সকারিভাবে পাট বিক্রি হলে লাভবান হবেন চাষিরা

প্রকাশিতঃ ২:২৯ অপরাহ্ণ, শনি, ১৪ সেপ্টেম্বর ১৯

অর্থনৈতিক প্রতিবেদকঃ ‘এবার পাটের দাম কম। গত তিন মাস ধইরা যেই শ্রম দেওয়া লাগছে, তা জলে গেছে। এত কম দামে পাট বিক্রি করে পোষায় না।’ এমনটিই বলছিলেন মুন্সিগঞ্জের পাট চাষিরা।

সরকারিভাবে পাট না কেনার কারণে কম দামেই স্থানীয় পাইকার ব্যবসায়ীদের কাছে পাট বিক্রি করতে হচ্ছে চাষিদের।
জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিস সূত্রে জানা যায়, জেলায় মোট তিন হাজার ৫৬৩ হেক্টর জমিতে পাট চাষ হয়েছে। এর মধ্যে মুন্সিগঞ্জ সদর উপজেলায় ৫০৮ হেক্টর, টংগিবাড়ী উপজেলায় ৭৩৫ হেক্টর, শ্রীনগর উপজেলায় ৬৫ হেক্টর, সিরাজদিখান উপজেলায় এক হাজার ৭৩০ হেক্টর, লৌহজং উপজেলায় ৩২০ হেক্টর এবং গজারিয়া উপজেলায় ২০৫ হেক্টর জমিতে পাট চাষ হয়েছে।মুন্সিগঞ্জ জেলায় পাট চাষ পাট বিক্রি করেও লাভের মুখ দেখতে পাচ্ছেন না মুন্সিগঞ্জের চাষিরা। যেই ঋণ ও জমানো টাকা দিয়ে চাষ শুরু হয়েছিল, শুধু সেই খরচ উঠছে। অনেকের আবার সেটুকুও নেই। লোকসান গুণে এখন হতাশাগ্রস্ত। প্রতি মণ পাটে মজুরিসহ খরচ পড়েছে প্রায় এক হাজার ৫০০ টাকা। চাষিরা বর্তমানে প্রতি মণ পাট এক হাজার ৫০০ টাকা থেকে এক হাজার ৫৫০ টাকায় বিক্রি করতে পারছে।
টংগিবাড়ী উপজেলার বলই গ্রামের চাষি আলী হোসেন বলেন, ৪০ মণ পাটের মধ্যে মাত্র চার মণ পাট মণপ্রতি এক হাজার ৯০০ টাকা দরে বিক্রি করতে পেরেছিলাম। এখন পাইকার ব্যবসায়ীরা মণপ্রতি এক হাজার ৫০০ টাকা করে বলছে। তাই পাট এখনও বিক্রি করি নাই। প্রতি মণ পাট চাষে যে টাকা খরচ হয়েছে, তাতে এক হাজার ৫০০ টাকা মণ দরে পাট বিক্রি করে কোনো লাভ নেই। মুন্সিগঞ্জ জেলায় পাট চাষ । অধিদফতরের মুন্সিগঞ্জ জেলা প্রশিক্ষণ কর্মকর্তা মো. শফিকুল হাসান জানান, প্রতি মণ পাটে কৃষকের খরচ পড়েছে প্রায় এক হাজার ৫০০ টাকা। এখন পাটের যে দাম, তাতে কৃষকের লাভ থাকছে না। চাষিদের কাছ থেকে সরকারিভাবে পাট কেনার কোনো ব্যবস্থা নেই।
জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, মুন্সিগঞ্জ সদর উপজেলায় দেশি পাট আবাদ হয়েছে ৪৮৭ হেক্টর ও তোষা পাট আবাদ হয়েছে ২১ হেক্টর জমিতে।

 

আপনার মতামত জানানঃ