বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন পূরনে আমাদের চেষ্টা চালিয়ে যেতে হবে : ড. মুহাম্মদ আহসান উল্লাহ  

প্রকাশিতঃ ৯:১২ অপরাহ্ণ, সোম, ৯ ডিসেম্বর ১৯

Advertisements

মো. মিজানুর রহমান, ঢাকা : রাজধানীর মোহাম্মদপুরে অবস্থিত দেশের একমাত্র সরকারি ইসলামি আরবি বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইআবি)উপাচার্জ বিশিষ্ট আলেমে দ্বীন ও কথা সাহিত্যিক প্রফেসর ড. মুহাম্মদ আহসান উল্লাহ ওরফে আহসান সাইয়েদ। ২০১৫ সালে ভাইস চেন্সেলর হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগ দেন তিনি। এর আগে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের অধ্যাপক ছিলেন। তার গ্রামের বাড়ি চট্টগ্রামের সাতকানিয়া উপজেলার এওচিয়া ইউনিয়নের দক্ষিণ রামপুর।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের একনিষ্ট ভক্ত ও অনুরাগী হিসেবে কথা বলেছেন তিনি বঙ্গবন্ধু এবং এ দেশকে নিয়ে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন ও এর বাস্তবায়ন প্রসঙ্গে।

ড. মুহাম্মদ আহসান উল্লাহ বলেন- ‘‘স্বাধীনতার স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্দেশেই বীর বাঙালী মুক্তিযুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়ে। লাখ লাখ প্রাণের বিনিময়ে অর্জিত হয়েছে স্বাধীনতা। যুদ্ধবিধ্বস্ত একটি নতুন দেশের চারদিকে দারিদ্রতা ছিল। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন ছিল এদেশ দারিদ্রমুক্ত হবে, এদেশে উন্নত হবে, এদেশের মানুষ উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত হবে, ব্যবসা-বাণিজ্য শিল্প-কারখানা, তথ্য প্রযুক্তি সহ সবদিক দিয়ে মানুষ ক্রমান্বয়ে এগিয়ে যাবে এবং উন্নতি লাভ করবে। এ দেশকে নিয়ে বঙ্গবন্ধু যে স্বপ্নগুলো দেখেছিলেন তার অনেক অংশ পূরন হয়েছে এবং বাকিগুলো পুরনের পথে রয়েছে। জাতির পিতা আমাদের মাঝে নেই। কিন্তু তার অনুসারী তার জীবনাদর্শ এবং রাজনৈতিক মতাদর্শের অনুসারী বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এর নেতৃবৃন্দ দেশের জনগণকে নিয়ে শিক্ষার্থী ও সমাজের সর্বস্তরের মানুষকে নিয়ে এ দেশের উন্নয়ন ও অগ্রগতির পথে দৃঢ় প্রত্যয়ে এগিয়ে চলেছে। জতির পিতার সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শক্ত হাতে দেশের হাল ধরেছেন। তিনি যে একজন দক্ষ প্রশাসক, একজন বিচক্ষণ রাজনীতিবিদ এবং স্বদেশ প্রেমিক তা বিশ্বব্যাপী প্রশংসিত হয়েছে। যোগাযোগ ব্যবস্থা, উচ্চ শিক্ষা ব্যবস্থা থেকে শুরু করে সব সেক্টরে তার উন্নয়নের ছোঁয়া পেয়েছে দেশবাসী। এখন আর কেউ অনাহারে মারা যাচ্ছেনা। দেশ অনেক উন্নত হয়েছে। ’’

শিক্ষাখাতে উন্নয়ন বিষয়ে তিনি বলেন- ‘‘বর্তমানে শতাধিক প্রাইভেট ও অর্ধশত পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় হয়েছে দেশে। উচ্চ শিক্ষা এখন আর শহর কেন্দ্রিক নেই। প্রতিটা জেলায় জেলায় উচ্চ শিক্ষা ব্যবস্থা পৌছে গেছে। এমনকি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী মাদ্রাসা শিক্ষার দিকেও মনোযোগ দিয়েছেন যে তারাও এদেশের সন্তান। তাই তিনি ইসলামি আরবি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেন। এতে করে মাদ্রাসার ছেলেরা বিশ্ববিদ্যালয়ে এসে গেছে। কওমি মাদ্রাসাকেও জাতির একই স্রোতে নিয়ে আসার জন্য এখান থেকে বের হওয়া শিক্ষার্থীদেরকে তিনি মাস্টার্স এর সনদ দিয়েছেন। মূলত ইসলামি আরবী বিশ্ববিদ্যালয় সারাদেশের সকল মাদ্রাসার উচ্চশিক্ষার বিষয়টি দেখে। যেমন ফাজিল(অনার্স) ও কামিল(মাস্টার্স) দেখাশোনা করে।’’

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা প্রসঙ্গে তিনি আরো জানান- ‘‘২০১৫ সালে প্রতিষ্ঠা হলেও শুরুর দিকে মাদ্রাসার যে কাজ তা কুষ্টিয়া বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালনা করত। একই বছরের সেপ্টেম্বর থেকে সব দায় দায়িত্ব চলে আসে ‘ইসলামি আরবি বিশ্ববিদ্যায়ের কাছে। এরপর স্থায়ী ক্যাম্পাস নির্মানের লক্ষ্যে ৭১৩ কোটি ৭৫ লক্ষ্য টাকার ‘ইসলামি আরবি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন প্রকল্প’নামে একটি প্রকল্প একনেকে পাশ হয়েছে। একইসাথে বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে কেরানিগঞ্জে একটি ১৭ একরেরও বেশি অধিগ্রহণের চূড়ান্ত অবস্থায় রয়েছে। এছাড়া আগে মাদ্রাসায় অনার্স চালু থাকলেও মাস্টার্স ডিগ্রি চালু ছিলনা। এখন উল্লেখযোগ্য মাদ্রাসাগুলোতে এ শিক্ষা ব্যবস্থা রয়েছে। আমরা দায়িত্ব নিয়ে দেখলাম যে মাদ্রাসায় বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গবন্ধু কন্যা এবং মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস নির্ভর তেমন কোনো বই বা পাঠাগারের সংখ্যা ছিলনা প্রায়। আমরা প্রতিটি মাদ্রাসায় এখন থেকে এসব বিষয় বইয়ে রাখার ব্যবস্থা করেছি।’’

ছাত্র রাজনীতির পক্ষে থাকলেও তিনি প্রাপ্ত বয়স্কদের ছাত্র রাজনীতিতেই বিশ্বাসী। তার মতে- ‘‘এদেশের ছোট বড় সকল আন্দোলনে ছাত্রদের ভূমিকা রয়েছে। ছাত্ররা হলো আমাদের শক্তি। ছাত্র রাজনীতি বন্ধ হয়ে গেলে আমাদের নেতা আসবে কোত্থেকে? আর নেতা না হলে দেশ চলবে না।’’ তবে ছাত্রদের ১৮’র পরে রাজনীতিতে আসাটাই ভাল মনে করেন তিনি। পাশাপাশি কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় বা মাদ্রাসার উচ্চ পর্যায়ে কতৃপক্ষের নজরদারিও থাকা জরুরি মনে করেন তিনি। তার মতে- রাজনীতির গুণগত মান উন্নয়নে ছাত্রদের প্রতি নজরদারি খুব বেশি জরুরি।’’
তিনি আরো বলেন- ‘‘স্বার্থপররা কখনো সাহসী হয়না। কিন্তু বঙ্গবন্ধূ ছেলেবেলা থেকেই সাহসী ছিলেন। ছেলেবেলা থেকেই তিনি দেশের মানুষকে নিয়ে চিন্তা করতে গিয়ে রাজনীতিতে প্রবেশ করেছেন। তাদের পুরো পরিবারটিই কখনো নিজেদেরকে নিয়ে ভাবেননি, তারা সামগ্রিকভাবে সকল মানুষকে নিয়ে ভেবেছেন। বার বার জেলে গেলেও একবারের জন্যও তিনি রাজনীতি থেকে এবং দেশের জন্য আন্দোলনের পথ থেকে তিনি ফিরে যাননি। তার পরিবারও তাকে পেছনে টানেনি। বরং তাকে উৎসাহ দিয়েছেন। বঙ্গবন্ধূর ৭ই মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণের মধ্যদিয়ে তার যে জ্ঞান তা প্রকাশ পেয়েছে। যে ভাষণটি বিশ্বব্যাপী সমাদৃত হয়েছে। আর তাই এই ভাষনটিকে আমরা তার জন্মশতবার্ষিকীর আয়োজনে ইসলামি আরবি বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে আরবি অনুবাদ পাঠের আয়োজন করেছি।’’

বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের বাংলাদেশ আর আজকের বাংলাদেশ এর প্রসঙ্গে তিনি বলেন- ‘‘এদেশতো একসময় অনেক দরিদ্র ছিল। এখন অনেক এগিয়ে রয়েছে অর্থনৈতিকভাবে। বঙ্গবন্ধু চেয়েছিলেন দেশের মানুষ এক সময় শিক্ষা দীক্ষায় উন্নত হবে, তারা নিজেদের অধিকারগুলো ভোগ করবে। আসলে উন্নয়ন ও অগ্রগতির তো কোনো হিসাব থাকেনা। আমাদের আরো এগিয়ে যেতে হবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার আমলে তিনি অত্যন্ত দক্ষতার সাথে দেশের উন্নয়ন করে চলেছেন। তিনি আন্তর্জাতিকভাবে অনেক স্বীকৃতি লাভ করেছেন। এসব কিন্তু এমনি এমনি আসেনি।দেশের মানুষকে এটি মনে রেখেই চলতে হবে।’’

বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ে একটি কমিটি গঠনের মাধ্যমে ৩ দিনব্যাপী অনাড়ম্বর আয়োজন করার প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি। এ প্রসঙ্গে প্রফেসর ড. মুহাম্মদ আহসান উল্লাহ বলেন-বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষ্যে আমাদের ৩দিনব্যাপী আয়োজনে মুক্তিযুদ্ধের নাটক ‘লাল সবুজ’ প্রদর্শণী, আরবি পাঠ, বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষনের আরবি অনুবাদ সহ নানা আয়োজনে দিনটি পালনের ইচ্ছে রয়েছে আমাদের।
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের আরবি সাহিত্যের ছাত্র ছিলেন প্রফেসর ড. মুহাম্মদ আহসান উল্লাহ। আরবি সাহিত্যটাকে মনোযোগ দিয়ে পড়তে গিয়ে তিনি ইংরেজি সাহিত্য, রুশ সাহিত্য, বাংলা সাহিত্য, বিশ্ব সাহিত্য, ফরাসি সাহিত্য পড়েছেন। ছাত্র জীবন থেকেই তার চিন্তা ছিল- ‘শুধু শিক্ষিত হলেই হয়না, জ্ঞানী হতে হয়’। ফলে সেই চিন্তাধারা থেকেই তিনি জ্ঞানার্জনের জন্য সাহিত্য চর্চা করেছেন। আর সাহিত্য চর্চা করতে গিয়ে ধীরে ধীরে তিনি সাহিত্য জগতে তার নিজস্ব একটি স্থান তৈরি করতে সক্ষম হন। একে একে তিনি- নোবেল বিজয়ী নাজিব মাহফুজের ছোটগল্প(আরবি থেকে অনুবাদ), তাওফিক আল হাকিমের নাটক(আরবি নাটকের অনুবাদ), মাঝরাতে বৃষ্টি(গল্পগ্রন্থ), আপোফিসের স্বপ্ন(গল্পগ্রন্থ), গৃহবধূ পিঞ্জরের পাখি(রম্যরচনা), তিতাসের অট্টহাসি(উপন্যাস), কবিতার বিষদাঁত(কাব্যগ্রন্থ), কাঁচের আয়না(কাব্যগ্রন্থ), হাইজ্যাকারের পাল্লায়(গল্পগ্রন্থ), জীবিত জীবন(নাট্যগ্রন্থ), পাকাচোর(নাট্যগ্রন্থ), হাদিস সংকলনের ইতিবৃত্ত(গবেষণাগ্রন্থ), বাংলাদেশে হাদিস চর্চা : উৎপত্তি ও ক্রমবিকাশ(গবেষণাগ্রন্থ) বইগুলো প্রকাশ করেছেন। সামনে আরো কিছু বই প্রকাশের অপেক্ষায় রয়েছে। মূলত চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রভাষক হিসেবে যোগ দেয়ার পর থেকেই সেখানে পিএইচডি করার পাশাপাশি সাহিত্য চর্চা করে গেছেন তিনি।

কথা সাহিত্যিক প্রফেসর ড. মুহাম্মদ আহসান উল্লাহ মনে করেন এই দেশ গঠনে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অবদান যেমন সবচেয়ে বেশি, তেমনি তার সুযোগ্য কন্যা পিতার স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করতে যেভাবে দেশকে বিভিন্ন সেক্টর থেকে উন্নয়নের পথে এগিয়ে নিয়ে চলেছেন, সেই চলার পথে আমাদের প্রত্যেককে যার যার অবস্থান থেকে নিস্বার্থভাবে কাজ করতে হবে এবং বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নকে পূরনে চেষ্টা চালিয়ে যেতে হবে।

আপনার মতামত জানানঃ