নদীতে পড়া ট্যাক্সিক্যাব উদ্ধার কার্যক্রম নিয়ে ক্ষোভ স্থানীয়দের

উপজেলা প্রতিনিধি সাভার (ঢাকা)ঃ সাভারের আমিন বাজার সালেহপুর ব্রিজে তুরাগ নদীতে পড়ে যাওয়ার ১৬ ঘণ্টা পরও নিখোঁজ প্রাইভেট কারটি উদ্ধার সম্ভব হয়নি। তীব্র স্রোতের কারণে অভিযান ব্যাহত হচ্ছে বলে দাবি করেছেন ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা।

সোমবার সকাল থেকে পুনরায় শুরু হওয়া এ অভিযান দেখতে ভিড় করেছেন পার্শ্ববর্তী এলাকায় হাজারো মানুষ। তাদের মধ্যে কয়েক জন দাবি করেন, প্রশাসন ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা অনুমতি দিলে তারা উদ্ধার কাজে সহায়তা করতে পারেন।

এর মধ্যেই স্থানীয় দুই জন উদ্ধার কাজের অগ্রগতির জন্য নদীতে নেমে যান। তাদের মধ্যে একজন বলেন, ‘আমরা এহানে ডুব পাড়তে গেছি। আমাদের আইডিয়া গাড়িটি এইটুকু জায়গার মধ্যে থাকতে পারে। ওরা তো (ফায়ার সার্ভিস) ফেরি এইখান থেকে নিয়ে গেছে। ওরা তো বলতেছে এই তোরা উঠে যা। তোদের মারব। তোদের সমস্যা হবে। তোদের ভালোর জন্যই বলতেছি। তোরা এইখান থেকে চইল্লা যা। পরে আমরা চইল্লা আইছি।’

এর মধ্যেই স্থানীয় কিছু লোক দাবি করেন তাদের পানিতে নামতে দেয়া হলে তারা গাড়ি উদ্ধার করতে পারবেন।

ওদিকে নিখোঁজ গাড়িতে থাকা ড্রাইভারের আত্নীয় নাসিম বলেন, ‘এখানে জনগণ যারা আছে সকাল থেকে না, সেই রাত থেকেই বলছে উদ্ধার কাজে ব্যর্থতা আছে। এটা আমরা কীভাবে মেনে নেব? আমাদের তো লাশটা দরকার। গাড়িটা তো সরকারি, গাড়িটা না হোক আমাদের লাশটা চাই।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা গোপনে জানতে পেরেছি, এখানে যারা পুলিশ আছেন, তারাও উদ্ধার কাজে সন্তুষ্ট না৷ এদের (ফায়ার সার্ভিস) কাজে অবহেলা আছে। আমরা চাই আপনারা মিডিয়ার মাধ্যমে জানান তারা যেন দ্রুতই উদ্ধার করে। তার দুইটা ছোট বাচ্চা মেয়ে আছে তারা শুধু লাশটা চায়।’

ফায়ার সার্ভিসের উপ-সহকারী পরিচালক মো. মিজানুর রহমান জানান, তারা সাধ্যমতো চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। তারা পূর্ব অভিজ্ঞতা থেকে কাজ করে যাচ্ছেন।

বিআরটিএ ও নৌবাহিনীর সহায়তা নেবেন কি না- এমন প্রশ্নে তিনি জানান, আমরা এখনও প্রয়োজন মনে করছি না। তবে তারা চাইলে যৌথভাবে কাজ করা যেতে পারে।

এদিকে প্রাথমিকভাবে চালক ও গাড়িটির মালিকানার পরিচয় পাওয়া গেছে। আর্মি ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট পরিচালিত গাড়িটি এক্সিও ২০১২ মডেলের। চালকের নাম জিয়াউর রহমান, বাড়ি ফরিদপুরের বোয়ালমারিতে।

প্রসঙ্গত রোববার (২১ জুলাই) রাত ৮টার দিকে ঢাকাগামী হলুদ রঙের একটি ট্যাক্সিক্যাব ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের আমিন বাজার সালেহপুর ব্রিজে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে তুরাগ নদীতে পড়ে যায়। ঘটনার পর তীব্র স্রোতের কারণে রাত ১টায় উদ্ধার অভিযান শুরু করে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল।

কোনো সন্ধান না মেলায় রাত ৩টায় উদ্ধার অভিযান স্থগিত করা হয়। পরে আজ (সোমবার) সকাল থেকে ফের উদ্ধার অভিযান শুরু করেন ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা।

আপনার মতামত জানানঃ