চৌগাছার সম্মিলনীতে শিক্ষার্থীদের বিতর্ক কর্মশালার দ্বিতীয় দিন

আব্দুল আলীম, চৌগাছা (যশোর) প্রতিনিধিঃ যশোরের চৌগাছার সম্মিলনী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের নিয়ে সপ্তাহে একদিন করে চার সপ্তাহে মোট চারদিন ব্যাপি বিতর্ক কর্মশালার আয়োজন করা হয়। এই কর্মশালার উদ্দেশ্য শিক্ষার্থীদেরকে বিতর্কের উপর পারদর্শীতা অর্জন করানো।

গত মঙ্গলবার (৯ এপ্রিল) থেকে এই বিতর্ক প্রশিক্ষন মেলার আরম্ভ হয়। মেলাটির আয়োজক মাইকেল মধুসূদন ডিবেট ফেডারেশন বাংলাদেশ। এই বিতর্ক প্রশিক্ষণে উপজেলার সম্মিলনী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের চুরানব্বই জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে। তারা এই ধরণের কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করতে পেরে অনেক খুশি। কারণ তারা এই চারদিনের প্রশিক্ষন থেকে বিতর্কের বিষয় সম্পর্কে পরিপূর্ণ জ্ঞান অর্জন করতে সক্ষম হচ্ছে। একজন প্রশিক্ষণার্থী ও একটি টিমের দলনেতা দশম শ্রেণির বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র মাহমুদুল্লাহ হুসাইন সাজীবের কাছে এই প্রশিক্ষণে তার কি উন্নয়ন ঘটছে জিজ্ঞাসা করলে তার নিকট থেকে জানা যায়, সে আগে বিতর্ক কি এটুকুই জানতাম, এছাড়া অন্য কিছুই জানতো না। আর এর জন্য আমরা বিভিন্ন ভাবে উপজেলা পর্যায়ে বিতর্ক প্রতিযোগিতায় বারবার পরাজিত হয়েছে। আজকের এই বিতর্ক কর্মশালা নামক প্রশিক্ষণে আমি একজন বিতার্কিক হিসেবে উপস্থাপন, অঙ্গভঙ্গি, তথ্য সংগ্রহ, তথ্যের ব্যাবহার ইত্যাদি অর্থাৎ একজন পরিপূর্ণ বিতার্কিক হবার যোগ্যতা অর্জন করতে সামর্থ্য হচ্ছি। অপর দিকে দশম শ্রেণির বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্রী ও অপর একটি টিমের দলনেত্রী সুমাইয়া খাতুনের নিকট থেকে জানা যায়, একজন ভালো শিক্ষার্থী হলেই তার সব জানা থাকবে না। জানতে হলে প্রত্যেক বিষয়ের উপর পৃথক পৃথকভাবে জ্ঞান অর্জন করতে হয়। এই প্রশিক্ষণ কর্মশালাও তার মধ্যে একটি। সুতরাং আমি নিশ্চিত এই প্রশিক্ষণ আমাদের বিতার্কিক জ্ঞানকে প্রস্ফুটিত করছে। আমরা আসলে বিতর্ক কি, কোথায় কাজে লাগে এই বিতর্ক, কেনো বিতর্ক, একজন বিতার্কিকের কাজ সম্পর্কে কিছুই জানতাম না। আজ আসলেই এই সম্পর্কে একটু হলেও কিছু শিখছি। আজকে দুই দিনে অনেক শিখেছি। আরও দুই দিন এই প্রশিক্ষণ চলবে। সেক্ষেত্রে আমি আশাবাদী আমি এবং আমরা অরও অনেক কিছুই জানতে পারবো। একথা সত্য শেখার শেষ নেই। যেখানেই সু্যোগ হবে সেখানেই শিখতে হবে। সপ্তম শ্রেণির ছাত্র বিএম সোহানুর রহমান বলে আমি ক্ষুদে শিক্ষার্থী হিসেবে এই প্রশিক্ষণ থেকে অনেক কিছুই শিখেছি এবং আরও শিখতে পারবো।

বিতর্ক কর্মশালা নামক প্রশিক্ষণে আজ মঙ্গলবারে উপস্থিত প্রশিক্ষক ইমরান সাহেবের নিকট হতে জানা যায়, আয়োজনের প্রথম দিনের প্রশিক্ষক ছিলেন মাইকেল মধুসূদন ডিবেটের প্রতিষ্ঠাতা জহির ইকবাল। তিনি আরও বলেন, আমরা দুই জনে মিলেই এই প্রশিক্ষণ কার্যক্রম শেষ করবো। আমাদের প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাকাল ২০১৩ ইং। আমরা বিভিন্ন স্কুলে প্রতিষ্ঠান প্রধানের অনুমতিক্রমে এই প্রশিক্ষণের কাজ করে থাকি। প্রশিক্ষণ শেষে প্রত্যেক শিক্ষার্থীকে একটি ফাইল, সার্টিফিকেট ও বিতর্কমূলক উন্নয়নের শীট দিবো। আমাদের এই কার্যক্রমে শিক্ষার্থীদের মধ্যে বিতর্কমূলক জ্ঞানের উন্নয়ন ঘটবে বলে আমি মনে করি। তারা যেকোনো জায়গায় এধরণের প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করতে আগ্রহী হবে। কারণ জানা না থাকলে ভয় লাগে। আমরা তো সেক্ষেত্রেই কাজ করছি। তাদেরকে গড়ে দিচ্ছি। সুতরাং তারা পিছবা হবে বলে আমার মনে হয় না।

আপনার মতামত জানানঃ