টঙ্গীতে প্রধানমন্ত্রীর ৭৩তম জন্মদিন উৎযাপিত

প্রকাশিতঃ ২:২৪ অপরাহ্ণ, রবি, ২৯ সেপ্টেম্বর ১৯

টঙ্গী (গাজীপুর) প্রতিনিধিঃ গাজীপুরের টঙ্গীতে টঙ্গী থানা আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবকলীগের উদ্যেগে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৩তম জন্মদিন উপলক্ষে মিলাদ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জননেত্রী থেকে পরিণত হয়েছেন বিশ্বনেত্রীতে। তাঁর রয়েছে বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবন। তাঁর নেতৃত্বে অপ্রতিরোধ্য অগ্রযাত্রায় ২০৪১ সালে উন্নত দেশে পরিণত হওয়ার পথে দৃপ্ত প্রত্যয়ে এগিয়ে চলছে বাংলাদেশ। তার অসা¤প্রদায়িক, উদার, প্রগতিশীল, গণতান্ত্রিক ও বিজ্ঞানমনস্ক দৃষ্টিভঙ্গি তাকে দিয়েছে এক আধুনিক ও অগ্রসর রাষ্ট্রনায়কের স্বীকৃতি। বাঙালির স্বপ্নসারথি, উন্নয়নের রূপকার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিত্ত বৈভবের প্রতি কোনো মোহ নেই। প্রধানমন্ত্রীর একটাই মোহ দেশের সকল পিছিয়ে পড়া মানুষের জন্য কাজ করা, দেশকে সামনে এগিয়ে নিয়ে বঙ্গবন্ধুর সোনারবাংলা বিনির্মান করা। একুশ শতকের অভিযাত্রায় দিনবদল ও জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে তোলার একজন কাণ্ডারী যিনি সেই মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আজ ২৮ সেপ্টেম্বর জন্মদিন, দিনটি তাই অত্যন্ত বৈশিষ্ট্যমন্ডিত দিন।

শনিবার (২৮ সেপ্টেম্বর) টঙ্গী থানা আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবকলীগ কতৃক প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৩তম জন্মদিন উপলক্ষে আয়োজিত মিলাদ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল এসব কথা বলেন।

জাহিদ আহসান রাসেল বলেন, প্রধানমন্ত্রী আমাদের জন্য আশির্বাদ স্বরুপ। জাতির পিতার স্বপ্ন বাস্তবায়নে প্রধানমন্ত্রী আমাদের অর্থনৈতিক মুক্তি দেয়ার জন্য কাজ করে যাচ্ছেন। তার কারণে বাংলাদেশ আজ পৃথিবীর বুকে স্বকীয় বৈশিষ্টে সমুজ্জ্বল হয়ে উঠেছে। আজকে তিনি বিশ্ব নেতা। যুক্তরাষ্ট্রের ডোনাল্ট ট্রাম্প, ভারতের নরেন্দ মোদি ও জাপানের প্রধানমন্ত্রী সিনজো অ্যাবেকে যেভাবে মূল্যায়ন করা হয়, প্রধানমন্ত্রীকেও একইভাবে মূল্যায়ন করা হয়।

বাংলাদেশের উন্নয়নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অবদান তুলে ধরে যুব ও ক্রীড়া প্রকিমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ এবং দক্ষিণ এশিয়ার সীমানা পেরিয়ে দেশরতœ শেখ হাসিনা এখন বিশ্ব রাজনীতিতে একজন প্রশংসনীয় এবং অনুকরনীয় রাষ্ট্রনায়ক। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ‘চ্যাম্পিয়ন অব স্কিল ডেভেলপমেন্ট ফর ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড’ শীর্ষক পুরস্কার দিয়েছে ইউনিসেফ। তরুণদের দক্ষতা উন্নয়নে অসামান্য অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে এ পুরস্কার পেয়েছেন তিনি। এই পুরস্কার তিনি উৎসর্গ করেন বিশ্বের সব শিশু, তরুণসহ বাংলাদেশের জনগণকে। পুরস্কার গ্রহণ করে উচ্ছ¡সিত প্রধানমন্ত্রী বললেন, এই সম্মান আমার একার না। এই সম্মান বাংলাদেশের।

দেশের উন্নয়ন চিত্র তুলে ধরে প্রতিমন্ত্রী আরো বলেন, প্রত্যেক পরিবারে একটা করে কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করার জন্য প্রধানমন্ত্রী কাজ করছেন। দেশ যেভাবে এগিয়ে যাচ্ছে ২০২৭ সালে বাংলাদেশে বিশ্বের মধ্যে ২৬ তম অর্থনীতির দেশ হবে। ২০৩০ সালে প্রত্যেক পরিবারে একজন করে কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা, দারিদ্রতা শূন্যের কৌঠায় নেমে আসার ক্ষেত্রে আমরা দৃঢ় আশাবাদী। এসময় মালয়েশিয়া-অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডকে পেছনে ফেলে সামনে এগিয়ে যাবে। আমরা বিশ্বাস করি প্রধানমন্ত্রীর হাত ধরে বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত কাজ সম্পন্ন করতে পারবো। এই অর্জনের ভিত তৈরী করে দিয়ে গেছেন বঙ্গবন্ধু।

অন্যদিকে প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর সেই ভিত থেকে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। বর্তমানে ২১ ভাগ দারিদ্রতা রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী দারিদ্রতার বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছেন। আশা করা যায় ২০৩০ সালে বাংলাদেশে দারিদ্র মানুষ খুঁজে পাবেন না। বিশ্বব্যাংক-আইএমএফ এখন অনেক দেশের সামনে বাংলাদেশকে উদাহরণ হিসাবে অনুসুরন করার জন্য উপস্থাপন করছে। দক্ষিণ এশীয়ায় প্রবৃদ্ধি অর্জনে বাংলাদেশ এক নম্বর। তাছাড়া, বিশ্ব ক্রীড়াঙ্গনে বাংলাদেশের যে অভাবনীয় সাফল্য অর্জিত হয়েছে তা সম্ভব হয়েছে ক্রীড়াবান্ধব মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর অকুন্ঠ সমর্থন প্রেরণা ও সহযোগিতার ফলেই।

প্রতিমন্ত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, আমরা সৃষ্টিকর্তার কাছে প্রার্থনা করি তিনি যেনো আমাদের প্রিয় প্রধানমন্ত্রীকে দীর্ঘায়ু দান করেন। তিনি দেশের মানুষকে আরো বেশি বেশি সেবা করতে পারেন।

টঙ্গী থানা আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারন সম্পাদক এস এম রুহুল আমিনের উপস্থাপনায় অনুষ্ঠানে সভাপতি করেন জনাব ইকবাল গাজী । এ সময়ে আরো উপস্থিত ছিলেন টঙ্গী থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি ফজলুল হক, সাধারণ সম্পাদক রজব আলী, জাকির হাসান খোকনসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।

আপনার মতামত জানানঃ