মেহেরপুরের অপরিকল্পীত ভাবে পুকুর খনন করায় হাজার হাজার বিঘা আবাদী জমি পানির নিচে

প্রকাশিতঃ ৪:২১ অপরাহ্ণ, বুধ, ৩১ আগস্ট ১৬

মেহেরপুর প্রতিনিধি ঃ মেহেরপুর গাংনী উপজেলা মৎস কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ যোগদান করার পর থেকে অনিয়ম দুর্নীতির মধ্যে দিয়ে অফিস পরিচালনা করে আসছেন। যেখানে সরকারী ভাবে আগষ্ট মাসে মাছের পোনা অবমুক্ত কার্যক্রম চলছে, সেখানে গোয়াল গ্রাম মরা নদীতে মৎস কর্মকর্তা নাম মাত্র ২০ কেজি মাছের পোনা অবমুক্ত করেছেন। অথচ তিনি ৫৯৬ কেজি পোনা অবমুক্ত করা হয়েছে বলে দাবি করেন। সরকারী নিয়ম অনুযায়ী খালগুলোতে শ্রমিক দিয়ে মাটি কাটার কথা থাকলেও সেখানে মাটি কাটা মেশিন দ্বারা অপরিকল্পিত ভাবে দায়সারা গোছের খাল খনন চলছে । গাংনীর মাদিয়ার বিলে শ্রমিক বাদে মেশিন দারা মাটি কাটা হয়েছে । একই উপজেলার ধর্মচাকী, জোড়পুকুরিয়া, চিৎলা, নিত্যানন্দপুর গ্রামের পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া মাদিয়ার বিলে অবৈধ ভাবে বাধ দিয়ে প্রভাবশালী মহল মাছ চাষ করে চলেছে। ফলে হাজার হাজার বিঘা আবাদী জমি পানির নিচে রয়েছে। মেহেরপুর কুষ্টিয়া সড়কের চোখতোলা নামক স্থানে ব্রীজের সামনে অপরিকল্পিত ভাবে পুকুর খনন করায় প্রায় ৩টি গ্রামের হাজার হাজার বিঘা ফসলী জমি ধানসহ পানির নিছে থাকার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এব্যপারে গ্রাম বাসি গাংনী মৎস কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদের কাছে প্রায় ১শ“ জন কৃষক লিখিত ভাবে অভিযোগ দিলেও কোন ব্যবস্থা গ্রহন না করায় এ মৌসুমে প্রায় হাজার বিঘা জমির ধান বিনষ্ট হয়েছে । কষৃকদের অভিযোগ মৎস কর্মকর্তা আবুল কালাম আজদকে টাকা দিয়ে সরকারী সিএ-বি রোডের ধারে অপরিকল্পিত ভাবে পুকুর খনন করেছে জোড়পুকুর গ্রামের আওয়ামীলীগ নেতা বকুল। এই পুকুর খনন করায় তটি গ্রামের আবাদী ফসল পানির নিচে আছে ।
বাঁশবাড়িয়া গ্রামের চাষি মোতালেব, আলআমিন, মোয়াজেল হোসেন, আশরাফ আলী, খলিলুর রহমান, গাজী মিয়া , বাচ্চু, হুদা, সিরাজ আলী জানান মাদিয়ার বিলে অপরিকল্পীত ভাবে পুকুর খনোন করেছে। গাংনী হাসপাতাল বাজারের জগলু মিয়া পানি বের হওয়ার পথে পুকুর খনন করেছে । পুকুর খননের সময় গাংনী উপজেলা মৎস অফিসারকে লিখিত ভাবে জানানো হলেও আজ অবধী কোন ব্যবস্থা গ্রহন করেনি । মাদিয়ার বিলে বাধ দিয়ে মাছ চাষ করা চাষিদের কাছ থেকেও পুকুর মালিক জগলুর কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা ঘূষ নিয়েছেন বলে একটি নির্ভযোগ্য সূত্র জানায়। জোড়পুর গ্রামের চাষি আওয়ামীলীগ নেতা নাসির জানান, সরকারী সি,এম,বি রোডের ধারে চোখতোলা নামক ন্থানে ব্রীজের সামনে পুকুর খনোন করায় আমাদের ফসলসহ তটি গ্রামের প্রায় হাজার বিঘা জমি ফসল ধান পানির নিচে রয়েছে । ধর্মচাকী গ্রামের মেম্বারসহ তিনি ও গ্রামের চাষিরা মিলে মৎস কর্মকর্তার কাছে লিখিত ভাবে অভিযোগ দেওয়া হলেও অজ অবধী কোন ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। ফলে হাজার হাজার বিঘা জমির ধান বিনষ্ট হয়েছে ।

গাংনী মৎস কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ জানান, চোখতোলা ব্রীজের নামনে পুকুর খনোনের বিষয়ে কেউ অভিযোগ করেনি, অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে । তবে গাংনী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে অভিযোগ দিয়েছে । তিনি সেখানে গিয়েছেন বাঁধ সরিয়ে নেওয়ার কথা বলেছেন ।

 

আপনার মতামত জানানঃ