করোনা নিয়ে বিএনপির অপপ্রচার চালানো উচিত নয়; ওবায়দুল কাদের

প্রকাশিতঃ ৮:০৪ অপরাহ্ণ, সোম, ২৩ মার্চ ২০

Advertisements
নিজস্ব প্রতিবেদকঃ করোনা ভাইরাস নিয়ে রাজনৈতিক ইস্যু খোঁজার নামে অপপ্রচার চালানো থেকে বিএনপিকে বিরত থাকার আহ্বান জানিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।
সোমবার (২৩ মার্চ) বাংলাদেশ সচিবালয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সমসাময়িক ইস্যুতে ডাকা সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন তিনি।
ওবায়দুল কাদের বলেন, করোনা আমাদের অভিন্ন শত্রু, এ সময় আমাদের সবার দায়িত্ব এই অভিন্ন শত্রুকে মোকাবিলা করা। এসময়ে রাজনীতির ইস্যু খোঁজার নামে অহেতুক অপপ্রচার থেকে বিরত থাকা দরকার। একই সঙ্গে বিরোধী দলের প্রতি আহ্বান জানাবো, আসুন আমরা এ অভিন্ন শত্রু করোনা মোকাবিলায় ঐক্যবদ্ধভাবে লড়াই করি। এ থেকে রাজনৈতিক ইস্যু খুঁজে অহেতুক সরকারবিরোধী অপপ্রচার থেকে বিরত থাকতে আমি তাদের আহ্বান জানাচ্ছি।
‘আমি পরিষ্কার করে বলতে চাই, আমরা যারা সরকারি-বেসরকারি, রাজনৈতিক দলে দায়িত্বশীল, কথাবর্তা ও কাজের মধ্য দিয়ে আমাদের দায়িত্বশীলতার পরিচয় দিতে হবে। কথাই কর্তৃত্ব করে, নেতৃত্ব দেয়, আবার কথাই সর্বনাশ ডেকে আনে, এ কথা আমাদের মনে রাখতে হবে। এখন একটা যুদ্ধ-যুদ্ধ পরিস্থিতি, ভয়াবহ বৈশ্বিক যুদ্ধকে আমরা মোকাবিলা করছি। এসময়ে দায়িত্বশীল ব্যক্তিদের দায়িত্বজ্ঞানহীন কথাবর্তা, আচারণ, যে কোনো ধরনের কথাবর্তা পরিস্থিতি খারাপ দিকে নিয়ে যেতে পারে। এজন্য দায়িত্বশীল ব্যক্তিদের দায়িত্বশীল আচরণ, কথাবর্তা বলার জন্য সবার কাছে সবিনয় অনুরোধ জানাবো।’
সেতুমন্ত্রী বলেন, পরিবহন ব্যবস্থায় হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর হতে যাত্রীদের প্রয়োজন অনুযায়ী বিভিন্ন স্থানে পৌঁছে দিতে বিআরটিসির ৩৪টি বাস ও ৩টি ট্রাক নিযুক্ত করা হয়েছে। এছাড়া জরুরি সেবায় দুটি বাস বিমানবন্দরে স্ট্যান্ডবাই রাখা হয়েছে। বিআরটিসি সব বাসে হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহারের নির্দেশনা আছে। সব গাড়িচালক হেলপারদের মাস্ক ও হ্যান্ডগ্লাভস পরার নির্দেশনাও দেওয়া হয়েছে। ট্রিপের শুরু এবং শেষে গাড়ি জীবাণুমুক্ত করা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। মন্ত্রণালয় ও বিআরটি থেকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে পরিবহন মালিক সংগঠন ও শ্রমিক সংগঠনকে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।
এদিন সেতুমন্ত্রী আরও জানান, পদ্মা সেতু প্রকল্পে সংশ্লিষ্ট ৯৫০ চীনা নাগরিকের মধ্যে ১৫০ জন বর্তমানে চীনে অবস্থান করছেন। যারা ফিরে এসেছেন, তারা কোয়ারেন্টিন শেষে কাজে যোগ দিয়েছেন। এছাড়া বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কর্ণফুলি টানেলের নির্মাণকাজে যুক্ত ২০০ চীনার মধ্যে বর্তমানে ৩০ জন নিজেদের দেশে অবস্থান করছেন বলেও জানান তিনি। যারা ফেরত এসেছেন তারা কোয়ারেন্টিন শেষে কাজে যোগ দিয়েছেন।
সচিবালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে জনসমাগম হচ্ছে, এ থেকেও করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঘটাতে পারে এ বিষয়ে কোনো পদক্ষেপ নেওয়া হবে কিনা জানতে চাইলে ওবায়দুল কাদের বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে যেভাবে হয়, সেভাবেই আয়োজন করা যায়। না আসতে চাইলে অসুবিধা নেই। সাংবাদিকদের যেভাবে সুবিধা সেভাবে যার যার সুবিধা মতো জানাতে হবে। ফেইসবুকেও করা যায়।

আপনার মতামত জানানঃ