বাড়ছে আশঙ্কাজনকভাবে আত্মহত্যার প্রবণতা

প্রকাশিতঃ ৩:৪৩ অপরাহ্ণ, মঙ্গল, ১০ সেপ্টেম্বর ১৯

নিউজ ডেস্কঃ বাংলাদেশে প্রতি বছর আশঙ্কাজনক হারে বাড়ছে আত্মহত্যার প্রবণতা এবং ঘটনা। মানসিক বিষণ্নতা, মানুষে মানুষে সরাসরি যোগাযোগের অভাব ও তথ্যপ্রযুক্তির কারণে এককেন্দ্রিক হয়ে যাওয়াই এর কারণ বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।
মঙ্গলবার (১০ সেপ্টেম্বর) বিশ্ব আত্মহত্যা প্রতিরোধ দিবসের দিনে বিশেষজ্ঞরা জানান, দেশে মানসিক পীড়ায় থাকা তথা মানসিক বিষণ্নতায় থাকা মানুষের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে, যাদের সবাই আছেন আত্মহত্যার ঝুঁকিতে। বিষণ্নতা থেকে আত্মহত্যার ইচ্ছা, ইচ্ছা থেকে পরিকল্পনা এবং সবশেষে পরিকল্পনার বাস্তবায়ন ঘটান বা ঘটানোর চেষ্টা করেন এসব মানুষেরা।

বাংলাদেশ পুলিশ, ইউনিসেফ ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বিগত কয়েক বছরের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, ২০১৬ সালে বাংলাদেশে আত্মহত্যায় মৃত্যুর সংখ্যা নয় হাজারের কিছু কম। ২০১৭ সালে সেই সংখ্যা ছাড়িয়ে যায় ১০ হাজার। আর সর্বশেষ ২০১৮ সালে আত্মহত্যায় মৃত্যুর সংখ্যা উদ্বেগজনক হারে বেড়ে ১১ হাজার ছাড়িয়েছে।
জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটের এক সমীক্ষা অনুযায়ী, দেশে গড়ে প্রতিদিন ২৮ জন মানুষ আত্মহত্যা করে। যাদের বেশিরভাগই নারী। নারী-পুরুষ মিলিয়ে মোট আত্মহত্যাকারীদের বেশিরভাগের বয়স ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে।
আত্মহত্যার উপায়গুলোর মধ্যে কীটনাশক পান সবচেয়ে বেশি বলে ২০১৭ সালের এক সমীক্ষায় উল্লেখ করে পুলিশ। ওই বছর প্রায় সাড়ে তিন হাজার আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে কীটনাশক বা বিষপানে। আর দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা (৫৬৯টি)।

বিষণ্নতা ও মানসিক রোগ থেকে আত্মহত্যার প্রবণতা সবচেয়ে বেশি আসে বলে জানিয়েছেন মনোচিকিৎসক এবং মনোশিক্ষাবিদ ডা. মোহিত কামাল। তিনি বলেন, বাংলাদেশে প্রতি বছর এখন প্রায় ১০ হাজার মানুষের মৃত্যুর কারণ হচ্ছে আত্মহত্যা। অর্থাৎ প্রতি ৪০ সেকেন্ডে একজন। যারা আত্মহত্যা করছেন, তাদের ৮৯ শতাংশই কোনো না কোনোভাবে এবং কারণে মানসিক রোগী; এটা সেই ব্যক্তি বা তার আশপাশের মানুষজন জানুক বা না জানুক। ১৫ থেকে ২৯ বছর বয়সের যে তারুণ্যময় জীবন, সেখানে মৃত্যুর প্রধান কারণ আত্মহত্যা।
বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে পুরুষদের তুলনায় নারীদের আত্মহত্যার প্রবণতা বেশি বলে জানিয়ে এই বিশেষজ্ঞ বলেন, পুরুষদের চেয়ে নারীদের মধ্যে আত্মহত্যার প্রবণতা বেশি। যাদের বেশিরভাগই গ্রামীণ নারী। ইভটিজিং, যৌতুক, ধর্ষণ, ধর্ষণ বা প্রেম থেকে গর্ভে সন্তান চলে আসা- এসব কারণে গ্রামীণ নারীদের মধ্যে এই প্রবণতা বেশি।

অন্যদিকে শহর এলাকায় ‘ওভার প্রটেক্টিভ’ টিন এজ (অল্প বয়সী) ছেলে-মেয়েদের মধ্যেও আত্মহত্যার প্রবণতা বেশি। সবসময় চাওয়া মাত্রই যেকোনো কিছু হাতে পাওয়ার সংস্কৃতির মধ্যে দিয়ে বড় হওয়া শিশু বড় হয়ে কঠিন বাস্তবতায় যখন কিছু পায় না, তখন ডিপ্রেশনে ভোগে। আর সেখান থেকেই আত্মহত্যা বা মাদকের পথ বেছে নেয়। পরীক্ষায় ও প্রেমে ব্যর্থতার কারণও আছে। আর বয়স্কদের মধ্যে সাইবার বুলিং বা ক্রাইম, পরকীয়া এসব বিষয় অনুঘটক হিসেবে কাজ করে।
তথ্য প্রযুক্তির কারণে মানুষে মানুষে সরাসরি যোগাযোগ কমে যাওয়াকে বিষণ্নতা এবং আত্মহত্যার পথের প্রথম ধাপ বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। অনেক মানুষ একসঙ্গে থেকেও কারও সঙ্গে কারও মৌখিক বা শারীরিক যোগাযোগ ও সম্পর্ক স্থাপন না হওয়াকে খুবই উদ্বেগজনক বলে মনে করছেন তারা।
তথ্য প্রযুক্তির নেতিবাচক এই বিষয়টিতে সরকার খুবই গুরুত্বের সঙ্গে নিয়ে কাজ করছে বলে জানিয়েছেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

তিনি বলেন, আমরা একটি ডিজিটাল দেশ চাই। তবে তারুণ্যকে ধ্বংস করে নেয় কিংবা মানুষের মধ্যে রোবটিক প্রবণতা বাড়ায়- এমন কিছু আমরা চাই না। আমরা বিভিন্ন বিষয়ের কনটেন্ট ডিজিটাল ফরম্যাটে নিয়ে আসি। তবে সম্প্রতি একটা সিদ্ধান্ত নিয়েছি যে, সব কিছু ডিজিটাল কনটেন্টে আনা যাবে না। বিশেষ করে শিশুদের কনটেন্টগুলো। আনলেও তার একটি অ্যানালগ ভার্সন থাকবে; যা ধরা যায় বা ছোঁয়া যায়।
‘একটা উদাহরণ দিয়ে বলি। ছোটবেলায় পড়েছি, ‘আমাদের ছোট নদী চলে বাঁকে বাঁকে’। এখন এটাকে যদি একটা অডিও-ভিজুয়াল দিয়ে আমরা শিশুদের দেখাই, তাহলে তার চিন্তার ব্যাপ্তি ততটুকুতেই আটকে যাবে, যতটুকু ওই ডিজিটাল কনটেন্টে দেখাবে।’

প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, আমার দেওয়া কনটেন্টে হয়তো নদীর বাঁকের কোণায় একটা তাল গাছ আছে। ছোটবেলায় একটা শিশু এটা দেখে হয়তো ধরেই নিবে যে, সব নদীর বাঁকে আম গাছ থাকে। কিন্তু নদীর বাঁকের দৃশ্য কেমন হবে, সেটা ভিজুয়ালাইজ করার সুযোগ যদি শিশুর ওপর ছেড়ে দেই; তাহলে হয়তো তাদের কারও কল্পনায় নদীর বাঁকে তাল গাছ থাকবে, কারও হয়তো জাম গাছ, কারও হয়তো গাছের সঙ্গে আরও অন্যকিছু। অর্থাৎ কল্পনার রাজ্যকে উন্মুক্ত রাখতে হবে। যাতে করে শিশুরা সৃজনশীল হয়ে বেড়ে উঠতে পারে।
‘এছাড়াও ভার্চুয়াল বা ডিজিটাল জগতের নেতিবাচক দিক সম্পর্কে সবাইকে সচেতন করতে আমরা নিয়মিত কার্যক্রম পরিচালনা করছি,’ যোগ করেন প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

আপনার মতামত জানানঃ