বিশ্ব ইজতেমা শুরু : লাখো লাখো মুসল্লির পবিত্র জুম্মার নামাজ আদায়

প্রকাশিতঃ ৫:০৭ অপরাহ্ণ, শুক্র, ১০ জানুয়ারি ২০

এস,এম,মনির হোসেন জীবন : টঙ্গী থেকে ফিরে : রাজধানীর অদূরে গাজীপুরের টঙ্গীর কহর দরিয়া তুরাগ নদীর তীরে প্রথম পর্বের তিন দিন ব্যাপী বিশ্বইজতেমা আজ শুক্রবার (১০) জানুয়ারি বাদ ফজর বিশেষ আ’ম বয়ানের মধ্য বিশ্ব ইজতেমার আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়েছে। আজ শুক্রবার ছিল প্রথম পর্বের তিন দিন ব্যাপী বিশ্ব ইজতেমার প্রথম দিন। সে কারণে ইজতেমা ময়দানে লাখো লাখো মুসল্লি পবিত্র জুম্মার নামাজ আদায় করেন। অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে সব ধরনের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়েছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী।

আগামী রোববার (১৩ জানুয়ারি) প্রথম দফার ইজতেমার আখেরি মোনাজাত অনুষ্ঠিত হবে। এরপর একটানা চার দিন বিরতী দিয়ে আগামী শুক্রবার (১৭ জানুয়ারি) অনুরূপ ভাবে দ্বিতীয় পর্বের বিশ্বইজতেমা শুরু হবে। একই ভাবে রোববার (১৯ জানুয়ারি) দুপুরে সারা বিশ্ব মুসলিম জাহানের সুখ, শান্তি, মঙ্গল, অগ্রগতি, কল্যাণ, ভ্রাতিত্ববোধ কামনা করে মোনাজাতের মধ্য দিয়ে চলতি বছরের ৫৫তম বিশ্বইজতেমা শেষ হবে।

এদিকে,আজ শুক্রবার টঙ্গী তুরাগ তীরে সূরায়ে নেজামে পন্থী ওলামাদের তত্বাবধানে প্রথম পর্বের তিন দিন ব্যাপী বিশ্ব ইজতেমা বাদ ফজরের নামাজের পর আ’ম বয়ানের মধ্য দিয়ে শুরু হয়। এসময় বংলাদেশ,পাকিস্তান, ভারত, দিল্লির শীর্ষ বিশ্ব ইজতেমার মুরুব্বিরা বয়ান করেন।

এদিকে, আজ শুক্রবার ছিল প্রথম পর্বের তিন দিন ব্যাপী বিশ্ব ইজতেমার প্রথম দিন। সে কারণে ইজতেমা ময়দানে পবিত্র জুম্মার নামাজ আদায় করতে মুল্লিদের ঢল নামে। আজ শুক্রবার দুপুর ১২টার দিকে ইজতেমার মাঠে তাবলিগ জামাত কর্মী সহ সর্বস্তরের মানুষের উপচে পড়া ভিড় ছিল। নামাজ শুরু হওয়ার আগেই সাদা পাঞ্জাবি আর পায়জামা পড়ে ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা বানের ¯্রােতের মতো মাঠের দিকে ছুঁটতে থাকে। মাঠের ভেতওে ও বাহিরে খোলা জায়গাসহ আশপাশের সবস্থান জনসমুদ্রে পরিণত হয়। এসময় অনেকে মাঠে স্থান না পেয়ে ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা সড়ক-মহাসড়ক, তুরাগ নদের ভাসমান ব্রিজও অলি-গলিসহ যে যেখানে পেরেছেন হোগলা পাটি, চটের বস্তা, খবরের কাগজ বিছিয়ে জুমার নামাজে শরিক হন। ফলে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কসহ কয়েকটি সড়ক জুম্মার নামাজের আগে আশপাশের যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

এদিকে, গাজীপুরের টঙ্গী তুরাগ তীরে বিশ্ব ইজতেমার আজ শুক্রবার স্বরণকালের সর্ববৃহৎ পবিত্র জুমার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। লাখো লাখো মানুষের অংশগ্রহণের মধ্য দিয়ে ইজতেমা ময়দানে জুম্মার নামাজ আদায় করেন। দুপুর ১টা ৪৫ মিনিটে জুমার জামায়াত শুরু হয় হয়ে শেষ হয় ১টা ৫৫ মিনিটে। ১০ মিনিট পবিত্র জুম্মার নামাজ আদায় করা হয়। নামাজের ইমামতি করেন কাকরাইল মসজিদের পেশ ইমাম ক্বারী জোবায়ের। জুম্মার নামাজ শেষে বিশ্বের সকল মুসলিমের আত্মশুদ্ধি, দুনিয়া ও আখেরাতের মুক্তি লাভের আশায় মুসল্লিরা দোয়া করেন।

এদিকে, আজ শুক্রবার ছুটির দিন হওয়ায় ভোর থেকে গাজীপুরসহ আশপাশের এলাকা থেকে বিপুল সংখ্যক মানুষ টঙ্গী এসেছেন বিশ্ব ইজতেমা ময়দানে জুমার নামাজ আদায় করার জন্য। ঢাকা থেকে সরকারের মন্ত্রী, সংসদ সদস্য ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দসহ সরকারি-বেসরকারি পর্যায়ে অনেক ‘ভিআইপি’ অতিথিরাও শুক্রবার জুমার নামাজ পড়তে ইজতেমা ময়দানে যোগ দিয়েছেন বলে জানিয়েছেন ইজতেমা আয়োজকরা।

ইজতেমাস্থলে বয়ান ম থেকে মূল বয়ান উর্দুতে হলেও তাৎক্ষণিকভাবে আরবি, বাংলা, উর্দু,ফারসি,মালে ইংরেজী সহ কমপক্ষে ১০টি ভাষায় তা তরজমা করে শোনানো হচ্ছে ময়দানে আগত ধর্মপ্রাণ লাখো লাখো মুসল্লিদের। সড়ক, রেল ও নৌ-পথে নানা বয়সী মুসলমানদের টঙ্গীমুখী ঢল শুরু হয় বুধবার ও গতকাল বৃহস্পতিবার থেকে।

আজ শুক্রবার বিশ্ব ইজতেমা মাঠ সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ট্রাক, মিনি ট্রাক,প্রাইভেটকার, বাস ও সিএনজিতে করে তুরাগ তীরে নামছেন মুসল্লিরা। শীতের পোশাক, তাবু ও অতিরিক্ত খাবার নিয়ে আসছেন তারা। টঙ্গীর তুরাগ তীরে ঢল নেমেছে ধর্মপ্রাণ মুসল্লিদের। উত্তরা হাউজ এলাকা থেকে একমুখী সড়কে করা হয়েছে ডাইভারসন। যানবাহন থেকে নেমে হেঁটে মুসল্লিরা চলছেন তুরাগ তীরে। সবার লক্ষ্য ইজতেমা ময়দান। কারও মাথায়, কারও কাঁধে একাধিক ব্যাগ। স্থানীয় মুসল্লিদের হাতে জায়নামাজ। কনকনে শীত উপেক্ষা করে ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা সকাল থেকেই ছুটছেন তাবলিগের সবচেয়ে বড় জমায়েত বিশ্ব ইজতেমার উদ্দেশে। সড়কে শুধু মানুষ আর মানুষ। তুরাগ তীরে যাওয়ার সড়কে বন্ধ করে দেয়া হয়েছে যান চলাচল। সড়ক জুড়ে দ্রত গতিতে হেঁটে চলতে দেখা যায় মুসল্লিদের।

পুলিশ ও র‌্যাব সুত্রে জানা যায়, ইজতেমাকে কেন্দ্র করে নিরাপত্তা ব্যবস্থায় সাত স্তরে কাজ করছেন পুলিশের প্রায় ৮ হাজার সদস্য। পুরো ইজতেমার মাঠ ঘিরে সক্রিয় র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব), পুলিশ, বিজিবি, সেনাবাহিনীর সদস্য, ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স, গোয়েন্দা সংস্থা (এসবি এএনআই,ডিজিএফআই) ও আনসার সদস্যরা। আর এবার পুরো ইজতেমাকে ৯১টি খিত্তায় ভাগ করা হয়েছে। এর মধ্যে ৬৪ জেলার লোকজনকে খিত্তা অনুসারে বসার ব্যবস্থা করা হয়েছে। পুলিশের নিজস্ব ১৬টি ওয়াচ টাওয়ারসহ র‌্যাবের নিজস্ব ওয়াচ টাওয়ার থেকে পুরো ইজতেমা পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। এছাড়াও ইজতেমা মাঠের চারপাশে রয়েছে অসংখ্য সিসিটিভি ক্যামেরা। পুলিশের হোন্ডা টিমসহ সাদা পোশাকের পুলিশও কাজ করছে। তুরাগ নদেরও কয়েক জায়গায় অবস্থান নিয়েছেন পুলিশের সদস্যরা।

র‌্যাব-১ এর কমান্ডিং অফিসার (সিও) লেফটেন্ট্যান্ট কর্নেল শাফী উল্লাহ বুলবুল আজ বলেন, বিশ্ব ইজতেমা ১০-১২ এবং ১৭-১৯ তারিখ পর্যন্ত দুই পর্বে ইজতেমা অনুষ্ঠিত হবে। এজন্য প্রাক গোয়েন্দা নজরদারি, ইজতেমার সময় ফুল ডেপ্লয়মেন্ট এবং শেষেও মুসল্লিরা স্থান ত্যাগ পর্যন্ত আমাদের ‘কভার্ড অ্যান্ড ওভার্ড’ ফোর্স মোতায়েন থাকবে।

তিনি আরও বলেন, ১০টি অবজারভেশন পোস্ট থেকে পুরো এলাকায় নজরদারি থাকবে। কার-বাইক পেট্রোলিংয়ের পাশাপাশি তুরাগ নদীতে বোট পেট্রোলিং থাকবে। ইজতেমার মাঠে ২০টি প্রবেশপথে আর্চওয়ের মাধ্যমে প্রত্যেককে তল্লাশি করা হচেছ।

এদিকে, গাজীপুর পুলিশের উওর জোনের সার্জেন্ট নাজমুল হাসান আজ বলেন, এবার ইজতেমায় মুসল্লিদের জমাযত গতবারের তুলনায় বেশি। টঙ্গী রোডে ইজতেমা আগত যানবাহনের চাপ বাছে। সারা দেশ থেকে এখানে মুসল্লিরা আসছেন। বৃহস্পতিবার সারা দিন যানবাহনে করে মানুষ এসেছে। আজকেও অনেক মানুষ আসছে। এখানে ৫ স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থায় প্রশাসনের কর্মকর্তারা কাজ করছেন।

বিশ্বইজতেমা ও ইতিহাস থেকে জানা যায়, তাবলিগ শব্দের অর্থ হল প্রচার। ভারতের ইসলামি পন্ডিত মাওলানা ইলিয়াস আখতার কান্ধলভি ১৯২০ এর দশকে তাবলিগ জামাত নামের এই সংস্কারবাদী আন্দোলনের সূচনা করেন। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে বহু আরবি, ফার্সি ও উর্দু শব্দ এই সংগঠনের কর্মকান্ডে পরিভাষা হিসেবে যুক্ত হয়। ইসলামের প্রচার বা দাওয়াত বিশ্বব্যাপী পৌঁছে দিতে তাবলিগ জামাতের সদস্যরা ইজতেমায় একত্রে মিলিত হন। সেখান থেকেই দাওয়াতি কাজে বেরিয়ে যান চিল্লাধারী মুসল্লিরা।

১৯৪১ সালে দিলীøর নিজামউদ্দীন মসজিদের কাছে নূহ মাদ্রাসায় তাবলিগ জামাতের প্রথম ইজতেমা শুরু হয়। পরবর্তীতে বাংলাদেশে প্রথম ইজতেমা শুরু হয় ১৯৪৬ সালে রাজধানী ঢাকার কাকরাইল মসজিদে। তারপর ১৯৪৮ সালে চট্টগ্রামের হাজী ক্যাম্পে ও ১৯৫৮ সালে নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে এবং ১৯৬৬ সালে টঙ্গীর পাগাড় ও ১৯৬৭ সাল থেকে টঙ্গীর তুরাগ তীরে বর্তমান ইজতেমা ময়দানে শুরু হয় এই বার্ষিক ইসলামিক মহাসম্মেলন। যার নাম হয় বিশ্ব ইজতেমা।

আপনার মতামত জানানঃ