বাউফলে ৪র্থ শ্রেণীর ছাত্রীর ইজ্জতের মূল্য ১০ হাজার টাকা !

কহিনুর বাউফল (পটুয়াখালী)সংবাদ দাতা ঃ পটুয়াখালী জেলার বাউফল উপজেলার ৭ নং বগা ইউনিয়নের বালিয়া চাঁদকাঠী গ্রামের এক শিশু (১২) ধর্ষণের ইজ্জতের মূল্য ধার্য করেছে স্থাণীয় ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য খোরশেদসহ ৩-৪ জনের একটি গ্রাম্য মাতব্বর ১০ হাজার টাকা। এ ঘটনায় ওই ধর্ষিতা পরিবার থানা পুলিশকে জানালে ভয়ানক পরিণতি হবে বলে ওই পরিবারকে শাষিয়েছে ওই মাতববররা। এ বিষয়ে মঙ্গলবার বিকেলে ওই ধর্ষিতার বাবা বাদি হয়ে বাউফল থানায় একটি শিশু নির্যাতন ও দমন আইনে মামলা দায়ের করেছেন। শিশুটি উপজেলার বগা ইউপির ধাউরাভাঙ্গা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৪র্থ শ্রেণির ছাত্রী জানা গেছে, গত ২৯ মে বগা ইউনিয়নের রাজনগর গ্রামের কোডন মোল্লার ছেলে সাকিব মোল্লা (২০) ঈদ উপলক্ষে ফেড়ি করে মেহেদী বিক্রি করতে বালিয়া চাঁদকাঠী গ্রামে যায়। ওইসময় তার সাথে খলিল মোল্লা নামের আরো এক সহযোগি ছিল। বিকেল পাঁচটার দিকে ওই শিশুটি বাড়ির পাশের মাঠে গরু আনতে গেলে ওই সময় সাকিব ও তার সহযোগী খলিল শিশুটির সাথে মাঠে দেখা হলে সাকিব শিশুটিকে প্রলোভন দেখিয়ে একটি গরুর পরিত্যক্ত খরের গাদায় নিয়ে জোড় পূর্বক ধর্ষণ করে। ঘটনার পরপরই শিশুটি ধর্ষণের ঘটনা বাড়িতে জানালে তার বাবা স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য খোরশেদ মিয়ার কাছে বিচার দেন। বিচারে শাকিবের ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এরপর শাকিব ১০ হাজার টাকা দিয়ে বাকি ১০ হাজার টাকা নিয়ে তালবাহানা করতে থাকায় মঙ্গলবার ছাত্রীর বাবা ধর্ষিতা মেয়েকে নিয়ে বাউফল থানায় এসে একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন। এ বিষয়ে বগা ইউনিয়নের ইউপি মেম্বর খোরশেদ মিয়া বলেন, মেয়েটির সাথে কথা বলার প্রমাণ পাওয়া গেছে, যেহেতু মেয়ে অপরিচিত তার সাথে কথা বলার অপরাধেই সাকিবের ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছিল। তবে ধর্ষণের কোন সত্যতা পাওয়া যায়নি।

এ বিষয়ে বাউফল থানার ওসি মোস্তাফিজুর রহমান জানান, আমরা অভিযোগ পেয়েছি, বুধবার মেডিকেল পরীক্ষার জন্য শিশুটিকে পটুয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হবে।

আপনার মতামত জানানঃ