চলছে ট্রেন ঘূর্ণিঝড়েও শিডিউল মেনে

প্রকাশিতঃ ১:৪৬ অপরাহ্ণ, শনি, ৯ নভেম্বর ১৯

নিউজ ডেস্ক: ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের কারণে চট্টগ্রাম বন্দরের পাশাপাশি ৯ নম্বর মহাবিপদ সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে উপকূলীয় জেলা চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, ফেনী ও চাঁদপুরসহ এর আশপাশের দ্বীপ ও চরগুলোতে। এসব অঞ্চল দিয়ে চলাচল করে রেলওয়ের পূর্বাঞ্চলের সবকটি ট্রেন।
এ অবস্থায় শনিবার (৯ নভেম্বর) ট্রেনের শিডিউল ঠিক রেখেছে রেলওয়ে। সবকটি ট্রেন ঠিক সময়ে ছেড়ে যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের মহাব্যবস্থাপক (জিএম) নাসির উদ্দিন আহমেদ।
তিনি বলেন, এখনও পর্যন্ত ট্রেনের শিডিউল বাতিল করার কোনো সম্ভাবনা নেই। শিডিউল মেনে সব ট্রেন ঠিক সময়ে ছেড়ে যাচ্ছে। সকাল ৭টায় সুবর্ণ এক্সপ্রেস ঢাকার উদ্দেশ্যে, পাহাড়ীকা এক্সপ্রেস ৯টায় সিলেটের উদ্দেশ্যে ছেড়ে গেছে।
পাশাপাশি মহানগর গোধূলী তিনটায় ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে যাবে, মহানগর এক্সপ্রেস দুপুর ১২টা ৩০ মিনিটে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে যাবে, মেঘনা এক্সপ্রেস চাঁদপুর উদ্দেশে বিকেল ৫টা ১৫ মিনিটে, সোনার বাংলা বিকেল ৫টায় ঢাকার উদ্দেশে, তূর্ণা এক্সপ্রেস রাত ১১টায় ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে যাবে।
পূর্বাঞ্চলের ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলপথের দূরত্ব ৩২৫ কিলোমিটার। এর মধ্যে ২৫৩ কিলোমিটার পথে ট্রেন আসা-যাওয়ার জন্য আলাদা লাইন রয়েছে। আখাউড়া-লাকসাম পর্যন্ত ৭২ কিলোমিটার পথে একটি লাইন। এটিকে ডাবল লাইন করার নির্মাণকাজ চলমান রয়েছে। বর্তমানে ঢাকা-চট্টগ্রাম পথে ঘণ্টায় ৭২ থেকে ৭৫ কিলোমিটার গতিতে ট্রেন চলে। সুবর্ণ এক্সপ্রেস ট্রেন ঢাকা থেকে চট্টগ্রামে যেতে সময় নেয় ৫ ঘণ্টা ১০ মিনিট।
লাকসাম-আখাউড়া পথে ৭২ কিলোমিটার মিশ্র গেজ ডাবল লাইন নির্মাণে কাজের অগ্রগতি হয়েছে ৫৭ শতাংশ। সাড়ে ছয় হাজার কোটি টাকার এ প্রকল্পের মেয়াদ ২০২০ সালের জুন মাস পর্যন্ত।
টঙ্গী থেকে ভৈরব বাজার ও লাকসাম থেকে চট্টগ্রামের চিনকি আস্তানা পর্যন্ত ১২৫ কিলোমিটার রেলপথ মিশ্র গেজ ডাবল লাইনে উন্নীত করা হয়েছে। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ থেকে চট্টগ্রামের চিনকি আস্তানা পর্যন্ত রেলপথ সংস্কার করা হয়েছে।
এদিকে ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের প্রভাবে স্বাভাবিকের চেয়ে কিছুটা কম গতিতে ট্রেন চালানো হচ্ছে বলে জানা গেছে। ঘূর্ণিঝড়ে যে কোনও পরিস্থিতি মোকাবেলায় রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের সব বিভাগ প্রস্তুত রয়েছে।

আপনার মতামত জানানঃ