ঢাবিতে পরীক্ষা ছাড়া ভর্তি: ডিনের বক্তব্য অগ্রহণযোগ্য

প্রকাশিতঃ ৫:৫৫ অপরাহ্ণ, বৃহঃ, ১৯ সেপ্টেম্বর ১৯

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ লিখিত পরীক্ষা ছাড়া ভর্তি হয়ে ডাকসুর নেতা হওয়ার ঘটনায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) বিজনেস অনুষদের ডিন অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াতের বক্তব্য অগ্রহণযোগ্য বলে মন্তব্য করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাদা দল।

বৃহস্পতিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) বিশ্ববিদ্যালয়ের অপরাজেয় বাংলার পাদদেশে এক মানববন্ধনে এ মন্তব্য করেন সাদা দলের সাবেক যুগ্ম-আহ্বায়ক এবং ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের অধ্যাপক অধ্যাপক ছিদ্দিকুর রহমান খান। ৩৪ জন শিক্ষার্থীর অবৈধ ভর্তি বাতিল ও দায়ীদের শাস্তির দাবিতে এ মানববন্ধনের আয়োজন করে বিএনপি-জামায়তপন্থি শিক্ষকদের এ সংগঠন।

অধ্যাপক ছিদ্দিকুর রহমান খান বলেন, শতবর্ষের দ্বারপ্রান্তে দাঁড়িয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গৌরব-মর্যাদা জাতির কাছে প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে। আমরা বিভিন্ন ইস্যুতে কথা বলেছি। আজকের ইস্যুটাকে আমরা ভিন্নভাবে দেখতে চাই। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তিপ্রক্রিয়া অত্যন্ত প্রতিযোগিতামূলক। ইতোপূর্বে এটি বিতর্কের ঊর্ধ্বে ছিল। আমরা গত কয়েক বছর ধরে লক্ষ্য করছি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তিপরীক্ষাকে প্রশ্নবিদ্ধ করা হয়েছে কর্তৃপক্ষের অমনযোগিতা ও দুর্বলতার কারণে।

তিনি বলেন, বৃহত্তম ইউনিট সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডি ইউনিটে পরপর তিনবার ভর্তিপরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁস হয়েছিল। জতির দাবির পরিপ্রেক্ষিতে গতবছর পুনরায় পরীক্ষা নেওয়া হয়। এরকম পরিস্থিতিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে উন্মোচিত হলো আররকটি নজিরবিহীন ঘটনা। বিজনেস অনুষদের অধীনে পরিচালিত সান্ধ্যকালীন প্রোগ্রামে বিশ্ববিদ্যালয়ের গৌরব-ঐতিহ্য ভুলুণ্ঠিত করে অবৈধ প্রক্রিয়ায় ডাকসু নির্বাচন সামনে রেখে একটি বিশেষ ছাত্র সংগঠনের ৩৪ জনকে কোনো ধরনের পরীক্ষা ছাড়াই ভর্তি করা হয়েছে।

পরীক্ষা ছাড়া ভর্তি হওয়াদের ভর্তি বাতিলের দাবি জানিয়ে ঢাবির এ অধ্যাপক বলেন, বিষয়টি প্রকাশ হওয়ার পর অনুষদের ডিন যে বক্তব্য দিয়েছেন তা প্রত্যাখ্যান করছি। এটি নিয়মসিদ্ধ নয়। এটি অগ্রহণযোগ্য। আমরা বলতে চাই এই প্রক্রিয়ায় জড়িতদের শাস্তি দিতে হবে। ভর্তি শিক্ষার্থীরা ডাকসুতে ছাত্রদের নেতৃত্ব দেওয়ার অধিকার হারিয়েছে।

সাদা দলের আহ্বায়ক ও পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. এবিএম ওবায়দুল ইসলামের সভাপতিত্বে ও পরিসংখ্যান বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. লুৎফর রহমানের সঞ্চালনায় এতে বক্তব্য রাখেন সাবেক আহ্বায়ক আখতার হোসেন খান, বিজনেস অনুষদের সাবেক ডিন অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম প্রমুখ।

সভাপতির বক্তব্যে ওবায়দুল ইসলাম বলেন, কোনো ব্যক্তি বা ব্যক্তিদের ইচ্ছায় এ বিশ্ববিদ্যালয়ের গৌরব ও ঐতিহ্যকে ভুলুণ্ঠিত হতে দেওয়া যেতে পারে না। তাই বিশ্ববিদ্যালয়কে কলঙ্কমুক্ত করতে ও বিশ্ববিদ্যালয়ের গৌরব-মর্যাদাকে সমুন্নত রাখতে অবিলম্বে অবৈধভাবে ভর্তি হওয়া ৩৪ শিক্ষার্থীর ভর্তি বাতিল এবং এর সঙ্গে জড়িত দায়ী ব্যক্তিদের চিহ্নিত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার জোর দাবি জানাচ্ছি।

আপনার মতামত জানানঃ