দিল্লির বায়ুদূষণ: টসের কয়েন দেখা যাবে তো?

প্রকাশিতঃ ৫:৫৬ অপরাহ্ণ, রবি, ৩ নভেম্বর ১৯

স্পোর্টস ডেস্কঃ ভারতের রাজধানী দিল্লির বায়ুদূষণ মাত্রা ছাড়িয়ে গেছে। বাতাস ভারি আর আকাশ হয়ে আছে ঘোলাটে। আর এমন পরিস্থিতিতেই সন্ধ্যায় দিল্লির অরুণ জেটলি স্টেডিয়ামে মুখোমুখি হচ্ছে ভারত ও বাংলাদেশ। সাবেক ভারতীয় ক্রিকেটার বিষেন সিং বেদি এবং গৌতম গম্ভীর এই ম্যাচ আয়োজনের বিপক্ষে মুখ খুলেছেন। আর স্পিনার রবীচন্দন অশ্বিন তো দিল্লির কন্ডিশনকে সরাসরি ‘ভয়াবহ’ উপাধিই দিয়েছেন।
বায়ুদূষণের কারণে দিল্লির সব স্কুল আগামী ৫ নভেম্বর পর্যন্ত বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। গত শুক্রবার ভারতের রাজধানীকে ‘পাবলিক হেলথ ইমার্জেন্সি’ ঘোষণা করেছে দিল্লির স্বাস্থ্য বিভাগ। সবধরনের আউটার স্পোর্টস ইভেন্টও বাতিল করা হয়েছে। অথচ বাংলাদেশ-ভারতের প্রথম টি-টোয়েন্টি বাতিলের কোনো সম্ভাবনা দেখা যায়নি। তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথমটিতে মাঠে নামার আগে বাংলাদেশ দলের কয়েকজন খেলোয়াড় এবং কোচকে মাস্ক পরে অনুশীলন করতেও দেখা গেছে।
রোববার (০৩ নভেম্বর) সকাল থেকে দিল্লিতে ধোঁয়া ও ঘন কুয়াশা মিলিয়ে খুব ভয়াবহ পরিস্থিতির কথা জানাচ্ছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম। দীপাবলি উৎসব আর পাশের দুই রাজ্যে শস্যক্ষেতের নাড়া পোড়ানোর ফলে সৃষ্ট ধোঁয়া এই অবস্থার জন্য দায়ী বলে জানিয়েছেন একাধিক ভারতীয় পরিবেশবিদ। এদিকে সকালের কুয়াশা ও হালকা বৃষ্টি পরিস্থিতি আরও খারাপের দিকে নিয়ে যাচ্ছে। বাতাসের আর্দ্রতা বেশি হওয়ায় এই সমস্যা নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাওয়ারও সম্ভাবনা আছে।
এত সমস্যা সত্ত্বেও ম্যাচের সময় বা ভেন্যু কোনোটাই বদলানোর কোনো চিন্তা করছে না ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ড (বিসিসিআই)। বিসিসিআই প্রধান সৌরভ গাঙ্গুলী তো বলেই দিয়েছেন,  শেষ মুহূর্তে এসে ম্যাচের সূচি পাল্টানো সম্ভব নয়। তবে পরবর্তীতে শীতকালে ম্যাচ আয়োজন নিয়ে নতুন করে ভাবার কথাও জানিয়েছেন তিনি।
দিল্লির ভয়াবহ বায়ুদূষণের কারণে এর আগে ২০১৭ সালে এক টেস্ট ম্যাচ খেলতে এসে বিপদে পড়ে গিয়েছিল শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট দল। দলের ফাস্ট বোলার লাহিরু গ্যামেজ এবং সুরাঙ্গা লাকমল নিঃশ্বাস নিতে কষ্ট হচ্ছে বলে অভিযোগ জানিয়েছিলেন। পরে তাদের ড্রেসিং রুমে ফিরিয়ে নেওয়া হয়। দিনের শেষ ভাগে অলরাউন্ডার ধনঞ্জয়া ডি সিলভা মাঠেই বমি করেন।
এদিকে দিল্লির প্রশাসন ও ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন (ডিডিসিএ) ধোঁয়া ও বায়ুদূষণ মোকাবিলায় বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে যাচ্ছে। অরুণ জেটলি স্টেডিয়ামের বাইরে প্রচুর পানি ছিটানো হচ্ছে আর স্টেডিয়ামের আশেপাশে সব নির্মাণ কাজ বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। কিন্তু এসব ব্যবস্থা গ্রহণ ক্রিকেটভক্তদের খুশি করতে পারছে না। ক্রিকেটাররা যেখানে ৩ ঘণ্টা মাঠের লড়াইয়ে ব্যস্ত থাকবে, একই সময়ে দিল্লিবাসীরা বাইরের সব কাজ থেকে দূরে থাকবে।
বায়ুদূষণের মধ্যেও ম্যাচ আয়োজনের সমালোচনা করে এক ভারতীয় টুইটারে লিখেছেন, ‘ম্যাচ তো আয়োজন করছেন, টসের কয়েন দেখা যাবে তো?’
প্রিয়াংশু নামে একজন লিখেছেন, ‘এমন বিষাক্ত আবহাওয়ায় দিল্লিতে টি-টোয়েন্টি ম্যাচ আয়োজনের কি দরকার তাই বুঝতে পারছি না। নিরাপত্তার চেয়ে অর্থ বেশি গুরুত্বপূর্ণ?’
বিশাল নামের একজন লিখেছেন, ‘এমন দূষণের মাঝেও দিল্লিতে ক্রিকেট ম্যাচ আয়োজন একধরনের অপরাধ আর খেলাটির জন্য কলঙ্ক। কেন এটা পেছানো সম্ভব নয়? এর জবাব দেওয়ার দায়িত্ব কার?’
অভিষেক শুকলা লিখেছেন, ‘শুধু এই জাতীকে অপমান করার জন্যই প্রতি বছর এই সময়ে যখন বায়ুদূষণ মাত্রা ছাড়িয়ে যায়, দিল্লিতে ক্রিকেট ম্যাচ আয়োজন করা হয়।’

আপনার মতামত জানানঃ