প্রিয় নায়িকার শুভ জম্মদিন

প্রকাশিতঃ ৪:৩৬ অপরাহ্ণ, রবি, ৩ নভেম্বর ১৯

বিনোদন প্রতিবেদকঃ ঢাকাই সিনেমার অন্যতম সেরা অভিনেত্রী আরিফা জামান মৌসুমী। ১৯৯৩ সালে অমর নায়ক সালমান শাহ’র সঙ্গে ‘কেয়ামত থেকে কেয়ামত’ দিয়ে ঢালিউডে যাত্রা করেন প্রিয়দর্শিনী এই অভিনেত্রী। সোহানুর রহমান সোহানের এই সিনেমার পর থেকে সব সময়ের সমান জনপ্রিয় নায়িকা মৌসুমী।


রোববার (৩ নভেম্বর) মৌসুমীর জন্মদিন। বিশেষ এই দিনটিকে ঘিরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভক্ত-অনুরাগীদের শুভেচ্ছার বন্যায় ভাসছেন তিনি। তবে জন্মদিনে স্বামী ওমর সানী ও দুই সন্তান ফাইজা-ফারদিনের থেকে পাওয়া শুভেচ্ছা মৌসুমীকে অনেক বেশি উচ্ছ্বসিত করে বলে বিভিন্ন সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন তিনি।

এর আগের জন্মদিনে মৌসুমী জানান, ‘আসলে বাবার মৃত্যুর পর থেকে বিশেষ উপলক্ষ্য ছাড়া জন্মদিন পালনের ইচ্ছে হয় না। বাবা থাকতেন জন্মদিনের আনন্দ ছিল অন্যরকম। তিনি আমাকে বিভিন্নভাবে সারপ্রাইজড করতেন, আমি মুগ্ধ না হয়ে পারতাম না। আব্বু নেই, তাই এখন জন্মদিন নিয়ে আমার তেমন কোনো পরিকল্পনা থাকে না। এটা ঠিক বাবার মৃত্যুর পর জন্মদিনে স্বামী-সন্তানের শুভেচ্ছায় আমি আনন্দিত হই।’

১৯৭৩ সালে ৩ নভেম্বর খুলনায় জন্মগ্রহণ করেন মৌসুমী। বাবা নাজমুজ্জামান মনি ও মা শামীমা আখতার জামান। মৌসুমী ১৯৯৬ সালের ২ আগস্ট জনপ্রিয় চিত্রনায়ক ওমর সানীর সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবন্ধ হন। দাম্পত্য জীবনে তাদের ফারদিন এহসান স্বাধীন (ছেলে) এবং ফাইজা (মেয়ে) নামের দুই সন্তান রয়েছে।


ঢালিউডে যাত্রা করা ‘কেয়ামত থেকে কেয়ামত’ সিনেমার মাধ্যমেই মৌসুমী তার প্রতিভার প্রমাণ দেন। এরপর থেকে তাকে আর একবারের জন্যও পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। একের পর এক জনপ্রিয় সিনেমার মাধ্যমে দেশীয় চলচ্চিত্রের অন্যতম সেরা অভিনেত্রী হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠা করেন।

প্রায় তিন দশক ধরে ঢাকাই সিনেমায় নিজের অভিনয় দক্ষতার দ্যুতি ছড়িয়ে আসছেন মৌসুমী। দীর্ঘ ক্যারিয়ারে কাজ করেছেন দুই শতাধিক সিনেমায়। এর মধ্যে নারগিস আক্তার পরিচালিত ‘মেঘলা আকাশ’ ও চাষী নজরুল ইসলাম পরিচালিত ‘দেবদাস’ সিনেমায় অভিনয়ের জন্য পেয়েছেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার।

সালমান শাহের সঙ্গে জুটি বেঁধে ক্যারিয়ার শুরু করা মৌসুমী সফল হয়েছেন ওমর সানী, রিয়াজ, ফেরদৌস, ইলিয়াস কাঞ্চন ও মান্নার সঙ্গে জুটি বেঁধে।

মৌসুমী অভিনয়ের পাশাপাশি নির্মাতা হিসেবে সাফল্য পেয়েছেন। ‘কখনো মেঘ কখনো বৃষ্টি’ মৌসুমী পরিচালিত প্রথম চলচ্চিত্র। তারপর তিনি ২০০৬ সালে মেহের নিগার চলচ্চিত্রটি পরিচালনা করেন। এরপর নির্মাণ করছেন ‘শূন্য হৃদয়’, ‘ভালোবাসবোই তো’ নামের দুটি সিনেমা।

নায়িকা-নির্মাতার পাশাপাশি একজন মডেল হিসেবেও তার জনপ্রিয়তা আকাশ ছোঁয়া। লাক্স, তিব্বতসহ বিভিন্ন সময় তাকে দেখা গেছে অসংখ্য পণ্যের বিজ্ঞাপনে। এছাড়া কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের শুভেচ্ছাদূত হিসেবেও কাজ করছেন এই নায়িকা। জাতিসংঘের শিশু তহবিল সংস্থা ইউনিসেফের শুভেচ্ছাদূত হিসেবে কাজ করেছেন। এককথায় নানামুখী সামাজিক কর্মকাণ্ডেও নিজেকে জড়িয়ে রেখেছেন জনপ্রিয় এই অভিনেত্রী।

দীর্ঘ চলচ্চিত্র ক্যারিয়ারের অসংখ্য জনপ্রিয় সিনেমা উপহার দিয়েছেন মৌসুমী। এর মধ্যে- দোলা, আত্মঅহংকার, স্নেহ, প্রথম প্রেম, দেনমহর, অন্তরে অন্তরে, বিদ্রোহী বধূ, মুক্তির সংগ্রাম, হারানো প্রেম, ভাংচুর, সাজন, শেষ খেলা, আত্মত্যাগ, বিশ্ব প্রেমিক, গরিবের রাণী, প্রিয় তুমি, রাক্ষস, সুখের স্বর্গ, আদরের সন্তান, সুখের ঘরে দুঃখের আগুন, লুটতরাজ, আম্মাজান, শান্তি চাই, অন্ধ ভালোবাসা, মিথ্যা অহংকার, ঘাত-প্রতিঘাত, সংসারের সুখ-দুঃখ, প্রিয় শত্রু, লাট সাহেবের মেয়ে, লজ্জা, তুমি সুন্দর, বাঘের বাচ্চা, রূপসী রাজকন্যা, মোল্লা বাড়ির বউ, গোলাপী এখন বিলাতে প্রভৃতি উল্লেখযোগ্য।

সিনেমাশিল্পে অসাধারণ অভিনয়ের জন্য একাধিকবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার’সহ দেশ-বিদেশের আরও অনেক পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন প্রিয়দর্শিনী অভিনেত্রী মৌসুমী।

আপনার মতামত জানানঃ