বঙ্গবন্ধুর আদর্শ নিয়ে রাজনীতি করি, অর্থ উপার্জনের জন্য নয় রাজনীতি করি নাঃ মাজেদ খান

প্রকাশিতঃ ৬:২৯ অপরাহ্ণ, বৃহঃ, ৭ নভেম্বর ১৯

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ– দীর্ঘ জীবন প্রবাসে কাটিয়ে বঙ্গন্ধুর আদর্শ নিয়ে যোগ দিয়ে ছিলেন রাজনৈতিতে। নানা যড়যন্ত্র আর বাধাকে নিয়েও এগিয়ে গেছেন লক্ষ্য। রাজনৈতিক মূল উদ্দেশ্যই ছিল সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়ানো, তাদের হয়ে কথা বলা। 

তিনি আর কেউ নন ঢাকা মহানগর উত্তর শ্রমিক লীগের সহ-সভাপতি ও ঢাকা মহানগর উত্তরের সভাপতি প্রার্থী এম.এ মাজেদ খান। তার সাথে আলোচনা হয় সাম্প্রতিক রাজনীতি নিয়ে। এম.এ. মাজেদ খান বলেন; আজ যে দেশে আমরা এত গর্বের সাথে স্বাধীনভাবে চলাচল করছি যে ভাষায় কথা বলছি তা আমাদের এনে দিয়েছেন হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি ইতিহাসের মহানায়ক জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তিনি ছিলেন আমাদের পথ প্রর্দশক, আমাদের মহান নেতা।

মাজেদ খান আরো বলেন; বাংলাদেশের ইতিহাসে সর্বাধিকবার নির্বাচিত, বাংলাদেশের সব থেকে জনপ্রিয় ও অসংখ্য আন্তর্জাতিক পুরস্কারপ্রাপ্ত বঙ্গবন্যা প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃতে আজ আমরা বিশ্বে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে আছি, আজ আমাদের দেশ সারা পৃথিবীতে উন্নয়নের এক রোল মডেল।

ঢাকা মহানগর উত্তর শ্রমিক লীগের সহ-সভাপতি এম.এ.মাজেদ খানকে নিয়ে কিছু সংবাদ প্রকাশ হয় তার সত্যতা যাচাই করতে অনুসন্ধানে যাই আমরা।

তুলে ধরা হল আমাদের অনুসন্ধানঃ

অনুসন্ধানী প্রতিবেদক সংগ্রহের আমাদের কথা হয় এম.এ.মাজেদ খানের স্ত্রী মরিয়ম বিবি সাথে। মরিয়ম বিবি আমাদের প্রতিবেদক জানান; আমার স্বামী মাজেদ খান ১৯৮১ সালে ১৮ বছরে সিঙ্গাপুরে চলে যান, সেখানে ভালো বেতনে ২ বছর চাকুরী করেন, এরপর তিনি ১৯৮৩ সালে সৌদি আরবে চলে যান আরো ভালো কিছু করার জন্য। 

মরিয়ম বিবি আরো বলেন; ১০ বছর প্রবাসী জীবনে তিনি সেখানে ব্যবসায় জড়িয়ে পড়েন, সৌদিতে তার নিজস্ব ২টি দোকান ছিল এবং অনেক প্রবাসী বাংলাদেশিকে তিনি তার দোকানে কাজের ব্যবস্থা করে দিয়েছেন। 

মরিয়ম বিবি বলেন; দীর্ঘ ১২ বছরের প্রবাস জীবনের আয় দিয়ে তিনি গাজীপুর ও উত্তরায় স্থাবর সম্পত্তি হিসেবে কিছু জায়গা কিনেন। ১৯৯২ সাল থেকে তিনি শাহ জালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে গাড়ীর রেন্ট এ কার এর ব্যবসা করতেন। এর পর তিনি ২০০১ থেকে সৌদি প্রবাসী চাইনিজ বন্ধুদের অনুপ্রেণায় প্রবাসী আয়ের বিরাট অংশ দিয়ে বাংলাদেশে মোবাইল ফোনের পার্টস এর আমদানীর ব্যবসা শুরু করেন। তৎকালীন সময় সারা বাংলাদেশে গুটি কয়েক ব্যক্তি এ ব্যবসার সঙ্গে জড়িত ছিলেন।  আশকোনার নির্মানাধীন ৭ তলা একটি ভবন সম্পর্কে মরিয়ম বিবি বলেন, ভবনটি আমাদের আত্বীয়দের আমাদের নয়।

দক্ষিনখানের আশকোনায় মাজেদ খানের থ্রী স্টার আবাসিক হোটেল ( বর্তমান মক্কা আবাসিক হোটেল নামে পরিচিত )এ সম্পর্কে খোজ খবর নিতে গেলে আশকোনার স্থানীয় প্রবীণ ব্যক্তিরা জানান, মক্কা হোটেল এর জায়গা ক্রয় ও এর নির্মাণ কালীন সময় তিনি ছিলেন প্রবাসী।

তার ছোট ভাই বাছেদ খাঁন জানান, মাজেদ খাঁন প্রবাসী কালীন সময় থেকেই তিনি ফরিদপুরের বিশ্ব জাকের মঞ্জিল এর মুরিদ ছিলেন। 

আশকোনায় রয়েছে মাজেদ খাঁনের পৈতৃক পারিবারিক একটি আবাসিক হোটেল। হোটেলটি সম্পর্কে খোজ নিয়ে জানা যায়, মাজেদ খানের বাবা ছিলেন একজন সরকারী চাকরিজীবি। অত্র আবাসিক হোটেলের কাগজপত্র ঘেটে দেখা যায় যে, হোটেলটির পূর্ণ মালিকনায় ছিলেন মাজেদ খাঁনের পিতা মরহুম আলহাজ্ব নাছির উল্লাহ। এর নির্মাণ সাল ১৯৮৭। 

রাজনীতিতে আত্বপ্রকাশ নিয়ে মাজেদ খাঁনের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, আমি ১৯৯৫ সাল থেকে শ্রীপুরের এমপি এ্যাডঃ রহমত আলী এর সাথে ওতপ্রোত ভাবে রাজনীতিতে জড়িত ছিলাম ২০০১ সালে বিএনপি সরকারের সময়ে যখন ক্রসফায়ারের নামে আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীদের  যখন তখন হত্যা করা হত সেই দুঃসময়ে যুবলীগে যোগ দিয়ে উত্তরার ভীতস্থ পরিবেশে থাকা নেতাকর্মীদের  পাশে দাড়াই, ২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত বিএনপি বিরোধী তীব্র  আন্দোলনে রাজধানীর উত্তরা এলাকায় অন্যন্যা নেতাদের ন্যায় আমিও রাজপথ কাঁপানো সব ধরনের মিছিল,মিটিং ও সমাবেশে কর্মী সমাগম এবং প্রয়োজনীয় সব ধরনের সহযোগিতায় হাত বাড়িয়ে দেই। 

মাজেদ খাঁন আরো বলেন, উত্তরায় বিএনপি নেতাদের কোনঠাসা করে রাজপথ দখলে মূখ্য ভূমিকা পালনের কারনে আমার নাম গণমানুষের মুখে মুখে ছড়িয়ে পড়ে।

এক প্রশ্নের জবাবে মাজেদ খাঁন বলেন, উত্তরার আওয়ামী লীগের তৎকালীন সময়ে আমার তেমন কোন দলীয় পদবী না থাকলেও বিএনপি বিরোধী আন্দলনে দীর্ঘ ত্যাগ স্বীকার আমাকে করেছে দলীয় ত্যাগী নেতা, এছাড়াও  উত্তরা বাসীর  কাছে হয়েছি শ্রদ্ধাভাজন। তাই উত্তরা রাজনীতিতে মাজেদ খাঁন নামে এক বাক্যে সবাই চিনে।

আরেক প্রশ্নের জবাবে মাজেদ খাঁন বলেন, পৃথিবীর যত মানুষ আজ সম্পদের দিক দিয়ে বিখ্যাত তাদের সকলেই সৎ-ব্যবসায়ী। আমার যে ব্যবসা রয়েছে সেখানে রাজনীতি ঢুকিয়ে কোন লাভ নেই, ব্যবসা বানিজ্য ছাড়া যারা রাজনীতি করে দুর্নীতি ছাড়া তাদের কোন গন্তব্য থাকে না, আর আমার এমন কোন ব্যবসা নেই যেখানে মানুষের সাথে প্রতারণা করার সুযোগ আছে।

মাজেদ খাঁনের রাজনৈতিক জীবনে বৃদ্ধি পাওয়া অর্থের তথ্য অনুসন্ধানে উত্তরা আজমপুরে অবস্থিত রাজউক কমার্শিয়াল মার্কেটে গেলে মার্কেটের ৫ম তলায় অবস্থিত মোবাইল মার্কেটের একাধিক ব্যক্তি প্রতিবেদককে জানান, ২০০৭ সালের দিকে যখন রাজউক কমার্শিয়াল মার্কেটটি আংশিক চালু হয় তখন সে আমাদের সাথে মার্কেটে একটি দোকান লিজ নেন রাজউকের নির্ধারিত মূল্যে। যেখানে রাজনৈতিক কোন লবিং চলেনা। ২০০৮ সালে ফখরুদ্দিন আমলে তত্তাবধায়ক সরকারের সময় মোবাইল মার্কেটের পূর্ব পাশের অংশ রাজউকের নির্ধারিত মূল্যে লিজ নেন। 

অন্য এক প্রশ্নের জবাবে মোবাইল ফোন ব্যবসায়ী মামুনুর রশীদ জানান, ২০০৭ সালে গ্রাহক না থাকার কারণে এখানে কোন দোকানদার দোকান লিজ নিতে আসতো না। তবে মাজেদ ভাই ভবিষৎ পরিকল্পনায় এখানে রেষ্টুরেন্ট নিয়েছেন। পরপর তিনি আরো ২ টি দোকান লিজ নেন যেখানে কোন রাজনৈতিক প্রভাব ছিলো না। 

তুরাগ থানার অন্তর্গত দলিপাড়া এলাকায় মাজেদ খাঁনের ৫ তলা বাড়ী সম্পর্কে প্রশ্ন করা হলে তার বড় ছেলে  নাজিম উদ্দিন প্রতিবেদককে জানান, আমার নানা সরকারি ডিফেন্সে চাকরি করতেন। আমার নানার ১ ছেলে ২ মেয়ে। আমার মা নানার ওয়ারিশ হিসেবে তার গ্রামের বাড়ী কুমিল্লা  সম্পত্তি বিক্রি করে এবং প্রবাসে থাকা কালীন আমার বাবা গাজীপুরে কিছু সম্পত্তি রাখেন তা বিক্রি এবং আশকোনার বাড়ীকে আবাসিক হোটেল করে ভাড়া দিলে সেখান থেকে প্রায় ৩০ লক্ষ টাকা জামানত আসে এবং আমাদের জমানো মাসিক ভাড়া দিয়ে ২০১৩ সালের দিকে বাড়ীটি করি। ২০১৬ সালে বাড়ীটি বিক্রি করে আমরা ৫নং সেক্টরের আবাসিক এলাকায় বাড়ী করি। ২০১৮ সালে প্রাইম ব্যাংকে আমাদের স্থাবর- অস্থাবর সম্পত্তির কাগজপত্র জমা রেখে ১ কোটি ৫ লাখ  টাকা ব্যাংক লোন গ্রহণ করি। ব্যাংক লোন এবং আমাদের মাসিক জমানো টাকা দিয়ে উত্তরা ১০ নং সেক্টরে ৮তলা একটি বাড়ী নির্মানাধীন। ব্যবসা একটি হালাল জিনিস এখানে আমরা রাজনীতি টেনে আনি না। আমাদের উপার্জিত সম্পদ আমাদের শ্রম ও মেধায় গঠিত। আর আমরা যে ব্যবসা করি তা রাজনীতি ঢুকিয়ে করার ব্যবসা নয়। আমাদের কোন ডেভোলোপার ব্যবসা নেই এবং রাজনীতি সঙ্গে রাখলে লাভবান হওয়া যায় এমন কোন ব্যবসার সাথে আমাদের পরিবার জড়িত নয়।

নাজিম উদ্দিন আরো জানান, আমার বাবা ১৯৯৫ সাল থেকে রাজনীতি করে আসছে । উনি সুসময়ে রাজনীতিতে যোগদান করেননি যে উনার মাধ্যমে দুর্নীতির ঘটনা ঘটবে এবং উনি কোন অনুপ্রবেশকারী নয়। আমার বাবা তার রাজনীতি জীবনের শুরু থেকে  ঢাকা ১৮ আসনের এমপি এ্যাডঃ সাহারা খাতুন এর একনিষ্ঠ তৃনমূল কর্মী হিসেবেই কাজ করে আসছেন। তার অনুপ্রেনায় ২০১৬ সালে তিনি শ্রমিকলীগে যোগ দেন। তার বিরুদ্ধে বাংলাদেশের কোন থানায় এমনকি স্থানীয় কোন গণ্যমান্য ব্যক্তির নিকট দেন-দরবারের কোন অভিযোগ নেই। 

২০০৪ সালে বিএনপির  আমলে একটি হত্যা মামলা সম্পর্কে মাজেদ খাঁন  বলেন, বিএনপি  যুব দলের নেতা আন্তঃদলীয় কোন্দলে খুন হওয়া  মহি উদ্দিন বাদল এর খুনের এক আসামী ১বছরের মাথায় গ্রেফতার হলে গ্রেফতারকৃত আসামীকে বিভিন্ন অথের্র প্রলোভন দেখিয়ে তাকে মাজেদ খানের নাম জড়ানো জন্য উৎসাহিত করে কিছু রাজনৈতিক স্বার্থলোভী লোকেরা।

সাম্প্রতিক সময়ে রাজনীতিবিদদের দুর্নীতি আর অবৈধ অর্থ নিয়ে এম.এ.মাজেদ খানের জানতে যাওয়া হলে তিনি জানান; কেউ আইনের উর্ধে নয়, আমাদের প্রাণপ্রিয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা যে উদ্যোগ নিয়েছেন, সেই উদ্যোগকে আমি স্বাগত জানাই।

এম.এ.মাজেদ খান বলেন; যতদিন বেচে আছি জাতির পিতার আদর্শ আর আমার প্রাণপ্রিয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখা হাসিনা হয়ে রাজনীতি করে যেতে যাই, আমার কোন চাওয়া-পাওয়া নেই, সকলের ভালোবাসা আর দোয়া কামনা করি।

 

আপনার মতামত জানানঃ