ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  ধর্ম   »   জেনে নিন ইসলামে জাকাতের গুরুত্ব!

জেনে নিন ইসলামে জাকাতের গুরুত্ব!

মে ১৭, ২০২০ - ৪:৩৩ অপরাহ্ণ

ইসলাম ডেস্কঃ ইসলামের পাঁচ স্তম্ভের মধ্যে জাকাত তৃতীয়। এটি একটি অর্থনৈতিক ইবাদত এবং ইসলামী অর্থ ব্যবস্থার মূলভিত্তি। জাকাত প্রদানে উপযুক্ত সম্পদের মালিক হয়েও জাকাত আদায় না করলে, সে ফাসিক হিসেবে গণ্য হবে। জাকাত অস্বীকারকারী কাফির। এ প্রসঙ্গে মহান আল্লাহ্ তায়ালা বলেন, আর তোমরা সালাত তথা নামাজ প্রতিষ্ঠা করো এবং জাকাত প্রদান করো। (সূরা আল মুজাম্মেল, আয়াত নং- ২০)

জাকাত আরবি শব্দ। এর দুটি প্রসিদ্ধ অর্থ হলো- পবিত্রকরণ এবং বৃদ্ধিকরণ। জাকাতের পরিচয় দিতে গিয়ে আল্লামা বদরুদ্দনি আইনী (রা.) বলেন, নিসাব পরিমাণ সম্পদ ব্যক্তি মালিকানায় এক বছর অতিবাহিত হওয়ার পর তার থেকে একটি নির্দিষ্ট অংশ হাশেমী বংশ ছাড়া অন্যান্য দরিদ্রকে প্রদান করার নাম জাকাত।

বিস্তারিতভাবে বলা যায়, নিসাব পরিমাণ সম্পদ অর্থাৎ ৭.৫ তোলা সোনা বা ৫২.৫ তোলা রূপা কিংবা এর যেকোনো একটির সমপরিমাণ অর্থ যদি কোনো মুসলিম ব্যক্তির মালিকানায় পূর্ণ এক বছর থাকে এবং যদি তার প্রয়োজনের অতিরিক্ত হয়, তাহলে শরীয়তের নির্ধারণ অনুযায়ী সে সম্পদ থেকে ২.৫ শতাংশ হারে অর্থ নির্দিষ্ট আটটি খাতের যেকোনো খাতে দান করতে হয়। বস্তুত শরিয়তের নির্দেশানুযায়ী সম্পদ দানের এ পদ্ধতিকেই জাকাত বলে।

জাকাতের ফজিলত ও গুরুত্ব

ইসলামে জাকাতের বহু ফজিলত রয়েছে। আল্লাহ্ রাব্বুল আলামীন ইরশাদ ফরমান, যারা আল্লাহর রাস্তায় স্বীয় ধন-সম্পদ ব্যয় করে, তাদের উদাহরণ একটি বীজের মতো, যা থেকে সাতটি শীষ জন্মায়, প্রত্যেকটি শীষে একশ’ করে দানা থাকে। আল্লাহ অতি দানশীল, সর্বজ্ঞ। (সূরা বাকারা, আয়াত নং-২৬১)

রাসূলুল্লাহ্ (সা.) বলেন, জাকাত ও দান-খয়রাত আল্লাহর ক্রোধ মিটিয়ে দেয় এবং অপমৃত্যু প্রতিরোধ করে।

জাকাত ও সাদাকা যে আল্লাহর নৈকট্য লাভের উপায় তা সুস্পষ্ট। কুরআন মজীদে ইরশাদ হয়েছে, তাদের সম্পদ থেকে সাদাকা (জাকাত) গ্রহণ করুন। এর দ্বারা আপনি তাদের পবিত্র করবেন এবং পরিশোধিত করবেন। (সূরা তাওবাহ, আয়াত নং-১০৩)।

হযরত আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত আছে যে, জনৈক বেদুঈন ব্যক্তি নবী করিম (সা.) এর খিদমতে এসে বললেন, আমাকে একটি আমল বাতলিয়ে দিন যা করলে আমি জান্নাতে দাখিল হতে পারবো। নবী করিম (সা.) বললেন, তুমি আল্লাহর ইবাদত করবে এবং তাঁর সঙ্গে কোনো কিছুর শরিক করবে না। ফরজ সালাত আদায় করবে, ফরজ জাকাত প্রদান করবে এবং রমজানের সাওম পালন করবে।

তিনি বললেন, যার হাতে আমার প্রাণ সে সত্তার কসম, আমি এ থেকে কিছু বৃদ্ধি করবো না, কমও করবো না। তখন ওই ব্যক্তি ফিরে যাওয়ার কালে নবী করিম (সা.) বললেন, জান্নাতি কোনো ব্যক্তিকে দেখে কেউ যদি আনন্দিত হতে চায় তবে সে যেন এই ব্যক্তিকে দেখে নেয়।

আল্লাহ তাআলা বলেন, আমার রহমত সব কিছু পরিব্যপ্ত করে আছে, সুতরাং আমি তা তাদের জন্য নির্ধারিত করবো যারা তাকওয়া অবলম্বন করে, জাকাত দেয় এবং আমার নিদর্শনের প্রতি ঈমান রাখে। (সূরা আরাফ, আয়াত নং-১৫৬)

ইহা ফরজ ইবাদত এবং ইসলামের মূল বুনিয়াদ। জাকাত আখিরাতের সাফল্য ও ব্যর্থতার মাপকাটি। জাকাত সম্পদের মোহ ও লোভ নির্মূল করে। এটি তাকওয়া অর্জন করতে সহায়তা প্রদান করে এবং ভ্রাতৃত্ববোধের উম্মেষ ঘটায় ও সহনুভূতি সৃষ্টি করে।

নবী করিম (সা.) বলেন, জাকাত ইসলামের সেতু বন্ধন।

জাকাত সর্বজনীন অর্থনৈতিক নিরাপত্তা বিধানসহ মৌলিক অধিকার পূরণ করে। কর্মসংস্থান, জাতীয় আয় ও উৎপাদন বৃদ্ধিতে সহয়তা প্রদান করে।

জাকাতের বিধান যে কারণে ফরজ হলো

মানুষের হাতে সম্পদ পুঞ্জীভূত হয়ে পড়লে সমাজে ব্যাপক অর্থনেতিক বৈষম্য দেখা দেয়। ফলে মানুষের অভাব অনটন বেড়ে যায়। আইন শৃঙ্খলার অবনতি ঘটে। মানুষের নৈতিক চরিত্রের বিপর্যয় ঘটে। এই সকল সমস্যার সমাধানে মাহন আল্লাহ তায়ালা ধনীদের সম্পদের উপর জাকাত ফরজ করেছেন। সম্পদ পুঞ্জীভূত থাকুক মহান তায়ালা তা চান না। তিনি চান সম্পদ মানুষের কল্যাণে ব্যয় হোক, সমাজের অর্থনীতির চাকা গতিশীল থাকুক।

জাকাত কার উপর ফরজ

জাকাত সবার ওপর ফরজ নয়। ইসলামের দৃষ্টিতে তাদের ওপরই ফরজ হবে যারা সাহেবে নিসাব অর্থাৎ যাদের কাছে সারা বছরের যাবতীয় খরচ বাদে ২০০ দিরহাম বা সাড়ে বায়ান্ন তোলা রূপা যার বর্তমান বাজার দর ৫৫ হাজার ১৭০ টাকা কিংবা বিশ মিসকাল বা সাড়ে সাত তোলা সোনা যার বর্তমান বাজার দর ৩ লাখ ১৫ হাজার ৬২০ টাকা (যা ১৮ ক্যারেট স্বর্ণ) মূল্য বা সমপরিমাণ সম্পদ থাকে। উপযুক্ত ব্যক্তি সুস্থ মস্তিষ্ক, স্বাধীন, বালেগ মুসলমান হবে ২.৫০ শতাংশ হিসেবে হিসাব করে যত টাকা হয় তা জাকাত হিসেবে আদায় করা তাদের ওপর ফরজ। (সহিহ, বোখারি, মুসলিম, আবু দাউদ)

নিম্নলিখিত সম্পদের উপর জাকাত ফরজ হয়

(ক) সোনা-রূপা ও নগদ অর্থ

(খ) ব্যবসা পণ্য

(গ) কৃষি পণ্য

(ঘ) পশু সম্পদ

(ঙ) খনিজ সম্পদ

(চ) অন্যান্য সম্পদ।

যে সমস্ত মালের জাকাত দিতে হয় না। যেমন- কাপড়-চোপড়, আসবাবপত্র, বাসান-কোসন, বাড়িঘর, বই-পুস্তক, যন্ত্রপাতি, যানবাহন ইত্যাদি মালের উপর জাকাত নেই। কারণ উক্ত মালামাল নিজের প্রবৃদ্ধি সাধনে সক্ষম নয়।

জাকাত পাবে কারা

জাকাতের সামাজিক লক্ষ্য ব্যাপক কিন্তু সরল। জাকাত তহবিলের খরচের খাত পর্যালোচনা করলেই জাকাতের তাৎপর্য সহজে উপলদ্ধি করা যায়। জাকাতের অর্থসম্পদ খরচের দিক নির্দেশনা প্রদান করে কোন কোন ব্যক্তি জাকাত পেতে পারে এ বিষয়ে পবিত্র কুরআনে আল্লাহ রব্বুল আলামীন ৮ (আট) শ্রেণির লোককে নির্দিষ্ট করে দিয়েছেন। ইরশাদ হয়েছে, ‘জাকাত হলো কেবল ফকির, মিসকিন, যাকাত আদায়কারী ও যাদের চিত্ত আকর্ষণ করা প্রয়োজন তাদের হক এবং তা দাসমুক্তির জন্য, ঋণগ্রস্তদের জন্য, আল্লাহর পথে জিহাদকারীদের জন্য এবং মুসাফিরদের জন্য। এই হলো আল্লাহ নির্ধারিত বিধান। আল্লাহ সর্বজ্ঞ-প্রজ্ঞাময়। (আল কুরআন ৯ : ৬০)

আয়াতের আলোকে সর্বমোট ৮ (আট) শ্রেণির মানুষ জাকাত পাবে। যেমন- (১) দরিদ্র (২) মিসকিন (৩) যাকাত আদায়কারী (৪) মন জয় করার জন্য নও মুসলিম (৫) দাস মুক্ত করার জন্য (৬) ঋণ গ্রস্ত ব্যক্তি (৭) আল্লাহর পথে ব্যয় করার জন্য (৮) মুসাফির।

জাকাত দেওয়া যাবে না যাদের

জাকাত যাদের দেওয়া যাবে না তাদের বর্ণনা নিম্নে দেওয়া হলো।

১। সম্পদশালী: ফকিহরা একমত যে, জাকাতের অর্থ কোনো সম্পদশালী ব্যক্তি প্রত্যাশা করতে পারে না। তবে তারা যদি জাকাত আদায়কারী নওমুসলিম হয়, আল্লাহর পথে মুজাহিদ হয় অথবা মুসাফির অবস্থায় কপর্দকহীন হয়ে পড়ে তাহলে জাকাতের অর্থ পেতে পারে।

২। শক্তিশালী ও স্বাস্থ্যবান : কর্মক্ষম ও উপার্জনক্ষম, লোকেরা জাকাতের হকদার নয়। তবে যদি কাজ না পায় বা পেলেও যে অর্থ আয় করে তা দিয়ে তার ও তার পরিবারের ভরণ-পোষণ না হয় তাহলে জাকাতের অর্থ সম্পদ পেতে পারে। এই নিষেধের পেছনে যুক্তি হলো-ওইসব লোক কাজ করবে এবং নিজেদের গ্রাসাচ্ছাদনের ব্যবস্থা করবে। তারা নিজেরা নিঃস্বকর্ম থেকে অন্যের ওপর নির্ভরশীল হবে ইসলামী শরীয়াহ এই অনুমতি দেয়নি।

৩। মুশরিক ও কাফির : শরীয়াহবেত্তারা একমত যে, অমুসলিমদের জাকাতের অর্থ প্রদান করা যাবে না। মুশরিক ও কাফিরদের জাকাত দিয়ে সাহায্য করার অর্থই হলো তাদের আরও শক্তিশালী করে তোলা এবং জাকাতের উদ্দেশ্য হলো দরিদ্র ও অভাবী মুসলমানদের কল্যাণের জন্য চেষ্টা করা, তাদের প্রয়োজন পূরণ করা।

৪। মা-বাবা, স্বামী, ছেলে-মেয়ে তথা নির্ভরশীলদের ব্যক্তির ওপর: ফকিগহগণ একমত যে, স্বামী-স্ত্রী, দাদা-দাদি, নানা-নানি, পুত্র-কন্যা, পৌত্র-পৌত্রী এবং নাতি-নাতনীদের জাকাত দেয়া যাবে না। এর কারণ এদের প্রতি যে আর্থিক দায় দায়িত্ব রয়েছে তা নিজের সম্পদ থেকেই পূরণ করতে হবে, জাকাতের অর্থ থেকে নয়। এদের জাকাত দেওয়ার অর্থ নিজেকেই জাকাত দেয়। অবশ্য অন্যান্যদের জাকাত দেওয়া জায়েজ বা বৈধ। এদের মধ্যে রয়েছে ভাই-বোন ও অন্যান্য আত্মীয়-স্বজন। কারণ এদের দেখাশোনা বা তত্ত্বাবধানের সরাসরি দায়-দায়িত্ব জাকাত দাতার ওপর নেই। তবে যদি এদের কেউ ওয়ারিশ হিসেবে প্রমাণিত হয় তবে তাকেও দেওয়া যাবে না। যেমন: যদি কারো ছেলে-মেয়ে, পিতা-মাতা না থাকে তবে তার ভাই রয়েছে, এমতাবস্থায় সে ভাইকে জাকাতের টাকা দিতে পারবে না কারণ সে ওয়ারিশ।

৫। মহানবী (সা.) এর পরিবার-পরিজন : রসুলে করীম (সা.) এর পরিবারের সদস্যরা কখনও জাকাতের অর্থ নেননি। বনু হাশিম ও বনু আব্দুল মুত্তালিব মহানবী (সা.) এর পরিবার হিসেবে গণ্য হয়। শরীয়াহ অনুসারে এই পরিবারের সদস্যরাও জাকাত গ্রহণ করতে পারবে না, অর্থাৎ তাদের দেওয়া যাবে না।

রমজান মাসে জাকাত আদায়

রমজানের গুরুত্ব ও ফজিলত অপরিসীম। এ মাসেই পবিত্র কুরআন শরীফ অবতীর্ণ হয়েছে। রমজান মাসের বরকতে অন্যান্য সমস্ত ইবাদতের সাথে সাথে জাকাতের মর্যাদাও বহু গুণে বৃদ্ধি পায়। যেমন-রমজানে একটি ফরজ ইবাদত করলে অন্যান্য মাসের সত্তরটি ফরজ ইবাদাতের ছাওয়াব পাওয়া যায় এবং এ মাসে একটি নফল আদায় করলে, অন্য মাসে একটি ফরজ আদায়ের সমান ছওয়াব লাভ হয় সে মতে রমজান মাসে একটি নফল দান করলে, অন্য মাসে একটি ফরজ জাকাত আদায় করার ছাওয়াব লাভ হয়। আর এ মাসে একটি ফরজ জাকাত আদায় করলে, অন্য মাসে সত্তরটি ফরজ জাকাত আদায় করার ছাওয়াব পাওয়া যাবে।

রমজান মাস ছাড়াও অন্য মাসে জাকাত দিলে তা আদায় হবে। কিন্তু অতিরিক্ত সওয়াব থেকে বঞ্চিত হবে।

জাকাত দারিদ্র্য বিমোচন করে

বাংলাদেশে প্রতি বছর ২৫ হাজার কোটি টাকা জাকাত আদায় করে বণ্টন করা সম্ভব। (দৈনিক ভোরের কাগজ, ২৭ মে ২০১৬ ইং)। ১০ম জাতীয় সংসদের প্রথম অধিবেশনের চতুর্থ দিনের অধিবেশনে ফেনী-১ আসনের সংসদ সদস্য শিরিন আখতারের এক প্রশ্নের জবাবে ভূমিমন্ত্রী শামসুর রহমান শরীফ ডিলু জানিয়েছিলেন, দেশে ১৬ লাখ ৯৪ হাজার ২৯৭ পরিবার ভূমিহীন দারিদ্র্য রয়েছে। (প্রিয় ডটকম, ১৮ এপ্রিল ২০১৮) এবার ২৫ হাজার কোটি টাকা যদি ১৭ লাখ (প্রায়) ভূমিহীন পরিবারকে প্রথম টার্গেটে দেওয়া হয় তবে তারা প্রতিটি পরিবার পাবে প্রায় ১৫ লাখ টাকা করে। এর মাধ্যমে সমাজে দারিদ্র্যতা দূর করা সম্ভব।

জাকাত না দেওয়ার পরিণাম

জাকাত আদায় না করলে, পরকালে যে কত কঠোর ও ভয়ংকর শাস্তি হবে, সে ব্যাপারে কুরআনুল কারীমে আল্লহ পাক ইরশাদ ফরমান, যারা স্বর্ণ ও রূপা জমা করে রাখে এবং ব্যয় করে না আল্লাহর পথে, তাদের কাঠোর আজাবের সংবাদ শুনিয়ে দিন। সেদিন জাহান্নামের আগুনে তা উত্তপ্ত করা হবে এবং তার দ্বারা তাদের ললাট, পার্শ্ব ও পৃষ্ঠদেশকে দগ্ধ করা হবে। (সেদিন বলা হবে-এগুলো তাই যা তোমরা নিজেদের জন্য জমা করে রেখেছিলে। সুতরাং এক্ষণে জমা করে রাখার আস্বাদ গ্রহণ করো। (সুরা তাওবা, ৩৪-৩৫)

নবী করিম (সা.) ইরশাদ করেন, আল্লাহ পাক যাকে অর্থ-সম্পদ দিয়েছেন, সে যদি সে অর্থ সম্পদের জাকাত প্রদান না করে, তাহলে তা কিয়ামতের দিন একটি বিষধর অজগরের রূপ ধারণ করবে, যার দু’চোখের উপর দু’টি কালো চিহ্ন থাকবে। সে তাকে দংশন করবে এবং বলবে: আমিই তোমার অর্থ-সম্পদ, আমিই তোমার সঞ্চয়।

ইসলামের প্রথম খলিফা হযরত আবু বকর সিদ্দীক (রা.) এর খিলাফতকালে আরবের কিছু গোত্র জাকাত দিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছিল। যদিও তারা নামাজ পড়তো। কিন্তু আবু বকর সিদ্দীক (রা.) জাকাত না দেওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছিলেন। তিনি দৃঢ়কণ্ঠে বলেছেন, আমি অবশ্যই সেসব লোকের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করবো যারা নামাজ ও জাকাতের মধ্যে পার্থক্য করবে।

জাকাত আদায় ও বর্তমান সমাজ

মুসলিম সমাজে দেখা যায় অনেক ধনীরা যারা নিসাব পরিমাণ সম্পদের মালিক কিন্তু তারা মালের সঠিক হিসাব না করে জাকাত আদায় করে। আবার অনেকে আছে জাকাত আদায়ই করে না। বিশেষ করে পত্র/পত্রিকায় দেখা যায়, প্রতি বছর অনেক শিল্পপতিরা নিজেদের খ্যাতি অর্জনের জন্য হাজার হাজার নারী-পুরুষ জড়ো করে, পর্দা নষ্ট করে, শাড়ি-লুঙ্গি বিতরণ করে। এসময় পদতলে পৃষ্ট হয়ে অনেক মানুষের মৃত্যু হয়, যা অত্যন্ত দুঃখজনক। এজন্য অবশ্যই শরয়ী বিধান রক্ষা করে সঠিকভাবে ফরজ হুকুম জাকাত আদায় করা উচিত।

লেখক: মুফাস্সিরে কোরআন ও প্রভাষক, ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগ, মাতৃভাষা ডিগ্রী কলেজ, শরণখোলা, বাগেরহাট।

আপনার মতামত জানানঃ