সাভারে যানবাহন থেকে লাখ লাখ টাকা চাঁদাবাজি-প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ ঢাকার শিল্পা লের ব্যস্ততম হাইওয়ে রোড ও বিভিন্ন সড়কের যানবাহন থেকে দালাল কর্তৃক অবাধে চলছে লাখ লাখ টাকা চাাঁদাবাজি। নামে বে-নামে একটি চক্র নতুন নতুন কৌশলে মাসিক মানফি (কথিত মানতি) চাঁদা নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে।

রবিবার ( ৫ মে, ২০১৯ ইং) সরেজমিনে গিয়ে জানা গেছে, স্থানীয় জিয়া ওরফে কালো মোটা জিয়া নামের এক যুবক সাভার ট্রাফিক জোন এলাকা থেকে নতুন কৌশলে চাঁদাবাজি করছে বলে অভিযোগ, এর আগে এ বিষয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশ হলে এখন আবার অন্য লোকের মাধ্যমে প্রতিটি মাহিন্দ্রা থেকে প্রতিদিন ১৫০ টাকা চাঁদা নেয়া হয়। গাড়ি চালক মোঃ সাদ্দাম মিয়াসহ কয়েকজন চালক জানান, জিয়া প্রতিদিন প্রতিটি মাহিন্দ্রার চালকের কাছ থেকে ১৫০ টাকা চাাঁদা নিচ্ছে, আর এ কথা কাউকে না বলার জন্য চালকদেরকে ভয় দেখিয়েছে বলে তারা জানায়। চালকরা আরও বলেন, নতুন নতুন কৌশলে পরিবহনে চলছে চাঁদাবাজি, এ যেন দেখার কেউ নেই।

অন্যদিকে গত কয়েক দিন ধরে আশুলিয়ার নরসিংহপুর এলাকায় চলাচলরত অটোরিকশা থেকে টোকেনের মাধ্যমে চাঁদা নেয়ার অভিযোগ উঠে আশুলিয়া থানা যুবলীগের বিরুদ্ধে, কিন্তু চাঁদা আদায় সংক্রান্ত প্রতিবেদন প্রকাশিত হলে এরপর আশুলিয়া থানা যুবলীগের আহবায়ক কবির সরকার বলেন, যুবলীগের নেতাকর্মীরা চাঁদাবাজ নয়, আর যারা যুবলীগের নাম ভাঙ্গিয়ে চাঁদা আদায় করছে, তাদেরকে আইনের আওতায় আনা হোক। এ বিষয়ে কবির সরকার গণমাধ্যমকে বলেন, যুবলীগের বা আমার জনপ্রিয়তাকে ঈর্ষান্বিত হয়ে একটি মহল আমার রাজনৈতিক সুনাম ক্ষুন্ন করার জন্য বদনাম করার চেষ্টা করছে। এই চাঁদাবাজ চক্রটি দলীয় কোনো নেতা কর্মী নয়। কবির সরকার আরও বলেন, আমি গণমাধ্যমকর্মী ভাইদের আহŸান জানাই যে, আপনারা অনুসন্ধান করে সঠিকভাবে সত্য প্রতিবেদন প্রকাশ করুন।

গত কয়েকদিন অনুসন্ধানে জানা গেছে, আশুলিয়া থানা যুবলীগের আহŸায়ক কবির সরকারের বাবার রেখে যাওয়া কোটি কোটি টাকার সম্পদ রয়েছে, তিনি গরীবের বন্ধু। তার নাম ভাঙ্গিয়ে যারা অপরাধমূলক কর্মকান্ড করছে তারা কেউ যুবলীগের নেতা কর্মী নয়। আশুলিয়ার নরসিংহপুর এলাকায় জিয়া নামের যে, যুবক চাঁদা আদায় করছে, সে কোনো দলীয় নেতা কর্মী নয়। এ বিষয়ে স্থানীয়রা জানান, জিয়া নামের ব্যক্তি ক্যাফে ঊষা হোটেলের সামনে ঝাড়– দিতো, ট্রাফিক পুলিশের টিআই জনাব হাবিবুর রহমান সাহেব জিয়াকে কমিউনিটি পুলিশের পোশাক দেন, এরপর থেকে চাঁদাবাজি করা শুরু করে জিয়া। এরপর হাবিব টিআই বদলি হয়ে গাজীপুর যাওয়ায় এরপর আসেন টিআই সেকেন্দার আলী, তিনি আসার পর জিয়ার চাঁদাবাজি বন্ধ হয়। টিআই সেকেন্দার বদলি হওয়ার পর জামগড়া আসেন (টিআই) আমজাদ হোসেন, এরপর জিয়া কিছুদিন ডিউটি করে, বিভিন্ন গাড়ি থেকে চাঁদা আদায় করার বিষয়টি জানাজানি হলে, আমজাদ সাহেব তাকে ডিউটি থেকে বিরত থাকার জন্য বলেন, এবং জামগড়া এলাকা ত্যাগ করে জিয়া।

জানা গেছে, সাভার, বিশমাইল, নবীনগর, নয়ারহাট, বাইপাইল, শ্রীপুর, ভাদাইল মোড়, জামগড়া, নরসিংহপুর, জিরাবো ও পুরাতন আশুলিয়াসহ বিভিন্ন স্পট থেকে প্রতিদিন হাজার হাজার টাকা চাঁদা আদায় করা হয়, অনেকেই বলেন, নতুন নতুন কৌশলে চাঁদা আদায় করছে কিছু অসাধু পুলিশের দালাল চক্র, কৌশলে নাম ভাঙ্গাচ্ছে দলীয় নেতা কর্মীদের, তাই লাইসেন্সবিহীন অবৈধ যানবাহনের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হোক এবং যারা প্রকৃত সন্ত্রাসী চাঁদাবাজ তাদের আটক করে আইনের আওতায় আনার দাবি জানান এলাকাবাসী।

আশুলিয়ার শ্রীপুরের স্থানীয় প্রভাবশালী বাবুল নামের এক ব্যক্তির ৩-৫ জন লাইনম্যান প্রতিদিন ৫-৭হাজার টাকা চাঁদা আদায় করে বলে তারা জানান, এ বিষয়ে বাবুলের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ওদের কথা মিথ্যা, শ্রীপুরে ড্রাইভারদের কোনো সমস্যা হলে আমি দেখি। ৫-৭হাজার টাকা চাঁদা নেওয়ার বিষয়টি সে কৌশলে এড়িয়ে যান।

উক্ত ব্যাপারে ঢাকা জেলা ট্রাফিক জোন, সাভার (টিআই, প্রশাসন) মোঃ আবুল হোসেন এ প্রতিনিধিকে বলেন, নরসিংহপুর আমাদের পুলিশ ডিউটি করেন না, তিন চাকা অটোরিকশা, বা মাহিন্দ্রা এবং লাইসেন্সবিহীন কোনো যানবাহন চলবে না রোডে, আর চাঁদাবাজ সে যেই হোক না কেন তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। আর জিয়া নামের ওই চাঁদা আদায়কারীর বিষয়ে তিনি বলেন, আমি বিষয়টি দেখবো।

উক্ত ব্যাপারে সাভার হাইওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. জাহিদুর রহমান জাহিদ বলেন, আমি এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নিয়েছি, হাইওয়ে রোডের শ্রীপুর প্রায় ১০০ মাহিন্দ্রা ও বিভিন্ন অবৈধ যানবাহন চলছে, কিন্তু পুলিশ একদিকে ওদেরেকে সরিয়ে দিয়ে আসলে কিছু সময় পর আবার যা তাই। জনগণের প্রশ্ন কিছু পুলিশ সদস্য সরকারের সুনাম নষ্ট করতে দালাল কর্তৃক চাঁদা আদায় করেন কেন, সরকার কি তাদের বেতন ভাতা কম দেয়? বর্তমান সরকার পুলিশের বেতন ভাতা বৃদ্ধি করে কি লাভ হলো? পুলিশই যদি অপরাধ করেন তাহলে অপরাধীরা আইনের ফাঁক দিয়ে বেঁচে যাবে। তাই উক্ত ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন সচেতন মহল। পর্ব ২।

আপনার মতামত জানানঃ