বিশ্ব ইজতেমার জুমার নামাজে শরীক লাখো মুসল্লি

প্রকাশিতঃ ৫:১২ অপরাহ্ণ, শুক্র, ১০ জানুয়ারি ২০

অমল ঘোষ, টঙ্গী (গাজীপুর) প্রতিনিধি : ৫ স্তরের কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থার মধ্য দিয়ে গতকাল শুক্রবার বাদ ফজর আ’ম (সার্বিক) বয়ানের মধ্য দিয়ে শুরু হয় তাবলিগ জামাতের আলমে শূরার ৫৫তম বিশ্ব ইজতেমা। তবে শুরুর এক দিন আগেই ময়দান কানায় কানায় পরিপূর্ণ হওয়ায় বৃহস্পতিবার বাদ আসর থেকেই তাবলিগ জামাতের পাকিস্থানি মুরব্বি মাওলানা ফাহিমের অনানুষ্ঠানিক আ’ম বয়ানের মাধমে ইজতেমার সূচনা ঘটে। ঈমান, আমল, আখলাক, দাওয়াত ও তাবলীগ সম্পর্কে তাবলীগী বুর্জুগ, ইসলামী চিন্তাবিদ, আলেমেদীন ও পাকিস্থানের মাওলানা খোরশেদ আলমের আ’ম বয়ানের মধ্য দিয়ে গতকাল বাদ ফজর আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হয় এ পর্ব।

রাজধানী ঢাকার উপকন্ঠ টঙ্গীর তুরাগ নদের তীরে তাবলীগ জামাতের বার্ষিক মহাসম্মেলন বিশ্ব ইজতেমার প্রথম দিনে গতকাল অনুষ্ঠিত হয় বিশ্বের বৃহত্তম জুমার জামাত। ইজতেমায় অংশগ্রহণকারী লাখ লাখ মুসল্লি ছাড়াও রাজধানীসহ পার্শ্ববর্তী এলাকার হাজার হাজার মানুষ রেলপথ, সড়ক পথ, নৌপথসহ বিভিন্ন যানবাহন এবং অনেকে পায়ে হেঁটে শরীক হন এই বৃহত্তম জুমার জামাতে। বিশ্বের অর্ধশতাধিক দেশের প্রায় ২ হাজার প্রতিনিধিসহ লাখো মুসল্লির অংশগ্রহণে অসীম, অনন্ত ও প্রেমময় আল্লাহ’র সন্তুষ্টি অর্জনে ইবাদত বন্দেগি আর কোরআন হাদিসের আলোচনায় এখন বিশ্ব ইজতেমার বিশাল প্যান্ডেলে পবিত্র ধর্মীয় আবহাওয়া বিরাজ করছে। কাল (রোববার) দুপুরের আগে আখেরী মোনাজাতের মধ্য দিয়ে ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের দ্বিতীয় বৃহত্তম এ ধর্মীয় সমাবেশের আলমী শূরার তত্ত¡াবধানে মাওলানা যোবায়ের অনুসারিদের সভাপতিত্বহীন বিশ্ব ইজতেমা শেষ হবে। সকাল থেকেই সর্বস্তরের মুসলমানরা জুমার জামাতে শামিল হওয়ার জন্য টুপি, পাঞ্জাবী পরে জায়নামাজ হাতে আল্লাহর নৈকট্য লাভের আশায় ইজতেমা ময়দানের দিকে ছুটতে দেখা গেছে। দেশ বিদেশের মুসল্লির সাথে একই জামাতে শরীক হয়ে নামাজ আদায় করার মাধ্যমে বেশি সাওয়াব হাসিলের উদ্দেশ্যে সকলের মধ্যে দেখা গেছে ব্যাকুলতা। যতই সময় গড়াতে থাকে ততই মুসল্লিদের ঢল আঁচড়ে পড়ে তুরাগের তীরে।

শিশু-কিশোর থেকে শুরু করে সব বয়সী মানুষের সমাবেশ ঘটে জুমার জামাতে। টঙ্গী, উত্তরা, কামারপাড়া, মিরপুর, আব্দুল্লাপুরসহ আশপাশের এলাকার মসজিদে গতকালের জুমার জামাতে মুসল্লি সংখ্যা কম ছিল। ইজতেমা মাঠে জুমার জামাত সুবিশাল প্যান্ডেলের গন্ডি ছাড়িয়ে বিস্তৃতি লাভ করে চার পাশে। সকাল থেকেই মাঠ উপচে আশপাশের খোলা জায়গাসহ সব স্থান পরিণত হয় জনসমুদ্রে। মাঠে স্থান না পেয়ে অনেকে মহাসড়ক ও অলি-গলিসহ যে যেখানে পেরেছেন পাটি, চটের বস্তা, খবরের কাগজ বিছিয়ে জুমার নামাজে শরিক হয়েছেন। ফলে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে বেশ কিছুক্ষণের জন্য যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। ইজতেমা ময়দানে জুমার নামাজে খুতবা পাঠ শুরু হয় দুপুর ১টা ৩০ মিনিটে। দুপুর ১টা ৪১ মিনিটে জুমার জামাত শুরু হয়ে শেষ হয় ১টা ৫৮ মিনিটে। জুমার জামাতে ইমামতি করেন বাংলাদেশের তাবলীগ জামাতের সূরা সদস্য, শীর্ষ মুরুব্বি, কাকরাইল মসজিদের খতিব মাওলানা মোহাম্মদ যোবায়ের আহমদ। আগামী কাল (রোববার) আখেরি মুনাজাতও তিনিই পরিচালনা করবেন বলে জানিয়েছেন তাবলিগ জামাতের মিডিয়া সমন্বয়কারী মুফতি জহির বিন মুসলিম।

টঙ্গী এখন টুপি-পাঞ্জাবী পড়া ধর্মপ্রান মুসল্লিদের নগরে পরিণত হয়েছে। বিশ্ব ইজতেমায় যোগ দিতে দেশ-বিদেশ থেকে মুসল্লিদের টঙ্গী মুখি স্রোত অব্যাহত রয়েছে। বহুল কাঙ্খিত আখেরী মোনাজাত পর্যন্ত এ স্রোত আরো প্রবল হবে। তুরাগ তীরবর্তী বিশাল প্রান্তরে নির্মিত পাটের চট ও লাইলন কাপড়ের প্যান্ডেল ইতোমধ্যেই কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে গেছে। ফলে নতুন করে আরও ১৪ টি স্থাপনের পরও যারা আসছেন তাদেরকে নিজ উদ্যোগে তাবু টানিয়ে বিভিন্ন স্থানে অবস্থান নিতে হচ্ছে। গতকাল সকাল থেকে শীতের তীব্রতা কিছুটা কম থাকায় মুসল্লিদের ভোগান্তি কিছুটা কম। ওয়াসা এবং ফায়ার সার্ভিসের উদ্যোগে প্রধান প্রধান সড়ক ও বিদেশী মুসল্লিদের চলাচলের পথে পানি ছিটানো হলেও তা প্রয়োজনের তুলনায় ছিল অপ্রতুল। একদিকে পানি ছিটিয়ে যাচ্ছে ওয়াসার গাড়ি অন্যদিকে মুহুর্তেই আবার ধুলায় ধূসর হচ্ছে রাস্তুাগুলো। ফলে চিকিৎসা কেন্দ্রগুলোতে ভিড় করছে সর্দি, কাশি ও পেটের পীড়া নিয়ে শত শত মুসল্লি।

জুমার নামাজে ভিআইপিদের অংশগ্রহন : গতকাল শুক্রবারের জুমার নামাজে মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী আ. ক. ম. মোজাম্মেল হক এমপি, ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ মো. আব্দুল্লাহ এমপি, যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মো. জাহিদ আহসান রাসেল এমপি, গাজীপুর সিটি মেয়র জাহাঙ্গীর আলম, জেলা প্রশাসক এস এম তরিকুল ইসলাম, ঢাকা রেঞ্জ ডি আই জি মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান, গাজীপুর মেট্রো পলিটন পুলিশ কমিশনার মো. আনোয়ার হোসেনসহ প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ, জেলা ও স্থানীয় নেতৃবৃন্দ শরীক হন।

যারা বয়ান করলেন: গত বৃহস্পতিবার বাদ ফজর থেকেই তালিমী বয়ান শুরু হয়েছে। বাদ ফজর বয়ান করেন বাংলাদেশের মাওলানা রবিউল হক, বাদ আছর বয়ান করেন পাকিস্তানের মাওলানা ফাহিম, বাদ মাগরিব বয়ান করেন ভারতের মাওলানা ইব্রাহীম দেওলা। গতকাল শুক্রবার বাদ ফজর পাকিস্তানের মাওলানা খুরশিদ আলমের আ’ম বয়ানের মধ্যদিয়ে ইজতেমার মূল আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়। বাদ জুম্মা বয়ান করেন মাওলানা শেখ ইউনুস। বাদ আসর বয়ান করেন পাকিস্থানের মাওলানা এহসান, বাদ মাগরিব বয়ান করেন ভারতের মাওলানা আহমদ লাট।

৪ মুসল্লির মৃত্যু : টঙ্গীর বিশ্ব ইজতেমায় বৃহস্পতিবার থেকে গতকাল বিকেল পর্যন্ত ৩ মুসল্লি মারা গেছেন। তাদের সকলেই বার্ধক্যজনিত কারনে মৃত্যু বরন করেছেন। গতকাল শুক্রবার ভোরে সিরাজগঞ্জ জেলার কাজীপুর থানার পাটাগ্রামের মৃত আমির শেখের ছেলে খোকা মিয়া ( ৬০), চট্রগ্রাম জেলার কটিয়া থানা এলাকার খইগ্রামের গোড়া মিয়া ছেলে মোহাম্মদ আলী (৭০) ও নওগাঁ জেলার আত্রাই থানার পাইকরা বড়বাড়ি গ্রামের মৃত সোলাইমানের ছেলে শহীদুল ইসলাম (৫৫) নামে তিন মুসল্লির মারা গেছেন। এর আগে গত বৃহস্পতিবার রাতে গোপালগঞ্জ জেলার কোটালি পাড়া থানার লাখিরপাড় গ্রামের মৃত হাসেম আলীর ছেলে এয়াকুব শিকদার (৭৫) মারা যান।

স্থানীয় এমপির বক্তব্য : যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মো: জাহিদ আহসান রাসেল বলেন, বহুতল টয়লেট ভবন নির্মাণ, গভীর নলকূপ স্থাপন, মাঠ সমতলকরণ, গ্যাসলাইন সংযোগ, রাস্তা প্রশস্তকরন, ড্রেন ও ফুটপাথ মেরামত ও ইজতেমার প্রধান সড়ক কার্পেটিংসহ প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ ইতিমধ্যে গ্রহন করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী ইজতেমায় সংশ্লিষ্ট প্রত্যেকটি সংস্থাকে সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করার নির্দেশ দিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে আমাদের কর্মকান্ড প্রতিদিনই অব্যাহত আছে।

আপনার মতামত জানানঃ