করোনাঃ এ যেন অচেনা বিমানবন্দর

প্রকাশিতঃ ৯:৪৪ অপরাহ্ণ, বুধ, ২৫ মার্চ ২০

Advertisements

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর, যেখানে দিনে ২৮টি এয়ারলাইন্সের প্রায় ১২০টির বেশি ফ্লাইট ওঠা-নামা করতো। দিন রাত বিমানবন্দরে লেগেই থাকতো মানুষের আনাগোনা। ব্যস্ত সময় পার করতেন বিমানবন্দরের কর্মীরাও। কিন্তু সেই বিমানবন্দরে এখন সুনসান নীরবতা। আকাশে নেই তেমন বিমান ওড়ার দৃশ্য। থমকে গেছে সব কার্যক্রম।

করোনা ভাইরাস রোধে যুক্তরাজ্য, চীন, থাইল্যান্ড ও হংকং বাদে অন্য দেশের সঙ্গে প্লেন যোগাযোগ বন্ধ রেখেছে বাংলাদেশ। এই চারটি দেশের সঙ্গে বিমান যোগাযোগ থাকলেও বিমানবন্দর কার্যত যাত্রীহীন। ওইসব গন্তব্য থেকে আগমনের সংখ্যাই বেশি।

এছাড়াও বুধবার (২৫ মার্চ) দেশের অভ্যন্তরেও প্লেন যোগাযোগ বন্ধ রাখা হয়েছে। শাহজালাল ও ওসমানী বিমানবন্দর ছাড়া অন্য সব বিমানবন্দর বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। ফলে শাহজালাল বিমানবন্দরের এ দৃশ্য যেন অচেনা।
বুধবার সরজমিন বিমানবন্দরে গিয়ে দেখা যায়, বিমানবন্দর ছিল কার্যত বন্ধ। পুরো টার্মিনাল ফাঁকা। বিমানবন্দরের ভেতরে রানওয়েতে রয়েছে বিভিন্ন এয়ারলাইন্সের উড়োজাহাজ। ফ্লাইট বন্ধ থাকায় বিমানবন্দরে কর্মরত বিভিন্ন উড়োজাহাজ প্রতিষ্ঠানের কর্মীরাও অাসেনি। চিরচেনা ব্যস্ততা নেই। এ যেন এক অচেনা বিমানবন্দর।

বিমানবন্দরে যেখানে গাড়ি পার্কিংয়ের জন্য জায়গা পাওয়া যেতো না, সেখানে পার্কিং জোনও পুরো ফাঁকা। বিমানবন্দরে আসা গাড়িগুলোর যট সামলাতে ব্যস্ততা নেই আর্মড পুলিশ সদস্যদের। দর্শনার্থীদের ভিড় সামলাতে যেখানে ব্যস্ত থাকতে হতো পুলিশ সদস্যদের, সেখানে তারাও নীরবে দাঁড়িয়ে আছেন চেকপোস্টগুলোতে। বিমানবন্দরে দর্শনার্থীদের ভিড় না থাকায় টিকিট কাউন্টারগুলোও ফাঁকা। বিদেশগামী যাত্রী না থাকায় টার্মিনালেও নেই যাত্রীদের কোনও লাইন।
এদিকে বিদেশগামী ও বিদেশ থেকে আসা যাত্রী না থাকায় ইমিগ্রেশনেও ছিল না কোনো ব্যস্ততা। ইমিগ্রেশন পুলিশ অনেকটা অলস সময় পার করছে। বিমানবন্দরের পরিচ্ছন্নতা কর্মীদেরও নেই আগের মতো কাজের চাপ।

সার্বিক বিষয়ে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের পরিচালক গ্রুপ ক্যাপ্টেন এ এইচ এম তৌহিদ উল আহসান  বলেন, করোনা ভাইরাস পরিস্থিতিতে অভ্যন্তরীণ ও অধিকাংশ দেশের সঙ্গে ফ্লাইট বন্ধ রয়েছে। ফলে বিমানবন্দরের ব্যস্ততা কমেছে।

আপনার মতামত জানানঃ