ক্যাপশানে তিনি লিখেন, ‘মেকআপ, হেয়ার, লাইট ও আয়না। দ্বিতীয় রাউন্ড। আবারও ক্লাসের জন্য প্রস্তুত!!!’

সুস্মিতার এ সেলফিতে এক ভক্তের ‘৪৩ বছর বয়সে আবার নতুন করে শুরু!’ কমেন্টসের উত্তরও দিয়েছেন। সুস্মিতা লিখেছেন, ‘হ্যাঁ ৪৩, এই বয়সেই আমি আবার নতুন করে শুরু করতে চাই, শিখতে চাই। কাজ ও শেখা কখনই শেষ হয় না, যতক্ষণ না আমরা নিজেরা বলি যে এটা শেষ হয়েছে।’

তবে কেন এতদিন ব্রেক নিয়েছিলেন? রাজিব মসন্দ-এর শোতে এমন এক প্রশ্নের উত্তরে সুস্মিতা জানিয়েছেন, দুই মেয়ে রিনি ও আলিশাকে সুন্দর করে বড় করতে চেয়েছিলেন। তাদের বড় হয়ে ওঠার প্রতিটা মুহূর্তের সাক্ষী থাকতে চেয়েছিলেন। রিনি ও আলিশা এখন অনেকটাই বড় হয়েছে, তাই তিনি আবারও কাজে ফিরতে চান।

বলিউড এ অভিনেত্রী শেষ অভিনয় করেছেন ২০১০ সালে ‘নো প্রবলেম’ ছবিতে। তবে ২০১৫ সালে বাংলা ভাষার একটি ছবিতে তাকে দেখা গিয়েছিল। পশ্চিমবঙ্গের সৃজিত মুখার্জি পরিচালিত ওই ছবিটির নাম নির্বাক। এরপর আর অভিনয় করেননি সুস্মিতা সেন।

বিয়ের আনুষ্ঠানিকতার আগেই বিচ্ছেদ!

বিনোদন প্রতিবেদকঃ চিত্রনায়িকা পরীমনি ও সাংবাদিক তামিম হাসানের প্রেমের খবর কারো অজানা নয়। টানা দুই বছর প্রেম করে গত ১৪ এপ্রিল তাদের বাগদান সম্পন্ন হয়। বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা বাকি ছিলে।

সামনে যে কোনো ১৪ এপ্রিল তাদের বিয়ে হবে বলেই জানিয়েছিলেন পরীমনি।

কিন্তু তার আগেই বেজে উঠলো ভাঙনের সুর। শোনা যাচ্ছে তাদের সম্পর্ক ভেঙে গেছে। পরীমনির ফেসবুকেও আর দেখা যাচ্ছে না তাদের তেমন কোনো ছবি। নিয়মিতই তামিমের সঙ্গে অনেক ছবি পোস্ট করতেন পরীমনি। কয়েক মাস থেকে তামিমের সঙ্গে নতুন কোনো ছবিও পোস্ট করেননি তিনি।

গোপন সূত্রে জানা গেছে, বাগদানের আংটিও নাকি খুলে রেখেছেন পরীমনি। এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘বাগদানের পরের দিনই আংটি খুলে রেখেছি। এতো ভারী আংটি কি সবসময় পরে থাকা যায়? আর ফেসবুকে ছবি না দেওয়ার ব্যাপারটি হলো আমি কাজকে সামনে আনতে চাই, বয়ফ্রেন্ডের ছবি নয়। আমার যা করা উচিত বলে মনে করছি, আমি তাই করার চেষ্টা করছি।’

তবে বাগদান ভেঙে যাওয়ার ব্যাপারে সরাসরি মুখ খুলতে চাননি পরীমনি। এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘আমি একতরফাভাবে বলে কোনো লাভ নেই এ বিষয়ে। সময় হলে সবকিছুই জানবেন সবাই।’

পরীমনি আরও বলেন, ‘আমি বাগদানের সময় ঘোষণা দেয়া তারিখ অনুযায়ী আগামী কোনো এক বছরের ১৪ এপ্রিল বিয়ে করবো বলে ভেবেছিলাম। কিন্তু এটা কবে হবে তা আমি নিজেও বলতে পারছি না। আপাতত কাজ নিয়ে থাকতে চাই।’

রেকর্ড গড়লেন সালমান

বিনোদন ডেস্কঃ বক্স অফিসের অঘোষিত ‘সুলতান’ তিনি। ‘ভারত’ মুক্তির পর অনুরাগীদের এ কথাই যেন আরও একবার প্রমাণ করলেন সালমান খান। প্রথম দিন এই ছবির বক্স অফিস কালেকশন ছিল ৪২ কোটি টাকার কিছু বেশি। তৃতীয় দিন এ ছবির আয় ছিল প্রায় ৯৬ কোটি টাকা। চতুর্থ দিনেই ‘ভারত’ ছুঁয়ে ফেলে ১০০ কোটির বেঞ্চমার্ক।

বলিউডে এখনও পর্যন্ত ১০০ কোটির ক্লাবে সবচেয়ে বেশি সংখ্যক ছবি রয়েছে সালমানেরই। ভাইজানের মোট ১৪টি ছবি ১০০ কোটির ক্লাবে রয়েছে। দ্বিতীয় স্থানে রয়েছেন অক্ষয় কুমার এবং অজয় দেবগণ। দু’জনেরই ১০টি করে ছবি বক্স অফিসে পেরিয়েছে ১০০ কোটি টাকা। সাতটি ছবিতে ১০০ কোটি টাকার ওপর আয় নিয়ে শাহরুখ খান রয়েছেন তৃতীয় স্থানে। আমিরের কেরিয়ারে এখনও পর্যন্ত ছয়টি ছবি পেরিয়েছে ১০০ কোটির দরজা।

ড্রামা, অ্যাকশন, ইমোশন, কমেডি-প্রায় সব কিছুই ‘ভারত’ ছবির কোনও না কোনও অংশে ধরতে চেষ্টা করেছেন সালমান। ভারতে ৪৭০০টি সিনেমা হলে মুক্তি পেয়েছে ছবিটি।

এই সাফল্যের পর সালমান টুইট করেছেন, ‘আমার ক্যারিয়ারের সবচেয়ে বড় ওপেনিং দেওয়ার জন্য আপনাদের সকলকে ধন্যবাদ। খুব আনন্দ হচ্ছে। গর্বও…। জয় হিন্দ।’

‘ভারত’-এ দীর্ঘ দিন পরে বড়পর্দায় ফিরেছেন সালমান-ক্যাটরিনা জুটি। ফের তাদের রোম্যান্স দেখার সুযোগ পেলেন দর্শকরা। এটি একটি কোরিয়ান ছবির রিমেক। যেখানে একজন সাধারণ মানুষের জীবন, জার্নির মধ্যে দিয়ে দেখানো হয়েছে ভারতের ইতিহাস। এ ছবির প্রসঙ্গে প্রযোজক অতুল অগ্নিহোত্রী বলেছেন, ‘একটা দেশ এবং একটা মানুষের জার্নি রয়েছে এখানে। আমাদের কাছে অনুপ্রেরণার মতো।’

এর আগে সালমানের ক্যারিয়ারে ২০১৫-এ ‘বজরঙ্গি ভাইজান’, ২০১৬-এ ‘সুলতান’ এবং ২০১৭-এ ‘টাইগার জিন্দা হ্যায়’ পেরিয়েছিল ৩০০ কোটির বেঞ্চমার্ক। ‘ভারত’-ও কি সেই পরিমাণ ব্যবসা করতে পারবে? এখন সে দিকেই তাকিয়ে সিনে মহল।

লাকী আখন্দের জন্মদিন উপলক্ষে বিশেষ ডুডল বানিয়েছে গুগল

নিউজ ডেস্কঃ দেশের বরেণ্য সঙ্গীতশিল্পী লাকী আখন্দের ৬৩তম জন্মদিন উপলক্ষে বিশেষ ডুডল বানিয়েছে গুগল।

বৃহস্পতিবার রাত ১২টার পর থেকে গুগলে প্রবেশ করলেই চোখে পড়ছে ডুডলটি।

ডুডলে দেখা যায়, অসংখ্য কালজয়ী গানের স্রষ্টা লাকী আখন্দ গিটার হাতে সুরের মূর্ছনায় যেন ডুবে আছেন। মাথায় তার বিখ্যাত ক্যাপ এবং গিটার হাতে যেন গানে ডুবে আছেন শিল্পী। গুগল লেখাটি ফুটে তোলা হয়েছে রঙ্গিন রঙে। শিল্পীর ছবির দুই পাশে ছড়িয়ে আছে শাপলা ফুল।

লাকী আখন্দের ছবির উপর ক্লিক করলে তার সম্পর্কে বিভিন্ন পেজে নিয়ে যাচ্ছে গুগল।

লাকী আখন্দের জন্ম ১৯৫৬ সালের ১৮ জুন। শৈশব পেরোতেই তিনি সুযোগ পেয়ে যান প্রতিষ্ঠান এইচএমভিতে। তারপর আর পিছু ফিরে তাকাতে হয়নি। ছন্দ-লয়ের টানে তিনি ভেসে চললেন সুর দরিয়ায়। ১৯৮৪ সালে সারগামের ব্যানারে লাকী আখন্দের প্রথম একক অ্যালবাম প্রকাশ পায়। তিনি ব্যান্ড দল ‘হ্যাপি টাচ’-এর সদস্য ছিলেন।

লাকী আখন্দ সুরকার হিসেবে কাজ করেছেন ভারতের এইচএমভি এবং স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রে। স্বাধীনতার পর পর নতুন উদ্যমে বাংলা গান নিয়ে কাজ শুরু করেন তিনি। তার নিজের সুর করা গানের সংখ্যা দেড় হাজারেরও বেশি। শিল্পীর সহোদর হ্যাপী আখন্দের মৃত্যুর পর দীর্ঘকাল তিনি নিজেকে গুটিয়ে রেখেছিলেন। দু’জনের যৌথ প্রয়াসে সূচিত হয়েছিল বাংলা গানের এক নতুন ধারা। একাত্তরের রণাঙ্গনে যুদ্ধও করেছিলেন তিনি।

উল্লেখ্য, বিভিন্ন ব্যক্তিকে স্মরণ ও বিভিন্ন জাতির বিশেষ দিন উপলক্ষে গুগল ডুডল প্রকাশ করে থাকে। বাংলাদেশের বিভিন্ন দিবস ও ব্যক্তির স্মরণে গুগল এখন নিয়মিত নানা ডুডল প্রকাশ করছে।