টঙ্গী সরকারী হাসপাতালের আউট সোর্সিং কর্মচারী যখন ওয়ার্ড মাষ্টার !!

প্রকাশিতঃ ১০:৩৫ অপরাহ্ণ, রবি, ৮ সেপ্টেম্বর ১৯

অমল ঘোষ, টঙ্গী (গাজীপুর) প্রতিনিধি :টঙ্গী শহীদ আহসান উল্লাহ মাষ্টার জেনারেল হাসপাতালের (সরকারী) আউট সোর্সিং কর্মচারি তৌহিদুল ইসলাম হৃদয় কোন সরকারী আদেশ না থাকলেও জোরপূর্বক ওয়ার্ড মাষ্টার পদবী গ্রহন করে ক্ষমতার দাপটে একের পর এক অনৈতিক কর্মকান্ড ঘটাচ্ছেন। তিনি এবার বিভিন্ন ঔষধ কোম্পানীর ৩ বিক্রয় প্রতিনিধিকে পিটিয়ে আহত করারও অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল রোববার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে। এছাড়াও হাসপাতালের ইমারজেন্সি ও বিভিন্ন বিভাগ থেকে ভয়ভীতি দেখিয়ে চাঁদা আদায়ের অসংখ্য অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

বিভিন্ন ঔষধ কোম্পানীর বিক্রয় প্রতিনিধিরা জানায়, হাসপাতালের তত্বাবধায়ক ডা. কমর উদ্দিনের অনুমতিক্রমে প্রতি সপ্তাহে ২দিন রোববার ও বুধবার বিভিন্ন ঔষধ কোম্পানীর বিক্রয় প্রতিনিধিরা দুপুর ১২ টার পর ডা. ভিজিট করতে পারবেন। সে হিসেবে গতকাল রোববার বিভিন্ন ঔষধ কোম্পানীর বিক্রয় প্রতিনিধিরা দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে ডাক্তারদের চেম্বারের পাশে অপেক্ষা করতে থাকে। এসময় হাসপাতালের আউট সোর্সিং কর্মচারী হৃদয় সরকারী নিয়ম বর্হিভূত নিজেকে ওয়ার্ড মাষ্টার পরিচয় দিয়ে প্রতিনিধিদের হাসপাতাল থেকে বেরিয়ে যেতে নির্দেশ দেয়। প্রতিনিধিরা তার কথা না শোনে অপেক্ষা করতে থাকলে হৃদয় ক্ষীপ্ত হয়ে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকে।

এতে প্রতিবাদ করলে সে ও তার অপর দুই সহযোগী মিলে ঔষধ কোম্পানী হেলথ কেয়ারের আরিফুল ইসলাম, জুবায়েদুল ইসলাম এবং রেডিয়েন্ট ঔষধ কোম্পানীর আদম শফিউল্লাহকে কিল, ঘুষি, চড়থাপ্পর মেরে আহত করে। হৃদয় প্রতিনিধিদের হাতে থাকা ব্যাগ জোরপূর্বক কেরে নিয়ে মাটিতে ছুঁড়ে ফেলে দেয়। পরে হাসপাতালে উপস্থিত লোকজন হৃদয়কে শান্ত করার চেষ্টা করেন। প্রতিনিধিরা আরও জানায়, আউট সোর্সিং কর্মচারি হৃদয় হাসপাতাল গেইটের একপাশে তাদের মোটরবাইক রাখার জন্য তত্বাবধায়কের নামে নিয়মিত টাকা নিতো, সেই টাকা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে সে ক্ষিপ্ত হয়ে এঘটনা ঘটিয়েছে।

একটি বিশেষ সূত্রে আরো জানা যায়, স্থানীয় প্রভাবশালী নেতাদের নাম ভাঙ্গিয়ে হাসপাতালের তত্বাবধায়ক ডা. কমর উদ্দিন ও আরএমও ডা. পারভেজকে ম্যানেজ করে একজন আউট সোর্সিং কর্মচারি রাতারাতি ওয়ার্ড মাষ্টার বনে যায় এবং ক্ষমতার অপ-ব্যবহার করে সরকারী হাসপাতালের নতুন ভবনের দ্বিতীয় তলায় একটি কক্ষ দখল করে সাজ-সজ্জিত অফিস এবং সেখানে সরকারী টেলিফোন ব্যবহার করছে ৫ম শ্রেনী পড়–য়া তৌহিদুল ইসলাম হৃদয়। সূত্রটি আরো জানায়, ওয়ার্ড মাষ্টার পদটি তৃতীয় শ্রেনীর একটি পদ, এই পদে ইচ্ছে করলেই তত্বাবধায় সাহেব নিয়োগ দিতে পারেন না। এ পদে নিয়োগ সংক্রান্ত সরকারী রাজস্ব খাত থেকে সার্কুলার হলে পরিক্ষার মাধ্যমে নিয়োগ দিতে হয়। গাজীপুরস্থ ৫০০ শয্যা বিশিষ্ট শহীদ তাজ উদ্দিন আহমেদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এখনো নিয়োগ হয়নি। তবে একটি বড় হাসপাতালে এ পদে ১৫ জন ওয়ার্ড মাষ্টার নিযোগ হতে পারে বলেও জানান সূত্রটি।

বিশেষ সূত্রে আরও জানা যায়, প্রতি মাসে ১৪ জন ব্রাদারের কাছ থেকে ৭শ করে মোট ৯ হাজার ৮শ টাকাসহ বিভিন্ন খাত থেকে জরুরী বিভাগের ইনচার্জ তারেক মাহমুদের মাধ্যমে টাকা উঠিয়ে ডা. কমর উদ্দিন ৫ হাজার, ডা. পারভেজ ৫ হাজার, হৃদয় ৫ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয়। এছাড়াও রয়েল নাসিং ইনষ্টিটিউট নামের একটি প্রতিষ্ঠান তাদের ছাত্র/ছাত্রীদের ইন্টার্নি করার জন্য সরকারী হাসপাতালের তত্বাবধায়ক ডা. কমর উদ্দিন ও আরএমও ডা. পারভেজের সাথে ২ লাখ চুক্তিবদ্ধ হয়ে উক্ত টাকা থেকে আউট সোর্সিং কর্মচারী হৃদয়কে ২৫ হাজার টাকা দিয়েছেন। অন্যদিকে হাসপাতাল মসজিদ কমিটিতে জোর করে থাকার চেষ্টা, জরুরী বিভাগের সিনিয়র ব্রাদার মোস্তাফিজুর রহমান, ফার্মাসিষ্ট বিউটি আক্তার, হাসপাতালের ডাক্তার, নার্স, আউট সোসিং কর্মচারী ও হাসপাতাল মসজিদের টাকা উত্তোলনকারী সাইফুলের সাথে প্রায়ই অসদাচরণ করেন।

হাসপাতালের বেশ কয়েকজন কর্মচারী নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, আউট সোর্সিং কর্মচারি হৃদয় হাসপাতালে দালালদের নির্মূলের কথা বলে বেড়ায় অথচ প্রাইভেট হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগোনষ্টিক সেন্টারের মালিক পক্ষের কাছ থেকে ডাক্তার ও ব্রাদারদের মাধ্যমে কৌশলে রোগী সরবরাহের নামে টাকা আদায়, হাসপাতাল সংস্কার কাজে নিয়োজিত কন্ট্রাকটরের কাছ থেকে উৎকোচ গ্রহন করার বিষয়টি হাসপাতালের অনেকেরই জানা রয়েছে। তারা আরও জানান, হাসপাতালের বিভিন্ন কর্মকর্তা কর্মচারীদের সাথে অসদাচরণের বিষয়টি ইতিপূর্বে স্থানীয় মন্ত্রী মহোদয়কে জানানো হয়েছে। এসব বিষয়ে কোন প্রতিকার না পেয়ে আমরা অনেকেই হতাশ হয়েছি। মোট কথা, একজন আউট সোর্সিং কর্মচারির কাছে হাসপাতালে কর্মরত সরকারী কর্মকর্তা-কর্মচারিরা জিম্মি হয়ে পড়েছে।

এব্যাপারে হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. পারভেজ হোসাইনের কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, এসব ব্যপারে আমি কিছু বলতে পারবো না, তবে ঔষধ বিক্রয় প্রতিনিধিদের গায়ে হাত তোলার বিষয়টি দু:খজনক। তৌহিদুল ইসলাম হৃদয়কে ওয়ার্ড মাষ্টার হিসেবে তত্বাবধায়ক সাহেব নিয়োগ দিয়েছেন, বাকিটা ওনার কাছ থেকে জেনে নিন।
এব্যাপারে জানতে চাইলে শহীদ আহসান উল্লাহ মাষ্টার জেনারেল হাসপাতালের তত্বাবধায়ক ডা. কমর উদ্দিন বলেন, আমি সরকারী চাকুরি করি, আর মাত্র কয়েক মাস বাকি, অবসরে যাবো। হাসপাতালের ভালো মন্দ দেখার দায়িত্ব আমার, কোনটা করবো আর কোনটা করবো না সেটা আমি ভালো বুঝি। ওয়ার্ড মাষ্টারের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ওনি স্থানীয় প্রভাবশালী নেতার লোক। তাই অনেক কাজেই আদেশের তোয়াক্কা করে না।

আপনার মতামত জানানঃ