দখলদারের দখলে হরিপুর উপজেলায় পাহাড়গাঁও কবরস্থানে ময়লা আবর্জনার ঢিবিও খরকুটো চালা

প্রকাশিতঃ ৮:৫৮ অপরাহ্ণ, বৃহঃ, ২৪ অক্টোবর ১৯

মোঃ আনোয়ারহোসেন হরিপুর উপজেলা প্রতিনিধিঃ ঠাকুরগাঁও জেলার হরিপুর উপজেলায় ৪নং ডাংগীপারা ইউনিয়নে পাহাড়গাঁও কবরস্থানটি। প্রায় ১৬ একর জমি  সিএস,ও এস,এ রেকর্ড ভুক্ত।

এই কবরস্থানে ডাংগীপাড়া,পাহাড়গাঁও, রনহাট্রা,বীড়গড়,শিহিপুর,মোট পাঁচটি মৌজার লোক দাফন কাজ সম্পূর্ণ করে। আদিকাল হইতে এই অঞ্চলের ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের শেষ ঠিকানা কবরস্থান টিতে,কিছু খারাপ প্রকৃতির লোক পবিত্রা নষ্ট করছে।

বিভিন্ন ময়লা আবর্জনা ঢিবি ও খরকুটো ভরে রেখেছে কবরস্থানটিতে ইতি পূর্বের ৪ নং ডাংগীপাড়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মোঃ ফজলুর রহমান বিশ্বাস,এর প্রচেষ্টায় কবরস্থান টির সীমানা নির্ধারন করে সীমানা খুটি পোঁতা হয়,কিন্তু আজো দখলদারদের দখলেই থেকে যায় কিছু অংশ।

কবরস্থানটি চার পাশের খারাপ কিছু প্রকৃতির লোকগুলো বসবাসের কারনে গোচারণ মাঠ ও ধান মাড়াই,খরকুটো শুকানোর মাঠ হিসেবে ব্যবহার করছে।এবং সেই চতুর্দিকে সীমানা সংকুচিত করছে।গরুর পায়খানা গুলো শুকিয়ে রাখে,কেউ পচা গোবরের  ঢিবি করে সার তৈরী করে ।এলাকাবাসী  জানিয়েছেন বিভিন্ন জায়গায় অভিযোগ করেও ফল হয় নি। সামাজিক নিরাপত্তার দায়িত্বে যারা আছে তারা আজ কোথায়।

যারা ভোট নেওয়ার জন্য কথার ফুলঝুড়িতে বলে মানুষের সেবা করবে।বড় বড় ধর্মীয় সভাগুলোতে মারহাবা নেয়। তারা কি কখনো ভেবেছে পরকাল জীবনে শেষ ঠিকানাটুকু মসলিম সম্প্রদায়ের পবিত্রতা রক্ষা করতে হবে,জনপ্রতিনিধিরা কোটি কোটি টাকা অকাজে বরাদ্দ দিয়ে লোপাট করছে।

গোরস্থান বরাদ্দ করলে  হয়তো দূর্নীতি করতে পারবে না,তাই কেউ বরাদ্দ দিতে চায় না।বাংলাদেশের হাজার হাজার কবরস্থান একইভাবে পবিত্রা নষ্ট হচ্ছে।সর্বসাধারণের দাবি কবরস্থানটি দখলাদার মুক্ত করে চতুর্রদিকে সীমানা প্রাচীরের বরাদ্দের জন্য কর্তৃপক্ষে নিকট আকুল আবেদন করছে।

আপনার মতামত জানানঃ