তিন বছর আগের সেই দায়টা এবার মিটিয়ে দিলেন দুজন

প্রকাশিতঃ ১০:৪৯ পূর্বাহ্ণ, সোম, ৪ নভেম্বর ১৯

খেলা ডেস্কঃ তিন বছর আগে বিশ্বকাপের ম্যাচে বেঙ্গালুরুতে ৩ বলে ২ রান নিতে না পারার ব্যর্থতার দায় ছিল মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ও মুশফিকুর রহিমের। নেটিজেনরা তাদের ধুয়ে দিয়েছিল। তিন বছর আগের সেই দায়টা এবার মিটিয়ে দিলেন দুজন।

সেইবার ছক্কা মেরে ম্যাচ শেষ করতে চেয়ে মাহমুদউল্লাহ আর পরে মুশফিক যে ভুলটা করেছিলেন তিন বছর পর সেই মাহমুদউল্লাহই ছক্কা মেরে ম্যাচ জেতালেন। আর তার আগে ভারতীয় পেসার খলিল আহমেদকে টানা চারটি বাউন্ডারি মেরে মুশফিক বুঝিয়ে দিয়েছিলেন বুকের ভেতর জমানো কষ্টটা ভোলেননি।

তিন বছর আগে ৩ বলে ২ রানের সহজ সমীকরণ মেলাতে না পারা মুশফিক ও মাহমুদউল্লাহ এবার চ্যালেঞ্জিং কন্ডিশনে মিলিয়ে দিলেন ৩ ওভারে ৩৫ রানের সমীকরণ। তাতে ভারতের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টিতে প্রথম জয় পেয়েছে টাইগাররা। তিন ম্যাচের সিরিজে ১-০ তে লিড নিয়েছে লাল-সবুজরা।

ওই ম্যাচে শেষ ২ ওভারে দরকার ছিল ১৭ রান। এই ম্যাচে শেষ ২ ওভারে আরও ৫ রান বেশি দরকার ছিল। দরকার ছিল ২২ রান। ১৯তম ওভারে মুশফিক টানা চারটি বাউন্ডারি হাঁকান। শেষ ৪ বলে দরকার যখন ১ রান মাহমুদউল্লাহ হয়তো ভাবার সময় নিয়েছিলেন। আগেরবারের ভুলটা এবার করেননি। গ্যালারিতে বল পাঠিয়ে দলকে জিতিয়ে মুশফিককে সঙ্গী করে মাঠ ছেড়েছেন।

বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার, দেশসেরা ওপেনার নেই। সাকিব-তামিমহীন প্রথম টি-টোয়েন্টিতে ৭ উইকেটে জিতেছে বাংলাদেশ। ১৪৯ রানের লক্ষ্য স্পর্শ করে ৩ বল বাকি থাকতে। টি-টোয়েন্টির হাজারতম ম্যাচে ৪৩ বলে ৬০ রানের হার না মানা ইনিংস খেলেছেন মুশফিক। চতুর্থ উইকেটে মাহমুদউল্লাহর সঙ্গে ৪০ রানের ম্যাচ জেতানো মুশির জুটিটা ছিল মাত্র ১৫ বলে সাজানো। আর মুশফিকের ৪৩ বলের ইনিংসে ছিল আটটি চার ও একটি ছক্কার মার।

তিন বছর আগের সে ম্যাচে শেষ ওভারে দরকার ছিল ১১ রান। সেখান থেকে শেষ তিন বলে দরকার ২ রান। চতুর্থ ও পঞ্চম বলে মাহমুদউল্লাহ-মুশফিকের বিগ শটের লোভ তাদের সাজঘরে ফিরিয়ে আনে। ১ রানে হারতে হয়েছিল মাশরাফির দলকে। সেই হার যেমন কখনো ভোলার না, তেমনি এই ম্যাচের জয় ভোলার না।

তিন বছর আগে টানা দুই চার মেরে আগাম উদযাপন করেছিলেন মুশফিক। সেবার ম্যাচ হারের পর ভারতীয় ক্রিকেটাররাও এটা নিয়ে মজা করতে ছাড়েনি। এবার ম্যাচসেরা ইনিংস খেলেছেন। ম্যাচ শেষে মুশফিকের কথাটিও হয়তো ভারতীয় ক্রিকেটারদের যথাযথ উত্তর হয়ে থাকবে, ‘ক্রিকেটার হিসেবে আমি আরও ভালো করার সর্বোচ্চ চেষ্টাই করছি। আশা করি প্রতি ম্যাচে বাংলাদেশের হয়ে ভালো খেলতে পারব।’

আপনার মতামত জানানঃ