আলহাজ্ব আফছার উদ্দিন খানের পুরো প্রেস ব্রিফিংয় (ভিডিও)

প্রকাশিতঃ ৮:০৬ অপরাহ্ণ, বৃহঃ, ২৪ অক্টোবর ১৯

নিউজ রুমঃ আসসালামু-আলাইকুম। কষ্ট করে আজকের এই প্রেস ব্রিফিংয়ে উপস্থিত হওয়ার জন্য আপনাদের প্রতি গভীর কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

আপনারা অবগত আছেন যে সম্প্রতি কিছু সংখ্যক পত্রিকা/ অন লাইন নিউজ পোর্টাল উত্তরা ১নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর এর বিরুদ্ধে রাজউক ও ব্যক্তি মালিকানাধীন প্লটে মার্কেট বানানো, দখলবাজি, ফুটপাত ও পরিবহনে চাদাঁবাজিসহ জুয়া ও ক্যাসিনো কারবার থেকে প্রতিমাসে মোটা অংকের টাকা তোলার অভিযোগ রয়েছে মর্মে সম্পূর্ণ ভিত্তিহীণ ও মিথ্যা তথ্য প্রকাশের মাধ্যমে আমাকে এবং আমার পরিবারকে সামাজিক ও রাজনৈতিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন করার ঘৃণ্য প্রয়াস চালাচ্ছে।

প্রিয় সাংবাদিক ভাই ও বোনেরা,
আমি আপনাদের মাধ্যমে এলাকাবাসীসহ দেশের মানুষকে দৃঢ়তার সাথে বলতে চাই আনীত অভিযোগের একটি তথ্যেরও সত্যের লেস মাত্র নেই। বরং উদ্দেশ্য প্রনোদিত হয়ে মহল বিশেষ ঘোলা পানিতে মাছ শিকারের প্রচেষ্টারই অংশ এটি। আপনারা নিশ্চয়ই লক্ষ্য করে থাকবেন, একই রিপোর্ট পেস্ট করে বিভিন্ন পত্রিকা ও অনলাইন নিউজ পোর্টালে প্রকাশ করা হয়েছে। যদিও পরবর্তিতে প্রতিবাদ লিপিও তারা প্রকাশ করেছে।

প্রিয় বন্ধুগণ
প্রকাশিত রিপোর্ট সমূহে উল্লেখিত “গত ১০ বছরে শুন্য থেকে এখন হাজার কোটি টাকার মালিক” সংবাদটি একেবারেই একটি কাল্পনিক গল্প। কাউন্সিলর হওয়ার পূর্বেই পারিবারিক যে সম্পদ ছিল, কাউন্সিলর হওয়ার পরও সম্পদের বত্যয় হয়নি। ২০ বছর আগেই পারিবারিক শিল্পপ্রতিষ্ঠান, ব্যবসা বাণিজ্য যা ছিল, তা বর্তমানেও

বিদ্যমান রয়েছে। এই বিষয়টি যথাযথ কর্তৃপক্ষের নিকট প্রমাণিত দলীল দস্তাবেজ রয়েছে। বন্ধুগণ আপনারাও আমার পরিবারের দশ বছরের নয় অন্তত বিশ বছরের পারিবারিক সম্পদ এবং ইতিহাস পর্যালোচনা করলে আমার বক্তব্যের সত্যতা খুঁজে পাবেন।

রিপোর্টসমূহে উত্তরায় ০৩(তিন)টি ক্যাসিনোর ব্যবসার সাথে আমার সম্পর্ক রয়েছে মর্মে প্রতিবেদনে প্রকাশিত অভিযোগটিও একেবারেই মনগড়া। উত্তরায় এই ধরনের ক্যাসিনো আছে বলে আমার জানা নেই। সংশ্লিষ্ট আইন প্রয়োগকারি সংস্থাও উত্তরায় কোন ক্যাসিনো উদঘাটন করেছেন বলে আমি জানি না। আপনারাও বিষয়টি জানেন।

রিপোর্টসমূহে স্থানীয় এমপি মহোদয়ের ব্যক্তিগত কর্মকর্তা জনাব মজিবুর রহমানকে সঙ্গে নিয়ে পুরো উত্তরার সকল বিষয়ের নিয়ন্ত্রণ করেন আফসার মর্মে প্রতিবেদনসমূহে প্রকাশিত অভিযোগটিও একেবারেই ভিত্তিহীন ও মিথ্যা। উল্লেখ যে, স্থানীয় এমপি আওয়ামী লীগের সভাপতি মন্ডলীর সদস্য এ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন আমার শ্রদ্ধেয় ও আস্থাভাজন নেতা। তার ব্যক্তিগত কর্মকর্তার সাথে আমার পরিচয় ও যোগাযোগ আছে সেই সুত্রে মাত্র।

রিপোর্টসমূহে পরিকল্পিতভাবে আমাকে হেয় প্রতিপন্ন করার লক্ষ্যে ১০(দশ) কোটি টাকা ব্যয়ে খন্দকার সিএনজি ফিলিং স্টেশন ক্রয়ের বিষয়টি একেবারেই কাল্পনিক। প্রকৃত পক্ষে খন্দকার সিএনজি ফিলিং স্টেশনের মালিক ঢালু খন্দকার ছিলেন এবং এখনও আছেন।

প্রতিবেদনসমূহে উত্তরা ১২(বার)তলা খান টাওয়ার, ২০(বিশ) বছর পূর্বেই রাজউক থেকে প্রাপ্ত প্লটটি পারিবারিক সম্পত্তি এবং ব্যাংক লোনে নির্মিত খান টাওয়ার যা গত ১০(দশ) বছরে অর্জিত নয়।

রিপোর্টসমূহে আশুলিয়ায় ৫০বিঘা জমির মালিকানা বিষয়টি একেবারেই আষাঢ়ের গল্প। সেখানে এক শতক জমির মালিকও আমি বা আমার পরিবার নয়।

অ: পৃ: দ্র:
পৃষ্ঠা-০২

রিপোটসমূহে আশুলিয়ায় ও রপ্তানি রোডে একটি পেট্রোল পাম্প আছে মর্মে বক্তব্যটি সঠিক, তবে তা গত ১০(দশ) বছরে অর্জিত সম্পদ নয়। তাহা পারিবারিক সম্পত্তি।

রিপোর্টসমূহে পরিবারের বড় ভাই আশ্রাফ আলী জোট সরকারের সময় বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে জড়িত বিষয়টি ডাহা মিথ্যা। আমার পরিবারের কোন সদস্য কখনো কোন দিনও বঙ্গবন্ধুর আদর্শের বাইরে অন্য কোন ধারার রাজনীতির সাথে জড়িত ছিল না।

রিপোর্টসমূহে ঢাকা উত্তর সিটির মেয়র আতিকুল ইসলাম উত্তরার একটি ফুটপাতের সামনে গাড়ি থেকে নেমে হকারদের জিজ্ঞেস করেন, কার আশ্রয়ে তারা ফুটপাতে দোকান বসিয়েছেন। তারা

সবাই উত্তর দেন কাউন্সিলর আফসার উদ্দিন খানের নির্দেশে যা সম্পূর্ণ কাল্পনিক গল্প। মেয়র মহোদয়ের সামনে এমন কোন ঘটনা কখনো ঘটেনি। বরং উত্তরা এক নম্বর ওয়ার্ডে চাঁদাবাজি ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে আমার বলিষ্ট ভূমিকা অব্যাহত আছে।

চাঁদাবাজি, সন্ত্রাস ও দুর্নীতি মুক্ত ১নং ওয়ার্ড, ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন প্রতিষ্ঠার প্রত্যয়ে, বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বুকে ধারণ করে, অপশক্তির নির্যাতন সহ্য করে, মানুষের ভালবাসায় কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়ে, অদ্যাবধি সততা, নিষ্ঠা এবং আন্তরিকতার সাথে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছি।

প্রিয় সাংবাদিক ভাই ও বোনেরা,
মহান মুক্তিযুদ্ধ থেকে শুরু করে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ প্রতিষ্ঠার প্রতিটি সংগ্রামে আমার পরিবার নিরলস ভূমিকা পালন করে আসছে। সেই পরিবারের একজন সদস্য হিসেবে বঙ্গবন্ধুর একজন সৈনিক হিসেবে আশির দশকে ছাত্র জীবন থেকেই ক্ষমতাশীল শাসক গোষ্ঠীর নির্যাতন নিপীড়ন সহ্য করে ছাত্র লীগের বৃহত্তর উত্তরা থানা ছাত্র লীগের সাধারণ সম্পাদকের ঝান্ডা হাতে রাজপথে লড়াকু সৈনিক হয়ে কাজ করেছি, সেবার মহান ব্রত নিয়ে, কিছু পাওয়ার জন্য নয়। আমার রাজনীতির ইতিহাসের যাত্রা থেকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শের রাজনীতি প্রতিষ্ঠার প্রতিটি আন্দোলন সংগ্রামে আমি এবং আমার পরিবারের অবদান আপনারা অনেকেই জানেন। আমার জনপ্রিয়তায় ঈর্ষান্বিত হয়ে একটি মহল দীর্ঘদিন যাবৎ নানা ষড়যন্ত্র করে আসছে। আমার বিরুদ্ধে দুর্নীতির মনগড়া এই অভিযোগ সেই কুচক্রি মহলের চক্রান্তেরই ফসল। আপনারা জাতির বিবেক। আপনাদের কাছে আমার মিনতি আপনারা আসুন, দেখুন এবং প্রমাণ করুন। আমি আপনাদের সদয় সহযোগিতা চাই। আমার বিশ্বাস আপনারা সত্যের পাশে থাকবেন। আমি চ্যালেঞ্জ করছি, আমার বিরুদ্ধে প্রকাশিত রিপোর্টের একটি তথ্যও যদি সত্য বলে প্রমাণিত হয়, আমি চির দিনের জন্য রাজনীতি ছেড়ে দিব। পরিশেষে আপনাদের সু-স্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা করে আমার বক্তব্য শেষ করছি।

জয় বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু

বাংলাদেশ চিরজীবী হোক।আলহাজ্ব

আপনার মতামত জানানঃ