ঋণ বিতরণে ব্যাংকগুলোর জন্য অনির্দিষ্টকালের জন্য ছাড়

প্রকাশিতঃ ৫:০৭ অপরাহ্ণ, বুধ, ১৮ সেপ্টেম্বর ১৯

অর্থনৈতিক প্রতিবেদকঃ ঋণ বিতরণে ব্যাংকগুলোর জন্য অনির্দিষ্টকালের জন্য ছাড় দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। চলতি বছরের সেপ্টেম্বরের মধ্যে অগ্রিম-আমানত হার (এডিআর), বিনিয়োগ-আমানত হার (আইডিআর) নির্ধারিত সীমায় নামিয়ে আনার আগের নির্দেশনা বাতিল করে এই সুবিধা পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত স্থগিত ঘোষণা করা হয়েছে।

আমানতের তুলনায় ঋণ বিতরণের প্রবৃদ্ধি অস্বাভাবিকভাবে বৃদ্ধি পাওয়ায় অগ্রিম-আমানত হার (এডিআর) ৮৩ দশমিক ৫০ শতাংশ, বিনিয়োগ-আমানত হার (আইডিআর) ৯০ শতাংশে নামিয়ে আনতে ২০১৮ সালের ৩০ জানুয়ারি নির্দেশনা দেয় কেন্দ্রীয় ব্যাংক। বর্তমানে এডিআর ৮৫ শতাংশ ও আইডিআর ৯০শতাংশ রয়েছে।

পরবর্তীতে সেই নির্দেশনার মেয়াদ গত বছরের ২০ ফেব্রুয়ারি, ৯ এপ্রিল ও চলতি বছরের ৩ ও ৭ মার্চ প্রজ্ঞাপন জারি করে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বাড়ানো হয়।

মঙ্গলবার (১৭ সেপ্টেম্বর) একটি প্রজ্ঞাপন জারি করে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত ওই নির্দেশনা স্থগিত ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

এতে বলা হয়েছে, প্রচলিত ধারার ব্যাংকগুলোর দ্বি-সাপ্তাহিক গড় ভিত্তিতে রক্ষিতব্য নগদ সংরক্ষিত অনুপাত (সিআরআর) এবং দৈনিক ভিত্তিতে রক্ষিতব্য বাধ্যতামূলক সংরক্ষিত হার (এসএলআর) বাদে বিনিয়োগযোগ্য তহবিল দাঁড়ায় ৮১ দশমিক ৫০ শতাংশ এবং ইসলামি শরীয়াহভিত্তিক ব্যাংক ও প্রচলিত ধারার ব্যাংকের ইসলামি ব্যাংকিং কার্যক্রমের জন্য তা দাঁড়ায় ৮৯ শতাংশ।

সামগ্রিকভাবে ব্যাংকিং খাতের মূলধন ভিত্তি, তারল্য পরিস্থিতি, আন্তঃব্যাংক নির্ভরশীলতা এবং সর্বোপরি ব্যাসেল-৩ অনুসারে এলসিআর ও এনএসএফআর এর নির্ধারিত মাত্রা সংরক্ষণের বিষয়টি বিবেচনায় রেখে পরবর্তী নির্দেশনা না দেওয়া পর্যন্ত প্রচলিত ধারার ব্যাংকের জন্য অগ্রিম-আমানত হার (এডিআর) সর্বোচ্চ ৮৫.০ শতাংশ (৮১.৫ শতাংশ + সার্বিক আর্থিক সূচকগুলো বিবেচনায় ব্যাংকের পর্ষদের সিদ্ধান্তক্রমে অতিরিক্ত ৩ দশমিক ৫ শতাংশ) এবং ইসলামি শরীয়াহভিত্তিক ব্যাংক এবং প্রচলিত ধারার ব্যাংকের ইসলামি ব্যাংকিং কার্যক্রমের জন্য বিনিয়োগ-আমানত হার (আইডিআর) সর্বোচ্চ ৯০ শতাংশ (৮৯ শতাংশ + সার্বিক আর্থিক সূচকগুলো বিবেচনায় ব্যাংকের পর্ষদের সিদ্ধান্তক্রমে অতিরিক্ত ১ শতাংশ) নির্ধারণ করা হলো। এ নির্দেশনা অবিলম্বে কার্যকর হবে বলে প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়েছে।

আপনার মতামত জানানঃ