প্রাণভিক্ষার ব্যাপারে কিছুটা সময় চেয়েছেন রাজাকার মীর কাসেম

প্রকাশিতঃ ৪:৩৪ অপরাহ্ণ, বুধ, ৩১ আগস্ট ১৬

গাজীপুর : কারা মহাপরিদর্শক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সৈয়দ ইফতেখার উদ্দীন বলেছেন, মীর কাসেম আলী প্রাণভিক্ষার ব্যাপারে কিছুটা সময় চেয়েছেন। আগামীকাল বৃহস্পতিবার সকালে এ ব্যাপারে আবার জিজ্ঞাসা করা হবে।

কারা মহাপরিদর্শক বুধবার রাতে গাজীপুরের কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার পরিদর্শনে এসে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘আমার এখানে আসার উদ্দেশ্য হলো, যেহেতু মীর কাসেম সাহেব এখানে আছেন। এখানকার নিরাপত্তা ব্যবস্থাটা দেখা। লাইটিং থেকে শুরু করে সব কিছু পর্যাপ্ত আছে কি-না। গতকাল রাতে আমরা রায়ের কপি পেয়েছি। আজকে তাকে পড়ে শোনানো হয়েছে। আজ তার আত্মীয়-স্বজন দেখা করে গেছেন। তিনি আমাদের কাছে কিছুটা সময় চেয়েছেন মতামত জানানোর জন্য। আগামীকাল সকালে জিজ্ঞাসা করলে বুঝতে পারব।’

তিনি বলেন, স্বাভাবিকভাবে মার্সি পিটিশন করার জন্য কিছু যৌক্তিক সময় ওনাকে দিতে হবে। স্বাভাবিকভাবে একজন লোক সহসা মন্তব্য করতে পারেন না। কাল সকালে তাকে জিজ্ঞাসা করব। জিজ্ঞাসা করলে ওনার অবস্থাটা বুঝতে পারব।

ফাঁসি কার্যকরের স্পট কাশিমপুরে কিনা- প্রশ্নের জবাবে কারা মহাপরিদর্শক বলেন, এ ব্যাপারে এখনো চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়নি।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে আলাদা আইনে এ বিচার হয়েছে। এ ক্ষেত্রে মার্সি পিটিশনের বিষয়টি স্পষ্ট করা হয়নি। অন্যান্য রায়ের ক্ষেত্রে বন্দিরা সর্বোচ্চ সাত দিন সময় পেয়ে থাকেন। আমরা ধরে নিতে পারি সে হিসাবে সর্বোচ্চ সাত দিন সময় দেওয়া যেতে পারে। আমরা আশা করছি ওনার মতামত আরো আগে পাব।

কারাগার প্রস্তুত আছে কিনা সে ব্যাপারে তিনি বলেন, কারাগার তার ওপর অর্পিত যেসব দায়িত্ব আছে তা সম্পাদনের জন্য সব সময় প্রস্তুত থাকে। এজন্য আলাদা কোনো প্রস্তুতির প্রয়োজন হয় না।

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে কাশিমপুর হাই সিকিউরিটি কেন্দ্রীয় কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার মো. মিজানুর রহমান, কারাগার-১ এর জেল সুপার সুব্রত কুমার বালা, কারাগার-২ এর জেল সুপার প্রশান্ত কুমার বনিক, জেলার নাশির আহমেদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

আপনার মতামত জানানঃ