ঈদের বাজারকে সামনে রেখে বাড়ছে মসলার দাম

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ কোরবানির ঈদের আগে অন্যান্য মসলার দাম স্থিতিশীল থাকলেও আদা-রসুন ও এলাচের দাম বেশ চড়া রয়েছে। ঈদের দুই দনি আগে শুক্রবার পাইকারি বাজারে আদা রসুনের দাম কেজিতে ২০ টাকা কমলেও পাড়া-মহল্লার খুচরা দোকানে তার প্রভাব পড়েনি। ফলে এবার চড়া দামেই কোরবানির পশুর মাংস রান্না করতে আদা-রসুন কিনতে হচ্ছে।
এদিন রাজধানীর কারওয়ানবাজারে মসলার পাইকারি বিক্রেতা শরীয়তপুর মসলা বিতানের মালিক আলমগীর জানান, বাজারে এখন এক কেজি এলাচের দাম ২৪০০ টাকা থেকে তিন হাজার টাকার মধ্যে। গত রোজার ঈদের পর থেকেই এলাচের দাম কেজিতে অন্তত ৪০০ টাকা বেড়েছে। গত কোরবানির ঈদের তুলনায় এবার কেজিতে অন্তত ৬০০ টাকা বেশি এলাচের দাম।
সরকারি বিপণন প্রতিষ্ঠান টিসিবির হিসাবেও তাই দেখা গেছে। প্রতিষ্ঠানটি এলাচের বর্তমান মূল্য না দেখালেও এক বছরে এলাচের দাম ৪৪ শতাংশ বৃদ্ধি পাওয়ার তথ্য দিচ্ছে। একইভাবে আদার দামও মানভেদে ৫৯ শতাংশ বৃদ্ধি পাওয়ার তথ্য দিচ্ছে টিসিবি।
দুই দিন আগেও পাইকারিতে চীনা আদা প্রতি কেজি ১৬০ টাকা এবং থাইল্যান্ডের আদা ১৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছিল। তবে দুই দিনে পাইকারিতে আদার দাম কেজিতে ২০ টাকা করে কমেছে বলে জানান বিক্রেতা মোহাম্মদ সাগর। তিনি বলেন, “গত দুই দিন ধরে আদা ও রসুনের দাম কিছুটা কমেছে। কোরবানির আগে এর প্রভাব খুচরা মুদি দোকানে পড়বে কি না সন্দেহ।”
তার দোকানে কেজিপ্রতি চীনা রসুন ১৪০ টাকা, দেশি রসুন ১২০ টাকা এবং আদা ১৬০ টাকায় বিক্রি হচ্ছিল।তবে হাতিরপুলের মুদি দোকানি মাসুদ জানান, তারা এখনও চীনা রসুন ১৬০ টাকায়, আদা ১৮০ টাকায় বিক্রি করছেন। গত দুই দিনে দেশি পেঁয়াজের দামও কেজিতে চার টাকা করে বেড়েছে বলে জানিয়েছেন কারওয়ান বাজারের এক দোকানি। তিনি বলেন, পেঁয়াজের পাল্লা (৫ কেজি) ১৮০ টাকা থেকে বেড়ে এখন ২০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।
কারওয়ান বাজারের সততা জেনারেল স্টোরে কেজিপ্রতি জিরা ৩৫০ টাকা থেকে ৪০০ টাকায়, লবঙ্গ ১২০০ টাকায়, দারুচিনি ৪২০ টাকা থেকে ৪৫০ টাকায়, গোল মরিচ ৬০০ টাকা থেকে ৮০০ টাকায়, কিসমিস ৩০০ টাকা থেকে ৩৫০ টাকায়, কাঠ বাদাম ৯০০ টাকায়, পেস্তা বাদাম ২১০০ টাকা থেকে ২২০০ টাকায় এবং আলু বোখারা ৩০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

আপনার মতামত জানানঃ